Logo

August 4, 2021, 4:45 pm

সংবাদ শিরোনাম :

এক টুকরো মাংসের জন্য ঘরের দরজায় অসহায় মানুষ

আজকের স্বদেশ ডেস্ক:

কোরবানির পশু কাটাকাটির কাজ শেষ। মাংস নিয়ে কেউ বাসার গ্যারেজ, কেউ রাস্তায় ছোট টুকরো করছেন। অনেকে বাইরে অপেক্ষমাণদের মাঝে শুরু করেছেন মাংস বিতরণ। আর সেই মাংস নিতেই বাড়ির সামনে নিম্ন আয়ের মানুষ রয়েছে অপেক্ষায়। বুধবার (২১ জুলাই) ঈদুল আজহার দিন এমন চিত্র দেখা গেছে রাজধানীতে।

 

নিম্ন আয়ের মানুষদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কোরবানির ঈদের সকাল থেকে প্রতিবছরের মতো এবারও মাংসের জন্য দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়িয়েছেন এসব অসহায় মানুষ। করোনার কারণে এ বছর মানুষ কোরবানি কম দেয়ায় মাংস কম পেয়েছেন তারা।

 

মুসলিম বিশ্বের সবচেয়ে আনন্দের বার্তা নিয়ে আসে পবিত্র ঈদ। ধনী-গরিব ভেদে ঈদকে ঘিরে সবার নানা আয়োজন থাকে। ধনী বা মধ্যবিত্তের বিলাসবহুল আয়োজন থাকলেও, যারা দিন আনে দিন খায়; ঈদের দিন এসব মানুষ থাকে এক টুকরা মাংসের অপেক্ষায়।

 

 

দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বিভিন্ন বাসা ঘুরে পাঁচ কেজির মতো মাংস পেয়েছেন বাসাবাড়িতে কাজ করা মাজেদা বেগম। জাগো নিউজকে তিনি বলেন, ‘এবার আগের তুলনায় কম। মানুষ কম কোরবানি দিছে, আগের মতন মাংসও দেয় না।’

 

তিনি বলেন, ‘যেসব বাসায় কাজ করি সেখান থেকেই বেশি মাংস পেয়েছি। বাসাবাড়ি থেকে এক টুকরো, দুই টুকরো করে মাংস পাইছি।’

 

 

নারীদের পাশাপাশি শহরের বিত্তবানদের ঘরে এক টুকরো মাংসের জন্য প্লাস্টিকের ব্যাগ নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন গরিব অসহায় পুরুষরাও।

 

 

মিরপুরের পূরবী সিনেমা হলের পাশের ভবনে দাঁড়িয়েছিলেন রিকশাচালক আমিনুল। সারাদিনে টোকানো মাংস দিয়ে দুই-তিন দিন খেতে পারবেন বলে জানান তিনি।

 

 

 

আমিনুল বলেন, ‘আমরা গরিব মানুষ তাই বিত্তবানদের কাছে এসেছি যদি একটু মাংস পাই তা দিয়ে সন্তানদের নিয়ে এক-দুইদিন খাব। কোরবানির ঈদের কয়েকদিন দিন অন্তত সন্তানদের মুখে হাসি ফোটাতে পারব।’

 

 

মাংস নিতে আসা সালেহা বেগম বলেন, ‘এবার কোরবানির পরিমাণ কম হওয়ায় মাংস কম পেয়েছি। যেটুকু মাংস পেয়েছি সেটুকু দিয়ে একবেলাও ঠিক করে রান্না হয় না। তাই সন্ধ্যায় ৭টাও মুখ চেয়ে আছি ধনীদের।’

 

 

এবার পশু কোরবানি দেয়া প্রভাষক সফিকুল ইসলাম রুবেন বলেন, ‘আমরা গরু জবাই করে আনুষঙ্গিক কাজ করছি। সন্ধ্যার পর আমরা নিয়ম অনুযায়ী মাংস বিতরণ করা শুরু করেছি।’

 

 

মিরপুর-১১ নম্বরে একটি বাসভবনের দায়িত্বে থাকা মনিরুজ্জামান বলেন, ‘প্রতিবছরের মতো এ বছরও কোরবানির দিন অসহায়দের মাঝে মাংস বিতরণ করা হয়েছে। বিকেলের আগেই এই ভবনে থাকা বাসিন্দারা গরু জবাই করে গ্যারেজে কাটাকাটি শেষ করেছেন। অনেক মানুষের মাঝে মাংস বিতরণ করা হয়েছে, তারপরও অনেকেই আসছেন মাংস নিতে।’

 

 

 

আজকের স্বদেশ/তালুকদার