1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ০৮:০০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
রানীগঞ্জ সেতুতে কিশোর গ্যাং, টিকটকার ও বখাটেদের বিরুদ্ধে অ্যাকশনে পুলিশ কানাইঘাটের জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে জেলা পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান নাসির খানের মতবিনিময় সভা শাকিব-বুবলীর বিয়ে হয় নারায়ণগঞ্জে, ‘তাদের বিচ্ছেদ হয়নি’ কানাইঘাটে বিজিবির ধাওয়ায় ভারতীয় নাসির বিড়ি বোঝাই পিকআপ উল্টে তুলকালাম কান্ড ॥ গ্রেফতার ২ সুনামগঞ্জে এক সাংবাদিকের উপর ২য় দফা হামলা : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা কানাইঘাটে আর্ন্তজাতিক তথ্য অধিকার দিবস উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা দেশে আসলেন জগন্নাথপুরের মাউন্ট এভারেস্ট বিজয়ী আকি রহমান সুনামগঞ্জে জয়াসেন মানিক রতন ও ইমনের উদ্যোগে শেখ হাসিনার জন্মদিন পালিত ওসমানীনগরে এলজিইডির উদ্যোগে কমিউনিটি সড়ক নিরাপত্তা গ্রুপের সভা দিরাইয়ে কর্মী সমাবেশে ড.জয়া সেনগুপ্তা : সম্প্রীতি আর একতাই অগ্রগতি ও উন্নয়নের পথকে সুগম করে

আন্দোলন-সংগ্রামের সাক্ষী জগন্নাথপুর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার অবহেলায় নষ্ট হচ্ছে

  • আপডেটের সময় : সোমবার, ৮ আগস্ট, ২০২২
  • ৪১ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

বিশেষ প্রতিনিধি::
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরের শহীদ মিনারটি শুধু দেশের শিক্ষার ইতিহাসেই নয়, জাতির ইতিহাসেরও এক অনন্য অধ্যায়। ৫২-এর ভাষা শহীদদের স্মরণে নির্মিত এ শহীদ মিনার ৬২-এর শিক্ষা আন্দোলন, ৬৯-এর গণঅভ্যুথান, ৭১-এর মহান মুক্তিযুদ্ধ, ৯০-এর স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনসহ সব গণতান্ত্রিক আন্দোলন-সংগ্রামের সাক্ষী।

বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার প্রায় ৫০ বছর নানা পটভূমির মধ্য দিয়ে ১৯৭১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় জগন্নাথপুর শহিদ মিনার। শহীদ মিনারটিও ক্ষতবিক্ষত। চারদিকে অসংখ্য ফাটলে পিচনের দিকে খানিকটা নুয়ে কোন মতে দাঁড়িয়ে আছে শহীদ মিনারটি। ভাষা শহীদদের স্মরণে নির্মিত শহীদ মিনার বাঙ্গালি জাতির হৃদয়ে রক্তক্ষরণের নাম। স্বাধীন বাংলাদেশের জন্য রক্ত দিয়েছে লাখ লাখ মানুষ। দেশের জন্য, নিজের মায়ের ভাষার জন্য জীবন দেয়া শহীদদের স্মরণ রাখতে ও সম্মান জানাতে নির্মিত হয় শহীদ মিনারটি। মায়ের প্রতি ভালোবাসার এই নিদর্শন যখন অবহেলার হয়, খাঁটি বাঙালির মনে দাগ কাটে। লুণ্ঠিত হয় স্বাধীনতার চেতনা। ২০১৮ সালে জেলা পরিষদ পুরাতন শহিদ মিনার টি ভেঙ্গে নতুন করে ১৩ লক্ষ টাকা ব্যায়ে নির্মাণ করেন। পরে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার ইকরামুল হক ইমন শহিদ মিনার টি উদ্বোধণ করেন।

উদ্বোধণের দুই বছর যেতে না যেতেই শহিদ মিনার টি বিভিন্ন স্থানে ফাটল দেখা দেয়। এর পর আস্তে আস্তে শুরু হয় বড় বড় ফাটল। এখন যে কোন মুহূর্তে ধসে পড়তে পারে। এলাকাবাসী বলছেন শহিদ মিনারের কাজ ভালো হয়নি। শহীদ মিনারের পাশে ফুলবাগানের মাধ্যমে সৌন্দর্য বৃদ্ধি করা ডিজানও ছিলো। ডিজান আছে, ফুল নেই। অযতœ অবহেলায় বেহাল দশা জগন্নাথপুরের শহীদ মিনার। ফেব্রæয়ারি মাস গেলেই মিনারটির গায়ে লেগে থাকে ধুলো-ময়লা আর পাদদেশে ময়লার স্তুপ। ফাটল বেষ্টিত স্থানে বট জর জন্মে আছে। যে কোন সময় ধসে পড়ে পড়বে। যেন দেখার কেউ নেই। বর্তমান শহীদ মিনারটি কয়েক মাস ধরে আগে ব্যাপকভাবে কাঠামোগতভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়। শুধু ফেব্রæয়ারিতে রঙ মাখিয়ে শহীদ বেদিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

মুক্তি যোদ্ধা সূত্র জানাযায়, ১৯৭১ সালে জগন্নাথপুর বর্তমান শহীদ মিনারটি স্থাপন করা হয়। আকারে অত্যন্ত ছোট এ শহীদ মিনারে এক মাগে বেদিটি ধসে যায় এবং বেশ কয়েক জায়গায় বড় ধরনের ফাটল ও বেখা হয়ে আছে।
শিক্ষার্থীরা বলছে, আমাদের এখন পর্যন্ত কোন ধরনের স্বাধীনতা স্মৃতি ভাস্কর্য নেই। আমাদের দাবি একটি ভাস্কর্য স্থাপন করা হোক। বর্তমানে প্রায় ধসে যেতে বসেছে শহীদ মিনারটি। অতিদ্রæত শহীদ মিনারটি সংস্কার করা হোক।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, প্রতিনিয়ত শহীদ মিনারে অবমাননা করা হচ্ছে ভাষা শহীদদের। স্যান্ডেল পরে একেবারে মূল বেদিতে উঠে আড্ডা, গল্প চলে । অতিদ্রæত শহীদ মিনারটি আরো দর্শনীয় করে স্থাপন করার দাবি জানিয়েছেন সাধারণ শিক্ষার্থীরা ও এলাকাবাসী। মাসের পর মাস পরিষ্কার না করার ফলে শহীদ মিনারের সামনের অংশে শ্যাওলা পড়ছে। বছরের গুরুত্বপূর্ণ দিনগুলো ছাড়া শহীদ মিনার পড়ে থাকে অবহেলায়।

২১ শে ফেব্রæয়ারি এলে দিবসকে ঘিরে ভাষা শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে সর্বস্থরের জনতা। শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে সালাম, বরকত, রফিক, জব্বারসহ ভাষা শহীদদের। দিনটি স্মরণে খালি পায়ে ফুল দিয়ে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান আবাল-বৃদ্ধ, শিশু ও নারীসহ সর্বস্থরের মানুষ। দিবস শেষ হলেই কদর কমে শহীদ মিনারের। অবহেলা আর অযতেœ, ময়লার ডাস্টবিন পরিণত হয় পবিত্র এ শহীদ মিনার।
মুক্তি যোদ্ধা জগন্নাথপুর উপজেলা কমান্ডার আব্দুল কাইয়ুম বলেন, আমরা স্বাধীন মাস এলে শহিদ মিনারে গিয়ে শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাই। শহিদ মিনার ধসে পড়ে যাচ্চে কেউ দেখছেন না দুঃখ জনক।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাজিদুল ইসলাম বলেন, শহিদ মিনার টি সংস্কারের কোন উদ্যোগ নিচ্ছে না। পরবর্তীতে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নতুন করে শহিদ মিনার নির্মাণ করার চিন্তাভাবনা করছি।

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD