1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ১০:৫২ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কানাইঘাট বড়দেশ আসআদুল উলুম মাদ্রাসার বিরুদ্ধে অপ্রচারের প্রতিবাদে সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উদ্যোগ জাতীয় শোক দিবস পালিত কানাইঘাটে শোকাবহ পরিবেশে বঙ্গবন্ধুর শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত রানীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস পালিত ১৫ আগষ্ট জাতির ইতিহাসে কলংকজনক অধ্যায়-নবীগঞ্জে শোক সভায় এমপি মিলাদ গাজী জগন্নাথপুরে শোক দিবস পালিত বিশ্বনাথে পিএফজি’র মাসিক ফলো-আপ সভা অনুষ্ঠিত বাসস এর সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি পদে নিয়োগ পেলেন আল-হেলাল মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত দেওয়ান নগরে রাস্তা পাকা করণ কাজের শুভ ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করলেন পীর মিসবাহ্ এমপি

সিসিক’র ২শ কোটি টাকার প্রকল্প, কেমন হবে জলাবদ্ধতার চিত্র

  • আপডেটের সময় : সোমবার, ৭ মে, ২০১৮
  • ২৮৭ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

শুরু হয়েছে বৈশাখ মাস। রোদ বৃষ্টি আর কাল বৈশাখী ঝড়ের মাস এটি। কখনও প্রখর রোদ আবার কখনও অঝর ধারায় বৃষ্টি ঘন্টার পর ঘন্টা চলতে থাকে। গত কয়েক বছর মুষল ধারায় বৃষ্টির কারনে জলাবদ্ধতায় অনেকটা ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে সিলেটের জনসাধারনকে। শুধু মুষল ধারে নয় কখনও হালকা বৃষ্টির হলেও বিভিন্ন ছড়া, খাল পানিতে ভরে গিয়ে উপচে সেই পানি মানুষের ঘরের মধ্যেও ঢুকে যেত। বিশেষ করে নগরীর ছড়ার পাশে বসবাসকারীদের বেশী ভোগান্তি পেতে হত। এবারও বৈশাখের শুরুতে টানা কয়েক ঘন্টা হয়নি। তবে হালকা বৃষ্টিও মাথায় চিন্তার রেখা টেনে দিচ্ছে নগরের মানুষের।

গেল বছর বর্ষা মৌসুমে ঘন্টাখানেক টানা বর্ষন হলেই নগরীর বিভিন্ন ছাড়া, খাল পানিতে ভরে গিয়ে তা নগরবাসীর বসতঘর, ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান এমনকি নিচু এলাকার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ভেতর ঢুকে যেত। এমনকি জিন্দাবাজার এলাকায় হাটু পানি পর্যন্তও হয়ে গিয়েছিল। ফলে জিন্দাবাজারের বিভিন্ন ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে পানি ঢুকে গিয়ে ব্যাপক ক্ষতি হয়। হালকা বর্ষণ হলে নগরীর হকার মার্কেটও পানিতে ডুবে যেত। এ নিয়ে সেখানকার ব্যবসায়ীরা অনেকবার প্রশাসনের দ্বারস্ত হলেও তেমন কোন ফল পান নি ব্যবসায়ীরা। এমনকি সেই সময়ের টানা বর্ষণের কারনে অর্ধেক ডুবে যাওয়া নগরীর মানুষের পাশে দাঁড়াতে বৃষ্টিকে উপক্ষো করেও নগরপিতা মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বেরিয়ে আসেন রাস্তায়।

জলাবদ্ধতা থেকে নগরীকে মুক্তি দিতে প্রথম থেকেই সরব ছিলেন মেয়র আরিফ। এমনকি বিভিন্ন ছড়া খাল উদ্ধারেও ছিলেন তৎপর। সর্বশেষ নগরীর সিটি করপোরেশন এলাকার কায়স্তরাইল গ্রামের তিনি ছড়ার উপর জাহাজ বিল্ডিং অপসারন করান। সিলেট সিটি করপোরেশন থেকেও ছড়া খাল সংস্কারে নেয়া হয় বিশাল উদ্যোগ। সেই কাজও চলমান রয়েছে। নগরের ছড়া, খাল উন্নয়নে ব্যয় ধরা হয়েছে ২০২ কোটি টাকা। মালনী ছড়া, গোয়ালী ছড়া, হলদী ছড়া, মঙ্গলী ছড়া, ভূমি ছড়া, যুগ্মি ছড়া, কালিবাড়ি ছড়া, ধোপাছড়া, বাবু ছড়া, রতœার খাল, জৈন্তার খাল, বসু খালসহ নগরীর ছোট বড় সব নালা উন্নয়নে ১৬৯ টি গ্রুপ একযোগে কাজও করছে।

তবে সিলেট সিটি করপোশেরন সূত্রে জানা যায় এই প্রকল্পের কাজ প্রায় ৬০ ভাগ সম্পন্ন হয়েছে। বাকি কাজ শেষ হতে আগামী অর্থ বছর পর্যন্ত সময় লাগতে পারে। তবে বর্ষা মৌসুম থাকায় কাজ এখন ধীর গতিতে চলছে। ২০১৬-১৭ অর্থ বছরের শেষের দিকে এই উন্নয়ন প্রকেল্পর অনুমোদন দেয়া হয়। তবে এর কাজ শেষ হতে সময় লাগবে ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে।

এ উন্নয়ন প্রকল্পের কারনে এবার বর্ষা মৌসুমে তার ফল কতটুকু পাবে সেই নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন নগরবাসী। তারা বলছেন, অর্ধেক কাজের কারনে হয়তো আরও বেশী ভোগান্তিতে পড়তে হবে। অনেকে আবার আশাবাদীও।

নগরীর আম্বরখানার বাসিন্দা ছমির মিয়া বলেন, এখন বেশী বৃষ্টি দিলেই ঘরে পানি উঠে যায়। আগে এইরকম কখনও হতো না। আমাদের এলাকায় একটি ছড়া রয়েছে। এটি সম্প্রসারনের উদ্যোগ নেয়া হয়। কাজও এগিয়ে যায় অনেক। তবে মাঝখানে এই সম্প্রসারন কাজ বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর থেকেই বৃষ্টি হলে নিচতলার প্রত্যেকের ঘরেই পানি উঠে যায়। এইবারও এটা নিয়ে চিন্তায় আছি।

দাঁড়িয়াপাড়ার বাসিন্দা শহিদুল ইসলাম বলেন, বৃষ্টিতে জমা পানির চাপের তুলনায় আবাসিক এলাকার ড্রেনগুলো অনেক ছোট। একাধারে ঘন্টাব্যাপী বৃষ্টি হলেই রাস্তা উপচে ঘরের ভেতর পানি ঢুকে যায়। যদিও পানি বেশী সময় থাকেনা তারপরও ঘরে পানি ঢুকলে অনেক ভোগান্তি পোহাতে হয়।

এদিকে, গেলবার নগরীর গুরুত্বপূর্ণ স্থান জিন্দাবাজারের বেশ কয়েকটি শপিংমলে পানি ঢুকে গিয়ে ব্যাপক ক্ষতি হয়। তবে এইবার ব্যবসায়ীরা আশাবাদী এইবার জলাবদ্ধতা থেকে কিছুটা হলেও মুক্তি পাবেন তারা। ব্যবসায়ীরা নেতারা বলছেন এই ব্যাপারে সিসিক মেয়র তাদের আশ্বাস্ত করেছেন শতভাগ না হলেও গেলবারের মত আর জলাবদ্ধতার সুযোগ নেই।

সিলেট জেলা ব্যবসায়ী ঐক্যকল্যান পরিষদের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক জাকারিয়া ইমরুল বলেন, মেয়র আমাদের আশ^স্ত করেছিলেন গতবারের মত এইবার আর জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হবে না। তিনি আমাদেরকে বলেছেন শতভাগ দিতে পারবেন না। যদি আরও কিছু সময় পেতেন তাহলে এই ব্যাপারে শতভাগ দিতে পারতেন। আমরাও আশাবাদী এটার সুষ্ঠু সুরাহা হবে। ব্যবসায়ীরাও ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পাবে।

এদিকে জলাবদ্ধতা দূরীকরনে সঠিক সময়ে সঠিক পদক্ষেপ গ্রহনের মাধ্যমেই সমাধান পাওয়া সম্ভব বলে মনে করেন সচেতন মহল। তারা বলছেন নগরপিতার যেভাবে ঢালাওভাবে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি জলাবদ্ধতা দূরীকরণে সফল হবেন।

সুশাসনের জন্য নাগরিক (সনাক) সভাপতি ফারুক মাহমুদ চৌধুরী বলেন, মেয়র যেভাবে কাজ করে যাচ্ছেন আমার কাছে মনে হয় তিনি সফল হবেন। চারদিকেই তিনি উন্নয়ন কর্মকান্ডে দৌড়ঝাপ করছেন। এমনকি এটি নির্বাচনী বছর। সব মিলিয়ে আমি মনে করি এবার আর আগের মত জলাবদ্ধতা হবেনা। এখনও তো অনেক আধুনিক ব্যবস্থাও হয়েছে। কিছুদিন আগে দেখলাম বৃষ্টির মাঝেও গার্ডওয়াল এর কাজ চলছে। এদিকে ২৭ মাস মেয়র কারাভোগে ছিলেন। এ ব্যাপারে বক্তব্যের জন্য মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর মোবাইল নম্বরে বারবার কল দিলেও ফোন রিসিভ হয়নি এবং পরে কলব্যাকও করা হয়নি। একই ভাবে তার সহকারী শাহাব উদ্দিন শিহাবের মোবাইল নম্বরেও ফোন দিলে তা রিসিভ হয়নি।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

 

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD