1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ০১:৪৪ পূর্বাহ্ন
হেড লাইন
নবীগঞ্জের রইছ গঞ্জ বাজারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড! ইলেকট্রনিক দোকান সহ ৩টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পুঁড়ে ছাঁই রানীগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষকের ইন্তেকাল: জানাযা সম্পন্ন শান্তিগঞ্জে চেয়ারম্যান পূত্রের অতর্কিত হামলায় একজন নিহত জগন্নাথপুরে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি কোম্পানীগঞ্জে বন্যাদুর্গতদের ত্রাণ বিতরণ করলেন জেলা প্রশাসক কানাইঘাটে বন্যা দুর্গত এলাকা পরিদর্শনে বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির চেয়ারম্যান বন্যাকে ভয় পাবেন না শেখ হাসিনা সরকার জনগণের পাশে আছে……এম এ মান্নান আশ্রয়কেন্দ্রে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ কানাইঘাটে বন্যা দুর্গত এলাকা পরিদর্শনে সিলেটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সিলেটে বন্যা কবলিত মানুষের র‌্যাব-৯, চিকিৎসা সেবা ও ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ জগন্নাথপুরে বন্যায় জনজীবন বিপর্যস্ত: লোকজনের আর্তনাদ বাড়ছে

প্রশাসনকে দোষারূপ করে কানাইঘাট নির্বাচন বর্জন করলেন চেয়ারম্যান প্রার্থী খায়ের ॥ জনমনে নানা প্রশ্ন

  • Update Time : সোমবার, ৩ জুন, ২০২৪
  • ৩৪ শেয়ার হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি ঃ
কানাইঘাট উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের পরিবেশ এখন পর্যন্ত ভালো থাকার পরও সরকার ও প্রশাসনের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ ও পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ তুলে নির্বাচন বর্জন করলেন চেয়ারম্যান প্রার্থী সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা খায়ের চৌধুরী। আগামী ৫ জুন (বুধবার) কানাইঘাট উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। চেয়ারম্যান প্রার্থী খয়ের উদ্দিন চৌধুরী নির্বাচনের দু’দিন পূর্বে নির্বাচন বর্জন করায় জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।
সোমবার ভোর রাতে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী চেয়ারম্যান প্রার্থী খায়ের চৌধুরী তার ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডি থেকে এক ভিডিও বার্তার মাধ্যমে কানাইঘাট উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে ‘গুন্ডা-মার্কা’ নির্বাচন আখ্যায়িত করে শেষ মুহুর্তে এসে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন।
নির্বাচনে টেলিফোন প্রতীক নিয়ে খয়ের উদ্দিন চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। বিশেষ করে কানাইঘাটের দক্ষিণ অঞ্চল সহ উপজেলার বিভিন্ন বাজারে তিনি গণসংযোগ করেন এবং প্রচারণা চালান। শেষ মুহুর্তে এসে ৩ জুন ভোর রাতে ঐ ভিডিও বার্তার মাধ্যমে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন।
জানা গেছে, উপজেলা সহকারি রিটার্নিং কমকর্তা ও কানাইঘাট থানা পুলিশের কাছ থেকে লিখিত অনুমতি নিয়ে ২ জুন গাছবাড়ী বাজারে পৃথক স্থানে নির্বাচনী জনসভা করেন কানাইঘাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান প্রার্থী একেএম শামসুজ্জামান বাহার ও অপর চেয়ারম্যান প্রার্থী মস্তাক আহমদ পলাশ।
কিন্তু শামসুজ্জামান বাহারের জনসভার স্থলে খায়ের চৌধুরীও নির্বাচনী জনসভা করার ঘোষণা দিয়েছিলেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। কিন্তু প্রশাসন বা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ থেকে খায়ের চৌধুরী কোন অনুমতি নেননি। অনুমতি ছাড়া নির্বাচনী সমাবেশ করার ঘোষণায় তিনি অনঢ় ছিলেন। একপর্যায়ে সন্ধ্যা ৬টার দিকে খায়ের চৌধুরী তার বেশ কিছু সমর্থকদের নিয়ে গাছবাড়ী বাজারে মিছিল সহকারে প্রবেশ করতে চাইলে গাছবাড়ী বাজারের অদূরে আনারকলি কমিউনিটি সেন্টারের সামনে নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও থানা পুলিশ যেহেতু অন্য দুই প্রার্থী বাজারে জনসভা করছে তাই শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য খায়ের চৌধুরীকে গাছবাড়ী বাজারে প্রবেশ না করে অন্য স্থানে জনসভা করার কথা বলেন। এরপরও চেয়ারম্যান প্রার্থী খায়ের চৌধুরী তার কয়েকশ সমর্থককে নিয়ে স্থানীয় বোরহান উদ্দিন বাজারে গিয়ে টেলিফোন প্রতীকের সমর্থনে জনসভা করে।
পরবর্তীতে খায়ের চৌধুরী ভোর রাতে এক ভিডিও বার্তায় কানাইঘাটের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, স্থানীয় প্রশাসন, কানাইঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও পুলিশ প্রশাসন, রিটার্নিং অফিসার এবং আরো অন্যদের উপর পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ তুলে এই নির্বাচনকে গুন্ডা মার্কা নির্বাচন আখ্যায়িত করে বয়কটের ঘোষণা দেন।
খায়ের চৌধুরী ফেসবুকে ভিডিও বার্তায় বলেন, ‘আমার অনুমতি নেয়া জায়গায় পেশি শক্তি, আর সমগ্র প্রশাসনযন্ত্রকে কাজে লাগিয়ে গুন্ডামী মার্কা নির্বাচনের কোন ভবিষ্যত আমি দেখিনা। যারা আমার নিশ্চিত জয় দেখে ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে লাশ ফেলার সকল আয়োজন করে রেখেছিলেন আমি তাদের ফাঁদে পা দেইনি।’’
তিনি আরো বলেন, “১৮-২০ হাজার মানুষের জনস্রোত নিয়েও যেখানে প্রোগ্রাম করতে পারিনি সেখানে নির্বাচনের রেজাল্ট কি হবে তা পাগলেও বুঝে। আমি কানাইঘাটবাসীর কাছে বিচার দিয়ে ফাঁদে ফেলার এই নির্বাচন বর্জন করলাম। যারা সহযোগিতা করেছেন তাদের সবার প্রতি কৃতজ্ঞ।’’
চেয়ারম্যান প্রার্থী খায়ের চৌধুরীর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করে নির্বাচন বর্জনের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন এই বিষয়ে কোন কমেন্ট নেই। নির্বাচন বর্জন করেছি সঠিক। তবে নির্বাচন বর্জন করার বিষয়টি লিখিত ভাবে নির্বাচন কমিশন বা রিটার্নিং কর্মকর্তাকে জানানোর প্রয়োজন মনে করেন না তিনি।
প্রশাসন ও থানা পুলিশকে দোষারূপ করে নির্বাচন থেকে খায়ের চৌধুরী সরে দাঁড়ানোর বিষয়ে কানাইঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ জাহাঙ্গীর হোসেন সরদারের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, থানা পুলিশ, প্রশাসন কোন প্রার্থীর পক্ষে-বিপক্ষে নয়, একটি অবাধ-সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন সম্পন্ন করতে প্রশাসন নিরপেক্ষ ভাবে কাজ করে যাচ্ছে। চেয়ারম্যান প্রার্থী খায়ের চৌধুরী প্রশাসন বা থানা পুলিশের কোন অনুমতি না নিয়ে গাছবাড়ী বাজারে নির্বাচনী সভা করতে চাইলে প্রশাসনের অনুমতি না থাকায় বাজারে তাকে জনসভা, মিছিল করতে নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিষেধ করে, অন্যত্র জনসভা করার কথা বলেছেন। খায়ের চৌধুরী বা তার কোন সমর্থককে পুলিশ লাঠিচার্জ করেনি।
নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরা বলেছেন, নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য চেয়ারম্যান খায়ের চৌধুরী প্রশাসনকে দোষারূপ করে যেসব কথাবার্তা বলছেন তা সঠিক নয়। এখন পর্যন্ত ভোটের পরিবেশ সুন্দর রয়েছে। কেন তিনি নির্বাচন থেকে সরে গেলেন তা তিনি নিজেই জানেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2024
Design and developed By: Syl Service BD