1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০৮:৩৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বিশ্বনাথে পিএফজি’র মাসিক ফলো-আপ সভা অনুষ্ঠিত বাসস এর সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি পদে নিয়োগ পেলেন আল-হেলাল মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত দেওয়ান নগরে রাস্তা পাকা করণ কাজের শুভ ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করলেন পীর মিসবাহ্ এমপি মহাসড়কের আউশকান্দিতে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে আগ্নেয়াস্ত্র সহ আন্তঃজেলা ডাকাতদলের ৫ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ শান্তিগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ফারুক আহমদের সুস্থ্যতা কামনায় দোয়া That Which You Do not Know About China Cupid Could Be Charging To Significantly More Than You Think কানাইঘাটে সোস্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটি নিউ ইয়র্কের নগদ অর্থ বিতরণ যেভাবে এক বছরে অর্ধেক সম্পত্তি খোয়ালেন বিশ্বের শীর্ষ ধনী নারী সিলেটের বিদায়ী পুলিশ সুপারকে কানাইঘাট প্রেসক্লাবের সংবর্ধনা প্রদান

তিনদিন বিদ্যুৎহীন কুমিল্লার ৩০ গ্রাম

  • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ৩ মে, ২০১৮
  • ২৮৬ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

কুমিল্লার উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া কালবৈশাখীর ছোবলের ধকল তিনদিনেও কাটিয়ে উঠতে পারেনি জেলার বিদ্যুৎ বিভাগ। আর এ ব্যর্থতার মাশুল দিতে হচ্ছে তিনটি উপজেলার ৩০টিরও অধিক গ্রামের মানুষকে। গেলো সোমবার থেকে আজ বৃহস্পতিবার পর্যন্ত বিদুৎবিহীন বুড়িচং, মুরাদনগর ও তিতাস উপজেলার কয়েক হাজার পরিবার। বিদ্যুৎহীনতায় নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার পাশাপাশি এসব এলাকায় জনজীবনে নেমে এসেছে বিপর্যয়। বিদ্যুৎ বিপর্যয়ের ভোগান্তি ভয়াবহরূপ দেখা দিয়েছে বুড়িংয়ে। এ উপজেলার প্রায় ২৫টি গ্রাম গেলো রোববার রাত থেকেই রয়েছে অন্ধকারে।

এসব উপজেলায় বসবাসকারী কয়েক হাজার মানুষের চরম ভোগান্তিতেও মাথা ব্যথা নেই বিদ্যুৎ বিভাগের। ঢিমেতালে চলছে তাদের মেরামত কাজ। অভিযোগ রয়েছে বিদ্যুৎ অফিসে অসংখ্যবার ফোন করলেও সে ফোন কেউ রিসিভ করেন না। অথবা ‘ফোন যন্ত্রণায়’ অতিষ্ঠ অফিসের ‘কর্তাবাবুরা’ রিসিভার উল্টিয়ে রাখেন ‘যন্ত্রণা-মুক্তির’ আশায়।

কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-৩ এর জিএম মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘কালবৈশাখী ঝড়ের কারণে বিদ্যুতের খুটি ভেঙ্গে যাওয়া এবং কিছু এলাকায় তার ছিড়ে যাওয়ার কারণে বিদ্যুৎ যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। খুঁটি মেরামত ও ছিঁড়ে যাওয়া তার জোড়া লাগিয়ে বিদ্যুৎ যোগাযোগ অক্ষুন্ন রাখার লক্ষ্যে বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মীরা কাজ করছে। অচিরেই এ সমস্যা সমাধান হয়ে যাবে বলে আশাবাদী তিনি।’

অপরদিকে কয়েকবার চেষ্টা করেও ফোনে নাগাল পাওয়া যায়নি কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি- ২ এর জিএম মাজহারুল ইসলামের। তবে ইতোমধ্যে অন্য যারা তাঁর সাথে যোগাযোগ করতে পেরেছেন; তাদের সাথে কথা বলে জানা গেলো-আশার আলো দেখাতে পারেননি বিদ্যুৎ বিভাগের এ কর্মকর্তা।

গত সোমবার দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত তিন দফায় জেলার দাউদকান্দি, তিতাস, বুড়িচং ও দেবীদ্বার উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া প্রচণ্ড কালবৈশাখী ঝড়ে সব কিছু লণ্ডভণ্ড হয়ে যায়। এতে গাছপালা, ঘরবাড়ি, বৈদুতিক খুঁটি এবং ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। কালবৈশাখীর এ ছোবল ভয়ানক রূপে দেখা দিয়েছিলো বুড়িচং উপজেলায়। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ঝড়ে উপজেলার অন্তত ৩০টি গ্রামে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

দুপুর ১২টায় শুরু হওয়া কাল বৈশাখী ঝড় প্রায় ৪০মিনিট স্থায়ী হয়। এতে বিভিন্ন এলাকার হাজার হাজার গাছপালা, শত শত ঘরবাড়ি ও প্রতিষ্ঠান বিধস্ত হয়। বিভিন্ন গ্রামে বৈদুতিক খুঁটি ভেঙ্গে যায়। ক্ষতিগ্রস্থ হয় মাঠের বোরো ফসল। প্রচণ্ড বাতাসে উপজেলার বাকশীমূল ইউনিয়ন কালিকাপুর আখন্দ বাড়ি সংলগ্ন মোটা সেগুন গাছ মূলসহ উপড়ে ঘরের চালা ভেঙ্গে যায়। এসময় নয়ন মিয়া নামে একজন আহত হন। ঝড় শেষে রাজাপুর, পীরযাত্রাপুর, ষোলনল, ময়নামতি, মোকাম ইউনিয়নসহ বিভিন্ন এলাকার সড়কের ছোট বড় গাছ উপড়ে থাকতে দেখা যায়।

সোমবারের ঝড়ের পর থেকে উপজেলার পীরযাত্রাপুর ইউনিয়নের পশ্চিম সাদকপুর, উত্তর শ্যামপুর, দক্ষিণ শ্যামপুর, কোমাল্লা, বরইয়া, পীরযাত্রাপুর, গোবিন্দপুর, শ্রীপুর এলাকায় বৃহস্পতিবার সকালে এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সময়ে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হয়নি।

পীরযাত্রাপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আবু তাহের জানান, ইউনিয়নের ৮টি গ্রাম বিদ্যুৎবিহীন। রোববার রাতে বৃষ্টির শুরু হওয়ার পর থেকেই গ্রামগুলো অন্ধকারে ডুবে আছে বলে জানান তিনি। একই অবস্থা ষোলনল ইউনিয়নের ভরাসার, কামারখাড়া, ষোলনল, ছয়ঘুড়িয়া, ভান্তি, সোনাইসার, কোশাইয়া, পূর্বহুড়া, ইছাপুরা গ্রামেও। এছাড়াও বাকশীমূল ইউনিয়নের আজ্ঞাপুর, কালিকাপুরসহ কয়েকটি গ্রাম ও রাজাপুর ইউনিয়নের অধিকাংশ গ্রামে রোববার রাতের পর থেকে আর বিদ্যুতের দেখা মেলেনি।

বিদ্যুৎ না থাকায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে এইচএসসিরা পরীক্ষার্থী। এছাড়াও প্রাথমিক বিদ্যালয়েও শুরু হয়েছে সাময়িক পরীক্ষা। বিদ্যুতের অভাবে তাদের লেখাপাড়ায় বিঘ্নে ঘটছে। সোমবার পরীক্ষা চলাকালে উপজেলার কয়েকটি কেন্দ্রে বিদ্যুৎ না থাকায় মোমবাতির আলোয় পরীক্ষা দিতে হয়েছে শিক্ষার্থীদের।

অপরদিকে সোমবার দুপুরের পর থেকে বয়ে যাওয়া কালবৈশাখী ঝড়ে দাউদকান্দি উপজেলার ১৩টি গ্রাম ও তিতাস উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের প্রায় ১৫টি গ্রামের টিনের ঘর বিধস্ত হয়েছে। দুই উপজেলার মধ্যে বেশী ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বন্ধরামপুর, মৌটুপি, শিবপুর, গোপালপুরসহ ৬টি গ্রাম। এসব গ্রামের প্রায় ৩০টি টিনের ঘর বিধস্ত হয়েছে। ঝড়ে গাছপালা উপড়ে ফেলে এবং বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে ফেলার কারণে বিদ্যুৎ যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। এছাড়াও ঝড়ে কুমিল্লার মুরাদনগর, চান্দিনা ও দেবীদ্বার উপজেলায়ও ব্যাপক ক্ষতি হয়। এর মধ্যে মুরাদনগরের ৫টি গ্রাম ও তিতাসের ২/৩টি গ্রামে এখনো বিদ্যুৎসংযোগ বন্ধ রয়েছে।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD