1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ০১:৩২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
বিশ্বনাথে পিএফজি’র মাসিক ফলো-আপ সভা অনুষ্ঠিত বাসস এর সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি পদে নিয়োগ পেলেন আল-হেলাল মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত দেওয়ান নগরে রাস্তা পাকা করণ কাজের শুভ ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করলেন পীর মিসবাহ্ এমপি মহাসড়কের আউশকান্দিতে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে আগ্নেয়াস্ত্র সহ আন্তঃজেলা ডাকাতদলের ৫ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ শান্তিগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ফারুক আহমদের সুস্থ্যতা কামনায় দোয়া That Which You Do not Know About China Cupid Could Be Charging To Significantly More Than You Think কানাইঘাটে সোস্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটি নিউ ইয়র্কের নগদ অর্থ বিতরণ যেভাবে এক বছরে অর্ধেক সম্পত্তি খোয়ালেন বিশ্বের শীর্ষ ধনী নারী সিলেটের বিদায়ী পুলিশ সুপারকে কানাইঘাট প্রেসক্লাবের সংবর্ধনা প্রদান

‘ডাস্টবিনে নয়, অসহায় মানুষের মুখে অন্ন’

  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ১ জুন, ২০১৮
  • ৭৫৬ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

মোঃ নোমান হোসাইন::
সিলেটের বিভিন্ন পাড়া-মহল্লার ১০ জন তরুণের গল্প শোনাবো সিলেটবাসীসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষকে। সকলেই নিজেদের পড়াশোনা ও কাজকর্ম নিয়ে যতোটা না ব্যস্ত থাকেন তার চেয়ে বেশি ব্যস্ততা তাঁদের সমাজকে নতুনরূপে সাজানোর। জরুরি মুহুর্তে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো, রোগীর রক্তের প্রয়োজনে রক্তদাতাদের ডেকে দেয়া। দরিদ্র-অসহায় মানুষের পাশে সাধ্যমতো দাঁড়ানো। দুর্ঘটনা-দুর্যোগে এগিয়ে যাওয়া। সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের শিক্ষা প্রদান- এসবই তাদের কাছে বড় কাজ। নিজেদের সমস্যাকে তুড়ি মেরে উড়িয়ে অদম্য তারুণ্য নিজেদেরকে আগাগোড়াই সঁপে দিয়েছেন মানবতার কল্যাণে।

‘ক্ষুধার রাজ্যে পৃথিবী গদ্যময়, পূর্ণিমার চাঁদ যেনো ঝলসানো রুটি’- অকালে চলে যাওয়া কবি সুকান্তের এমন উক্তির প্রতিফলন সহসাই চোখে দেয়া যায়। দিন কিংবা রাতে পথ হাটলেই চোখে পড়ে কোথাও না কোথাও অভুক্ত প্রাণ। মানুষ ডাস্টবিনে খুঁজছে অন্ন। সমাজকে পাল্টে দেয়ার স্বপ্নে বিভোর সেই দশ তরুণের মনে এমন দুঃখচিহ্ন দাগ কেটে যায়। তারা কোন ভাবেই মেনে নিতে পারছিলেন না এমন কষ্টদায়ক বাস্তবতা। ডাস্টবিনে খাবার খুঁজছে মানুষ। তাদের মতে- ‘ক্রমাগত জনসংখ্যার আধিক্য আর বিভিন্ন জায়গা থেকে নিঃস্ব মানুষের শহরমুখী হওয়ায় সুকান্তের কবিতার প্রতিফলন চোখে পড়ে নিত্যদিন।’

বলছি ফুডব্যাংকিং টিম সিলেটের কথা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি পাবলিক গ্রুপের মাধ্যমে নগরীর ১০ জন তরুণ চালিয়ে যাচ্ছেন তাঁদের কার্যক্রম। সেটির তদারকি করে স্বার্থহীন সমাজ কল্যাণ সংস্থা নামের একটি সংগঠন। ২০১৭ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর শুক্রবার রাতে শুরু হয় পথচলা। তারও কিছুদিন আগে ফুডব্যাংকিং সিলেটের সাথে সংশ্লিষ্ট তরুণরা তাদের এক সভা শেষ করে পায়ে হেটেই নিজ নিজ বাসা-বাড়ি ফিরছিলেন। রাস্তায় তাঁদের নজরে পড়ে ক্ষুধার জ্বালায় সুবিধাবঞ্চিত মানুষরা ডাস্টবিনে খাবার খুঁজছেন। যে ডাস্টবিনের পাশ দিয়ে যেতে সাধারণ মানুষ নাক চেপে ধরেন দুর্গন্ধ থেকে পরিত্রাণের আশায়, সেই ডাস্টবিনেই আবার মানুষ হাতড়ে বেঁড়ায় খাদ্য; ক্ষুধার জ্বালায়। ডাস্টবিন থেকেই পরিবারের জন্য খাবার নিয়ে যাচ্ছেন এমন কষ্টদায়ক বাস্তবায় নজর এড়ায়নি তাঁদের।’ এমন অমানবিক দৃশ্য দেখে ব্যাথাতুর হয়ে ওঠে স্বার্থহীন সমাজ কল্যাণ সংস্থার নিঃস্বার্থ যোদ্ধাদের। তাঁদের মনে প্রশ্ন উঁকি দেয়- ‘মানুষ কেনো ডাস্টবিনের খাবার খুঁজবে?’ আর উঁকি দেয়া সেই প্রশ্নই ভীত গড়ে দিলো ফুডব্যাংকিং টিম সিলেট এর পথচলা। তখন থেকে ওই ১০ তরুণ অসহায় মানুষদের পাশে অন্যভাবে দাঁড়ানোর চেষ্টা করলেন। তারা মনে মনে চিন্তা করলেন খাবারগুলো ডাস্টবিনে যাওয়ার আগেই তারা সংগ্রহ করবেন। আর সেটি তুলে দিবেন অন্নহীনের মুখে।
এতে যেমনভাবে অপচয় রোধ হবে তেমনি অসহায় ক্ষুধার্ত মানুষের মুখে হাসি ফুটাবে।

সেই পরিকল্পনা থেকে মাহবুব খানের উদ্যোগে বিভিন্ন সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবকদের নিয়ে স্বার্থহীন সমাজ কল্যাণ সংস্থা’র মাধ্যমে সিলেট নগরীতে পথচলা শুরু করে ‘ফুড ব্যাংকিং টিম সিলেট’। মাহবুব খান প্রতিষ্ঠাতা অ্যাডমিন থেকে তাঁর সাথে বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের আরোও ৯ জনকে যুক্ত করেন। ফেসবুকে চালু করেন ফুডব্যাংকিং টিম সিলেট নামের পাবলিক গ্রুপ। ২০১৭ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর সংগঠনের কর্মীরা নিজেদের পকেট থেকে চাঁদা দিয়ে ১০০ প্যাকেট খাবার প্রস্তুত করেন। পরে সেগুলো সিলেট নগরীর বিভিন্ন পয়েন্টে অসহায়দের মাঝে বিতরণ করেন। শুরু হলো কার্যক্রম। সামনের সেপ্টেম্বরে এক বছরে গড়াবে তাঁদের কার্যক্রম। এরই মাঝে মোট ৩৮ বার তারা অসহায়দের জন্য খাবার বিতরণ কার্যক্রম করেছেন। আর এসব খাবারগুলো তারা সংগ্রহ করেছেন নগরীর বিভিন্ন এলাকা থেকে।

এছাড়া নিজেরা ১০ জনসহ আরোও ৫০ জনের অধিক স্বেচ্ছাসেবক নিয়ে চালু করেন নিজের মধ্যে যোগাযোগ ও তথ্য আদানপ্রদানের জন্য পৃথক আরেকটি অফিসিয়াল গ্রুপ। সেটির মাধ্যমেই পরিচালিত হয় পারস্পারিক যোগাযোগ। যার মাধ্যমে এক নোটিশেই নগরীর যেকোন স্থানে জড়ো হয়ে যেতে পারেন ফুডব্যাংকিং’র স্বেচ্ছাসেবকদল।

যেভাবে খাবার জমা পড়ে ফুডব্যাংকিং টিমের কাছে :
নগরীর যেকোনস্থানের বাসা-বাড়ি, রেস্টুরেন্ট, খাবারের দোকান, হোটেল, কমিউনিটি সেন্টারে বিয়ে, আকিকা, জন্মদিন বা যেকোন অনুষ্ঠানের বেঁচে যাওয়া খাবারগুলো সংগ্রহ করার জন্য ফেসবুকে প্রচারণা চালানো হয়। টিমের পাবলিক গ্রুপ থেকে খবরটি ছড়িয়ে যায় বিভিন্ন জনের কাছে। টিমের গ্রুপে কলসেন্টারের দু’টি নাম্বার দেয়া আছে। সেগুলো ২৪ ঘন্টা খোলা থাকে। গ্রুপের ১০ জন এডমিন পালাবদল করে করে ২৪ ঘন্টাই অনলাইনে অ্যাকটিভ থাকেন।

কলসেন্টারে কল আসার পরপরই দ্রুততম সময়ের মধ্যে টিমের সদস্যরা ছুটে যান খাবার সংগ্রহে। সেগুলো নিয়ে আসা হয় নগরীর জেলরোডস্থ সামিরা কমপ্লেক্সের তৃতীয় তলায় বসবাসকারী গ্রুপের অ্যাডমিন জাহিদ হাসান ইমনের কক্ষে। এই কক্ষটি ফুডব্যাংকিং টিমের অস্থায়ী যোগাযোগের ঠিকানাও বলা চলে। সেখানে খাবারগুলো প্যাকেট করা হয়। প্যাকেটকরা শেষ হলে দ্রুততম সময়ের মধ্যেই খাবার নিয়ে টিমের সদস্য ও স্বেচ্ছাসেবকরা পৃথক পৃথকভাবে গ্রুপে বিভক্ত হয়ে বের হয়ে পড়েন অন্নহীনের খুঁজে।

একদল ছুটে যান রেলস্টেশনে। অন্যদল ক্বিনব্রীজে কিংবা হযরত শাহজালাল (র.) মাজার এলাকাতে। নিরাপত্তার কারণে তাঁদের গলায় ঝুলানো থাকে পরিচয়পত্র। খুঁজে খুঁজে তারা অসহায়দের মুখে তুলে দেন খাবার। প্রক্রিয়াটি তদারকি করেন স্বার্থহীন সমাজ কল্যাণ সংস্থার উদ্যোক্তা ও ফুডব্যাংকিং টিমের প্রতিষ্টাতা অ্যাডমিন মাহবুব খান। টিমে অ্যাডমিন হিসেবে কাজ করছেন, বাবুল আহমদ, জাহিদ হাসান ইমন, রাকুল সিংহা, মিসবাউল হক, আবুল মস্তাক, মাসুদুর রহমান মাসুদ, রুহেল আমিন, রাসেল মিয়া ও মালিহা মেহনাজ মিয়া। আর দশজনের এই টিমকে কাজে সহযোগিতা করেন আরো পঞ্চাশজনের অধিক তরুণ-তরুণী স্বেচ্ছাসেবক। তাঁরা ব্যস্ত থাকেন খাবারগুলো নষ্ট হওয়ার আগে অসহায় মানুষের মুখে তুলে দিতে। কেউ পায়ে হেটে, কেউ বাইসাইকেলে, কেউ মোটরসাইকেলে। কেউ রিকসাযোগে পৌছে দেন খাবার।

সম্প্রতি এ প্রতিবেদকের সাথে কথা হয় ফুডব্যাংকিং টিম সিলেটের অ্যাডমিন রাসেল মিয়ার সাথে। তিনি বলেন- ‘ডাস্টবিনে নয়, অসহায় মানুষের মুখে অন্ন’ স্লোগানকে সামনে রেখে আমাদের চলা। আমরা চাই মানুষ সচেতন হউক। আমাদের দেশে প্রতি বছর মোট খাদ্যের ১৫ শতাংশই অপচয় হয়। আমরা যদি সচেতন হলে অন্নহীন মানুষের স্বপ্ন কিছুটা পূর্ণ হবে। রাস্তায় পড়ে থাকা মানুষগুলোর স্বপ্ন হলো দু’বেলা দু’মুঠো খাবার খাওয়া। ইসলামের দৃষ্টিতে অপচয়কারী হচ্ছে শয়তানের বন্ধু।
ফুডব্যাংকিং টিম সিলেট এর কর্মীরা শহরের মানুষদের অপচয় রোধে সচেষ্ট ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে। তিনি জানালেন, তাঁদের কোন ফান্ড কিংবা চাঁদা গ্রহণের কোন ব্যবস্থা নেই। সংগ্রহ করা খাবার প্যাকেট করা এবং সেটি পৌঁছে দিতে যে অর্থের প্রয়োজন পড়ে সেগুলো তারা অ্যাডমিনরা বিভিন্ন মাধ্যমে যোগান দিয়ে থাকেন।

ফুডব্যাংকিং টিম সিলেট সম্পর্কে যেকোন তথ্য জানতে ০১৭৬৫-৮৮৫৬২৭ এই নাম্বারে যোগাযোগ করা যাবে। আর টিমের মাধ্যমে অসহায় মানুষের মাঝে খাবার বিতরণের জন্য দান করতে ২৪ ঘন্টা চালু কল সেন্টারের নাম্বারগুলোতে কল করতে পারেন যেকেউ। কল সেন্টারের নাম্বার দু’টি হচ্ছে : ০১৭১৭-০৪০৭৯৬, ০১৭১৭-৭২৬৬৫৯।

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD