1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ১২:২০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
বিশ্বনাথে পিএফজি’র মাসিক ফলো-আপ সভা অনুষ্ঠিত বাসস এর সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি পদে নিয়োগ পেলেন আল-হেলাল মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত দেওয়ান নগরে রাস্তা পাকা করণ কাজের শুভ ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করলেন পীর মিসবাহ্ এমপি মহাসড়কের আউশকান্দিতে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে আগ্নেয়াস্ত্র সহ আন্তঃজেলা ডাকাতদলের ৫ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ শান্তিগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ফারুক আহমদের সুস্থ্যতা কামনায় দোয়া That Which You Do not Know About China Cupid Could Be Charging To Significantly More Than You Think কানাইঘাটে সোস্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটি নিউ ইয়র্কের নগদ অর্থ বিতরণ যেভাবে এক বছরে অর্ধেক সম্পত্তি খোয়ালেন বিশ্বের শীর্ষ ধনী নারী সিলেটের বিদায়ী পুলিশ সুপারকে কানাইঘাট প্রেসক্লাবের সংবর্ধনা প্রদান

সুনামগঞ্জে বজ্রপাতে চার বছরে নিহত ৯০

  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ২৫ মে, ২০১৮
  • ৩১৬ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

৫টি উপজেলায় বিশ্বব্যাংকের সহায়তায় স্থাপন করা হবে ৫টি আবহওয়া অফিস: আবহাওয়াবিদ সাঈদ আহমদ

রুজেল আহমদ সুনামগঞ্জ থেকে::

বিশে^র মধ্যে সবচেয়ে বেশি বজ্রপাত হয় সুনামগঞ্জে। প্রতি বছর বজ্রপাতে এ জেলায় প্রাণহানি ঘটছে। এ পর্যন্ত চার বছরে বজ্রপাতে নিহত হয়েছেন ৯০ জন। বজ্রপাতপ্রবণ জেলা ঘোষিত হওয়ার পরেও এ থেকে পরিত্রাণের কোনো ব্যবস্থাই গড়ে উঠেনি। জেলাপ্রশাসনের পক্ষ থেকে বেশি করে তালগাছ রোপনের পরামর্শ দিয়ে আসছেন। সচেতন মহল তালগাছ রোপনকে একটি দীর্ঘ মেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহনের সাধুবাদ জানালেও এর আগের প্রাণহানি থেকে রক্ষা পেতে এক্ষণি ঠিক করে নিতে হবে প্রয়োজন কার্যকরী ব্যবস্থা।

বজ্রপাতের আগাম সংকেতের জন্যে নেই কোনো আবহাওয়া অফিস। তবে বজ্রপাত ও আবহাওয়া সংক্রান্ত তথ্যের জন্য জেলার ৫টি উপজেলায় বিশ্বব্যাংকের সহায়তায় স্থাপন করা হবে ৫টি আবহওয়া অফিস এ তথ্য জানান সিলেট বিভাগীয় আবহওয়া অফিসের সিনিয়র আবহাওয়াবিদ সাঈদ আহমদ চৌধুরী।

 

এদিকে বজ্রপাত বেড়ে যাওয়ায় জলবায়ু পরিবর্তনকে দায়ী করছেন সংশ্লিষ্টরা। এছাড়া আবহাওয়া জ্ঞান সম্পর্কে তাদের অসচেতনতা ও উন্মুক্ত হাওর এলাকায় গাছপালার অভাব এবং সীমান্তবর্তী মেঘালয় পাহাড়ের কারণে বজ্রপাত বেশি হচ্ছে বলে জানান বিশেষজ্ঞরা। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বজ্রপাতে যারা মারা যান তাদের বেশির ভাগই হাওর এলাকার প্রান্তিক ও অর্থনৈতিকভাবে অস্বচ্ছল পরিবারের লোকজন। আবহাওয়া ও বজ্রপাতের তথ্য না পাওয়া এবং সচেতনতার অভাবে তারা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন।

 

জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন অফিস সূত্রে জানা যায়, ২০১৫-১৭ সাল পর্যন্ত জেলার দিরাইয়ে ১৭ জন, তাহিরপুরে ৯ জন, শাল্লায় ৮ জন, সুনামগঞ্জ সদরে ৭ জন, ধর্মপাশায় ৭ জন, দক্ষিণ সুনামগঞ্জে ৬ জন, জগন্নাথপুরে ৪ জন, দোয়ারাবাজার ৪ জন, ছাতকে ২ জন, জামালগঞ্জে ২ জন, বিশ্বম্ভরপু উপজেলায় ১ জনসহ মোট ৬৮ জন বজ্রপাতে মারা যান। এর মধ্যে ২০১৫ সালে ৩৭ জন, ২০১৬ সালে ২০ জন ও ২০১৭ সালে ১১ জন ও ২০১৮ সালে বজ্রপাতে ২২ জনসহ মোট ৯০ জনের মৃত্যু হয়। বজ্রপাতের ঘটনায় আহত হন অর্ধ শতাধিক ব্যক্তি। এছাড়া এ বছরের এখন পর্যন্ত বজ্রপাতে জেলায় আরও ২২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

সিলেট বিভাগীয় আবহওয়া অফিসের সিনিয়র আবহাওয়াবিদ সাঈদ আহমদ চৌধুরী বলেন, হাওর এলাকায় বজ্রপাত বেশি হওয়ার কারণ হলো সেখানে বজ্রপাত হলে কোনও প্রটেকশন পাওয়া যায় না। তাই বজ্রপাত সাধারণত হাইয়েস্ট, লংগেস্ট ও টলেস্ট বস্তুর উপর আঘাত করে। ইদানিং বজ্রপাতে বেশি মৃত্যু হওয়ার কারণ হলো ধানের যে ক্রাইটেরিয়া এগুলো এখন বিলম্বে পরিপক্ক হয়, তাই পুরো বজ্রপাত মৌসুমে হাওরের খোলা আকাশের নিচে মানুষ বেশি অবস্থান করেন এবং কোনও কোনও সময় বজ্রপাতে মারা যান। তিনি বলেন, যখন কোনও মানুষ ভূমিতে হাইয়েস্ট, লংগেস্ট ও টলেস্ট অবস্থানে থাকেন তখন বজ্রপাত আর্থিং করে।এই আবহাওয়াবিদ বলেন, সুনামগঞ্জের শেষ প্রান্তে মেঘালয় পাহাড়ের অবস্থান।

 

তাই স্থানীয়ভাবে তৈরি মেঘ ও জলীয়বা®প সরাসরি পাহাড় অতিক্রম করতে পারে না। এ জন্য আকাশে একটি গভীর কালো মেঘমালার ফ্রেমের তৈরি হয়ে বজ্রপাত হয়। ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের অর্থায়নে সুনামগঞ্জের সদর,তাহিরপুর,ধর্মপাশা বিশ্বম্ভরপুরসহ ৫টি উপজেলায় অত্যাধুনিক যন্ত্রের সমন্বয়ে ৫টি আবহওয়া অফিস তৈরি করা হবে। এরই মধ্যে এসব অফিস স্থাপনের কাজ শুরু হয়েছে। এছাড়া সিলেটের বজ্রপাত পূর্বাভাস যন্ত্রটি ৫০০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে কাজ করে।

 

এর মাধ্যমেও মানুষকে বজ্রপাতের আগাম তথ্য দেওয়া সম্ভব হবে। এতে বজ্রপাতে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কিছুটা হলেও কমিয়ে আনা সম্ভব হবে বলে আশা করা হচ্ছে।সুনামগঞ্জ স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ পরিচালক মোহাম্মদ এমরান হোসেন বলেন, গত বছর সুনামগঞ্জ জেলায় বজ্রপাতে বিশ্বের মধ্যে সর্বোচ্চ সংখ্যক লোক মারা গিয়েছিল। বজ্রপাতের মূল কারণ হলো প্রাকৃতিক পরিবেশের পরিবর্তন, মানবসৃষ্ট কারণ। তিনি বলেন, এ বছরও সরকারি হিসাবে নিহতের সংখ্যা ২২।

 

বজ্রপাতে আহতদের সহায়তার জন্য এককালীন ২৫ হাজার টাকা দেওয়ার বিধান রয়েছে। বজ্রপাতে যারা মারা যায় তারা হলেন হাওর এলাকার প্রান্তিক ও অর্থনৈতিকভাবে অস্বচ্ছল পরিবারের লোকজন। আবহওয়ার ও বজ্রপাতের তথ্য না পাওয়া ও সচেতনতার অভাবে তারা ক্ষতিগ্রস্ত হন।

 

সরকারিভাবে জেলা পরিষদ, উপজেলা পরিষদ এবং ইউনিয়ন পরিষদের সমন্বিত উদ্যোগের মাধ্যমে হাওর এলাকায় তালগাছসহ বিভিন্ন প্রকার গাছপালা লাগিয়ে বজ্রপাত ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনার চেষ্টা করা হবে বলেও জানান তিনি।এমরান হোসেন বলেন, ক্ষতিগ্রস্তদের আর্থিক সাহায্যের পরিমাণ ন্যূনতম এক লাখ টাকা করার প্রস্তাবনা দেওয়া হবে সরকারের কাছে।

 

এটি করা গেলে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো ন্যূনতম সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা যাবে। পাশাপাশি উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে বর্তমান নীতিমালা অনুযায়ী ক্ষতিগ্রস্তদের সহযোগিতা দেওয়ার বিধান রয়েছে।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD