1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৫:৩৯ অপরাহ্ন

প্রজ্ঞাপন না হওয়া পর্যন্ত রাজপথে থাকার ঘোষণা

  • আপডেটের সময় : সোমবার, ১৪ মে, ২০১৮
  • ২৮২ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিলে প্রজ্ঞাপন না হওয়া পর্যন্ত শাহবাগ না ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছেন কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত চাকরিপ্রত্যাশী সাধারণ শিক্ষার্থীরা। সোমবার (১৪ মে) দুপুরে শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নেয়ার পর শিক্ষার্থীরা এই ঘোষণা দেন।

 

শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নিয়ে শিক্ষার্থীরা প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী কোটা বাতিলের প্রজ্ঞাপন জারি করতে নানা স্লোগান দিচ্ছেন।

 

এদিকে শিক্ষার্থীদের অবরোধের কারণে শাহবাগে যানচলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। এর প্রভাব পড়েছে শাহবাগ ও আশপাশের এলাকায়। সৃষ্টি হয়েছে প্রচণ্ড যানজটের।

 

এর আগে পূর্বঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী সকাল থেকেই ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে বিক্ষোভ করে আন্দোলনকারীরা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে মিছিল করার পর বেলা একটার দিকে শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নেয় তারা।

 

এর আগে রবিবার বিকাল ৫টার মধ্যে কোটা বাতিলের প্রজ্ঞাপন জারি করা না হলে সোমবার থেকে দেশের সব কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে লাগাতার ধর্মঘট পালন করা হবে ঘোষণা দিয়েছিল আন্দোলনকারীদের সংগঠন ‘বাংলাদেশে সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ।’

 

সোমবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ সারাদেশের বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজগুলোয় অনির্দিষ্টকালের ছাত্র ধর্মঘট ও অবস্থান কর্মসূচি চলছে। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বলছেন, প্রজ্ঞাপন জারি না হলে তারা তাদের আন্দোলন চালিয়ে যাবে।

 

সোমবার সকালে ঢাবির কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে জড়ো হন হাজারো শিক্ষার্থী। এসময় কোনো কালক্ষেপণ না করে অবিলম্বে চাকরিতে কোটা পদ্ধতি সংস্কারে প্রজ্ঞাপন জারির আহ্বান জানিয়ে বিভিন্ন স্লোগান দেন তারা।

 

সোমবার সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস ঘুরে দেখা গেছে, ধর্মঘটের প্রভাব পড়েছে সামগ্রিক শিক্ষা কার্যক্রমে। যদিও কয়েকটি বিভাগে ক্লাস ও পরীক্ষা হচ্ছে। তবে সাধারণ শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি কম থাকায় ক্যাম্পাস ছিল অনেকটা ফাঁকা। ধর্মঘটের কারণে প্রতিদিনকার কোলাহলে ভাটা পড়েছে। আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা বলছেন প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী প্রজ্ঞাপন না হওয়া পর্যন্ত ধর্মঘট চলবে।

 

এর আগে কোটা বাতিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া ঘোষণা ৩০ এপ্রিলের মধ্যে বাস্তবায়নের দাবিতে ২৬ এপ্রিল পর্যন্ত আলটিমেটাম দিয়েছিলেন সরকারি চাকরিপ্রত্যাশী সাধারণ শিক্ষার্তীদের এ প্লাটফর্ম।

 

এই সময়ের মধ্যে গেজেট প্রকাশ না হলে ১ মে থেকে ফের আন্দোলনের ঘোষণা দিয়েছিলেন তারা। এমতাবস্থায় ২৭ এপ্রিল কোটা সংস্কার আন্দোলনের ১৫ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদলের সঙ্গে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক ও সাংগঠনিক সম্পাদক এ কে এম এনামুল হক শামীমের বৈঠক হয়।

 

প্রায় দেড় ঘণ্টার ওই বৈঠক শেষে আওয়ামী লীগ নেতাদের অনুরোধে এবং মামলা প্রত্যাহারের আশ্বাসে ৭ মে পর্যন্ত আলটিমেটামের সময় বৃদ্ধি করেছিলেন আন্দোলনকারীরা। এই সময়েও প্রজ্ঞাপন জারি না হওয়ায় ৯ মে মানববন্ধন করে ১০ মের মধ্যে প্রজ্ঞাপন জারি করতে ফের আলটিমেটাম দেন তারা।

 

কিন্তু এরপরও প্রজ্ঞাপন জারি না হলে  রবিবার (১৩ মে) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভ করেন তারা। বিক্ষোভ শেষে দুপুরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করেন বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নূর, মো. রাশেদ খান, ফারুক হোসেন প্রমুখ।

 

প্রসঙ্গত, সরকারি চাকরিতে কোটা ৫৬ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১০ শতাংশে নামিয়ে আনার দাবিতে গত ফেব্রুয়ারি থেকে আন্দোলনে নামে সংগঠনটি। ৮ এপ্রিল রাজধানীর শাহবাগে পুলিশের সঙ্গে আন্দোলনকারীদের সংঘর্ষের পর দেশের সব সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ে। পরে নামে সরকারি চাকরিতে অনীহা দেখানো বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররাও। আর ১২ এপ্রিল সংসদে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কোনো কোটার দরকার নেই।’

 

কয়েকটি দেশ সফর শেষে  দেশে ফিরে প্রধানমন্ত্রী ২ মে সংবাদ সম্মেলনে বলেন, তিনি কোটা বাতিলের বিষয়ে যে কথা বলেছেন, সেটা পাল্টাবেন না।

 

আজকের স্বদেশ/আবু বকর

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD