1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০২২, ০৫:৪৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
এখন আর সুনামগঞ্জে যেতে হবে না জগন্নাথপুরে গ্যাস পাওয়া যাবে.. পরিকল্পনামন্ত্রী শান্তিগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবক দলের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন নবীগঞ্জের বেগমপুরে লাটিয়াল বাহিনীর কান্ড! সংখ্যালঘু পরিবারের উপর বেপরোয়া সন্ত্রাসী হামলা সাংবাদিক আব্দুল বাছিত খানের উপর হামলার প্রতিবাদে শেরপুর প্রেসক্লাব এর মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ শান্তিগঞ্জে বর্ণিল আয়োজনে শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উদযাপন

The War Against Dog Carriers

Best Cam Sites? জগন্নাথপুরে ৫ দিন পর কিশোরী নিজ এলাকা থেকে উদ্ধার সুনামগঞ্জে জেলা আওয়ামীলীগের বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে গ্রামীণ ব্যাংক এর পক্ষ হতে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের মধ্যে নগদ অর্থ ও গাছ বিতরণ

শাহ আরেফিন ও অদ্বৈত মৈত্রী সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনকালে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী

  • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ১২ এপ্রিল, ২০১৮
  • ৫৭৬ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

সুনামগঞ্জের হাওরের কাজ আগে করতে হবে এটি প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ

 

 

রুজেল আহমদ,সুনামগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি::

সুনামগঞ্জের হাওরবাসী প্রকৃতির সঙ্গে যুদ্ধ করে বসবাস করেন। হাওর এলাকায় না আসলে আমার অভিজ্ঞতা হতো না, হাওর যে কতো বিস্তৃত তা আমার জানা ছিলো না। গেলবারের আগাম বন্যায় হাওরবাসী যে কতো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তা আমরা ঢাকায় বসে বুঝতে পেরেছি। আগাম বন্যার ক্ষতি হাওরবাসী তাড়াতাড়ি কাটিয়ে ওঠতে পারেন সে জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সমস্ত শক্তি প্রয়োগ করেছেন হাওরবাসীর কল্যাণে।

 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হাওরবাসীর উন্নয়নে অত্যন্ত আন্তরিক। কারণ প্রধানমন্ত্রীর গোপালগঞ্জ হাওর অধ্যুষিত এলাকা। তিনি মনে করেন গোপালগঞ্জের সমস্যা ও সুনামগঞ্জের সমস্যা একই রকম। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে নির্দেশনা দিয়েছেন হাওরের প্রতি বিশেষ নজর দিতে। প্রাধনমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী হাওরবাসীর জন্য ব্যাপকভাবে বিশুদ্ধ পানীয় জলের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। চলতি অর্থবছরে হাওরবাসীর জন্য ৮৫০টি টিউবওয়েল দেয়া হয়েছে এছাড়া নুতন করে আরও ৮৫০টি বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

 

মোট ১৭০০ টিউবওয়েল স্থাপন করা হবে হাওরবাসীর সুপয়ে পানীয় জলের জন্য। এতো সবের পরও আরও বরাদ্ধ রয়েছে, হাওরের আর্সেনিক আক্রান্ত এলাকায় ৩ হাজার ৮৪৪ টি নলকূপ স্থাপন করা হবে। প্রায় ৫টি বাড়িতে একটি করে নলকূপ দেয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এ হিসেবে ৫ হাজার ৭০০ নলকূপ স্থাপন করা হবে। হাওরবাসীর দুশ্চিন্তার কোন কারণ নেই। হেলিকপ্টারে আসার সময় উপর থেকে যা দেখলাম সবই তো স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের কাজ আর তো কোন কাজ দেখা যায়নি হাওরে। যেদিকে যাই আর যেদিকে চাই শুধু এলজিইডির কাজ আর এলজিইডির কাজ। হাওর এলাকায় ৫০০ কিলোমিটার সড়ক নির্মাণ করেছে এলজিইডি। হাওরের উন্নয়নে আমরা আরও করবো।

 

আগে হাওর এলাকায় ২৭টি সেতু নির্মাাণের প্রস্তাবনা ছিলো এখন ১৪০ টি সেতু হাওর এলাকায় নির্মাণ করা হবে। হাওর এলাকায় ব্রীজ কালভার্টের প্রয়োজনীয়তা কথা আমরা জানি। তারপরও যা লাগবে হাওরবাসী তা পাবেন। হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধ যথাযথ ভাবে নির্মাণ করতে পানি সম্পদ মন্ত্রী তিনবার সুনামগঞ্জ সফর করেছেন। ফসলরক্ষা বাঁধ নির্মাণে বিষয়ে তিনি সরাসরি তদারকি করেছেন। পানি সম্পদক মন্ত্রী তাঁকে বলেছেন বাংলাদেশের আর কোথায় কাজ হোক না হোক সুনামগঞ্জের হাওরের কাজ আগে করতে হবে এটি প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ।

 

প্রয়াত আয়ুব বখত জগলুল সুনামগঞ্জ পৌরসভার জনপ্রিয় মেয়র ছিলেন। তাঁর মৃত্যুর পর জগলুলের ছোট ভাই এখন উপ নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছেন। তিনি নব নির্বাচিত মেয়র নাদের বখতকে উদ্দেশ্য করে বলেন, তুমি ঢাকায় এসো মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তোমার শপথ করাবেন। আওয়ামীলীগ সরকার কাউকে অবহেলা করে তা কিন্তু বলা যাবে না।

 

সুনামগঞ্জের সংসদ সদস্যরা এখানে রয়েছেন এলাকার উন্নয়নে তাদের সঙ্গে আমার সবসময় যোগাযোগ হয়। আমি নিজে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে পরীক্ষায় পাশ করার আগে চাকরি করেছি। এই ডিপার্টমেন্টের প্রতিষ্ঠাতা আমি। আমার জীবনের শুরু ছিলো এই মন্ত্রণালয়ে জীবনের শেষ বোধ হয় এই মন্ত্রনালয়েই হবে। আমি সারা জীবন এই মন্ত্রণালয়ে কাজ করেছি। শুরুতে তখন সেখানে একজন ইঞ্জিনিয়ারও ছিলো না, এখন দেশের সর্ববৃহৎ ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্ট হচ্ছে এই মন্ত্রণালয়ের অধীনে। মন্ত্রনালয়ের অধীনে এখন স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ও পাবলিক হেলথ ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্ট। গ্রামের মানুষের উন্নয়নের জন্য স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয় দায়িত্বপ্রাপ্ত। এ মন্ত্রনালয়ের সহকারী প্রকৌশলী দিয়ে যাত্রা শুরু করে পরে চীফ ইঞ্জিনিয়ার হয়ে মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী হয়েছি আমি। আমার রক্তের সঙ্গে এ মন্ত্রনালয় জড়িত। হাওরবাসী আমাকে যে ভাবে বরণ করেছেন তা দেখে আমি অভিভুত। তিনি মধ্যনগর উপজেলা ঘোষণা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, মধ্যনগর উপজেলা ঘোষণা দেয়ার বিষয়টি আওয়ামীলীগের আমলে পাস করা। আওয়ামীলীগ ক্ষমতার বাইরে যাওয়ার পরই এটি বাতিল করা হয়েছে।

আমার কাছে মধ্যনগর উপজেলা ঘোষণার প্রস্তাব আসলেই আমি পরবর্তী নিকার সভায় এটা পাস করে দেবো। আমি ফেরত গিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে আলাপ আলোচনা করবো এবং পরবর্তী নিকার বৈঠকে এটি পাস করে দেবো। তিনি বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার সাজা প্রসঙ্গে স্থানীয় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, খালেদা জিয়াকে জেল তো আওয়ামীলীগ সরকার দেয় নাই। মামলাও আওয়ামীলীগ সরকার দেয় নাই। ১৫ বছর ধরে এ মামলা চলছে। মামলা থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য যত আইনি প্রক্রিয়া রয়েছে সবই বিএনপি প্রয়োগ করেছে। এটা মামলায় ওপেন কোর্টে বিচার হয়েছে। বিচারের রায় মোতাবেক খালেদা জিয়ার সাজা হয়েছে। পৃথিবীর সকল দেশে সাজাপ্রাপ্ত আসামী যেভাবে থাকে খালেদা জিয়া তার ব্যতিক্রম হতে পারেন না। তাকে জেল তো সরকার দেয়নি। কোর্ট তাকে জেল দিছে। বিএনপি যদি খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে চায় তাহলে আদালতের মাধ্যমে মুক্ত করতে হবে। সরকারের কোন ক্ষমতা নেই খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে দেয়ার। মুক্ত করার একটা পথ রয়েছে তিনি যদি মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছে খালেদা জিয়া যদি তার দোষ স্বীকার করে মার্সি আবেদন করেন তাহলে মহামন্য রাষ্ট্রপতি দেবেন কি না জানি না। তবে উনার সে ক্ষমতা রয়েছে।

 

তারপরও কথা থেকে যায় রাষ্ট্রপতি হয়তো খালেদা জিয়ার সাজা মওকুফ করতে পারেন কিন্তু অপরাধের বেলায় আদালতের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে। খালেদা জিয়া নিজেও জানেন উনার বা সরকারের সাধ্য নেই তাকে বের করার। রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন যদি উচ্চ আদালত থাকে মুক্ত করে তাহলে এক সঙ্গে নির্বাচন করবেন তাতে কোন অসুবিধা নেই। আজ বৃহস্পতিবার বেলা ১ টায় তাহিরপুর উপজেলার স্থানীয় সরকারের অধীন সংস্থা ও দ্পতর সমুহের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতিবিনময়কালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্থানীয় সরকার ,পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী খন্দকার মোশারফ হোসেন এসব কথা বলেন। তিনি আরও বলেন র্দুযোগপুর্ন আবহওয়ার মধ্যে আমার এখানে আসা খুব কঠিন ছিলো। আপনাদের এলাকার এমপি রতন আসলেই রতœ সে এলাকার মানুষের কল্যাণে উন্নয়ন মুলককাজের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের জন্য আমাকে হেলিকপ্টারে করে নিয়ে এসেছে। সে এলাকার মানুষের উন্নয়নের বিষয়ে খুব আন্তরিক আমি তাকে মানুষের জন্য কিছু করায় তাকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জানাই।

মতবিনিয় সভায় সুনামগঞ্জের সমস্যা ও সম্ভাবনার কথা তুলে ধরে স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক মোঃ সাবিরুল ইসলাম। সভায় বক্তব্য রাখেন, সুনামগঞ্জ ১ আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন, সুনামগঞ্জ ২ আসনের সংসদ সদস্য ড. জয়া সেনগুপ্তা, সুনামগঞ্জ ৫ আসনের সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক, সুনামগঞ্জ ৪ আসনে সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট পীর ফজলুল রহমান মিসবাহ, সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট শামছুন্নাহার বেগম শাহানা রব্বানী, জেলা আওয়ামলীগের সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মতিউর রহমান, স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খান, এলজিইডি প্রধান প্রকৌশলী মোঃ আবুল কালাম আজাদ প্রমুখ। স্থানীয় সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন বলেন, চারদিকে হাওর বেস্টিত সুনামগঞ্জ ১ আসন আগে ছিলো একটি দূর্গম জনপদের নাম।

 

আমি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর এ আসনের জামালগঞ্জ, ধর্মপাশা ও তাহিরপুর উপজেলা ও মধ্যনগর থানাসহ বিভিন্ন এলাকায় অবকাঠামোগত উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। জেলার বৃহত্তম এ আসনে এসরকারের আমলে ৫০০ কিলোমিটার পাকা সড়ক নির্মাণ সহ যোগাযোগ ব্যবস্থার ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। শিক্ষার দিকে থেকে পিছিয়ে পড়া জনপদ ধীরে ধীরে শিক্ষার মানোন্নয়ন সহ সর্বক্ষেত্রে এগিয়ে যাচ্ছে।

 

বর্তমান সরকারের আমলে এ আসনের বেশ কয়কটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জাতীয় করণ করা হয়েছে। সুনামগঞ্জ ১ এর উন্নয়ন মানুষের চোখে দেখা যায়। অবহেলিত এ অঞ্চলের জনগন প্রাধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের রোড ম্যাপে ওঠে গেছে। তিনি আরও বলেন , আমি হাওরবাসী সুখে দুখে পাশে ছিলাম আছি থাকবো। হাওরবাসীর সঙ্গে আমার আত্মার বন্ধন গড়ে ওঠেছে, কেউ চাইলে এবন্ধন ছিন্ন করতে পারবে না। প্রত্যেকটি এলাকায় সুষম উন্নয়ন হয়েছে উন্নয়ন বঞ্চনার ইতিহাস বর্তমান সরকার মুছে দিয়েছে। মতবিনিময় সভার পর মন্ত্রী ও আমন্ত্রিত অতিথিরা উপজেলার উত্তরবড়দল ইউনিয়নের বিন্নাকুলি বাজার সংলগ্ন যাদুকাটা নদীতে ৭৫০ মিটার দীর্ঘ শাহ আরেফিন ও অদ্বৈত মৈত্রী সেতু, ৪৪০ মিটার দীর্ঘ বাদাঘাট কাউকান্দি টেকেরঘাট সড়কের পাটলাই নদীতে সেত নির্মাণের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন করেন। এছাড়া মন্ত্রী মহেষখলা টেকেরঘাট লাউড়েরগড় সড়কের কলাগাঁও ছড়ার উপর ৭৫ মিটার দীর্ঘ সেতু, মহেষখলা টেকেরঘাট লাউড়েরগড় সড়কের মহেষখলা টেকেরঘাট লাউড়েরগড় সড়কের রনজু ছড়ার উপর ৩৮ মিটার দীর্ঘসেতু নির্মাণের উদ্বোধন করেন। পরে বিকেলে বিন্নাকুলি বাজারের মাঠে তাহিরপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ সদস্য আবুল হোসেন খানের সভাপতিত্বে ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আলমগীর হোসেন খোকন ও সাংবাদিক আমিনুল ইসলামের পরিচালনায় জনসভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামীলীগ নেতা ও বাদাঘাট ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহসভাপতি আলহাজ্ব আলকাছ উদ্দিন খন্দকার, সাধারন সম্পাদক অমল কান্তি কর, তাহিরপুর কয়লা আমদানী কারক গ্রুপের সাধারন সম্পাদক ও উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা মোশারফ হোসেন, জেলা শ্রমিকলীগে আহ্বায়ক সেলিম আহমদ প্রমুখ। এছাড়া জনসভায় আওয়ামীলীগ ও তার অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জিএস/জুয়েল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD