1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৫:৪৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
মানুষের ভালোবাসা নিয়ে বাচঁতে চাই -পীর মিসবাহ এমপি অবৈধ অভিবাসীদের ফেরাতে ঢাকার ওপর ইইউ’র চাপ, ভিসা কড়াকড়ির প্রস্তাব সুনামগঞ্জে বিশ্ব কুষ্ঠ দিবস পালিত জগন্নাথপুরে একটি দোকান আগুনে পুড়ে ছাই: প্রায় ৩লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি আজমিরীগঞ্জে বিয়ের দবিতে প্রেমিকার অনশন সুনামগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতির পিতার মৃত্যুতে জগন্নাথপুর উপজেলা ও পৌর স্বেচ্ছাসেবক দলের শোক প্রকাশ কানাইঘাট থানার নতুন ওসিকে বরণ ও বিদায়ী ওসিকে সংবর্ধনা প্রদান বেদে পল্লীতে শীতবস্ত্র বিতরণ বার্মিংহাম ওয়েষ্ট মিডল্যান্ড বিএনপি ও বার্মিংহাম সিটি বিএনপির যৌথ উদ্যোগে বিশাল প্রতিবাদ সভা আলিম ১ম বর্ষ ও ফাজিল ১ম বর্ষের নবীন বরণ অনুষ্ঠান-২০২৩ সম্পন্ন

নবীগঞ্জের পরকিয়ার অভিযোগে তালাক দেওয়ায় প্রবাসীর পরিবারকে একাধিক মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ

  • আপডেটের সময় : রবিবার, ১৫ এপ্রিল, ২০১৮
  • ২৩২২ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

বিশেষ প্রতিনিধি::

নবীগঞ্জের এক দুবাই প্রবাসী তার স্ত্রীর উপর পরকিয়া অভিযোগ তুলে প্রবাস থেকে স্ত্রীকে তালাক দেয়ার ঘটনায় তালাক প্রাপ্ত স্ত্রী ক্ষেপে গিয়ে দুবাই প্রবাসী মহসিন আহমেদ ও তার ভাই বোন সহ আত্মীয় স্বজনের উপর একে একে ৪টি মামলা দায়ের করে অবশেষে ৩টি মামলা বিজ্ঞ আদালত খারিজ করে দেন বলে দাবী করেন প্রবাসীর পরিবার।

 

হয়রানির শিকার হয়ে উপজেলার গজনাইপুর ইউনিয়নের সাতাইহাল গ্রামের মৃত আব্দুল আজিজের পুত্র দুবাই প্রবাসী মোঃ মহসিন আহমদ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে তার একটি স্ট্যাটাসে স্থানীয় সংবাদকর্মীদের সহযোগিতা কামনা করে পত্র পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের জন্য অনুরোধ করেন। এই ঘটনায় এলাকায় তুলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

অভিযুক্ত তালাক প্রাপ্তা স্ত্রী মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল থানার মীর্জাপুর ইউনিয়নের ধোবারহাট গ্রামের মোঃ লেদু মিয়ার কন্যা লাভলী আক্তার (২৪)। প্রবাসী মহসিন আহমেদ তার এক ডিভোর্স লেটারে উল্লেখ করেন ২০১২ সালের ২৩ এপ্রিল লাভলী আক্তারকে রেজিষ্ট্রারী কাবিন মুলে ইসলামী শরাহ শরীয়তের বিধান মতে পারিবারিক ভাবে তিনি তাকে বিবাহ করেন। বিবাহের কিছু দিন পর হইতেই লাভলী আক্তার পিত্রালয়ে অবস্থান করিতে থাকেন।

 

মহসিন আহমেদ দেশে থাকাকালিন সময়ে তার স্ত্রী সম্পর্কে খোজ খবর নিয়া জানিতে পারেন, এবং মহসিন আহমেদ তার ফেইসবুক স্ট্যাটাসের একাংশে লেখেন তার স্ত্রী লাভলী আক্তার এর সাথে বিয়ের আগে তার ফুফাত ভাই মোঃ আলী হোসন বাড়ি মির্জপুর তার সাথে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। বিয়ের পরেও তাদের পরিকয়া সম্পর্ক অটুট থাকে, সে তাকে এবং তার বোন কে ফোন করে গালিগালাজ করত এবং তাদেরকে মেরে ফেলার হুমকি দিত বলেও তার স্ট্যাটাসে জানান। ডিভোর্স লেটারে আরো উল্লেখ করেন তার স্ত্রী পর পুরুষের প্রতি আসক্ত হইয়া অসামাজিক ভাবে মেলামেশা করেন, যাহা আমাদের ইসলাম ধর্মের পরিপন্থি ও আইন বিরোধী কর্মকান্ড। মহসিন আহমেদ দেশে থাকাবস্থায় তার শশুর বাড়ী থেকে স্ত্রীকে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করেন। এমনকি দুবাই প্রবাসে যাওয়ার পরেও তার স্ত্রীর মোবাইলে যোগাযোগ করিয়া অসামাজিক কার্যকলাপ পরিহার করার বার বার অনুরোধ করলেও তার স্ত্রী ফিরে আসেনি।

স্থানীয় সাংবাদিকদের তিনি মোবাইল ফোনে আরো জানান তার মান সম্মান ও ইজ্জতের ভয়ে প্রবাস থেকে তার স্ত্রীকে ২০১৩ সালের ২৪ মার্চ ডাক যোগে ডিভোর্স নামা পাঠিয়ে দেন। এই ডিভোর্স নামা দেওয়ার পর ক্ষিপ্ত হয়ে তালাক প্রাপ্তা স্ত্রী লাভলী আক্তার ২০১৪ সালের ১২ অক্টোবর দুবাই প্রবাসী মহসিন আহমেদ, তার ভাই বকুল মিয়া ও তার বড় বোনকে আসামী করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল মৌলভীবাজার আদালতে এই মামলা দায়ের করেন। এর পর একে একে আরো ৩টি মামলা মহসিন আহমেদের আত্মীয় স্বজন, কলেজ ছাত্রী ও কোর্টের মহরীর সহ অনেককেই আসামী করেন আলোচিত লাভলী আক্তার।

 

এই ঘটনায় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ইমদাদুর রহমান মুকুল ও পানিউমদা ইউপি চেয়ারম্যান ইজাজুর রহমান সমন্বয়ে গত কয়েক মাস পূর্বে এক সামাজিক বিচারের মাধ্যমে আপোষ মিমাংশার সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়, এতে সর্ব সম্মতিক্রমে দুবাই প্রবাসী মহসিন আহমেদ তার স্ত্রীকে কাবিনের দেনমোহর বাবদ ৩ লক্ষ টাকা দেওয়ার সিন্ধান্ত হয়, এবং তার স্ত্রীর দায়েরকৃত সবকটি মামলা প্রত্যাহার করার জন্য সিদ্ধান্ত হয়।। দুবাই প্রবাসী সামাজিক বিচারের রায় মতে পঞ্চায়েত পক্ষের নিকট ৩ লক্ষ টাকাও জমা দেন। কিন্তু টাকা সমজিয়ে দেওয়ার পর ও অজ্ঞাত কারণে আজবদি মামলা প্রত্যাহার করা হচ্ছে না।

 

এ ঘটনায় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ইমদাদুর রহমান মুকুল এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি শালিসের এঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আমরা সামাজিক বিচারের রায় উভয় পক্ষ মেনে নিয়েছেন। শালিস পক্ষের ২/১ জন জরুরী কাজে ব্যস্ত থাকায় হয়তো বিলম্ব হচ্ছে। তিনি দাবী করেন, বিষয়টি যেহেতু মিমাংসা হয়েগেছে সেহেতু মামলাও প্রত্যাহার করা হবে।

 

এ ব্যাপারে পানিউমদা ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ ইজাজুর রহমানের সাথে মোবাইল ফোনে একাধিবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। এই চাঞ্চল্যকর ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক ও স্থানীয় এলাকায় তুলপাড় চলছে। নিন্মে দুবাই প্রবাসীর ফেইসবুক স্ট্যাটাসের হুবহু বার্তা তুলে ধরা হলো………………………………

 

https://m.facebook.com/story.php?story_fbid=446491969118718&id=100012737567701

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

 

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD