1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৯:২৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
মানুষের ভালোবাসা নিয়ে বাচঁতে চাই -পীর মিসবাহ এমপি অবৈধ অভিবাসীদের ফেরাতে ঢাকার ওপর ইইউ’র চাপ, ভিসা কড়াকড়ির প্রস্তাব সুনামগঞ্জে বিশ্ব কুষ্ঠ দিবস পালিত জগন্নাথপুরে একটি দোকান আগুনে পুড়ে ছাই: প্রায় ৩লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি আজমিরীগঞ্জে বিয়ের দবিতে প্রেমিকার অনশন সুনামগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতির পিতার মৃত্যুতে জগন্নাথপুর উপজেলা ও পৌর স্বেচ্ছাসেবক দলের শোক প্রকাশ কানাইঘাট থানার নতুন ওসিকে বরণ ও বিদায়ী ওসিকে সংবর্ধনা প্রদান বেদে পল্লীতে শীতবস্ত্র বিতরণ বার্মিংহাম ওয়েষ্ট মিডল্যান্ড বিএনপি ও বার্মিংহাম সিটি বিএনপির যৌথ উদ্যোগে বিশাল প্রতিবাদ সভা আলিম ১ম বর্ষ ও ফাজিল ১ম বর্ষের নবীন বরণ অনুষ্ঠান-২০২৩ সম্পন্ন

গাছ বাঁচাতে স্যালাইন !

  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ২০ এপ্রিল, ২০১৮
  • ১১৫৫ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

শোনতে অদ্ভুত লাগলেও ঘটনা সত্যি। প্রায় সাতশ বছরের পুরো বটগাছ বাঁচাতে দেয়া হচ্ছে স্যালাইন। ভারতের তেলেঙ্গানা রাজ্যে এই অভিনব পদ্ধতিটি নিয়ে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো প্রতিবেদন করা শুরু করেছে।

এ বিষয়টি নিয়ে বৃহস্পতিবার একটি সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশ করে বিবিসি। ওই প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, মূলত উইপোকার আক্রমণ থেকে গাছটিকে বাঁচাতেই বন বিভাগ এ স্যালাইন দেওয়ার বিষয়টি মাথায় এনেছে। বন বিভাগ বলছে, বেশ কিছু স্যালাইনের বোতলে করে কীটনাশক মিশ্রিত ওষুধ বটগাছের বিভিন্ন শাখায় দেওয়া হচ্ছে।

কীটনাশক দেওয়ার ক্ষেত্রে স্যালাইনের বোতল ও পাইপ কেন ব্যবহার করা হচ্ছে, তারও কারণ বিবিসির কাছে ব্যাখ্যা করেছেন বন বিভাগের এক কর্মকর্তা। তিনি বলেন, তাদের ধারণা, এভাবে কীটনাশক দিলে তা ধীরে ধীরে শাখার ভেতরে পোকার কারণে সৃষ্টি হওয়া ক্ষতস্থানে পৌঁছাবে।

সাত শ বছরের পুরোনো ভারতীয় ওই বটগাছটি তিন একর জায়গাজুড়ে বিস্তৃত। ধারণা করা হচ্ছে, এটি বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম বটগাছ; যা একটি পর্যটন স্পটও বটে। তবে গত ডিসেম্বর থেকে সেখানে পর্যটকদের প্রবেশাধিকার সংরক্ষিত করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

বন বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, গত ডিসেম্বর মাসে গাছটির শাখায় তারা উইপোকার আক্রমণ লক্ষ করে। বন বিভাগের শঙ্কা, এখনই উইপোকার উপদ্রব বন্ধ করা না হলে পুরোনো এ গাছটি মারা যেতে পারে।

সেখানকার সরকারি একজন কর্মকর্তা পান্ডুংগা রাও বিবিসিকে বলেন, তারা কীটনাশক দেওয়ার পাশাপাশি ওই গাছটি রক্ষা করতে বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছেন। এর মধ্যে অন্যতম পদক্ষেপ হলো ঝুলে যাওয়া বিভিন্ন শাখা যাতে মাটিতে ভেঙে না পড়ে, সে জন্য সিমেন্টের পিলার দিয়ে শাখাগুলোতে ঠেক দেওয়া ও গাছটির গোড়ায় সার দেওয়া।

অন্য এক কর্মকর্তা বিবিসিকে বলেন, অনেক পর্যটক গাছটির বিভিন্ন শাখায় দোল খায়। এতে অনেক শাখাই ঝুলে পড়েছে। তাই শাখায় দোল খাওয়াও নিষিদ্ধ করা হয়েছে। গাছটি সুস্থ হলে পুনরায় তা পর্যটকদের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

 

আজকের স্বদেশ/ফখরুল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD