1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৬:০৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কানাইঘাটে সোস্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটি নিউ ইয়র্কের নগদ অর্থ বিতরণ যেভাবে এক বছরে অর্ধেক সম্পত্তি খোয়ালেন বিশ্বের শীর্ষ ধনী নারী সিলেটের বিদায়ী পুলিশ সুপারকে কানাইঘাট প্রেসক্লাবের সংবর্ধনা প্রদান খেলাপি ঋণে রেকর্ড, এক বছরে বেড়েছে ২৬ হাজার কোটি টাকা কানাইঘাটে ওয়েভ ফাউন্ডেশনের এডভোকেসি নেটওয়ার্ক গঠন সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে কলেজ শিক্ষার্থীদের নিয়ে ওরিয়েন্টেশন ক্লাস অনুষ্ঠিত কানাইঘাটে পুষ্টি সমন্বয় কমিটির সভা অনুষ্ঠিত দ্রব্যমূল্য উর্ধ্বগতির প্রতিবাদে জগন্নাথপুরে জাতীয় পার্টির প্রতিবাদ সভা বিদেশে যেতে ডলার বহনে নিরুৎসাহিত করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক যুক্তরাজ্য প্রবাসী আবু রায়হানের উদ্যোগে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের মধ্যে ত্রান সামগ্রী বিতরণ

বিপর্যস্ত হচ্ছে যুবসমাজ! বিভিন্ন গ্রামে চায়ের দোকান ও রাস্তার পাশে নিরবে চলছে জুয়া

  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ১৮ মে, ২০১৮
  • ২৫০ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

এম এ মোতালিব ভুঁইয়া ::

দোয়ারাবাজারের বিভিন্ন গ্রামে প্রায় প্রতিটি চায়ের দোকানে রয়েছে কেরাম বোর্ড। রাস্তার পাশে রয়েছে গাফলা, তাশ ও লুডু খেলার আড্ডা। ছাত্র ও যুবকদের বেশিরভাগ অংশই সকাল-বিকাল-সন্ধ্যা সেই খেলায় সময় দিচ্ছে।

 

বলা যায়, সময়জ্ঞান নেই বলেই তারা সময়কে বিপথে কাজে লাগাচ্ছে। এই কারণে ধ্বস নামছে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষায়। যুব সমাজ ধীরে ধীরে জুয়ার সাথে মিশে যাচ্ছে। বিপর্যস্ত হচ্ছে তারা। বাক-প্রতিবন্ধি মানুষের মতই সমাজের একটি প্রবীণ শ্রেণি নিজেদেরকে পুরোপুরি সম্পৃক্ত না করলেও বাধা দিচ্ছেন না। অন্যদিকে প্রচলিত আইনেও এটি সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। বিশেষ করে রাস্তার পাশে দোকানগুলোতে কেরাম, লুডু ও তাশ খেলাতো সম্পূর্ণ অবৈধ।

তবে নিবন্ধিত রাজনৈতিক ও অরাজনৈতিক ক্লাবগুলোতে সময় কাটানোর উদ্দেশ্যে খেলতে বাধা নেই প্রচলিত আইনে। তথাপি অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে এর ভিন্ন চিত্র। ছাত্র ও যুবকরা খেলায় প্রতিযোগীতার পাশাপাশি বাজি ধরে অনেক সময়ই খেলে থাকে। কিছু কিছু সময় বাজি যদি টাকার অংক নাও হয় সেটি দোকানের বিভিন্ন কোমল পানীয়, সাবান,তৈল অথবা ফাস্টফুড আইটেম হয়ে থাকে।

এতে করে ছাত্ররা প্রতিদিন ১২০-১২৫ টাকা অনর্থক ব্যয় করে। পাশাপাশি বোর্ড ভাড়া দিয়ে আবার অতিরিক্ত টাকা গচ্ছা দিতে হয়। ছাত্রদের বাবার পকেটের টাকা ব্যাতীত আয়ের তেমন কোন উৎস নেই। প্রতিনিয়ত টাকা বাজে পথে খরচ করতে গিয়ে ঘরে চুরির অভ্যাস গড়ে উঠে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে। বাজি ধরা বা জুয়া নামক এই সামাজিক ব্যাধীতে অনেক পরিবার ধ্বংসের পথে চলে যাচ্ছে। আর সমাজের ছোট-ছোট ব্যাধীই যে এক সময় বড় ধরণের অপরাধমূলক কর্মকান্ডে ছাত্র ও যুবসমাজ নেতৃত্ব দেয় সেটি সবারই জানা।

খবর নিয়ে জানা গেছে,দোয়ারাবাজার উপজেলার প্রতিটি গ্রামে বাজারে কেরামবোর্ড রয়েছে চায়ের দোকানগুলোতে।পাশাপাশি প্রায় প্রতিটি দোকানেই টেলিভিশন চালিয়ে গভির রাত পর্যন্ত আড্ডার মগ্ন থাকে এলাকা কিছু লোক। তাতে করেও চোর-ডাকাতের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।

 

এ ব্যাপারে পুলিশ প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন সুশিল সমাজ। এ বিষয়ে দোয়ারাবাজার থানার ওসি সুশীল রঞ্জন দাস বলেন, রাস্তার পাশে কেরাম, তাশ ও লুডু খেলার কোন বৈধতা নেই। পুলিশ প্রশাসন বিষয়টি অবগত নয়। খোজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিব।

 

 

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD