1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০২:৫৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কানাইঘাট পৌর আওয়ামীলীগের ১নং ওয়ার্ডের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত নবীগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী আউশকান্দি হীরাগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ী সমিতির নির্বাচন রবিবার সিলেট-৫ আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী মাসুক আহমদ মাঠে তৎপর কানাইঘাটে কৃষকদের নিয়ে উদ্বুদ্ধকরণ সভা করলেন ইউএনও চীন ঘিরে তৈরি হচ্ছে মার্কিন সামরিক ঘাঁটি কানাইঘাট আব্দুল মালিক শিক্ষা ট্রাস্টের বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠান সম্পন্ন বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট জগন্নাথপুর উপজেলা শাখার কমিটি অনুমোদিত নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সহযোগিতায় ৩শ মানুষের মধ্যে শীতের চাদর বিতরণ সম্পন্ন জগন্নাথপুরে ফিসারীতে বিষ দিয়ে মাছ নিধন, এ কেমন শত্রুতা! নবীগঞ্জের হামলা ও লুটপাঠের ঘটনায় দাঙ্গাবাজ কনর মিয়া ও কবির মিয়ার ২ বছরের সাজা ও ৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল

আজ মন্ত্রিসভায় উঠছে কোটা বাতিলের প্রস্তাব

  • আপডেটের সময় : বুধবার, ৩ অক্টোবর, ২০১৮
  • ২৬২ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

সরকারি বেতন স্কেলের নবম থেকে ১৩তম গ্রেড পর্যন্ত (প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণী) পদে নিয়োগে সব ধরনের কোটা তুলে দেয়ার প্রস্তাব উঠছে মন্ত্রিসভায়।

আজ (বুধবার) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে তার কার্যালয়ে অনুষ্ঠেয় মন্ত্রিসভার বৈঠকের আলোচ্যসূচিতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

 

এছাড়া বৈঠকে ‘কাস্টমস আইন, স্বর্ণ নীতিমালা এবং জাতীয় পরিবেশ নীতি-২০১৮ এর খসড়া অনুমোদনের জন্য উপস্থাপন করা হতে পারে। খবর সংশ্লিষ্ট সূত্রের।

 

কোটা পর্যালোচনা কমিটি সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ‘কোটা সংস্কার সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রধানমন্ত্রীর কাছে উপস্থাপন করা হলে তিনি কোনো মন্তব্য করেননি। তিনি শুধু মন্ত্রিসভায় উপস্থাপনের জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। এখন মন্ত্রিসভায় উপস্থাপন করা হবে। সুপারিশের ওপর মন্ত্রিসভার সদস্যরা আলোচনা করে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন।’

 

পর্যালোচনা কমিটির সুপারিশের পর্যবেক্ষণে বলা হয়েছে, ‘প্রজাতন্ত্রের চাকরিতে নিয়োগের ক্ষেত্রে ৯ম গ্রেডের (প্রথম শ্রেণী) ও ১০ম-১৩তম গ্রেড (দ্বিতীয় শ্রেণী) পদে মেধার ভিত্তিতে নিয়োগ প্রদান করা যেতে পারে।

 

এসব গ্রেডে নিয়োগের ক্ষেত্রে বিদ্যমান কোটা পদ্ধতি বাতিল করা যেতে পারে। কোটা বাতিলের ফলে বিদ্যমান কোটা ব্যবস্থায় সুবিধাভোগী জনগোষ্ঠীর আর্থ-সামাজিক অবস্থার ক্ষেত্রে ভবিষ্যতে প্রতিফলিতব্য প্রভাব নির্দিষ্ট সময় অন্তর পর্যালোচনা করে প্রাপ্ত পরিসংখ্যানের ভিত্তিতে যথোপযুক্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা যেতে পারে।’

 

কোটা পর্যালোচনা কমিটি সূত্র জানায়, তারা ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলংকা ও ভুটানের সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতি সংগ্রহ ও পর্যালোচনা করে দেখেছেন। তবে ভারত, পাকিস্তানের সঙ্গে বাংলাদেশের বিদ্যমান কোটা পদ্ধতি মিলছে না।

 

কারণ ওই দেশ দুটিতে বিভিন্ন প্রদেশ রয়েছে। একেক প্রদেশে একেক ধরনের পদ্ধতি বিদ্যমান। তাদেরও কিছু কোটা আছে সংখ্যালঘু শ্রেণীর জন্য তবে তা খুবই নগণ্য। বাংলাদেশে ওই ধরনের কোনো মাইনরিটি শ্রেণী বা প্রদেশ নেই। দেশে ক্ষুদ্র কিছু নৃগোষ্ঠী থাকলেও তা ওইসব দেশের মতো নয়।

এছাড়া শ্রীলংকা ও ভারতের তামিলনাডু রাজ্যসহ বেশ কিছু প্রদেশে সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৪০ বছর। এসব তথ্য-উপাত্তের পাশাপাশি দেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে এযাবৎ প্রশাসন সংস্কারে যেসব কমিশন ও কমিটি গঠন করা হয়েছিল তা সব প্রতিবেদন পর্যালোচনা করেছে সচিব কমিটি।

প্রতিটি কমিশন ও কমিটিই কোটা থেকে সরে এসে পর্যায়ক্রমে মেধাকে প্রাধান্য দিয়ে সরকারি চাকরিতে নিয়োগের সুপারিশ করেছিল।

সূত্র আরও জানায়, সচিব কমিটির সিদ্ধান্ত অনুসারে প্রশাসন সংস্কারে মোজাফফর আহমদ চৌধুরী কমিশন, ১৯৭৭ সালে সাবেক সচিব আবদুর রশিদের নেতৃত্বে গঠিত কমিশন, ১৯৯৪ সালে চারজন সচিবের নেতৃত্বে গঠিত প্রশাসন পর্যালোচনা কমিটির রিপোর্ট, ১৯৯৬ সালে জনপ্রশাসন সংস্কারে গঠিত কমিশনের রিপোর্ট এবং সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব ড. আকবর আলি খানের নেতৃত্বাধীন কমিশনের রিপোর্টের সুপারিশ আমলে নেয়া হয়েছে।

এছাড়া সরকারি কর্মকমিশন (পিএসসি) প্রতিষ্ঠার পর থেকে বিভিন্ন সময় নিয়োগে কিভাবে কোটা সংরক্ষণ করেছে, তাও বিবেচনা করেছে সংস্কার কমিটি। এছাড়া দেশে বিভিন্ন সময় কোটা নিয়ে প্রকাশিত সংবাদপত্রের কপিও সংগ্রহ করা হয়েছে।

এছাড়া রাষ্ট্রের অ্যাটর্নি জেনারেলের মতামতও নেয়া হয়েছে। এসব বিষয় বিশ্লেষণ করে কোটা তুলে দেয়ার সুপারিশ করেছে পর্যালোচনা কমিটি।

বর্তমানে সরকারি চাকরিতে সংরক্ষিত কোটা ৫৬ শতাংশ। বাকি ৪৪ শতাংশ নেয়া হয় মেধা যাচাইয়ের মাধ্যমে। বিসিএসে নিয়োগের ক্ষেত্রে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ৩০, জেলা কোটায় ১০, নারী কোটায় ১০ ও উপজাতি কোটায় ৫ শতাংশ চাকরি সংরক্ষণ করা আছে।

এই ৫৫ শতাংশ কোটায় পূরণযোগ্য প্রার্থী পাওয়া না গেলে সেক্ষেত্রে ১ শতাংশ পদে প্রতিবন্ধীদের নিয়োগের বিধান রয়েছে।

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD