1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৬:০৫ অপরাহ্ন

রাজনগরে ষড়যন্ত্রমূলক সাজানো মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ৮ জুন, ২০১৮
  • ৩৮০ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

মোঃ তাজুদুর রহমানঃ

মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলাধীন উত্তরভাগ ইউনিয়নধীন লালাপুর গ্রামে ষড়যন্ত্রমূলক সাজানো ঘটনায় মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে মৌলভীবাজার অনলাইন প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছেন একই এলাকার ভুক্তভোগী পিংকু দাস বৃহস্পতিবার  ৭ জুন দুপুরে।

তিনি লিখিত বক্তব্যে জানান, নিজ এলাকা লালাপুর গ্রামে একজন নীরিহ ভূমিমালিকের সাথে তার ভূমি জবরদখলকারী চক্রের অন্যায় কর্মকান্ড এবং স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি মেম্বার কর্তৃক ওই ভূমি মালিকের ভূমির উপর দিয়ে জোরপূর্বক পল্লীবিদ্যুতের সঞ্চালন লাইন স্থাপন সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহ করার কারণে এবং

সর্বশেষ মৌলভীবাজারের দুজন সাংবাদিক সরেজমিন এসব অন্যায় ঘটনা প্রত্যক্ষ করতে আসার কারণে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি মেম্বারের ইন্ধনে উক্ত জবরদখলকারী চক্র পরিকল্পিতভাবে ষড়যন্ত্রমূলক ঘটনা সাজিয়ে তার বিরুদ্ধে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়।

উক্ত সাজানো মিথ্যা মামলায় ঐ ভূমিমালিক ও তার পুত্রের সাথে আমাকেও আসামী করা হয়েছে। অথচ, সংবাদের জন্য তথ্য সংগ্রহ করা ছাড়া উভয়পক্ষের কোনকিছুতেই আমার কোন সম্পৃক্ততা বা স্বত্ত্বস্বার্থ নাই। উক্ত ষড়যন্ত্রমূলক সাজানো ঘটনার মিথ্যা মামলায় আমাকে আসামী করার প্রতিবাদে এবং আমার নিজ এলাকা লালাপুর গ্রামে চলমান এসব অন্যায়-অপরাধ-অপকর্মের প্রকৃত তথ্য তুলে ধরার জন্য সাংবাদিকদের আহবান জানান।

তিনি আরো জানান- মৌলভীবাজার জেলার রাজনগর উপজেলাধীন ২নং উত্তরভাগ ইউনিয়নের লালাপুর গ্রামে লালাপুর মৌজার অন্তর্গত ২২নং জেএলস্থিত ৩৩৮নং এসএ, ৩৯৮নং নামজারী ২৮৩নং আরএস ছাপা খতিয়ানের ৭৭৬নং এসএ এবং ৮৪৭নং আরএস দাগের ৫৭৬ শতক ভূমির মালিক মতিলাল দাস স্থানীয় হতদরিদ্র মৃতঃ কুমুদ চন্দ্র দাসের পুত্র কৃপেশ চন্দ্র দাস, মৃতঃ ভৈরব চন্দ্র দাসের পুত্র রমেশ চন্দ্র দাস ও জব্বার মিয়ার পুত্র মোঃ মছব্বির মিয়াকে বসবাসের জন্য উক্ত ভূমিতে সাময়িক আশ্রয় দিয়েছিলেন।

পরবর্তীতে প্রায় ১০ বছর পূর্বে মতিলাল দাস তার মালিকানাধীন উক্ত সম্পূর্ণ ভূমি সিলেট জেলার ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার নুরপুর গ্রমের মৃতঃ মোঃ ছালিম মিয়ার পুত্র মোঃ ছইফ আলীর নিকট বিক্রি করে মালিকানা ও ভোগদখল ত্যাগ করেন। কিন্তু, সাময়িক আশ্রিত কৃপেশ চন্দ্র দাস, রমেশ চন্দ্র দাস ও মছব্বির মিয়া দখল ত্যাগ না করে জোরপূর্বক অবস্থান অব্যাহত রাখে

এবং তাদের সহযোগী হয়ে আরও ২০/২২টি পরিবার ছইফ আলীর ভূমি জবরদখল পূর্বক বসবাসরত হয়। কৃপেশ চন্দ্র দাস সহকারী জজ আদালত, রাজনগর, মৌলভীবাজারে ছইফ আলীর বিরুদ্ধে ২৪/২০১০ইং স্বত্ত্ব মামলা ও রমেশ চন্দ্র দাস ২৫/২০১০ইং স্বত্ত্ব মামলা দায়ের করে।

এর প্রেক্ষিতে ছইফ আলী তার ক্রয়কৃত ভূমিতে জোরপূর্বক অবস্থানকারীদের বিরুদ্ধে যুগ্ন জেলা জজ ১ম আদালত, মৌলভীবাজারে ১৮/২০১১ইং স্বত্ত্ব মামলা দায়ের করতে বাধ্য হন। উভয় পক্ষের মামলাই বিজ্ঞ আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। এমতাবস্থায় সম্প্রতি উক্ত ভূমিতে জোরপূর্বক বসবাসরত পরিবারগুলো বিদ্যুৎসংযোগের জন্য আবেদন করলে, পল্লীবিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুজ্জামান ছালিক ও ইউপি মেম্বার রকিব আলীর প্রত্যক্ষ সহযোগীতায় বিদ্যুৎ লাইন স্থাপনের জন্য খুটি স্থাপন কাজ শুরু করে এবং ১টি খুটি স্থাপন করে।

বিষয়টি জানতে পেরে ভূমিমালিক ছইফ আলী শ্রীমঙ্গলস্থ মৌলভীবাজার পল্লীবিদ্যুৎ অফিসে লিখিতভাবে আপত্তি জানান। তা সত্তেও ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি মেম্বারের ক্ষমতার প্রভাবে পল্লীবিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ বিদ্যুৎলাইন স্থাপনকাজ অব্যাহত রাখায় একজন সংবাদকর্মী হিসাবে ছইফ আলী বিষয়টি আমাকে জানান।

এর প্রেক্ষিতে আমি বিষয়টির সত্যতা যাচাই করার জন্য ঘটনাস্থলে গেলে অবৈধ বসবাসকারীরা আমাকে এ নিয়ে লেখালেখি করলে প্রাণনাশ করে ফেলবে বলে হুমকি দেয়। তথাপিও আমি পল্লীবিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষকে ফোন করে ছইফ আলীর ভূমির উপর দিয়ে অবৈধভাবে বিদ্যুৎলাইন স্থাপন কাজ বন্ধ করার অনুরোধ জানাই।

পরবর্তীতে মৌলভীবাজারে সাংবাদিকদের সাথে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করি এবং সরেজমিন খোজখবর নিয়ে প্রকৃত ঘটনার সংবাদ পরিবেশনের মাধ্যমে নীরিহ ছইফ আলীকে সহায়তা করার অনুরোধ জানাই।

এর প্রেক্ষিতে দু’জন সাংবাদিক সরেজমিন খোজখবর নেয়ার জন্য গত ১৬ মে ঘটনাস্থলে যান। এসময় পুত্র মান্না ইসলামসহ ছইফ আলীও সেখানে উপস্থিত হয়ে সাংবাদিকগণকে সবকিছু দেখান এবং ভূমির মালিকানা ও মামলা সংক্রান্ত কাগজাত সরবরাহ করেন। এরপর সাংবাদিকগণ ঘটনাস্থল ত্যাগ করার সাথে সাথেই ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি মেম্বারসহ অবৈধ বসবাসকারীরা পরিকল্পিতভাবে ঘটনাস্থলে এসে ছইফ আলী ও তার পুত্র মান্না ইসলামের উপর হামলা চালিয়ে বেধরক মারপিট করে।

খবর পেয়ে রাজনগর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে তাদেরকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। এরপর ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি মেম্বারের সহযোগীতায় অবৈধ বসবাসকারী হামলাকারীরা মিথ্যে ঘটনা সাজিয়ে ছইফ আলী, তার পুত্র মান্না ইসলাম ও আমাকে আসামী করে একটি মামলা

(থানার নং- ২০, জিআর নং- ৯৮/১৮, তাং- ১৬/০৫/২০১৮ইং) দায়ের করে। অথচ, সর্বশেষ এ ঘটনার সময় আমি ঘটনাস্থলে তো নয়ই, এলাকাতেই ছিলামনা। অবৈধ বিদ্যুৎলাইন স্থাপন কাজ বন্ধে ভূমিকা রাখার কারণেই ষড়যন্ত্রমূলকভাবে ওই সাজানো মামলায় আমাকে আসামী করা হয়েছে।

আমি এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে ঘটনার প্রকৃত তথ্য উদঘাটন করে সাজানো মিথ্যে ঘটনার মামলা দায়েরকারী ও তাদেরকে আশ্রয়-প্রশ্রয়-সহায়কদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আপনাদের মাধ্যমে জনপ্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানাচ্ছি।

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD