Logo

May 11, 2021, 10:40 am

সংবাদ শিরোনাম :
«» নড়াইলে চুইজাল গাছ চুরির অভিযোগে দুই শিশুর চুল কেটে দিলেন এলাকাবাসী «» হবিগঞ্জে ভারতফেরত ৮ জন কোয়ারেন্টিনে «» জগন্নাথপুরে আরো দুজন করোনা শনাক্ত: মোট শনাক্ত ২২৩ «» আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে ভারতফেরত নারীর করোনা শনাক্ত «» জগন্নাথপুরে বেগম আনোয়ারা ও সোনা মিয়া ট্রাস্টের বস্ত্র ও নগদ অর্থ বিতরণ «» ইউকে বিডি ইন্সফায়ারেড ফাউন্ডেশন ও হবিগঞ্জ বাংলাদেশ বাউল ফোরাম ইউকের নগদ অর্থ প্রদান «» জগন্নাথপুর ইয়াংস্টারের ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত «» ঈদের আগে কয়দিন ব্যাংক খোলা থাকবে? «» জগন্নাথপুরে পেরেন্টস কেয়ার ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ত্রান সামগ্রী বিতরণ «» মৌলভীবাজারে সাবেক ছাত্রদল অর্গানাইজেশন ফ্রান্স এর উদ্যাগে ইফতার ও ঈদ সামগ্রী বিতরণ

দক্ষিণ সুনামগঞ্জে গরুচুরি বৃদ্ধি: প্রশাসনের তৎপরতা বাড়ানোর দাবী ভুক্তভোগীদের

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:   

দক্ষিণ সুনামগঞ্জে বিগত কয়েক মাস যাবৎ ব্যাপক হারে গরুচুরি বৃদ্ধি পেয়েছে। সংঘবদ্ধ চোরেরা অভিনব কায়দায় রাতের আধারে গ্রিল ও ঘরের দরজার তালা কেটে নিমিষেই লাখ লাখ টাকার গরু চুরি করে নিয়ে উধাও হয়ে যায়।

 

 

 

 

 

দরগাপাশা ইউনিয়নের একাধিক ব্যাক্তির সাথে সরেজমিন কথা হলে কান্নাজড়িত কন্ঠে আক্তাপাড়া গ্রামের নজরুল ইসলাম মিলন বলেন, গরু চুরের ভয়ে প্রত্যেক রাইত জায়। আমার ৩টা গরু ফর দেই। আমি ভোর রাতে ওযু করে নামাজের লাগি গেলে অও সময় গরু ঘরের দরজার তালা কেটে সংঘবদ্ধ চুরেরা আমার ৩ টি গরু নিয়ে যায়। যাহার মূল্য প্রায় দেড় লক্ষ টাকা হবে। এই বিষয়ে আমি থানায় জিডি করেছি এবং বিভিন্ন বাজারে অনেক খোঁজাখোঁজি করে কোথাও সন্ধান ফাইনি। এই গরুগুলোই ছিল আমার সম্ভব এগুলো হারিয়ে এখন আমি নি:স্ব।

 

 

 

 

 

বিগত ১৩ ফেব্রুয়ারী দরগাপাশা ইউনিয়নের আমড়িয়া গ্রামের জাফর সাদেক লেবুর ৫ টি গরু চুরি করে নিয়ে যায় চুর চক্রের সদস্যরা। কয়েকদিন আগে কাবিলাখাই গ্রামের আব্দুল হাই মিয়ার ৬ টি গরু, সলফ গ্রামের রইছ মিয়ার ১ টি গরু,দরগাপাশা গ্রামের সৈয়দ ছবুর আলীর ১৪ টি গরু, মৌগাঁও গ্রামের মতিন মিয়ার বোনের ৩ টি গরু চুরি করে নিয়ে যায় চোরেরা ।

 

 

 

 

 

এছাড়া আরও জানা যায, আক্তাপাড়া গ্রামের মুজিব মিয়ার ৫ টি গরু ও সিচনী গ্রামের নুর ইসলামের ৪ টি গরু ঘরের তালা ভেঙ্গে ঘর থেকে বের করা পর মানুষের উপস্থিতি টের পেয়ে গরু ফেলে চলে যায় চোরেরা। এলাকার ভোক্তভোগী অনেকের সাথে আলাপকালে অনেকেই জানান, অদ্য কয়েকমাস যাবৎ গরু চুরি ব্যাপকহারে বৃদ্ধি পেয়েছে।

 

 

 

 

 

 

চুর আতংকে রাতে অনেকেই ঘুমোতে পারেন না। তারপরও সুযোগ পেলেই গরু চুরি সংঘটিত হচ্ছে প্রতিনিয়ত। এই ধরণের গরু চুরির হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য থানার টহল জোরধার ও গরু চোর চক্রের সদস্যদেরকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার দাবী জানান ভোক্তভোগী সহ এলাকার সচেতন মহল।

 

 

 

 

এ ব্যাপারে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ ওসি কাজী মুক্তাদীর হোসেন বলেন, গরু চুরির বিষয়টি আমাদের নজরে আসার পরপরই টহল জোরদার করেছি। গরুচোর চক্রের সদস্যদের গ্রেফতারের প্রক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/তালুকদার