1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৫:১৭ অপরাহ্ন

মাদক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে ঘুষ গ্রহণ, আসামি উধাও, ওসি প্রত্যাহার

  • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ২৯ মে, ২০১৮
  • ২৪৪ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের তালিকা ভুক্ত মাদক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে প্রায় ৭ লাখ টাকা ঘুষ গ্রহণের অভিযোগে দামুড়হুদা মডেল থানায় ওসি কে সোমবার গভীর রাতে থানা থেকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনে নেয়া হয়েছে। চুয়াডাঙ্গা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ তারিকুল ইসলাম কে প্রধান করে মঙ্গলবার ৩ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

এলাকাবাসীরা জানিয়েছেন, দেশে চলমান মাদক বিরোধী অভিযানের সাথে চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলা ও দর্শনা পৌর এলাকায় আইন শৃঙ্খলার বাহিনী অভিযান শুরু করে।

 

গত সপ্তাহের দিকে রাতে দামুড়হুদা মডেল থানার পুলিশ অভিযান চালিয়ে দর্শনা পৌর এলাকার ঈশ্বরচন্দ্র পুর গ্রামের মৃত আবুল হোসেন এর ছেলে কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের তালিকা ভুক্ত ফেন্সিডিল ও ইয়াবা টেবলেট সরবরাহকারী এজেন্ট ঝন্টু মিয়া (৩২) কে আটক করে বলে তার পরিবারের সদস্যরা জানান।

 

 

কিন্তু ধরে কোথায় রাখা হয়েছে তা পরিবারের সদস্যরা সাংবাদিকদের জানাতে পারেনি। ৪/৫ দিন পর এলাকায় গুজব ছড়িয়ে পড়ে ঝন্টু বন্দুক যুদ্ধে নিহত হয়েছেন । খবর টি কোন কোন ফেসবুক আইডিতে ভাইরাল হয়ে পড়ে । এ সব খবর পেয়েছে তার পরিবারের সদস্যরা আতঙ্কগ্রস্থ হয়ে পুলিশের কাছে ধরনা দেয়।

 

সোমবার সকালের দিকে তার পরিবারের লোকজনের সাথে পুলিশের কথা বলতে দেখে অনেকেই আলোচনা সমালোচনা করেন। কিছুক্ষণ পরেই প্রায় ৭ লাখ টাকার বিনিময়ে ঝন্টুকে ছেড়ে দেয়া বা পালিয়ে যেতে সহোযোগিতা করা হয়েছে বলে দামুড়হুদা মডেল থানার ওসি আকরাম হোসেনের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠে।

 

 

এ বিষয় চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপার মাহবুবর রহমান পি পি এম মঙ্গলবার জানিয়েছেন, অভিযোগের ভিত্তিতে দামুড়হুদা মডেল থানার ওসি আকরাম হোসেন কে সোমবার গভীর রাতে থানা থেকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনে ক্লোজড করা হয়েছে। সাথে সাথে

 

 

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ তারিকুল ইসলাম কে প্রধান করে মঙ্গলবার একটি ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে । পুলিশ সুপার সাংবাদিকদের আরো জানান মাদক বিরোধী অভিযানে কোন শৈথিল্য নয় । যার বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়া যাবে তার বিরুদ্ধেই দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে । তবে অভিযুক্ত মাদক ব্যবসায়ী ঝন্টু মিয়া গত ৭দিন কোথায় ছিল বা এখন সে কোথায আছে কেমন আছে আদৌও বেচে আছে কি না তাও তার পরিবারের সদস্যরা সাংবাদিকদের জানাতে পারেননি ।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD