1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৬:০০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কানাইঘাটে সোস্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটি নিউ ইয়র্কের নগদ অর্থ বিতরণ যেভাবে এক বছরে অর্ধেক সম্পত্তি খোয়ালেন বিশ্বের শীর্ষ ধনী নারী সিলেটের বিদায়ী পুলিশ সুপারকে কানাইঘাট প্রেসক্লাবের সংবর্ধনা প্রদান খেলাপি ঋণে রেকর্ড, এক বছরে বেড়েছে ২৬ হাজার কোটি টাকা কানাইঘাটে ওয়েভ ফাউন্ডেশনের এডভোকেসি নেটওয়ার্ক গঠন সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে কলেজ শিক্ষার্থীদের নিয়ে ওরিয়েন্টেশন ক্লাস অনুষ্ঠিত কানাইঘাটে পুষ্টি সমন্বয় কমিটির সভা অনুষ্ঠিত দ্রব্যমূল্য উর্ধ্বগতির প্রতিবাদে জগন্নাথপুরে জাতীয় পার্টির প্রতিবাদ সভা বিদেশে যেতে ডলার বহনে নিরুৎসাহিত করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক যুক্তরাজ্য প্রবাসী আবু রায়হানের উদ্যোগে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের মধ্যে ত্রান সামগ্রী বিতরণ

পর পর তিন ভাইকে বিয়ে করতে হয় খাদিজার

  • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ৫ জুন, ২০১৮
  • ২৬৩ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

প্রথমে খাদিজার বিয়ে হয় এক তালেবান জঙ্গির সঙ্গে। তখন খাদিজার বয়স ছিল ছয়। আর ওই তালেবান স্বামী তার থেকে ১৫ বছর বেশি বয়সী। তারপর বিয়ে হয় এক পুলিশ সদস্যের সঙ্গে। সেই স্বামীও তালেবানদের সঙ্গে যুদ্ধ করতে গিয়ে নিহত হয়। তার তৃতীয় স্বামী দোভাষী পুলিশ সদস্য ছিলেন। এখন তার জীবনও বিপন্ন। কারণ তালেবানরা তাকে এবং তার শিশুপুত্রকে খুনের হুমকি দিচ্ছে।

খাদিজার তিন স্বামী আসলে তিন সহোদর। পাখতুন সমাজের নিয়ম, মৃত ভাইয়ের বউকে বিয়ে করতে হয় ভাইকে। ফলে এভাবেই তাকে পর পর তিনটি বিয়ে করতে হয়। বর্তমানে খাদিজার বয়স ১৮ বছর।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্টের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দক্ষিণ আফগানিস্তানের এক কৃষক পরিবারের মেয়ে খাদিজা। জন্মের আগেই তার বাবা তার চাচাতো ভাইয়ের সঙ্গে বিয়ে ঠিক করে রেখেছিলেন। সেই মতো ছয় বছর বয়সে খাদিজার বিয়ে হয় তার থেকে ১৫ বছরের বড় জিয়া উল হকের সঙ্গে। সেই সময়ে তাদের বাসভূমি মারজা ছিল তালেবানদের স্বর্গ। মারজায় মার্কিন সেনার প্রভাব বাড়লে জিয়া উল হকের বাড়িতে আসা-যাওয়া কমে যায়। এক সময়ে এক এনকাউন্টারে সে নিহত হয়। খাদিজার বয়স তখন ১০।

জিয়ার পরের দুই ভাই পুলিশে চাকরি করত। পুলিশও এই সময়ে যুদ্ধে লিপ্ত। তাদের মধ্যে জ্যেষ্ঠ ভাই আমিনুল্লাহর সঙ্গে খাদিজার আবার বিয়ে হয়। তখন আমিনুল্লাহর বয়স ২২ বছর। পরে ২০১৪ সালে আমিনুল্লাহও মারা যায়। খাদিজার গর্ভে তখন সন্তান। ১৪ বছর বয়সে তার এক কন্যাসন্তান জন্মায়। পবিত্র কোরআন নির্ধারিত চার মাস পরে বিধবা খাদিজার পুনরায় বিয়ে হয় পরের ভাই শামসুদ্দিনের সঙ্গে।

শামসুদ্দিন তার পরিবার নিয়ে হেলমন্দ প্রদেশের রাজধানী লস্কর গড়ে চলে যায়। সেখানে সে প্রতিদিন ২৫ ডলারের বিনিময়ে মার্কিন সেনাদের দোভাষীর কাজ করতে থাকে। কিন্তু সেই চাকরিও চলে যায়। পরে রিকশা চালানো শুরু করে শামসুদ্দিন। ইতোমধ্যে শামসুদ্দিন ছাড়া তাদের পরিবারের বাকি পুরুষরা মারা গেছেন। কখনও তালেবান হামলায়, কখনও বা যুদ্ধে। শামসুদ্দিন একাই বেঁচে আছেন খাদিজা আর শিশুকন্যাটিকে নিয়ে।

সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে শামসুদ্দিন জানায়, সে খাদিজাকে বিয়ে করতে চাননি। দেশের নিয়মের কারণেই তাকে বাধ্য করেছে বড় ভাইয়ের বিধবা বউকে বিয়ে করতে। সে চেয়েছিলেন, খাদিজা অন্য কাউকে বিয়ে করুক। কিন্তু তখন কিছুই করার ছিল না।

বর্তমানে খাদিজা ও শামসুদ্দিনের কোলে এক পুত্রসন্তানও রয়েছে। তালেবানরা নিয়মিত ফোন করে সেই শিশুটিকে হত্যার হুমকি দেয়। শামসুদ্দিনকেও নিয়মিত প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয় বলে জানান তিনি। এটা শুধু খাদিজার একার কাহিনী নয়, আফগান গ্রামাঞ্চলের বেশিরভাগ পরিবারেই এমন চিত্র রয়েছে।

সূত্র: এবেলা

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD