1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:৫১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
রাস্তার কাজে অনিয়ম প্রতিবাদে মানববন্ধন ফেনীতে স্বামী হত্যা মামলায় স্ত্রীর যাবজ্জীবন কারাদন্ড প্রতিদিন গ্রামে গ্রামে নৌকা প্রত্যাশী আবু নাসিরের উঠান বৈঠক চলছে ছুটির দিনে ভোক্তা-অধিকার অধিদপ্তরের অভিযান এবং অনিয়মের দায়ে জরিমানা রানীগঞ্জ সেতুর জন্য অধিগ্রহণকৃত ভূমি মালিকরা ক্ষতিপূরণের টাকা প্রাপ্তিতে হয়রানির শিকার বাস-ট্রাক-কাভার্ডভ্যানের ত্রিমুখী সংঘর্ষে নিহত ৩ দক্ষিণ আফ্রিকার স্থানীয় নির্বাচনে প্রথম দুই বাংলাদেশি শহরে ৫, গ্রামে ১০ দিনে পণ্য ডেলিভারি বাধ্যতামূলক ফেনী-১ আসনের সাবেক সাংসদ সাঈদ ইস্কান্দারের ৯ম মৃত্যুবার্ষিকী আজ দাখিল পরীক্ষা শুরু ১৪ নভেম্বর

পর্যটকদের নতুন ঠিকানা সুনামগঞ্জের হাওরবিলাস ও পাহাড়বিলাস

  • আপডেটের সময় : বুধবার, ৪ আগস্ট, ২০২১
  • ৬৪ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

স্বাধীনতার ৫০ বছরেও সুনামগঞ্জের ঐতিহাসিক গুরুত্বপূর্ণ ও প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর বিভিন্ন পর্যটন-পটের কাঙিক্ষত উন্নয়ন হয়নি। তাই বলে থেমে থাকেনি সৌন্দর্য পিপাসু ও প্রকৃতিপ্রেমীরা। দেশের বিভিন্ন স্থানের প্রকৃতিপ্রেমী ও পর্যটকরা আসছেন তাহিরপুর উপজেলার টাংগুয়ার হাওর, যাদুকাটা নদী, বারেকটিলা, দেশের সর্ববৃহৎ জয়লান আবেদিন শিমুল বাগান, শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজ লেকে।

এরই মধ্যে স্বল্প সময়ে জেলার বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার সীমান্ত ঘেঁষে ‘পাহাড়বিলাস’, উপজেলা পরিষদসংলগ্ন ‘হাওরবিলাস’, ‘বোয়াল চত্বর’ সৌন্দর্য পিপাসু ও পর্যটকদের নতুন ঠিকানার সন্ধান পাওয়া প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি সুনামগঞ্জ জেলাকে আরও আলোচিত করে তুলেছে। লকডাউন থাকলেও স্থানীয় লোকজনের পাশাপাশি আশপাশের উপজেলার সৌন্দর্য পিপাসুরা দেখতে আসছেন এসব।

বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. সাদি উর রহিম জাদিদ অল্প সময়ে এসব স্পট গড়ে তুলে ব্যাপক সাড়া ফেলে দিয়েছেন। একজন প্রশাসনিক কর্মকর্তার এমন শৈল্পিক উন্নয়ন মুগ্ধ করেছে সবাইকে।

 

 

 

সুনামগঞ্জের আনাচে-কানাচে এমন বহু জায়গা রয়েছে যেগুলো নিয়ে কাজ করলে পর্যটনস্পটের পরিধি বাড়াবে। আর তা জেলার অর্থনৈতিক উন্নয়নের আরেকটি প্রধান খাত হওয়ার যোগ্যতা রাখে বলে মনে করছেন জেলার সচেতন মহল।

 

 

 

স্থানীয় এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পর্যটন বিকাশে উদ্যোগী হয়ে সীমান্তবর্তী সলুকাবাদ ইউনিয়নে মেঘালয় পাহাড়ের পাদদেশে আন্তর্জাতিক সীমারেখার পাশে চ্যাংবিলে ১০ শতক জমির ওপর সাদা রংয়ের দৃষ্টিনন্দন কাঠের বেড়া দিয়ে পর্যটকদের বসার জন্য ৮টি বেঞ্চ, পর্যটকদের হালকা খাবারের দুটি দোকান, ছনের দুটি গোলঘর নির্মাণ করে পাহাড়বিলাস নামে পর্যটন স্পট গড়ে তোলেন।

 

 

উপজেলা পরিষদের সম্মুখে করচার হাওরের পরিবেশ উপভোগ করার জন্য পানির ওপরে ভাসমান দুটি গোলঘর নির্মাণ করে নাম দেন ‘হাওরবিলাস’। এ ছাড়া উপজেলার প্রবেশদ্বার কারেন্টেরের বাজার পয়েন্টে বোয়াল মাছের ভাস্কর্য দিয়ে ‘বোয়াল চত্বর’ নামকরণ করেন। উপজেলা পরিষদের সামনে গাছের নিচে ৫টি গোলঘর করে সেবাচত্বর, ‘নিকুঞ্জ’ নামে যাত্রীদের জন্য একটি যাত্রীছাউনি ও থানার সামনে থেকে উপজেলা পরিষদের শেষ সীমানা সাধারণ মানুষের হেঁটে চলার জন্য দৃষ্টিনন্দন ওয়াকওয়ে নির্মাণ করে উপজেলার পুরো চিত্রটাই পাল্টে দিয়েছেন বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার। এরপর প্রতিদিনই শত শত মানুষ সেখানে বেড়াতে আসছে এক পলক দেখার জন্য।

 

 

উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান জানান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার পদে মো. সাদি উর রহিম জাদিদ গত বছরের ১ ডিসেম্বর যোগদান করেন। এসেই উপজেলার চিত্রটাই পাল্টে দিয়ে ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হয়েছেন। সম্প্রতি হাওর বিলাস, বোয়াল চত্বর উদ্বোধন করেছেন জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন।

সুহেল আহমদ সাজুসহ স্থানীয় লোকজন জানান, সদিচ্ছা ও শিল্পমন থাকলে অবহেলায় পড়ে থাকা পাহাড় ও হাওরের পরিবেশ, সৌন্দর্যকে কীভাবে সুন্দর করে উপভোগ করা যায় তা উপজেলা নির্বাহী অফিসার করে দেখিয়েছেন। আর উপজেলাকে দৃষ্টিনন্দন করে তুলেছেন, যা সত্যিই প্রশংসনীয়।

 

 

বিশ্বম্ভপুর উপজেলার চিরাচরিত প্রাকৃতিক ও নৈসর্গিক সৌন্দর্য দৃষ্টিগোচর হওয়ায় বেড়াতে এসেছিলেন তাহিরপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবুল বাসার, রুবেল সরকারসহ অনেক সৌন্দর্যপিপাসু। তারা বলেন, পরন্ত বিকেলে ও সন্ধ্যার পর লাইটের আলোয় ভিন্ন এক অনুভূতির জন্ম দেয় হাওর বিলাসে।

 

 

 

পূর্ব অভিজ্ঞতা থেকেই এ উপজেলার পর্যটনস্পটগুলো দেখে পাহাড় ও হাওর-নদীর পর্যটন বিকাশে উদ্বুদ্ধ হয়েছেন বলে জানান বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাদি উর রহিম জাদিদ। তিনি বলেন, ‘উপজেলার পর্যটনস্পটগুলোর সৌন্দর্য সাধারণ মানুষের কাছে তুলে ধরতে পেরে ভালো লাগছে। এসব স্পটে পরিবার-পরিজন নিয়ে বেড়াতে আসছেন সবাই।’

 

 

 

জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, মো. সাদি উর রহিম জাদিদের উদ্যোগের ফলে বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা প্রকৃতিপ্রেমি, সৌন্দর্যপিপাসু পর্যটক ও স্থানীয় লোকজন হাওর ও পাহাড়ের সৌন্দর্য উপভোগ করার সুযোগ পেয়েছে, পাশাপাশি পর্যটন স্পটগুলোর বিকাশ হয়েছে।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/এবি

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD