1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
সোমবার, ০৮ অগাস্ট ২০২২, ১১:০৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
হবিগঞ্জ -১ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী দুলাল আহমদ তালুকদার জগন্নাথপুরে বঙ্গমাতার জন্মবার্ষিকী পালিত নবীনগরে বাঁশের কারিগরদের পূর্ণবাসন না করে উচ্ছেদে ভোগান্তি!!! সীমান্ত এলাকায় বেপরোয়া চোরাচালান নিয়ে উদ্বেগ কানাইঘাট উপজেলার মাসিক আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত চাগদা স্টিল ও আলতারা এন্টারপ্রাইজ এর সহযোগিতায় বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ কানাইঘাটে বঙ্গমাতা ফজিলাতুন নেছার ৯২তম জন্মবার্ষিকী উদ্যাপিত হবিগঞ্জ জেলা পুলিশের শ্রেষ্ঠ এএসআই (সহকারী উপ-পরিদর্শক) নির্বাচিত হলেন লোকেশ দাশ সুনামগঞ্জে খাদ্য সামগ্রী বিতরন কানাইঘাটে মুখোশধারীদের হামলায় কলেজ শিক্ষার্থী আহত আন্দোলন-সংগ্রামের সাক্ষী জগন্নাথপুর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার অবহেলায় নষ্ট হচ্ছে

‘আমার সিনিয়র দুই আপুকেও একইভাবে ধর্ষণ করেছে’

  • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ২২ মে, ২০১৮
  • ৩৬৫ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

স্বদেশ ডেস্ক::

আমার সিনিয়র দুই আপুকেও একইভাবে ধর্ষণ করেছে আমাদের শিক্ষক রবিউল। এমনই ভাষ্য মাদারীপুরের শিবচরের উমেদপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রীর তার স্কুলশিক্ষক রবিউলের বিরুদ্ধে।

মাদারীপুরের ওই শিক্ষকের ফ্ল্যাটে গিয়ে শিক্ষক কর্তৃক ধর্ষণের শিকার হয়েছে ডজন খানেক ছাত্রী। শুধু তাই নয়; ধর্ষণের সময় সেগুলোর ভিডিও ধারণ করা হয়েছে।

 

জানা গেছে, মাদারীপুরের শিবচরের উমেদপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের স্কুল শিক্ষক রবিউল সেই স্কুলের দশম শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণ করে ভিডিও ধারণ করেন। এরপর ওই ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে তাকে টানা ৩ বছর ধরে ধর্ষণ করেন রবিউল।

 

স্থানীয়রা জানায়, উপজেলার উমেদপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক রবিউল ইসলাম ৫ম ও ৮ম শ্রেণির মেধাবী ছাত্রীদের প্র্রাইভেট পড়াতেন। এছাড়াও ছাত্রীদের দাওয়াত করে ফ্ল্যাটে ডেকে খাওয়তেন এবং পড়াতেন।

এরপর তাদরে সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তোলেন রবিউল। একদিন সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রীকে দাওয়াত দিয়ে ফ্ল্যাটে নিয়ে যান তিনি। তারপর তাকে ধর্ষণ ও ভিডিও ধারণ করেন তিনি। তারপর থেকে শুরু হয় ব্ল্যাকমেইল। ধর্ষণের ওই ভিডিও ফাঁস করে দেয়ার ভয় দেখিয়ে একাধিক বার ধর্ষণ করা হয় ওই ছাত্রীকে। এভাবে চলে তিন বছর। এর মধ্যে একাধিকবার ছাত্রীর গর্ভপাত ঘটায় রবিউল।

স্ত্রী তার এক সন্তানকে অন্য উপজেলায় চাকরি করার সুবাদে রবিউলের ফ্ল্যাটে নির্বিঘ্নে যাতায়াত করতো সবাই।

 

কিছুদিন আগে অন্য ছাত্রীদের ফ্ল্যাটে ডেকে নেয়া দেখে আপত্তি জানায় ওই ছাত্রী। একপর্যায়ে ওই ছাত্রী জানতে পারে, বিদ্যালয়ের আরও কয়েকজন ছাত্রীকে একই ধরনের কাজে বাধ্য করেছে রবিউল। তাদের সঙ্গেও রবিউলের অনৈতিক সম্পর্ক রয়েছে। বিষয়টি সবাইকে জানানোর কথা বললে ওই ছাত্রীকে আবারও ধর্ষণ করে রবিউল। এভাবে ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত রবিউল ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ করে।

অবশেষে উপায় না পেয়ে রবিউলের বিচার চেয়ে গত ১৩ মার্চ ওই ছাত্রী বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটি বরাবর লিখিত অভিযোগ দেয়। এরপরই একের পর এক বের হয়ে আসে রবিউলের অপকর্মের তথ্য।

 

৮ম, ৯ম ও দশম শ্রেণির আরও তিন ছাত্রীর পরিবারের পক্ষ থেকে নাম প্রকাশে না করার শর্তে শিক্ষক রবিউলের বিরুদ্ধে অভিযোগ দেয় বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির কাছে। সেইসঙ্গে একাধিক ছাত্রীর সঙ্গে রবিউলের আপত্তিকর ছবি অডিও ও ভিডিও দেয় তারা।

এসব অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, ম্যানেজিং কমিটির সদস্য ও সহকারী শিক্ষকরা। তবে অভিযোগ ওঠার পরই বিদ্যালয় থেকে ছুটি না নিয়ে পালিয়ে যায় শিক্ষক রবিউল। সেইসঙ্গে অভিযোগকারী ছাত্রীদের ফোনে হুমকি দিচ্ছে রবিউল।

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিদ্যালয়ের এক ছাত্রীর মা জানান, রবিউল আমার মেয়ের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করে। পরে প্রধান শিক্ষককে বিষয়টি জানাই। ওর মত শিক্ষকের কঠিন বিচার হওয়া উচিত।

আরেক ছাত্রীর অভিভাবক বলেন, রবিউল শিক্ষক নামের কলঙ্ক। আমাদের মেয়ের জীবন নষ্ট করে দিয়েছে। আমরা ওর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

 

ধর্ষণের শিকার এক ছাত্রীর ভাষ্য, রবিউল প্রথম প্রথম লেখাপড়ার খোঁজখবর নিত। পরে অন্য ছাত্রীদের সঙ্গে বাসায় নিয়ে আমাকে পড়াতো। এর মধ্যে একদিন আমাকে ধর্ষণ করে ভিডিও ধারণ করে। ওই ভিডিও অন্যদের দেখানোর ভয় দেখিয়ে আমাকে অনেকবার ধর্ষণ করে রবিউল। পরে আমি জানতে পারি, আমার সিনিয়র দুই আপুকে একইভাবে ধর্ষণ করেছে রবিউল।

আমার বিদ্যালয়ের ৭ম, ৮ম ও নবম শ্রেণির ছাত্রীদের টার্গেট করে একেক দিন একেক ছাত্রীকে ফ্ল্যাটে নিয়ে ধর্ষণ করে রবিউল। আমরা ওর কঠোর শাস্তি চাই। যাতে আর কারও ক্ষতি করতে না পারে রবিউল।

 

উমেদপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রোকনুজ্জামান বলেন, ছাত্রীদের অভিযোগ পাওয়ার পর শিক্ষক রবিউলকে প্রশ্ন করা হলে সে বিষয়টি স্বীকার করে। তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আগেই কৌশলে পালিয়ে যায়। এখন শুনছি, ছাত্রীদের বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছে। আমাকেও এ ব্যাপারে চুপ থাকতে বিভিন্ন প্রলোভন দেখাচ্ছে। তবে আমরা সব শিক্ষক বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সদস্যদের সঙ্গে আলোচনা করেছি। তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

উমেদপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি কাদির খালাসী বলেন, আমরা অভিযোগের সত্যতা পেয়েছি। খুব শিগগিরই অভিযুক্ত শিক্ষক রবিউলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

মাদারীপুরের এএসপি আনোয়ার হোসেন জানান, অপরাধ এবং অপরাধীদের বিরুদ্ধে মুখ বন্ধ রাখলে অপরাধ দমন করা কঠিন। এ ব্যাপারে স্কুলছাত্রীরা অভিযোগ করলে আমরা কঠোর ব্যবস্থা নেব। ওই শিক্ষক যে জঘন্য ঘটনার জন্ম দিয়েছে তা মারাত্মক অপরাধ। বিষয়টি তদন্ত করে অপরাধীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সূত্র: মাছরাঙা২৪.কম।

 

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD