1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০৭:২৮ অপরাহ্ন
হেড লাইন
জগন্নাথপুরে ঈদুল আজহা উপলক্ষে ফ্রেন্ডস্ ক্লাবের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ বিশ্বনাথ মডেল প্রেসক্লাবের সাথে উপজেলা চেয়ারম্যান সোহেল চৌধুরীর মতবিনিময় সুনামগঞ্জে বিশ্ব শিশুশ্রম প্রতিরোধ দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত রানীগঞ্জ ইউনিয়ন ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন নর্থ-ওয়েষ্ট ইউকে’র অর্থায়নে নগদ অর্থ বিতরণ জগন্নাথপুরে ২০টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার ঘর পেল কোরবানী ঈদকে সামনে রেখে নবীগঞ্জে জমে উঠেছে পশুর হাট মৌলভীবাজারে প্রকাশ্যে গুলি করা রিপন কারাগারে বিরহী বাউল শিল্পী সুলতানা বেগম পবিত্র ঈদুল আজহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন কমলগঞ্জে বঙ্গবন্ধু বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল সমাপনী অনুষ্ঠিত সুনামগঞ্জে যুব উন্নয়ন ও ওয়াল্ড ভিশনের যৌথ সভা

বর্ষা মৌসুমে ঝুঁকিতে ২ লাখ রোহিঙ্গা

  • Update Time : রবিবার, ১ এপ্রিল, ২০১৮
  • ৫১১ শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

মাস দুয়েক পরেই শুরু হবে বর্ষা মৌসুম। এখন থেকেই শুরু হয়েছে ঝড়বৃষ্টি। আসন্ন বর্ষা মৌসুমে মারাত্মক ঝুঁকিতে পড়বেন পাহাড়ে অবস্থানরত রোহিঙ্গারা। এর পাশাপাশি বাড়বে দুর্ভোগ। বৃষ্টিতে ঘটতে পারে পাহাড়ধসের মতো ঘটনা। পাহাড়ের নরম মাটির সঙ্গে ধসে পড়তে পারে সেখানে তৈরি করা রোহিঙ্গাদের ঘরবাড়ি। প্লাবিত হতে পারে নিচু এলাকা। সংকট দেখা দিতে পারে খাবার পানি ও খাদ্যের। এছাড়া ঘটতে পারে হতাহতের ঘটনা। এই পরিস্থিতিতে চরম ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছেন ২ লাখের বেশি রোহিঙ্গা।

প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ও রাখাইনদের নির্যাতনে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা ১০ লাখের বেশি রোহিঙ্গা অবস্থান করছে উখিয়া-টেকনাফের পাহাড় ও তার পাদদেশে। গত ২৫ আগস্টের আগপর্যন্ত উখিয়ার কুতুপালং ও টেকনাফের লেদা নামে দুইটি রেজিস্ট্রেট রোহিঙ্গা ক্যাম্প থাকলেও বর্তমানে ১২ ক্যাম্পে রোহিঙ্গারা অবস্থান করছেন। এসব রোহিঙ্গা ক্যাম্প তৈরি করা হয়েছে পাহাড় কেটে। তারা নিজেরাই প্রতিনিয়ত পাহাড় কেটে তৈরি করছেন ঘরবাড়ি। ফলে সৃষ্টি হয়েছে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থা। এছাড়া তারা উজাড় করছেন বনভূমি। দখল হয়েছে পশুপাখির আবাসস্থল। এই অবস্থায় বৃষ্টির পানি পড়ার সঙ্গে গড়িয়ে পড়বে নরম মাঠির পাহাড়ের ওপরের ঘরগুলো। এরইমধ্যে গত ২০ দিন আগে বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পাহাড়ধসে ৩টি ঘর পড়ে গেছে বলে জানান ওই ক্যাম্পের মাঝি নুরুল ইসলাম। এই ঝুঁকি সামনে রেখে দুর্যোগ মোকাবিলার উপযোগী ঘর তৈরির প্রশিক্ষণ দিচ্ছে আইএমওসহ বিভিন্ন দেশি-বিদেশি এনজিও সংস্থা।

এদিকে যতই দিন গড়াচ্ছে রোহিঙ্গারা ততই আতঙ্কিত হয়ে পড়ছে আর নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। উখিয়া কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সেনুয়ারা বেগম নামে এক রোহিঙ্গা নারী জানান, তিনি পাহাড়ে কখনো বসবাস করেনি। বাধ্য হয়ে তাকে পাহাড়ের ঢালুতে ঘর করতে হয়েছে। তার প্রতি রাতে ভয় লাগে যদি ঘরটা ভেঙে পাহাড়ের নিচে পড়ে যায়। তার ধারণা পাহাড়ে থাকা নড় বড়ে সব ঘরবাড়ি ভেঙে পড়বে। কারণ পাহাড়ের মাটিগুলো নরম। এছাড়া টয়লেট আর নলকূপগুলো অকেজো হয়ে পড়ছে। এতে দূষিত হবে পরিবেশ। আর মারাত্মক সমস্যায় পড়বে রোহিঙ্গারা।

কবির আহম্মদ নামে আরেক রোহিঙ্গা জানান, তিনি দুর্যোগ মোকাবিলার ওপরে আইওএম থেকে প্রশিক্ষণ নিচ্ছে। এরপরও তার মধ্যে অজানা আতঙ্ক কাজ করছে। এ ব্যাপারে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মোঃ আবুল কালাম আজাদ জানান, আসন্ন বর্ষা মৌসুমকে কেন্দ্র করে ঝুঁকির মধ্যে থাকা ২ লাখ রোহিঙ্গাকে নিরাপদ জায়গায় সরিয়ে নেয়াসহ সচেতনতামূলক কাজ চলছে। আগামী এপ্রিলের মধ্যে সম্পন্ন করা হবে। বৃষ্টির আগেই ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় থাকা রোহিঙ্গাদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে ফেলা না হলে হতাহতসহ বহুমুখী সমস্যার সৃষ্টি হবে। আর এর প্রভাব পড়বে কক্সবাজারসহ পুরো দেশে। আর এই সমস্যা সমাধানে দেশি-বিদেশি এনজিওসহ সব যেন যথাযথভাবে দ্রুত কাজ করে এমনই প্রত্যাশা করছে সচেতন মহলের।

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2024
Design and developed By: Syl Service BD