Logo

May 11, 2021, 9:59 am

সংবাদ শিরোনাম :
«» হবিগঞ্জে ভারতফেরত ৮ জন কোয়ারেন্টিনে «» জগন্নাথপুরে আরো দুজন করোনা শনাক্ত: মোট শনাক্ত ২২৩ «» আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে ভারতফেরত নারীর করোনা শনাক্ত «» জগন্নাথপুরে বেগম আনোয়ারা ও সোনা মিয়া ট্রাস্টের বস্ত্র ও নগদ অর্থ বিতরণ «» ইউকে বিডি ইন্সফায়ারেড ফাউন্ডেশন ও হবিগঞ্জ বাংলাদেশ বাউল ফোরাম ইউকের নগদ অর্থ প্রদান «» জগন্নাথপুর ইয়াংস্টারের ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত «» ঈদের আগে কয়দিন ব্যাংক খোলা থাকবে? «» জগন্নাথপুরে পেরেন্টস কেয়ার ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ত্রান সামগ্রী বিতরণ «» মৌলভীবাজারে সাবেক ছাত্রদল অর্গানাইজেশন ফ্রান্স এর উদ্যাগে ইফতার ও ঈদ সামগ্রী বিতরণ «» রিমান্ড শেষে কারাগারে ‘শিশুবক্তা’ রফিকুল

যাদুকাটা নদীর পাড়ে জব্দকৃত বালু-পাথর নিলামে বিক্রি করার দাবী স্থানীয়দের

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি::

তাহিরপুর উপজেলার যাদুকাটা নদীর পাড়ে অবৈধভাবে উত্তোলন করা জব্দকৃত বালু-পাথর নিলামে বিক্রি করার দাবী স্থানীয়দের। এ বালু-পাথর নিলামে বিক্রি হলে সরকার পাবে কোটি টাকার রাজস্ব। জানাযায়, গত ২৪ মার্চ বাদাঘাট ইউনিয়নের বিন্নাকুলি ব্রীজের উত্তর পশ্চিমপাশে ঘাগটিয়া বালুর টেক উত্তর পাশে শিমুলগাছ পর্যন্ত বিভিন্ন ব্যবসায়ীদের বালু ও পাথর জব্দ করে প্রশাসন, পুলিশ, বিজিবি ও র‌্যাবের সমন্বয়ে টাস্কফোর্স।

 

 

 

জব্দকৃত ৯০ হাজার ফুট বালু-পাথর পৃথকভাবে দু’জনের কাছে নিলামে বিক্রি করা হয়েছে প্রায় ৩৬ লক্ষ টাকায়। এদিকে শিমুল গাছ থেকে শুরু করে পাকা রাস্তা পর্যন্ত আরো প্রায় ২৫ জন ব্যাবসায়ীর ১ লক্ষ ৩০ হাজার ফুট বালু-পাথর মৌখিকভাবে জব্দ করলেও টাস্কফোর্স নিলাম না দেয়ায় স্থানীয় ব্যবসায়ীদের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্ঠি হয়েছে।

 

 

 

স্থানীয়  ব্যবসায়ীরা জানান, একই অপরাধে দুই আইন তা হতে পারেনা। নদীর তীরে থাকা অবৈধ বালু-পাথর কিছু নিলামে দিবেন আর কিছু নিলাম দেবেন না তা মেনে নিতে কষ্ট হয়। আমাদের দাবী অবশিষ্ট বালু-পাথরও যেন নিলাম দেয়া হয়। ফলে সরকারি কোষাগারে জমা হবে প্রায় কোটি টাকা। ব্যবসায়ীরা আরো জানান, যাদুকাটা নদীর পাড়ে থাকা অবৈধভাবে উত্তোলন করা বালু-পাথর সবাই রেখেছে। কিন্তু কিছু ব্যবসায়ীর জন্য এক আইন আর অন্যদের জন্য আরেক আইন তা হতে পারেনা।

 

 

 

 

 

প্রশাসন ইতিমধ্যে প্রায় ৯০ হাজার ফুট বালু ও পাথর বিক্রি করেছে এবং সরকারি কোষাগারে জমা হয়েছে। কিন্তু ধরাছোয়ার বাহিরে রয়েছে আরো ২০/২৫ জন ব্যাবসায়ীর লক্ষাধিক ফুট বালু-পাথর। এসব বালু-পাথরও নিলামে বিক্রির দাবী জানাই। তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেন, আমরা জব্দকৃত বালু-পাথর নিলামে বিক্রি করেছি। অন্যদিকে এখনো যারা আইনের বাহিরে রয়েছে তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হবে।

 

 

সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, বিষয়টি আমার জানা আছে। লকডাউনের কারনে দেরি হয়ে গেছে। শীঘ্রই ব্যাবস্থা নেয়া হবে।

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/তালুকদার