1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ১২:১৭ পূর্বাহ্ন
হেড লাইন
নবীগঞ্জের রইছ গঞ্জ বাজারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড! ইলেকট্রনিক দোকান সহ ৩টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পুঁড়ে ছাঁই রানীগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষকের ইন্তেকাল: জানাযা সম্পন্ন শান্তিগঞ্জে চেয়ারম্যান পূত্রের অতর্কিত হামলায় একজন নিহত জগন্নাথপুরে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি কোম্পানীগঞ্জে বন্যাদুর্গতদের ত্রাণ বিতরণ করলেন জেলা প্রশাসক কানাইঘাটে বন্যা দুর্গত এলাকা পরিদর্শনে বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির চেয়ারম্যান বন্যাকে ভয় পাবেন না শেখ হাসিনা সরকার জনগণের পাশে আছে……এম এ মান্নান আশ্রয়কেন্দ্রে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ কানাইঘাটে বন্যা দুর্গত এলাকা পরিদর্শনে সিলেটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সিলেটে বন্যা কবলিত মানুষের র‌্যাব-৯, চিকিৎসা সেবা ও ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ জগন্নাথপুরে বন্যায় জনজীবন বিপর্যস্ত: লোকজনের আর্তনাদ বাড়ছে

জগন্নাথপুরে কুশিয়ারা নদীর তীরবর্তী এলাকায় বাদাম চাষ বাম্পার ফলনের প্রত্যাশা

  • Update Time : শুক্রবার, ১৭ মে, ২০২৪
  • ৭১ শেয়ার হয়েছে

শাহ এস এম ফরিদ::
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার কুশিয়ারা নদীর চর সহ চাষের উপযোগী মাটিতে অন্যতম লাভজনক ফসল চিনা বাদাম চাষাবাদ হচ্ছে। রানীগঞ্জ, পাইলগাঁও ইউনিয়ন সহ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অন্য বছর গুলোর তুলনায় এ বছর অধিক জমিতে বাদাম চাষ করতে দেখা গেছে। বিস্তীর্ণ কুশিয়ারা নদীর চর ও তীরবর্তী এলাকায় বাদামের সবুজ পাতায় বাতাসে দোল খাচ্ছে। অল্প খরচে অধিক লাভ হওয়ায় বাদাম চাষে ঝুঁকছেন এসব এলাকার কৃষকরা।

এবার আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় চলতি বাদামের মৌসুমে ফলন ভালো হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে আশাবাদী স্থানীয় কৃষি অফিস। রানীগঞ্জ ইউনিয়নের কৃষক মুজিবুর রহমান বলেন, কৃষি অফিসের পরামর্শে কুশিয়ারা নদীর চরে উপযোগী মাটিতে এবার ১০ বিঘা জমিতে বাদাম চাষ করেছি, বোনা থেকে নিয়ে খরচ হয়েছে প্রায় ৬৫ হাজার টাকা, ৬০ থেকে ৭০ মন ফলন হবে। একই ইউনিয়নের টেংরাখালী গ্রামের কৃষক মশাহীদ আলী বলেন, গতবছর ৫ বিঘা জমিতে বাদাম চাষ করে লাভবান হয়েছি, এবছর প্রায় ২৫ বিঘা জমিতে বাদাম চাষ করেছি, লাখ টাকার বেশি খরচ হয়েছে, ১৫০ থেকে ১৬০ মন বাদাম উৎপাদন হবে। পাইলগাঁও ইউনিয়নের সোনাতলা গ্রামের কৃষক ফয়জুর রহমান শাহীন বলেন, কৃষি অফিসের পরামর্শ ও সরকারি প্রণোদনায় প্রথমবার দুই বিঘা জমিতে বাদাম চাষ করেছি, প্রায় ১৮ হাজার টাকা খরচ হয়েছে, ১২ থেকে ১৪ মন উৎপাদন হবে। রানীগঞ্জ ইউনিয়নের কুশিয়ারা নদীর তীরবর্তী হরিণা কান্দি গ্রামের শতাধিক কৃষকেরা সরকারি প্রণোদনা ও নিজ উদ্যোগে চলতি বছর প্রায় ৩৮ হেক্টর অনাবাদি জমিতে বাদাম চাষ করেছন।

এলাকার এসব কৃষকদের সাথে আলাপ করলে তারা জানান, কুশিয়ারা নদীর তীরবর্তী আমাদের শতশত একর অনাবাদি জমি রয়েছে, জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের পরামর্শ ও সরকারি সহযোগিতায় এবছর আমরা অনাবাদি গুলো চাষের আওতায় নিয়ে এসেছি। হরিণা কান্দি গ্রামের কৃষক দুলেন দাশ বলেন, আমরা গতবছর কয়েক জন কৃষক মিলে ২০ বিঘা জমিতে বাদাম চাষ করে লাভবান হয়ে এবছর আমাদের গ্রামের শতাধিক নিজ উদ্যোগে প্রায় ৩৮ হেক্টর জমিতে বাদাম চাষ করেছি। ফলন ভালো হয়েছে, আমরা বাদামের সঠিক বাজারদর পাওয়ার প্রত্যাশা করি। রৌয়াইল গ্রামের কৃষক আজির উদ্দিন বলেন, এবার আমি ৩ বিঘা জমিতে বাদাম চাষ করেছি। সরকারিভাবে সাহায্য সহযোগিতা পেলে সামনে আরও বেশি করে আবাদ করবো। চাহিদা বেশি থাকায় কুশিয়ারা নদীর তীরবর্তী এলাকায় সবজির পাশাপাশি বাদাম চাষে কৃষকদের দিন দিন আগ্রহ বাড়ছে। বাদাম চাষী কৃষকদের কাছ থেকে জানা যায়, প্রতি বিঘা জমিতে বাদাম চাষ করতে খরচ হয় ৮ থেকে ১০ হাজার টাকা, সঠিক পদ্ধতি ও পরিচর্চা করলে প্রতি বিঘা জমিতে ৬ থেকে ৭ মণ পর্যন্ত বাদাম উৎপাদন হয়। প্রতি মণ বাদাম সাড়ে ৪ হাজার টাকা থেকে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত বাজারদরে বিক্রি হয়। তবে বাদাম শুকিয়ে বিক্রি করলে দিগুণ মূল্য পাওয়া যায়।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল-বশিরুল ইসলাম বলেন, জগন্নাথপুর উপজেলায় অনাবাদি পতিত জমি রয়েছে, এসব জমি চাষের আওতায় আনা হচ্ছে। প্রধান মন্ত্রীর দিকনির্দেশনা অনুযায়ী এক ইঞ্চি জায়গা যেন খালি না থাকে, এসব জমি চাষাবাদের আওতায় আনতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি অফিসার কাওসার আহমেদ বলেন, আধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে সিলেট অঞ্চলের কৃষি উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় অনাবাদি জমিতে চিনা বাদাম চাষ হয়েছে। চলতি মৌসুমে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় উপজেলার রানীগঞ্জ ও পাইলগাঁও ইউনিয়নের কুশিয়ারা নদীর তীরবর্তী এলাকায় কৃষকদের বাদাম চাষে উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে। পরিত্যক্ত অনাবাদি জমিতে লাভজনক ফসল চিনা বাদাম, ভূট্রা, মিষ্টি কুমড়া, মিষ্টি আলু সহ মৌসুমি সবজি চাষাবাদ হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2024
Design and developed By: Syl Service BD