1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ০৯:৫৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কানাইঘাট বড়দেশ আসআদুল উলুম মাদ্রাসার বিরুদ্ধে অপ্রচারের প্রতিবাদে সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উদ্যোগ জাতীয় শোক দিবস পালিত কানাইঘাটে শোকাবহ পরিবেশে বঙ্গবন্ধুর শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত রানীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস পালিত ১৫ আগষ্ট জাতির ইতিহাসে কলংকজনক অধ্যায়-নবীগঞ্জে শোক সভায় এমপি মিলাদ গাজী জগন্নাথপুরে শোক দিবস পালিত বিশ্বনাথে পিএফজি’র মাসিক ফলো-আপ সভা অনুষ্ঠিত বাসস এর সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি পদে নিয়োগ পেলেন আল-হেলাল মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত দেওয়ান নগরে রাস্তা পাকা করণ কাজের শুভ ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করলেন পীর মিসবাহ্ এমপি

বজ্রপাত মোকাবিলায় ৩১ লাখ ৬৪ হাজার তালের বীজ রোপণ

  • আপডেটের সময় : বুধবার, ২ মে, ২০১৮
  • ৫৯৩ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

সময়ের কন্ঠস্বর ডেস্ক:

বজ্রপাত মোকাবিলায় সারা দেশে ৩১ লাখ ৬৪ হাজার তালের বীজ রোপণ করা হয়েছে। একই সঙ্গে মোবাইল টাওয়ারে আর্থিং ব্যবস্থা যুক্ত করে বজ্র নিরোধক দণ্ড হিসেবে ব্যবহারের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ তথ্য জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া। চলমান আবহাওয়া পরিস্থিতি এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা নিয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

মঙ্গলবার দুপুরে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সম্মেলনকক্ষে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. শাহ কামালসহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সচিব ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রী বলেন, ২৯ এপ্রিল থেকে দেশব্যাপী ব্যাপক বৃষ্টিপাত ও বজ্রপাত হচ্ছে। গত ২৯ ও ৩০ এপ্রিল দুদিনে ২৯ জন লোক বজ্রপাতে মারা গেছেন। গত মার্চ ও এপ্রিল মাসে মোট ৭০ জন লোক বজ্রপাতে মারা গেছেন। গত বছর মারা গেছেন প্রায় ৩০০ জন। বজ্রপাতে মৃত্যুর দিক দিয়ে বাংলাদেশ বিশ্বে একটি রেকর্ড সৃষ্টি করেছে।

অতিবৃষ্টিতে পাহাড় ধসের আশঙ্কার কথা তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, গত বছর পাহাড় ধসে পার্বত্য এলাকায় ১৬৬ জন লোকের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়। গত বছরের অভিজ্ঞতা থেকে এ বছর পাহাড় ধস মোকাবিলায় পূর্ব প্রস্তুতি হিসেবে এপ্রিল মাসের ২২-২৬ তারিখে মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নিয়ে পার্বত্য ৩ জেলা, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার—এই পাঁচ জেলার ৩৫টি উপজেলায় শোভাযাত্রা, কর্মশালা ও জেলা-উপজেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা করা হয়েছে। পাহাড়ের ঝুঁকিপূর্ণ ঢালে বসবাসকারীদের দ্রুত সরিয়ে নিতে জেলা প্রশাসনকে অনুরোধ করা হয়েছে। গত দুদিনে শুধু রাঙামাটিতেই ১১০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। তাই এখনই জেলা প্রশাসনকে সতর্ক হতে হবে।

মন্ত্রী বলেন, কুতুপালংয়ের পাহাড়ের পাদদেশে বসবাসকারী রোহিঙ্গা শিবির থেকে দুই লাখ রোহিঙ্গা অধিবাসীকে অন্যত্র নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এরই মধ্যে প্রায় এক লাখ রোহিঙ্গাকে অন্যত্র সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। এরা ঝুঁকির মধ্যেই বসবাস করছিল।

মায়া বলেন, সরকার ২০১৬ সালে বজ্রপাতকে দুর্যোগ হিসেবে ঘোষণা করেছে। বজ্রপাতে নিহত ব্যক্তির পরিবারকে তাৎক্ষণিক সহায়তা হিসেবে ২০ হাজার টাকা এবং আহত ব্যক্তির চিকিৎসার জন্য পাঁচ হাজার টাকা সহায়তা দেওয়া হয়। নিহত ব্যক্তির পরিবারকে ৩০ কেজি ভিজিএফ চাল দেওয়া হয়।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রী বলেন, ‘গতবছর ১০ লাখ তালবীজ রোপণের সিদ্ধান্ত হয়েছিল। এ পর্যন্ত প্রায় ৩১ লাখ ৬৪ হাজার তালের বীজ রোপণ করা হয়েছে। আমরা হাওর এলাকার লোকদের বজ্রপাত ও বন্যা থেকে রক্ষা করতে প্রচুর আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ করছি। মোবাইল টাওয়ারগুলোতে আর্থিংয়ের ব্যবস্থা সংযুক্ত করে বজ্র নিরোধক দণ্ড হিসেবে ব্যবহার করা যায় কি না সে চেষ্টা করা হচ্ছে। বজ্রপাত মোকাবিলায় দালান কোঠায় বজ্র নিরোধক দণ্ড লাগানো বাধ্যতামূলক করতে গণপুর্ত মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ করা হয়েছে।’

এ ছাড়া বজ্রপাত শনাক্ত করার জন্য আবহাওয়া অধিদপ্তর দেশের আটটি জেলায় শনাক্তকরণ যন্ত্র স্থাপন করেছে। আরো যন্ত্রপাতি সংগ্রহের উদ্যোগ নিয়েছে।

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD