1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৫:৫৬ অপরাহ্ন

বিশ্ব মা দিবস আজ

  • আপডেটের সময় : রবিবার, ১৩ মে, ২০১৮
  • ৯৩৯ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

১৯১৪ খ্রিস্টাব্দের ৮ মে মার্কিন কংগ্রেসে মে মাসের দ্বিতীয় রোববারকে “মা দিবস” হিসেবে উদযাপনের ঘোষণা দেয়া হয় | আর তখন থেকেই এই দিনে সারা বিশ্বব্যাপী পালিত হচ্ছে মা দিবস। বিশ্বের প্রায় ১০০টির ও বেশী দেশে প্রতিবছর দিবসটি যথাযোগ্য মযার্দায় পালিত হয় । কথিত আছে, ব্রিটেনেই প্রথম শুরু হয় মা দিবস পালনের রেওয়াজ, কেননা সেখানে প্রতিবছর মে মাসের চতুর্থ রোববারকে মাদারিং সানডে হিসেবে পালন করা হতো। আবার অনেক দেশে বিভিন্ন দিনে মা দিবস উদযাপন করা হয়। মাদারিং সানডে-এর ব্রিটিশ প্রথা অনুযায়ী মা দিবস চতুর্থ রোববার। তবে সতের শতকে “মা দিবস” উদযাপনের সূত্রপাত ঘটান মার্কিন সমাজকর্মী জুলিয়া ওয়ার্টস মায়ের সঙ্গে সময় দেয়া আর মায়ের জন্য উপহার কেনা ছিল তাঁর দিনটির কর্মসূচিতে। এরপর যুক্তরাষ্ট্রের পশ্চিম ভার্জিনিয়াতে প্রথম মা দিবস পালন করা হয় ১৮৫৮ খ্রিস্টাব্দের ২ জুন।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট উড্রো উহলসন সর্বপ্রথম মা দিবসকে সরকারি ছুটির দিন হিসাবে ঘোষণা করেন। মা দিবসের উপহার সাদা কার্নেশন ফুল খুব জনপ্রিয়। আর বাণিজ্যিকভাবে, “মা দিবস” বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম কার্ড আদান-প্রদানকারী দিবস। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এক সমীক্ষায় দেখা গেছে “মা দিবস”-এ অন্যান্য দিনের তুলনায় অনেক বেশি ফোন করা হয় । মা দিবসের মূল উদ্দেশ্য হল মায়ের প্রতি যথাযথ সম্মান প্রদর্শন। মায়ের প্রতি সন্তানের ভালবাসা প্রকাশের সুযোগ হয়ে ওঠে না সিংহভাগ মানুষের। মে মাসের দ্বিতীয় রোববার আন্তর্জাতিক মা দিবস সন্তানদের এ সুযোগ করে দেয়। পশ্চিমা বিশ্বে দিবসটির উৎপত্তি। ঘটা করে পালন করা হয় সেখানে। বিশ্বের বহু দেশে কেক কেটে মা দিবস উদযাপন করা হয়। উপহার হিসেবে সন্তানরা মাকে দেয় কার্ড বা চকলেট। তবে মা দিবসের প্রবক্তা আনা জার্ভিস এই বাণিজ্যিকীকরণের বিরোধী ছিলেন। তিনি আক্ষেপ করে একবার বলেছিলেন, মাকে কার্ড দিয়ে শুভেচ্ছা জানানোর অর্থ হল, মা তোমার জন্য এত কিছু করেছেন, তাকে দুই কলম লেখার সময় হয় না তোমার ?

বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও মা দিবস উদযাপিত হচ্ছে কয়েক বছর ধরে। কিন্তু বাঙালির মাতৃভক্তির ইতিহাস বহু পুরনো। দুর্যোগ মাথায় নিয়ে ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর সাঁতরে নদী পার হয়ে ছিলেন মাকে দেখবেন বলে। ইতিহাসের পাতায় দেখা যায়, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাল্টিমোর ও ওহাইয়োর মাঝামাঝিতে ওয়েবস্টার জংশন । এ এলাকার বাসিন্দা অ্যান মেরি রিভস জার্ভিস সারাটা জীবন ব্যয় করেছেন অনাথ-আঁতুড়ের সেবায়। এই মানুষটি মারা গেলেন ১৯০৫ সালে। নীরবে-নিভৃতে যে মা আর্তের সেবায় ছুটে বেড়িয়েছেন এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্তে, তাকে সম্মান দিতে চাইলেন মেয়ে আনা জার্ভিস। অ্যান মেরি রিভস জার্ভিসের মতো দেশজুড়ে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা সব মাকে স্বীকৃতি দিতে আনা জার্ভিস প্রচার চালাতে শুরু করলেন। সাত বছরের চেষ্টায় মা দিবস রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি পেল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। এইভাবে শুরু হয় মা দিবস উৎযাপন। মা শব্দের সমার্থক শব্দ হচ্ছে – জননী, গর্ভধারিণী, আম্মা, আম্মু, আম্মাজান, আম্মী, মাম্মি, মাতা ইত্যাদি। সাময়িক মোহ, সাময়িক দামী বা অন্য কিছু হয়ত এ শব্দটির চেয়েও অন্য কোনো শব্দকে খানিকটা প্রিয় করে তোলে, কিন্তু খুব অচিরেই তা বড় ‘ভুল’ হিসেবে চিহ্নিত হয়। মা, মা, এবং মা।

প্রিয় এবং মূল্যবান শব্দ একটিই, এবং একটিই মাত্র। শুধু প্রিয় শব্দই নয়, প্রিয় বচন -মা। প্রিয় অনুভূতি -মা। প্রিয় ব্যাক্তি –মা। প্রিয় দেখাশুনা –মা। প্রিয় রান্না -মা। প্রিয় আদর -মা। সব ‘প্রিয়’ গুলোই শুধুমাত্র মাকে কেন্দ্র করেই সব প্রিয় স্মৃতি। কারণ মা-ই পৃথিবীতে একমাত্র ব্যক্তি যে কিনা নিঃশর্ত ভালবাসা দিয়েই যায় তার সন্তানকে কোন কিছুর বিনিময় ছাড়া। পৃথিবীর ইতিহাসে সন্তানের জন্মদাত্রী হিসেবে প্রাকৃতিকভাবেই মায়ের অবস্থান। মানব সমাজে যেমন মা-এর অবস্থান রয়েছে, পশুর মধ্যেও মাতৃত্ববোধ প্রবল। সৃষ্টির আদিলগ্ন থেকেই মা, সকল মমতার আধার ও কেন্দ্রবিন্দু। পৃথিবীর অধিকাংশ ভাষায়ই”মা”-এর সমার্থক শব্দটি ‘ম’ ধ্বনি দিয়ে শুরু হয়।

মাকে নিয়ে অনেক জনপ্রিয় গানেরও অন্ত নেই যেমনঃ খুরশিদ আলমের- মাগো মা ওগো মা, আমারে বানাইলি তুই দিওয়ানা ,ফকির আলমগীরের- মায়ের একধার দুধের দাম কাটিয়া গায়ের চাম, ফেরদোস ওয়াদিদের- এমন একটা মা দে না , জেমসের- রাতের তারা আমায় কি তুই বলতে পারিস, রাশেদের- ওই আকাশের তারায় তারায় নচিকেতা ঘোসের- ছেলে আমার মস্ত বড় মস্ত অফিসার – হেমন্ত মুখোপাধ্যায়ের-পথের ক্লান্তি ভুলে স্নেহ ভরা কোলে তব মাগো এই গানগুলো বহুল প্রচারিত ও খুব জনপ্রিয়।  মাকে নিয়ে কবিতার ও অন্ত নেই যেমনঃ হুমায়ন আজাদের -আমাদের মা, কাজি নজরুল ইসলামের- মা, রবীন্দ্রনাথের-বীরপুরুষ/মনে পড়া/লুকোচুরি শামসুর রাহমানের-কখনো আমার মাকে, কামিনি রায়–কত ভালবাসি এই কবিতাগুলি বেশ জনপ্রিয়।

আরার আমাদের পবিত্রধমগ্রন্থে বলা হয়েছে -আমি মানুষকে তাদের পিতা-মাতার সাথে সদ্ব্যবহার করার জোর নির্দেশ দিয়েছি। যদি তারা তোমাকে আমার সাথে এমন কিছু শরীক করার জোর প্রচেষ্টা চালায়, যার সম্পর্কে তোমার কোন জ্ঞান নেই, তবে তাদের আনুগত্য করো না। আমারই দিকে তোমাদের প্রত্যাবর্তন। অতঃপর আমি তোমাদেরকে বলে দেব যা কিছু তোমরা করতে। আবার আমাদের মহানবি হযরত মুহাম্মদ সাঃ বলেছেন, মাতার পদতলে সন্তানের বেহেশত । সনাতন ধর্মে উল্লেখ আছে স্ববংশবৃদ্ধিকামঃ পুত্রমেকমাসাদ্য..”। সন্তান লাভের পর নারী তাঁর রমণীমূর্তি পরিত্যাগ করে মহীয়সী মাতৃরূপে সংসারের অধ্যক্ষতা করবেন। তাই মনু সন্তান প্রসবিনী মাকে গৃহলক্ষ্মী সম্মানে অভিহিত করেছেন। তিনি মাতৃ গৌরবের কথা বিশ্ববাসীকে জানিয়েছেন এভাবে- উপাধ্যায়ান্ দশাচার্য্য আচায্যাণাং শতং পিতা। সহস্রন্তু পিতৃন্মাতা গৌরবেণাতিরিচ্যতে” অর্থাৎ “দশজন উপাধ্যায় (ব্রাহ্মণ) অপেক্ষা একজন আচার্য্যরে গৌরব অধিক, একশত আচার্য্যরে গৌরব অপেক্ষা পিতার গৌরব অধিকতর; সর্বোপরি, সহস্য পিতা অপেক্ষা মাতা সম্মানার্হ।”সন্দেহ নেই ‘মা’ একটি আশ্চর্য অনুভূতি জড়ানো শব্দ। এর সঙ্গে জড়িয়ে আছে এক আধ্যাত্মিক আবেগ।

এ আবেগ একান্তই ব্যক্তিক, হৃদয়ের গভীরে এর সরোবর। এমন মানুষ সম্ভবত নেই ‘মা’ শব্দটির অনুষঙ্গে যার প্রাণ আনচান করে ওঠে না। মনে হয়, মাতৃবন্দনা ও মায়ের প্রতি ভালোবাসার সূত্র ধরেই দেশবন্দনা ও স্বদেশপ্রেমের পাঠ আমাদের বোধে উঠে এসেছে। কথায় কথায় ‘মা’ ‘মাগো’ শব্দগুলো আমরা কতভাবে উচ্চারণ করি চেতনে-অবচেতনে, কত না আবেগ সেখানে! মা শুধু সন্তানের জন্মদাত্রী নন, সন্তানের লালন-পালনের অলিখিত সব দায়, সার্বক্ষণিক দায় মায়েরই। তাঁর মুখের বুলি হয়ে ওঠে সন্তানের মুখের ভাষা, যা মাতৃভাষা নামে পরিচিত। সন্তানের নিরাপদ লালনে মায়ের শ্রম, সময়, নিষ্ঠা ও কষ্ট বহুমাত্রিকতার প্রকাশ ঘটায়_এর তুলনা মেলে না। কিন্তু সমাজে, সংসারে ও পরিবারে মাতৃমহত্ত্ব কতটা বাস্তবিক গুরুত্ব পায় বা পেয়ে থাকে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে পারে।মায়ের ভালবাসা কখনো ক্লান্ত হয়না। এতে থাকে না কোন চাওয়া পাওযার আবদার। পৃথিবীর সব দেশের শিশুর প্রথম ভাষা ‘মা’। তাই এক কথায় ‘মা’ শব্দটি আসলে কোন ভাষার নিজস্ব সম্পত্তি নয়। এই শব্দটি সার্বজনীন।

যেকোনো সন্তানের কাছেই তার মা পৃথিবীর অন্যতম শ্রেষ্ঠ মা। আমার মা পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ মা। এটাই স্বাভাবিক। যে সন্তানেরা তার মাকে শ্রেষ্ঠ মা ভাবে না, তাদের মতো দুর্ভাগা খুব কমই আছে। এই পৃথিবীতে সন্তান ও মায়ের বন্ধনের সঙ্গে অন্য কোনো বন্ধনেরই তুলনা হয় না। মায়ের তুলনা শুধু মা-ই। সন্তানের জন্য যেমন মায়ের দুধের বিকল্প নেই, তেমনি মায়ের দোয়ারও বিকল্প নেই। তাই প্রত্যেক সন্তানের উচিত মায়ের প্রতি দায়িত্ব শ্রদ্ধা, ভালোবাসা ও নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করা। পৃথিবীর সবকিছু পরিবর্তনশীল। দিনে দিনে আমি বদলেছি, আমার পারিপার্শ্বিক অবস্থান বদলেছে। ফুল-পাখি-প্রকৃতি—সবই বদলেছে। শুধু বদলায়নি আমার মায়ের ভালোবাসা। আমাদের সবার সবচেয়ে প্রিয় শব্দ ‘মা’।মাকে নিয়ে ইসলাম যত কথা বলেছে, অন্য কোনো ধর্ম তত কথা বলেছে কিনা জানি না।

মাকে নিয়ে বলতে বলতে শেষ পর্যন্ত মাকেই জান্নাত, মাকেই জাহান্নাম বলে বসেছে ইসলাম। মাকে খুশি করলে জান্নাত, কষ্ট দিলে জাহান্নাম। যে মায়া তিনি সারা জীবন করে এসেছেন, তার কিঞ্চিৎ তাঁকে ফেরৎ দিলেই তিনি খুশী। আল কুরআন এ আল্লাহ বলেছেন: আমি মানুষকে পিতা-মাতার সাথে সদ্ব্যবহার করার জোর নির্দেশ ।সুরা লোকমানের ১৫ নং আয়াতে আল্লাহতায়ালা ঘোষনা করেছেন- তোমার পালনকর্তা আদেশ করেছেন যে, তাঁকে ছাড়া অন্য কারও এবাদত করো না এবং পিতা-মাতার সাথে সদ্ব-ব্যবহার কর। তাদের মধ্যে কেউ অথবা উভয়েই যদি তোমার জীবদ্দশায় বার্ধক্যে উপনীত হয়; তবে তাদেরকে ‘উহ’ শব্দটিও বলো না এবং তাদেরকে ধমক দিও না এবং বল তাদেরকে শিষ্ঠাচারপূর্ণ কথা। (বনী ইসরাইল: ২৩) আর আমি মানুষকে তার পিতা-মাতার সাথে সদ্ব্যবহারের জোর নির্দেশ দিয়েছি । মা আদিশক্তি দুর্গা পূজার মধ্য দিয়ে হিন্দু জাতি ও হিন্দু সমাজের ও হিন্দু সংহতি শক্তি গঠনের ইঙ্গিত দেখা যায় । সংহতির ও ঐক্যের এক বড় দৃষ্টান্ত মা দুর্গার মধ্যেই আছে ।

দেবী সুক্তে দেবী স্বয়ং বলেছেন-অহং রাষ্ট্রী সংগমনী বসূনাং চিকিতুষী প্রথমা যজ্ঞিয়নাম্ । তাং মা দেবা ব্যদধুঃ পুরত্রা ভূরিস্ত্রাতাং ভূর্য্যাবেশয়ন্তীম্ এর অর্থ – আমি রাষ্ট্রী , রাষ্ট্রের অধীশ্বরী , রাজ্য রক্ষার্থে যে সম্পদের প্রয়োজন আমি তাহার বিধান কর্তা । সংসারে শান্তি লাভের জন্য যে ব্রহ্মজ্ঞান প্রয়োজন ,আমি তাহাই জানি। আমি এক হইয়াও বহু রুপা । সর্ব জীবে আমি প্রবিষ্ট হইয়া আছি । দৈবী সম্পদ শালী দেবতারা যাহা সাধন করেন সকলই আমার উদ্দ্যেশে সম্পন্ন হয় । মা দুর্গার দক্ষিণে লক্ষ্মী ও গণেশ ও বামে সরস্বতী ও কার্ত্তিক । গণেশ হলেন গণশক্তির প্রতীক। গণেশ হলেন শূদ্র শক্তির প্রতীক । কর্মের তত্ত্ব এখানে বিদ্যমান । গণেশ বলতে শ্রম শক্তিকে বোঝায় । গণেশ গণদেবতা বা জাতির সমষ্টির প্রতীক । মা লক্ষ্মী হলেন ধন শক্তির আধার । ইনি বৈশ্য শক্তির প্রতীক । ইনি ধন অর্থাৎ ধন শক্তির পরিচায়ক । মা সরস্বতী স্বয়ং জ্ঞানের দেবী । সরস্বতী জাতির জ্ঞান শক্তির প্রতীক ।প্রাচীন কাল হতে ব্রাহ্মণ গণ শাস্ত্র পাঠ , পুথি অধ্যায়ন ও বেদান্ত জ্ঞানের সাথে যুক্ত । তাই সরস্বতী ব্রাহ্মণ্য শক্তির প্রতীক ।

বেদান্ত জ্ঞানের ভান্ডার । দেবসেনাপতি কার্ত্তিক হলেন ক্ষত্রিয় শক্তির প্রতীক । কুমার কার্ত্তিক কে অবিবাহিত বলা হয় । কার্ত্তিক সংযম ও ব্রহ্মচর্যের প্রতীক । গণশক্তি, ধনশক্তি, জ্ঞানশক্তি, ব্রহ্মচর্যশক্তি একত্র হইলেই মহামিলন ও মহামুক্তি । এই চারিটির সমন্বয় ঘটিলেই জাতির জীবনে মহাশক্তির আবির্ভাব ও লীলাবিকাশ ঘটে ।দেবীর দক্ষিণে বিঘ্নেশ সিদ্ধিদাতা গণেশের তাই উপস্থিতি । এর সাথে প্রয়োজন চারিত্রিক ও আত্মিক ঐশ্বর্যের প্রকাশ- তাই মা দুর্গার দক্ষিণে দেবী লক্ষ্মী । আরও দরকার ব্রহ্মচর্য ও ইন্দ্রিয় দমন তাই দেবীর বামে কার্ত্তিক । প্রয়োজন উত্তম মেধা ও ধীশক্তি । তাই দেবী দুর্গার বামে দেবী সরস্বতী । দুর্গা পূজা সেই মহাশক্তি ও মহাজাতির পূজাপৃথিবীর সেরা শব্দ—মা । বারবার একটা প্রশ্নই উঠে আসছে মনে, মাকে কি আমরা বুঝে উঠতে পারি?রক্ত-জঠরে গড়ে তোলা এক পাত্রের নাম। শরীর ছেঁকে পান করানো অস্তিত্বের নাম। অক্লান্ত পরিশ্রমের নাম। নির্ঘুম রাতের নাম। বিচলিত হূদয়ের নাম। অদৃশ্য বাতাসের নাম। স্বপ্ন দেখা আকাশের নাম। ছায়া দেওয়া এক বৃক্ষের নাম। মায়া-মমতায় অবিশ্রান্ত এক ঢলের নাম।

সর্বংসহা মৃত্তিকার নাম। মা রূপকথার নাম।সন্তানের জন্য মায়ের প্রতীকী রূপগুলো সমাজে আবার অন্য রকম। এখানে মা উপেক্ষিত এক লিঙ্গের নাম। অবহেলিত এক পরিচিতির নাম। ‘তুমি মা, তুমি করবা না, কে করবে?’ মতবাদের এক উপহাসের নাম। লিঙ্গবৈষম্যে কুঁকড়ে যাওয়া এক অস্তিত্বের নাম। দায়িত্বহীন মানুষদের আস্ফাালনে বিহ্বল এক সম্পর্কের নাম। পুষ্টিহীনতায় ভোগা এক ভগ্নস্বাস্থ্যের নাম। ভাষার মাধুর্যে প্রশান্তি দেওয়ার ব্যর্থ এক প্রচেষ্টার নাম। সন্তানের ত্রুটিপূর্ণ আচরণের দায় বর্তে যাওয়া অভিভাবকের নাম।প্রাকৃতিক নির্বাচনে বংশবৃদ্ধির দায়িত্ব নেওয়া মানুষটির নাম মা। অভূতপূর্ব এক আনন্দের অনুভূতি, স্বপ্ন, শঙ্কা, মৃত্যুভয়, অনিশ্চয়তা—সব মিলিয়ে এক মিশ্র অনুভূতি নিয়ে শুরু হয় প্রতিটি মায়ের গল্প। সে গল্প কখনো ভালোবাসার আবেগে, কখনো কষ্টের নিগঢ়ে, কখনো শঙ্কার দোলাচলে আর কখনো কখনো সামাজিক চাপে এগিয়ে চলে। মা নিজেই একসময় আর এক মায়ের মেয়ে থাকে। তখন সে থাকে বাবার বংশের কেউ। যখন বড় হয়, তখন কেমন করে যেন আর বাবার বংশটাকে এগিয়ে নিতে পারে না। আর এক বংশ রক্ষা করার দায়িত্ব বর্তায় তার শরীরে। শাব্দিক অর্থেই নিজের শরীরের রক্ত দিয়ে গড়ে তোলে সন্তানকে।

কিন্তু সন্তানটি আর মায়ের রক্তের স্বীকৃতি পায় না। রক্তটা পুরুষদের হয়ে যায়। সন্তান যখন বুদ্ধিবৃত্তিতে এগিয়ে থাকে, তখন তার পুরোটাই পিতৃকূলের উত্তরাধিকার। আর মন্দ করলে? সব দোষ মায়ের। কখনো কখনো মেয়েদের স্ত্রী হিসেবে আটকে রাখার হাতিয়ার ‘মা’ বানিয়ে ফেলা। সেই মায়ের মানসিক যে টানাপোড়েন, তার চেয়ে অস্তিত্বহীন হয়ে পড়া ভালো। সন্তানের জন্য সমঝোতা যেন চিরন্তন এক সত্যে পরিণত হয়েছেসন্তানকে ব্যবহার করে স্ত্রীকে হাতের মুঠোয় রাখার ফায়দা লোটা যেন সংসার-রাজনীতি। গর্ভে ধারণ কিংবা প্রসব-পরবর্তী যত্ন পাওয়া ভাগ্যবান মায়ের সংখ্যা গুনে বের করা যাবে। কিন্তু মা হতে গিয়ে কিংবা সন্তানকে বড় করতে গিয়ে শরীর ভেঙে যাওয়া মায়ের সংখ্যা অগণিত। যেটার প্রভাব পড়ে প্রতিদিনকার সংসারে। কাজ করতে না পারলে দোষ, রাতে সঙ্গী না হতে পারার ব্যর্থতা—সব মায়ের অদৃষ্ট। সন্তান রেখে বাবারা যখন বিয়ে করে তখনো মায়েরই সমস্যা। যদি উল্টোটা ঘটে তাহলেই হলো! ‘মা’ হয়ে যায় ‘চরিত্রহীন’ কেউ! মায়েদের মনে কখনো প্রেম জন্মাতে নেই।

মা পৃথিবীর সুন্দরতম ডাকের নাম। সুন্দরতম সম্পর্কের নাম। প্রতিষ্ঠিত কিছু বাক্য মায়ের নামে প্রশান্তি এনে দেয় ঠিকই। কিন্তু কখনো অবসর পেলে মায়ের মনেও প্রশ্ন জাগে। শুধু কি তাই? মায়ের ব্যক্তি-অস্তিত্ব, জৈবিক-অস্তিত্ব কিংবা সামাজিক বা অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠা—এসব নিয়ে ভাববে কে? সে নিজে, নাকি পরিবার, নাকি সমাজ? প্রশ্নই শুধু তৈরি হয়। উত্তর মেলে না কখনো। সন্তান নিয়ে মায়ের মনে যে স্বপ্ন কিংবা সুখ তৈরি হয় তার স্বীকৃতি সর্বজনীন। দুঃস্বপ্ন কিংবা হতাশার কথা মুখ ফসকে বেরিয়ে গেলে সেটা শুধু বাতাস হয়ে যায়। মাথা ঘামায় না কেউ।সন্তান বড় হয়ে যখন নিজে একজন ব্যক্তি হয়ে ওঠে তখন নিত্যকার দিনযাপনে মায়ের আর কোনো গুরুত্ব থাকে না। শুধু মনের ভেতরে একটা সরষেদানা মন মায়ের জন্য ভালোবাসা নিয়ে খচখচ করে বাজে। হয়তো সেটাই সত্যি। হয়তো সে জন্যই প্রতীকী একটা দিবসের দরকার হয়—‘মা দিবস’।

সামাজিক কিংবা অর্থনৈতিক মুক্তি না থাকায় বেশির ভাগ মা-ই তাকিয়ে থাকেন সন্তানের দিকে। কোনো কোনো সন্তানের সে বোধটুকু থাকলেও মায়ের ভিতরকার আশা-আকাঙ্ক্ষা বুঝতে পারা সন্তানের সংখ্যা খুব বেশি নয়। উৎসবে-পার্বণে পোশাক-পরিচ্ছদ, ব্যবহার্য জিনিস, চিকিৎসা—যা কিছুই মা পান না কেন, সবই সন্তানের ইচ্ছায়। জন্ম থেকে একটা মেয়ে তার ভিতরকার কথাগুলো চেপে যেতে যেতে শেষ পর্যন্ত চেপে রেখেই মরে যায়। কারই-বা অত ঠেকা মায়ের ভিতরকার ব্যক্তিমানুষটাকে খুঁজে বের করার সন্তানকে ভালোবেসে মিথ্যে বলা মায়েদের অভ্যাস । ‘আমার খিদে নেই, কষ্ট হচ্ছে না, দরকার নেই, শরীরে কোনো সমস্যা নেই’—সব মিথ্যে। আর এই মিথ্যের পেছনে সন্তানের প্রতি ভালোবাসায় কোনো মিথ্যে নেই। মাকে শ্রদ্ধা আর ভালবাসা দেখাতে নির্দিষ্ট দিনক্ষণ ঠিক করে নেয়ার যুক্তি অনেকের কাছেই সেভাবে গ্রহণযোগ্য না হলেও অনেকেই মনে করেন মাকে সম্মান দেখাতে, গভীরভাবে মাকে স্মরণ করতে আন্তর্জাতিক মা দিবসের গুরুত্ব রয়েছে।

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD