1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ১০:২৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কানাইঘাট বড়দেশ আসআদুল উলুম মাদ্রাসার বিরুদ্ধে অপ্রচারের প্রতিবাদে সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উদ্যোগ জাতীয় শোক দিবস পালিত কানাইঘাটে শোকাবহ পরিবেশে বঙ্গবন্ধুর শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত রানীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস পালিত ১৫ আগষ্ট জাতির ইতিহাসে কলংকজনক অধ্যায়-নবীগঞ্জে শোক সভায় এমপি মিলাদ গাজী জগন্নাথপুরে শোক দিবস পালিত বিশ্বনাথে পিএফজি’র মাসিক ফলো-আপ সভা অনুষ্ঠিত বাসস এর সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি পদে নিয়োগ পেলেন আল-হেলাল মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত দেওয়ান নগরে রাস্তা পাকা করণ কাজের শুভ ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করলেন পীর মিসবাহ্ এমপি

আজ ভয়াল ১৩ মে, টাঙ্গাইলে শোক ও আতঙ্কের দিন

  • আপডেটের সময় : রবিবার, ১৩ মে, ২০১৮
  • ৩৩৫ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

আজ ১৩ মে, টাঙ্গাইলে ভয়াবহ টর্নেডোর আঘাতের ২২তম বার্ষিকী। টাঙ্গাইল জেলার ৫টি উপজেলাবাসীর শোক ও আতঙ্কের দিন। ২২ বছর আগে ১৯৯৬ সালের এই দিনে ২-৩ মিনিট স্থায়ী টর্নেডোর ছোঁবলে গোপালপুর, কালিহাতী, বাসাইল, ঘাটাইল এবং সখীপুর উপজেলার ৫২৩ জন নিহত এবং ৩০ হাজার মানুষ আহত হন। ৮৫ হাজার ঘরবাড়ি, ৮৫টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, ১৭টি মসজিদ এবং ১৪টি মন্দির লণ্ডভণ্ড হয়ে যায়। সেদিনের কথা মনে হলে এখনও শিউরে ওঠে ভুক্তভোগি পরিবারের সদস্যরা।

সেদিন বিকালে প্রলয়ঙ্করী টর্নেডো মুহূর্তের মধ্যে জেলার পাঁচটি উপজেলার ৪০টি গ্রাম পরিণত হয় ধ্বংসস্তুপে। অনেকের ঘরের চালা উড়ে যাওয়ায় গোলার ধান পর্যন্ত ঝড়ে অদৃশ্য হতে দেখা যায়। ঘরবাড়ি, গাছপালা,গবাধিপশু নিশ্চিহ্ন হয়ে যায়। অনেক মানুষের পরণের কাপড় পর্যন্ত ছিন্নভিন্ন হয়ে যায়। সম্পূর্ণ বস্ত্রহীন ক্ষতবিক্ষত দেহে বিভিন্ন কৃষি জমি, জঙ্গল, পুকুর-ডোবা থেকে উদ্ধার করা হয়। বৈদ্যুতিক খুঁটি ও নলকূপের উপরের অংশ, দালানের ছাদ পর্যন্ত উঠে যায়।

১৯৯৬ সালের ১৩ মে ছিল সোমবার। বিকাল ৪টা ১৭ মিনিটের দিকে আকস্মিকভাবে গোপালপুর উপজেলার হেমনগর ইউনিয়নের বেলুয়া গ্রাম থেকে শুরু হওয়া ২-৩ মিনিটের স্থায়ী প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড় (টর্নেডো) আলমনগর ইউনিয়ন হয়ে মির্জাপুর ইউনিয়নের পশ্চিম নুডুরচর গ্রামে শেষ হয়। মাত্র দুই মিনিটের ছোবলে গোপালপুর উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের ১৬টি গ্রাম লণ্ডভণ্ড হয়ে যায়, নিহত হন ১০৪ জন। এছাড়া চার হাজারেরও বেশি গ্রামবাসী আহত হন। ঝড়ে ২০০ একর বোরো জমির পাকা ধান নষ্ট হয়ে যায়। ১০ হাজার গৃহপালিত পশু-পাখি মারা যায়। ওইদিনই বিকাল সোয়া ৫টার দিকে টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার তাঁতসমৃদ্ধ এলাকা রামপুর এবং কুকরাইল গ্রামে হানা দেয় টর্নেডো। রামপুর ও কুকরাইল গ্রামের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া ৩-৪ মিনিটের প্রলয়ঙ্করী টর্নেডো ওই দুই গ্রামের একই পরিবারের সাতজনসহ ১০৫ জন এবং চার শতাধিক মানুষ আহত হয়। রামপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশে গণকবরে একত্রে দাফন করা হয় ৭৭ জনকে।

বাসাইলের মিরিকপুরে ধান কাটার মৌসুম থাকায় উত্তরবঙ্গের কয়েকটি জেলার ধানকাটা শ্রমিক জড়ো হয়েছিল এ অঞ্চলে। ঝড় থেকে রক্ষা পেতে মিরিকপুর-সৈদামপুরের ধানের মাঠের আতঙ্কগ্রস্ত বহু শ্রমিক মিরিকপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের দালানে আশ্রয় নিয়েছিল। সেদিন বিকাল ৫টা ২০ মিনিটের দিকে উত্তর দিক থেকে ধেয়ে আসা ৩-৪ মিনিটের টর্নেডোর ছোঁবলে দালান বিধ্বস্ত হওয়ায় তারা সেখানেই চাপা পড়ে মারা যায়। এলাকার গ্রামের বহু লোক নিখোঁজ হয়। পরদিন তাদের মৃতদেহের খোঁজ মেলে পার্শ্ববর্তী নদী, পুকুর, খাল ও বিলে। মৃত মানুষ, গবাদিপশু ও মাছের দুর্গন্ধে বাসাইলের বাতাস সেদিন ভারি হয়ে গিয়েছিল। মিরিকপুর ছাড়াও উপজেলার বর্নীকিশোরী, হান্দুলিপাড়া, কলিয়া, কাউলজানী, খাটরা, ফুলকী, বাদিয়াজান, সুন্না গ্রামের অংশবিশেষ মারাত্মকভাবে আক্রান্ত হয়। বর্নীকিশোরী উত্তরপাড়ার একই পরিবারের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয় প্রায় আধামাইল দূরের বিল থেকে উদ্ধার করা হয়। অনেক পরিবারের কেউ জীবিত ছিল না। বাসাইল উপজেলা হাসপাতালসহ পার্শ্ববর্তী হাসপাতালগুলো ছিন্নভিন্ন আহত লোকজনে ভরে গিয়েছিল। উপজেলায় টর্নেডো আক্রান্ত এলাকায় একাধিক গণকবর সৃষ্টি হয়েছিল। টর্নেডোতে বাসাইল উপজেলার ১৭ গ্রামের ৫ হাজার পরিবারের প্রায় সাড়ে ২৫ হাজার লোক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ৩ হাজার ঘরবাড়ি সম্পূর্ণরূপে নিশ্চিহ্ন হয়ে যায়। ২০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, ৫-৬টি কাঁচাবাজার, প্রায় ২ হাজার গবাদিপশু, ১০ হাজার হাঁস-মুরগি, সাড়ে ৩০০ টিউবওয়েল ও ২৫ হাজার গাছ ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

সরকারি হিসাবে মৃতের সংখা ২৩৭ জন। তবে বেসরকারি হিসাবে মৃতের সংখ্যা ছিল আরো অনেক বেশি। আজোকালো মেঘের আনাগোনা দেখলে বাসাইলের মানুষের মনে ভেসে ওঠে মিরিকপুরের সেই ঝড়ের স্মৃতি।
জেলার ৪০টি গ্রামের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া সেদিনের টর্নেডোর আঘাতে মারা যায় অসংখ্য গবাদি পশু, দুমরে-মুচরে যায় ঘরবাড়ি, দিগন্তব্যাপী ফসলের মাঠ বিরাণ ভূমিতে পরিণত হয়।

সেইদিন টর্নেডোয় প্রাণ হারানো ব্যক্তিদের স্মরণ করতে স্ব স্ব এলাকায় স্থানীয় সামাজিক সংগঠনগুলোর উদ্যোগে প্রতিবছর দোয়া ও মিলাদ মাহফিল, মসজিদে মসজিদে শিন্নী বিতরণ, প্রার্থনা এবং স্মরণসভার আয়োজন করা হয়। এ বছরও বাসাইলের মিরিকপুর, কালিহাতীর রামপুর, গোপালপুরের আলমনগর গ্রামে অনুরূপ কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD