1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ১০:২৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বিশ্বনাথে পিএফজি’র মাসিক ফলো-আপ সভা অনুষ্ঠিত বাসস এর সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি পদে নিয়োগ পেলেন আল-হেলাল মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত দেওয়ান নগরে রাস্তা পাকা করণ কাজের শুভ ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করলেন পীর মিসবাহ্ এমপি মহাসড়কের আউশকান্দিতে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে আগ্নেয়াস্ত্র সহ আন্তঃজেলা ডাকাতদলের ৫ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ শান্তিগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ফারুক আহমদের সুস্থ্যতা কামনায় দোয়া That Which You Do not Know About China Cupid Could Be Charging To Significantly More Than You Think কানাইঘাটে সোস্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটি নিউ ইয়র্কের নগদ অর্থ বিতরণ যেভাবে এক বছরে অর্ধেক সম্পত্তি খোয়ালেন বিশ্বের শীর্ষ ধনী নারী সিলেটের বিদায়ী পুলিশ সুপারকে কানাইঘাট প্রেসক্লাবের সংবর্ধনা প্রদান

যে ৫ কারণে জিদানের পদত্যাগ

  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ১ জুন, ২০১৮
  • ২০৯ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

স্পোর্টস ডেস্ক::

গত শনিবারই টানা তৃতীয় বারের মতো চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা জিতেছে। রিয়াল মাদ্রিদের তাই এখন সময়টা উৎসবের। কিন্তু উৎসবের মধ্যেই বিদায়ের করুণ রাগিনী বাজিয়ে দিলেন কোচ জিনেদিন জিদান। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের হ্যাটট্রিক শিরোপায় দলকে অমরত্বের আসনে বসিয়ে বৃহস্পতিবার রিয়ালের কোচের পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন জিদান। কেন আচমকা এই পদত্যাগ? কারণ ব্যাখ্যায় জিদান জানিয়েছেন পরিবর্তনের প্রয়োজনীয়তার কথা। বলেছেন সাফল্যের ধারা অব্যাহত রাখতে সবকিছুতেই পরিবর্তন দরকার রিয়ালের। কিন্তু সেটাই তার পদত্যাগের একমাত্র কারণ নয়। কারণ আরও আছে।

 

স্পেনের গণমাধ্যমগুলো জিদানের এই হঠাৎ পদত্যাগের পেছনের সেই কারণগুলো খুঁজেবের করার চেষ্টা করেছে।গবেষণা করে তারা উদঘাটন করেছে জিদান আসলে পদত্যাগ করেছেন মোট ৫টি কারণে। সেই ৫কারণ কিকি, পাঠকদের জন্য তা তুলে ধরা হলো।

 

১. মিশন পরিপূর্ণ

রিয়ালের পধান কোচ হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন আড়াই বছর। এই স্বল্প সময়েই তিনি ক্লাবকে উপহার দিয়েছেন ৯টি শিরোপা! যার মধ্যে ৩টি উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা। টানা তিন বছরে তিনটি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা, এতোদিন এটা ছিল অবিশ্বাস্য। নিজের কারিশমায় জিদান সেটাকেই করেছেন বাস্তব। ইতিহাসের প্রথম ক্লাব হিসেবে রিয়ালকে উপহার দিয়েছেন টানা তিন শিরোপা।

 

শিরোপার হ্যাটট্রিক করে ক্লাবকে বসিয়েছেন অমরত্বের আসনে। আর কি চাই! জিদান তাই মনে করছেন তার মিশন পরিপূর্ণ। অবিশ্বাস্য এই সাফল্যের পর জিদান বুঝতে পেরেছেন, সাফল্যের এই ধারা ধরে রাখতে রিয়ালের এখন পরিবতর্ন প্রয়োজন। সেটা শুধু নতুন নতুন খেলোয়াড় কেনা নয়, পরিবরর্তন দরকার দিক নির্দেশনা, কোচিং পদ্ধতিতেও। তাই নিজে থেকেই সরে দাঁড়ালেন।

 

২. লিগ কাপ ব্যর্থতা

টানা তৃতীয় বারের মতো চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা জয়ের অবিশ্বাস্য কীর্তি গড়েছে বটে। তবে স্পেনের ঘরোয়া ফুটবলে মৌসুমটা একদমই ভালো যায়নি জিদানের রিয়ালের। মৌসুমের অর্ধেক না যেতেই লিগ শিরোপা দৌড় থেকে ছিটকে পড়ে। কোপা ডেল রে’র কোয়ার্টার ফাইনাল থেকেও ছিটকে পড়ে পুঁচকে লেগানেসের কাছে হেরে! মৌসুমের শুরুর দিকের ওই ব্যর্থতায় শুরু হয়ে যায় সমালোচনা।

 

বাইরের লোকেরা তো বটেই, রিয়ালের ঘরের মানুষদেরও কেউ কেউ জিদানের কোচিং পদ্ধতি নিয়ে প্রশ্ন তোলা শুরু করেন। ওই ক্লাব কর্তাদের আচরণ একদমই মেনে নিতে পারেননি জিদান। মনে মনে তখনই নাকি পদত্যাগের পরিকল্পনা এঁটে ফেলেছেন জিদান! অধিনায়ক সার্জিও রামোস যেমনর স্পষ্টই বলেছেন, ‘মাস তিনেক আগেই পদ্যতাগের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন জিদান।’

 

মনে মনে পাকা সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেললেও তিনি অপেক্ষা করছিলেন সঠিক সময়ের জন্য। শনিবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা জয়ের পরই জিদানের মনে হয়েছে, সরে দাঁড়ানোর জন্য এটাই তার সঠিক সময়। পদত্যাগের ঘোষণায় তিনি বলেছেনও, ‘সঠিক সময়েই সরে যাচ্ছি আমি।’

 

৩. ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো গ্যারেথ বেলের অনিশ্চিত ভবিষ্যত

 

শনিবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা জয়ের পরই রোনালদো ও বেল রিাল ছাড়ার ইঙ্গিত দেন। দুজনেই জানিয়ে দেন, রিয়ালে তাদের ভবিষ্যত অনিশ্চিত। তবে দুজনের কারণটা ভিন্ন। রোনালদোর কারণটা আর্থিক। আর বেলের ঘটনাটা বেশি বেশি ম্যাচ খেলা নিয়ে। বেল চান বেশি বেশি ম্যাচ খেলতে। সর্বোপুরি দলে চান তারকা মর্াদা।

 

কিন্তু ফর্মহীনতার কারণে কোচ জিদান তাকে এই মৌসুমে বেশির ভাগ ম্যাচেই বেঞ্চে বসিয়ে রেখেছেন। খেলিয়েছেন বদলি হিসেবে। কিন্তু বেল চান প্রতিটা ম্যাচেই তাকে শুরুর একাদশে খেলানো হোক। স্পেনের জনপ্রিয় ক্রীড়া দৈনিক এএস জানিয়েছে, ওয়েলস তারকার এই মনোভাবে প্রচণ্ড বিরক্ত জিদান। তিনি খুবই কষ্ট পেয়েছেন। তাছাড়া বিশ্বসেরা খেলোয়াড় হিসেবে জিদানকে সবাইশুরুতেই সবাই খুব সমীহ করত। কিন্তু বেল ও ইসকো ইস্যুতে রিয়ালের ড্রেসিংরুমে জিদানের সেই সম্মানে ভাটা পড়ে। বিষয়টি জিদানকে কষ্ট দিয়েছে। তাই অন্যান্য বিষয়ের এই ব্যাপারটিও মিলিয়ে সরে দাঁড়ানোকেই যুক্তিসংগত মনে করেন জিদান।

 

৪. তার মতামত না নিয়েই সভাপতি ফ্লোরেন্তিনো পেরেজের চুক্তি পরিকল্পনা

 

ক্লাব নতুন কোন খেলোয়াড় কিনবে, কাকে বিক্রি করবে, সেটা মূলত কোচদের পছন্দ-অপছন্দের ভিত্তিতেই হয়। কিন্তু এবার রিয়াল সভাপতি ফ্লোরেন্তিনো পেরেজ কোচ জিদানের মতামতকে গুরুত্ব না দিয়ে নিজের ইচ্ছামত ট্রান্সফার পরিকল্পনা সাজান। ব্যাপারে মোটেই ভালো লাগেনি জিদানের। ভেতরে ভেতরে অসম্মানিত বোধ করেছেন।

 

এমনিতে সভাপতি পেরেজের সঙ্গে জিদানের সম্পর্কটা দারুণ। ২০০০ সালে এই পেরেজই তৎকালীন রেকর্ড ট্রান্সফার ফিতে জুভেন্টাস থেকে জিদানকে রিয়ালে নিয়ে আসেন। ২০১৬ সালে এই পেরেজই অনভিজ্ঞ জিদানকে দলের প্রধান কোচ করার সাহস দেখান। পেরেজের অধীনে মোট ৫টি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা জিতেছে রিয়াল। সেই ৫টি শিরোপাতেই প্রত্যক্ষ অবদান আছে জিদানের। একটি শিরোপা জিতেছেন খেলোয়াড় হিসেবে। একটি সহকারী কোচ হিসেবে। বাকি তিনটি প্রধান কোচ হিসেবে। জিদান তাই খুবই আস্থার পাত্র তার।

 

কিন্তু দলবদল বিষয়ে এবার সেই আস্থা জিদানের প্রতি দেখাননি পেরেজ। বিশ্বমানের একজন গোলরক্ষক কেনার জন্য মরিয়া রিয়াল। জানুয়ারিতে অ্যাথলেতিক বিলবাওয়ের গোলরক্ষক কেপাকে কেনার দ্বারপ্রান্তেও পৌঁছে গিয়েছিল। কিন্তু জিদান সভাপতি পেরেজের এই ইচ্ছার সঙ্গে একমত নন। বর্তমান এক নম্বর গোলরক্ষক কেইলর নাভাসের উপরই অগাধ আস্থা তার। জিদানে সরাসরিই বলেছেন, ‘নাভাসাই আমার গোলরক্ষক।’

 

শুধু গোলরক্ষক প্রসঙ্গেই নয়, সভাপতি পেরেজের সঙ্গে কোচ জিদানের মতের বিরোধ দেখা দেয় আরও একাধিক বিষয়েও। পেরেজের ইচ্ছা করিম বেনজেমার পরিবর্তে বায়ার্ন মিউনিখের পোলিশ ফরোয়ার্ড রবার্ট লেভান্ডভস্কিকে কেনার। পোলিশ এই ফরোয়ার্ডের সঙ্গে চুক্তির বিষয়ে অনেক দূর এগিয়েও যায় রিয়াল। কিন্তু জিদানের আস্তা বেনজেমার উপরই। এই বিষয়গুলো নিয়ে ভেতরে ভেতরে তাই পেরেজ ও জিদানের মধ্যকার সম্পর্কটায় ফাটল ধরেছে। যদিও একে অপরের প্রতি শ্রদ্ধায় টান পড়েনি। তবে কোচ হিসেবে তার মতামতকে গুরুত্ব না দেয়ায় জিদান মনক্ষুন্ন হয়েছেন। তার আচমকা পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নিতে যা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে।

৫. মাথা উঁচু করে বিদায় নেওয়া

 

খেলোয়াড়ী জীবনেই নিজের পাহাড়সম ব্যক্তিত্বের প্রমাণ দিয়েছেন জিদান। ফরাসি মহানায়ক বুঝিয়ে দিয়েছেন, সারা দুনিয়া দিলেও তার ব্যক্তিত্বকে কেউ টলাতে পারবে না! কি নিয়ে মনোমালিন্যের কারণে যেন ২০০৬ সালে চুক্তি থাকার পরও খেলোয়াড়ী জীবনের ইতি টেনে দেন জিদান। সভাপতি পেরেজসহ রিয়ালের তৎকালীন কর্তারা শত বুঝিয়েও নিজের নেওয়া অবসরের সিদ্ধান্ত থেকে জিদানতে টলাতে পারেননি।

অবসরের কারণ ব্যাখ্যায় জিদান বলেছিলেন খেলায় আগের মতো স্বচ্ছন্নবোধ না করার কথা। অথচ যখন অবসর নেন, তখন তিনি ক্যারিয়ারের সেরা ফর্মে। বিশ্বের সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক পাওয়া ফুটবলার তিনি। বেতন-ভাতা ও বিভিন্ন বিজ্ঞাপনী চুক্তির মাধ্যমে তখন তার বার্ষিক আয় ৩০০ মিলিয়ন ইউরো! একনজ ফুটবলারের জন্য বছরে এতো টাকা আয় করাটা তখন ছিল অবিশ্বাস্য ব্যাপার। অথচ কাড়ি কাড়ি টাকা কামানোর দরজা বন্ধ করে দিয়ে জিদান কিনা নিয়ে ফেলেন অবসর!

 

সেই জিদান নিজের ব্যক্তিত্বের দাবিতে কোচের পদ থেকে সরে দাঁড়াবেন, এ আর নতুন কি! তা রিয়ালের কোচের পদ যতই লোভনীয় হোক, জিদানের কাছে তার ব্যক্তিত্বই আগে। সম্মানই বড়। জিদান ভালো করেই জানেন, রিয়ালের কোচের চাকরিটা চিরস্থায়ী নয়। রিয়াল শুধু সাফল্যই চিনে। যতদিন সাফল্য পাবেন, ততদিনই দাম আছে। পান থেকে চুন খসলেই ছুঁড়ে ফেলবে রিয়াল। তা তিনি যত বিখ্যাত কোচই হোন।

 

জিদান এটাও জানেন, রিয়ালের এই অবিশ্বাস্য শিরোপা সাফল্যধারা বেশি দিন থাকবে না। সাফল্যের পথ একদিন হারাবেই। তখন ব্যর্থতার দায় নিয়ে মাতা নিচু করে বিদায় নিতে হবে। তার চেয়ে সময় থাকতে মাথা উঁচু করে বিদায় নেওয়াই ভালো। তাতে অন্তত নিজের ব্যক্তিত্ব থাকবে। তাই তিনি বিজয়ের মুকুট মাথায় নিয়েই সরে দাঁড়ালেন।

বিজয়ী বীরেরা তো মাথা উঁচু করেই বিদায় নেন!

 

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD