1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ০১:৪২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
বিশ্বনাথে পিএফজি’র মাসিক ফলো-আপ সভা অনুষ্ঠিত বাসস এর সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি পদে নিয়োগ পেলেন আল-হেলাল মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত দেওয়ান নগরে রাস্তা পাকা করণ কাজের শুভ ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করলেন পীর মিসবাহ্ এমপি মহাসড়কের আউশকান্দিতে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে আগ্নেয়াস্ত্র সহ আন্তঃজেলা ডাকাতদলের ৫ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ শান্তিগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ফারুক আহমদের সুস্থ্যতা কামনায় দোয়া That Which You Do not Know About China Cupid Could Be Charging To Significantly More Than You Think কানাইঘাটে সোস্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটি নিউ ইয়র্কের নগদ অর্থ বিতরণ যেভাবে এক বছরে অর্ধেক সম্পত্তি খোয়ালেন বিশ্বের শীর্ষ ধনী নারী সিলেটের বিদায়ী পুলিশ সুপারকে কানাইঘাট প্রেসক্লাবের সংবর্ধনা প্রদান

মহাকাশে বাংলাদেশ

  • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ১০ মে, ২০১৮
  • ৬০৬ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

স্বপ্ন যাত্রার ক্ষণগণনা শুরু। মহাকাশযুগে প্রবেশ করছে বাংলাদেশ। সব ঠিকঠাক থাকলে রাতেই হবে বহুপ্রতীক্ষিত আরেকটা স্বপ্ন বাস্তবায়ন। আকাশ জয় করতে পৃথিবী ত্যাগ করবে দেশের প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১।

দেশের প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ মহাকাশে উৎক্ষেপণের মাধ্যমে স্যাটেলাইটের অধিকারী বিশ্বের ৫৭তম দেশ হিসেবে বাংলাদেশের আত্মপ্রকাশ ঘটবে। নিজস্ব স্যাটেলাইটের মালিকানার গর্বের পাশাপাশি এর মাধ্যমে বাংলাদেশের সামনে মহাকাশবিজ্ঞানের অসীম সম্ভাবনার দ্বার খুলবে। কারণ, একটি দেশ যখন স্যাটেলাইট তৈরির দক্ষতা অর্জন করে, তখন তাদের পক্ষে যে কোনো প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করা সম্ভব। বাংলাদেশের জন্য এটি এক বিশাল প্রাপ্তি।

যুক্তরাষ্ট্রের বেসরকারি মহাকাশ অনুসন্ধান ও প্রযুক্তি কোম্পানি ‘স্পেসএক্স’-এর ফ্যালকন-৯ রকেট ফ্লোরিডার কেপ কেনাভেরালের লঞ্চ প্যাড থেকে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটকে নিয়ে উড়াল দেবে। ‘স্পেসএক্স’ জানিয়েছে, ১০ মে যুক্তরাষ্ট্রের সময় বিকাল ৪টা ১২ মিনিট থেকে সন্ধ্যা ৬টা ২২ মিনিটের মধ্যে যে কোনো সময় উৎক্ষেপণ সম্পন্ন হবে। বাংলাদেশে এ সময়টি হচ্ছে আজ বৃহস্পতিবার রাত ২টা ১২ মিনিট থেকে ৪টা ২২ মিনিট।

স্পেসএক্স এবারই প্রথম উপগ্রহ উৎক্ষেপণে তাদের ফ্যালকন-৯ রকেটের ব্লক-৫ সংস্করণ ব্যবহার করতে যাচ্ছে। গত ৪ মে ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টারে নতুন এ রকেটের স্ট্যাটিক ফায়ার টেস্ট সম্পন্ন হয়। তিন হাজার ৫০০ কেজি ওজনের জিওস্টেশনারি কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে ফ্যালকন-৯ কক্ষপথের দিকে ছুটবে কেনেডি স্পেস সেন্টারের ঐতিহাসিক লঞ্চ কমপ্লেক্স ৩৯-এ থেকে। এ লঞ্চ কমপ্লেক্স থেকেই ১৯৬৯ সালে চন্দ্রাভিযানে রওনা হয়েছিল অ্যাপোলো-১১।

এর আগে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের উৎক্ষেপণ উপলক্ষে গত সোমবার ফ্লোরিডা গেছেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম (সাবেক টেলিকম প্রতিমন্ত্রী), তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এবং বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসির চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদ।

উৎক্ষেপণস্থল ফ্লোরিডায় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়সহ সব মিলিয়ে সরকারের ৪২ সদস্যর একটি প্রতিনিধিদল উপস্থিত থাকবে। এ ছাড়া সাংবাদিকসহ যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী বাংলাদেশিদের অনেকে সেখানে থাকবেন। তাদের মধ্যে ৪০ জন উৎক্ষেপণস্থল থেকে প্রায় আড়াই কিলোমিটার দূরে প্রথম গ্যালারি থেকে এ ঐতিহাসিক ঘটনা প্রত্যক্ষ করবেন। প্রায় সাড়ে তিন কিলোমিটার দূরে দ্বিতীয় গ্যালারিতে থাকতে পারবেন আরো প্রায় ২০০ জন। এরপর পাঁচ কিলোমিটার দূরে অন্য একটি উন্মুক্ত স্থান থেকেও এ উৎক্ষেপণ দৃশ্য প্রত্যক্ষ করা যাবে। এ ছাড়া বাংলাদেশ থেকে এটি দেখার ব্যবস্থা থাকছে। বিটিভি রাত ২টা থেকে উৎক্ষেপণ প্রস্তুতিসহ সার্বিক বিষয় সরাসরি সম্প্রচারের ব্যবস্থা করবে।

স্পেসএক্সের উৎক্ষেপণ যান বা রকেট ফ্যালকন-৯ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটকে মহাকাশে ১১৯ দশমিক ১ পূর্ব দ্রাঘিমাংশে অবস্থিত অরবিট প্লটে স্থাপন করবে। ফ্রান্সের কান টুলুজ ফ্যাসিলিটিতে নির্মিত বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ ইতোমধ্যে ফ্রান্স থেকে বিশেষ ব্যবস্থায় কার্গো বিমানে করে উৎক্ষেপণস্থল ফ্লোরিডার অরল্যান্ডের ক্যাপ ক্যানাভেরালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। বিশ্বের অন্যতম খ্যাতনামা স্যাটেলাইট নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান ফ্রান্সের থেলেস এলেনিয়া স্পেস বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটটি নির্মাণ করেছে।

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট ভূমি থেকে নিয়ন্ত্রণ ও পরিচালনার জন্য গাজীপুর জেলার জয়দেবপুরে প্রাথমিক এবং রাঙ্গামাটির বেতবুনিয়া ভূ-উপগ্রহ কেন্দ্রে দ্বিতীয় গ্রাউন্ড স্টেশনের নির্মাণকাজও চূড়ান্ত হয়েছে। মহাকাশে উৎক্ষেপণের পর এটি পরিচালনা, সফল ব্যবহার ও বাণিজ্যিক কার্যত্রম সম্পাদনের জন্য ইতোমধ্যে সরকারি মালিকানাধীন বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেড নামে একটি কোম্পানি গঠন করা হয়েছে। নতুন এ কোম্পানিতে কারিগরি লোকবল নিয়োগ এবং তাদের প্রশিক্ষণও দেওয়া হয়েছে।

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের ৪০টি ট্রান্সপন্ডার রয়েছে। এর মধ্যে ২০টি দেশে ব্যবহারের জন্য এবং ২০টি ভাড়া দিয়ে বৈদেশিক মুদ্রা আয় সম্ভব। এ ছাড়া নিজস্ব স্যাটেলাইট থাকায় বৈশ্বিক টেলিযোগাযোগের ক্ষেত্রে পরনির্ভরশীলতার অবসান হবে। টেলিমেডিসিন, ই-লার্নিং, ই-গবেষণা, ভিডিও কনফারেন্স, প্রতিরক্ষা ও দুর্যোগপূর্ণ অবস্থায় জরুরি যোগাযোগের ক্ষেত্রেও ভূমিকা রাখবে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট।

‘প্রাকৃতিক দুর্যোগরোধে ভূমিকা রাখবে’
সত্য প্রসাদ মজুমদার
অধ্যাপক, ইইই, বুয়েট
আমাদের দেশে বন্যা, জলোচ্ছ্বাসসহ অনেক রকমের প্রাকৃতিক দুর্যোগ হয়। এমন দুর্যোগ হলে আমরা গভীর সমুদ্র কিংবা উপকূলীয় এলাকায় যোগাযোগ করতে পারি না। যখন স্যাটেলাইট হবে তখন আমরা এই যোগাযোগের সমস্যায় পড়ব না। স্যাটেলাইট কমিউনিকেশন থাকলে ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট করা যায় খুব সুন্দরভাবে।

আমরা এখন অনেক বড় সমুদ্র অঞ্চলের মালিক হয়েছি। সেখানে মাছ ছাড়াও তো কত কত সম্পদ আছে। সেসব সম্পদ যদি আহরণ করতে হয় তাহলে তো গভীর সমুদ্রে যোগাযোগ রাখতে হবে। এ ব্যাপারে সাহায্য করবে স্যাটেলাইট। সমুদ্রের মাঝখানে গেলে তো ইন্টারনেট পাওয়া যায়, তখন যোগাযোগ রক্ষা করা যাবে এই স্যাটেলাইটের মাধ্যমে। শুধু সমুদ্র নয়, ভূমিতেই তো এমন অনেক দুর্গম জায়গা আছে যেখানে মোবাইল নেটওয়ার্ক নেই, ফাইবার অপটিক নেই, সেসব জায়গায় যোগাযোগ করা যাবে স্যাটেলাইটের মাধ্যমে।

অতীব প্রয়োজনে আমাদের যে জাহাজগুলো এখন গভীর সমুদ্রে যায় তারা বিদেশি স্যাটেলাইট ব্যবহার করছে। আমাদের স্যাটেলাইট হয়ে গেলে তখন অন্যেরটা ব্যবহার করে অর্থ খরচ করতে হবে না। এছাড়া স্যাটেলাইট হয়ে গেলে আমরা ব্যান্ডউইডথ ভাড়া দিতে পারব। এক্ষেত্রে বিশাল পরিমাণ রেভিনিউ আয় করতে পারব আমরা।

উন্নত দেশগুলো কিন্তু স্যাটেলাইট দিয়েই চলছে। তাদের যুদ্ধবিগ্রহের সময় তারা স্যাটেলাইট দিয়ে দেখে- কোথায় মাইন ভেঙে পড়ছে, কোথায় বোমা পড়ছে, কোথায় আক্রমণ হচ্ছে। আজকাল স্যাটেলাইটের এমন রেজুলিউশন যে, বাইরে থেকে দেশের ভেতর যদি একটা মানুষও ঢোকে তাহলে স্যাটেলাইট তার সিগন্যাল দিতে পারে। কোনো ঘর থেকে মানুষ বেরুলে তাও বুঝতে পারে স্যাটেলাইট। গ্রামের বাড়িতে কেউ ঢুকল কি না, শহরে বসে যে কেউই তা বুঝতে পারবে।

এখন আমরা যে অনেক অর্থ ব্যয় করে বিভিন্ন কাজে বিদেশি স্যাটেলাইট ব্যবহার করছি তাতেও কিন্তু স্বস্তি নেই। কারণ এর কোনো ন্যাশনাল সিকিউরিটি থাকছে না। অন্যরা চাইলে আমাদের যোগাযোগ লিক করে দিতে পারে।

এছাড়া স্যাটেলাইটের মাধ্যমে শিক্ষা, স্বাস্থ্য খাতে কম দামে ব্যন্ডউইডথ দেওয়া যাবে, তাতে করে এসব খাতের উন্নতি হবে। অপরাধ দমন করে আইনশৃঙ্খলা ব্যবস্থার উন্নতির ক্ষেত্রেও কাজে লাগবে। অপরাধীদের পর্যবেক্ষণ ছাড়াও থানায় থানায় যোগাযোগ করার জন্য কাজে লাগবে স্যাটেলাইট।

যেসব সুফল পাওয়া যাবে
এই স্যাটেলাইট বিশেষভাবে কাজে লাগবে দুর্যোগ মুহূর্তে যোগাযোগ ব্যবস্থা সচল রাখতে। বড় ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগে মোবাইল নেটওয়ার্ক অনেক সময় অচল হয়ে পড়ে। তখন স্যাটেলাইটের মাধ্যমে প্রত্যন্ত অঞ্চলের যোগাযোগব্যবস্থা চালু রাখা সম্ভব হবে। সুবিধাবঞ্চিত অঞ্চলের মানুষের ইন্টারনেট ও ব্যাংকিং সেবা, টেলিমেডিসিন ও দূরনিয়ন্ত্রিত শিক্ষাব্যবস্থা প্রসারেও ব্যবহার করা যাবে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট।

স্যাটেলাইটের মাধ্যমে বাণিজ্যিক দিক থেকেও অনেক লাভবান হওয়া সম্ভব। এখন দেশে প্রায় ৩০টি স্যাটেলাইট চ্যানেল সম্প্রচারে আছে। এসব চ্যানেল সিঙ্গাপুরসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে স্যাটেলাইট ভাড়া নিয়ে পরিচালিত হচ্ছে। এ জন্য প্রতি মাসে একটি চ্যানেলের ভাড়া বাবদ গুনতে হয় তিন থেকে ছয় হাজার মার্কিন ডলার। সব মিলিয়ে স্যাটেলাইটের ভাড়া বাবদ বছরে চ্যানেলগুলোর খরচ হয় ২০ লাখ ডলার বা প্রায় ১৭ কোটি টাকা। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট চালু হলে এই স্যাটেলাইট ভাড়া কমবে। আবার দেশের টাকা দেশেই থেকে যাবে।

শুধু তা-ই নয়, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের ট্রান্সপন্ডার বা সক্ষমতা অন্য দেশের কাছে ভাড়া দিয়েও বৈদেশিক মুদ্রা আয় করার সুযোগ থাকবে। এই স্যাটেলাইটের ৪০টি ট্রান্সপন্ডারের মধ্যে ২০টি ভাড়া দেওয়ার জন্য রাখা হবে বলে সরকার থেকে বলা হচ্ছে। ইতোমধ্যে ইন্দোনেশিয়া ও ফিলিপাইনে এই স্যাটেলাইটের ট্রান্সপন্ডার বিক্রির জন্য সরকারের গঠন করা বঙ্গবন্ধু কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি (বিসিএসবি) লিমিটেড কাজ শুরু করেছে।

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের আরেকটি বিক্রয়যোগ্য পণ্য হবে ইন্টারনেট ব্যান্ডউইডথ। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) তথ্য অনুযায়ী, বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটে মোট ৪০টি ট্রান্সপন্ডারের মধ্যে ২৬টি কেইউ-ব্যান্ড ও ১৪টি সি-ব্যান্ড। প্রতিটি ট্রান্সপন্ডার থেকে ৪০ মেগাহার্টজ হারে তরঙ্গ বরাদ্দ (ফ্রিকোয়েন্সি) সরবরাহ পাওয়া সম্ভব। এ হিসাবে ৪০টি ট্রান্সপন্ডারের মোট ফ্রিকোয়েন্সি ক্ষমতা হলো ১ হাজার ৬০০ মেগাহার্টজ। কিছু কারিগরি সীমাবদ্ধতার কারণে এই ১ হাজার পুরোটা ব্যবহার করা যাবে না। তবে কমপক্ষে ১ হাজার ৪০০ মেগাহার্টজ ব্যবহার করা সম্ভব হবে।

মোটা দাগে এ স্যাটেলাইট থেকে তিন ধরনের সুফল পেতে পারে দেশের মানুষ। প্রথমত, এ স্যাটেলাইটের সক্ষমতা বিক্রি করে বৈদেশিক মুদ্রা আয় ও সাশ্রয়- দুটিই করা যাবে। দ্বিতীয়ত, দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে স্যাটেলাইটের মাধ্যমে ইন্টারনেট ও টেলিযোগাযোগ সেবার সম্প্রসারণ করা সম্ভব হবে। তৃতীয়ত, দুর্যোগ পরিস্থিতি মোকাবেলা ও ব্যবস্থাপনায় দারুণ কার্যকর ভূমিকা রাখবে এ স্যাটেলাইট। এ ছাড়া জাতীয় নিরাপত্তা নিশ্চিত করার কাজেও এ স্যাটেলাইটকে কাজে লাগানো সম্ভব।

তবে এসব সম্ভাবনাকে ছাড়িয়ে যে বিষয়টি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে, সেটি হলো বাংলাদেশের ভাবমূর্তি। বঙ্গবন্ধু-১ এর মাধ্যমে স্যাটেলাইট প্রযুক্তির অভিজাত দেশের ক্লাবে বাংলাদেশ প্রবেশ করবে।

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD