1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ১২:২৯ অপরাহ্ন
হেড লাইন
১২৯০ টি ডাস্টবিন বিতরণ করেছে ওয়ার্ল্ডভিশন সুনামগঞ্জে আমির হোসেন রেজার প্রতি অনাস্থা জ্ঞাপন করলেন সুরমা ইউনিয়ন পরিষদের ১১ মেম্বার শান্তিগঞ্জে ব্যবসায়ীর ওপর দুর্বৃত্তের হামলা, টাকা-মোবাইল লুট কোম্পানীগঞ্জে সাংবাদিকদের সাথে নয়া ইউএনও’র মতবিনিময় সভা শান্তিগঞ্জে কোটা সংস্কার আন্দোলন ও হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করেছে বমেক কোম্পানীগঞ্জ সীমান্তে খাসিয়ার গুলিতে নিহত ২ বাংলাদেশীর লাশ হস্তান্তর কানাইঘাটে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে যুক্তরাজ্য প্রবাসী ফাহিমের ত্রান বিতরণ লন্ডনে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত তাহমিনার কৃতিত্ব জগন্নাথপুরে বন্যায় সড়কে বিভিন্ন স্থানে ভাঙ্গন মানুষের ভোগান্তি! সাংবাদিক ওমর ফারুক নাঈমকে হুমকি, থানায় জিডি

বঙ্গবন্ধুর বরাদ্দ দেয়া বাড়িতেই থাকতে পারছেন শহীদ পরিবারটি

  • Update Time : মঙ্গলবার, ১ মে, ২০১৮
  • ৮০৭ শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

বঙ্গবন্ধুর বরাদ্দ দেয়া বাসাটি শেষপর্যন্ত ছাড়তে হলো না শহীদ মহিউদ্দিন হায়দারের পরিবারকে। তীব্র প্রতিবাদের মুখে শহীদ পরিবারটিকে জোরপূর্বক উচ্ছেদ করার ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হওয়ায় এ বাড়িতেই থাকতে পারছেন তারা।

 

সোমবার দিনব্যাপী অন্য মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সদস্যরাসহ সমাজের বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ এই শহীদ পরিবারটির পাশে গিয়ে দাঁড়িয়ে প্রতিবাদের ফলে আজিমপুর সরকারি কলোনির ২/ই বাসাটি ছাড়তে হয়নি তাদের। ইতোমধ্যে বাসার মালামাল সরিয়ে নিয়ে গেলেও তা আবারো ফিরিয়ে আনা হয়েছে।

 

শহীদ মহিউদ্দীন হায়দারের স্ত্রী খুরশীদা হায়দার জানিয়েছেন, সবার সহযোগিতায় আবার বাসায় ফিরে এসেছি। এখন অনেক ভালো লাগছে। এই সমস্যার স্থায়ী সমাধান হলে আরো ভালো লাগবে। আমি বিষয়টি সমাধানের জন্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করছি। আমাদের সঙ্গে গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারাও যোগাযোগ করেছেন। তবে এখনো আশ্বস্ত করেননি।

 

উল্লেখ্য, কোনো আগাম নোটিশ না দিয়েই আদালতের স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করিয়ে মুক্তিযুদ্ধে শহীদ মহিউদ্দিন হায়দারের স্ত্রী খুরশিদা হায়দার ও তার ছেলেকে উচ্ছেদ করতে যাচ্ছিল সরকারের গৃহায়ণ ও গণপূর্ত অধিদফতর। পরিবারটি বাড়ি ছাড়ার জন্য সময়ের আবেদন করলেও তা দেয়া হয়নি।

 

রবিবার রাতে শহিদ মহিউদ্দিন হায়দারের ছেলের ফেসবুক স্ট্যাটাস দেখার পর সোমবার সকালে সেখানে যান শহিদ বুদ্ধিজীবীর সন্তান নুজহাত চৌধুরী শম্পা, শহীদ বুদ্ধিজীবীর সন্তান তৌহিদ রেজা নূর, শহীদ সন্তান নটোকিশোর আদিত্য, গণজাগরণ মঞ্চের সংগঠক এফ এম শাহীন, ছাত্র মৈত্রীর সাবেক সভাপতি বাপ্পাদিত্য বসু, গণজাগরণ মঞ্চের কর্মী নাহিদ এনাম, রবিউল রুপম, ইমরান আহমেদ অপু, মহিউল মুক্তি, সাংবাদিক হাসান আহমেদ প্রমুখ।

 

শহীদ মহিউদ্দিন হায়দারের স্ত্রী খুরশিদা হায়দার বলেন, ১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে তিনি বাংলাদেশ বেতারে চাকরি পান। বঙ্গবন্ধু তখন তাকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন- থাকবা কই? জায়গা আছে? তিনি বলেছিলেন- নেই। বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন- ঠিক আছে। থাকার জায়গাও হয়ে যাবে। পরের বছর ১৯৭৩ সালে শহীদ পরিবার হিসেবে আজিমপুর কলোনিতে বাসাটি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বরাদ্দ দেন। সেই থেকে তিনি পরিবার নিয়ে বাসাটিতে থাকছেন।

 

প্রসঙ্গত, আজিমপুর কলোনি বা অন্য সব কলোনিতেই সরকারি কর্মকর্তাদের অবসর গ্রহণের পর বরাদ্দকৃত বাসা ছেড়ে দিতে হয়। কিন্তু খুরশিদা হায়দারের অবসরের সাথে বাসা ছাড়া না ছাড়ার কোনো সম্পর্ক নেই।

 

 

কারণ বঙ্গবন্ধু বাসাটি বরাদ্দ দিয়েছিলেন আজীবনের জন্য। কিন্তু ২০০৭ সালে খুরশিদা হায়দারের অবসরের পর থেকেই আমলাদের গায়ে জ্বালা ওঠে। নোটিশ দেয়া হয় বাসাটি ছেড়ে দেবার জন্য। তখন বঙ্গবন্ধুর জারি করা বরাদ্দপত্র ও প্রজ্ঞাপন নিয়ে খুরশিদা হায়দার হাইকোর্টে যান। কোর্ট স্থগিতাদেশ দেন। এ পর্যন্ত সব ঠিক ছিল।

 

কিন্তু সম্প্রতি এটর্নি জেনারেল অফিসের এক স্টেনোগ্রাফার, নাম মনোয়ারুল হক প্রতারণা করে কৌশলে বাদিকে না জানিয়েই হাইকোর্টের কোনো ফাঁক গলে স্থগিতাদেশ বাতিল করায়। পরে গণপূর্ত অধিদফতরের আবাসন পরিচালক (যুগ্ম সচিব) এমদাদুল হকের সাথে যোগসাজশ করে ওই বাসা নিজের নামে বরাদ্দ করিয়ে নেয়।

 

গোপন সূত্রে জানা যায়, এর পিছনে বিপুল পরিমাণ টাকার লেনদেনও হয়েছে। গণপূর্ত অফিস সূত্রে আমরা জানতে পেরেছি এই এমদাদুল হক টাকা হলে নাকি বাঘের দুধও ব্যবস্থা করে দিতে পারে।

 

আজিমপুর কলোনির পুরনো চারতলা ভবনগুলো ভেঙ্গে ইতোমধ্যে ছয়টি নতুন দশতলা ভবন নির্মিত হয়েছে। বাকিগুলোও ভাঙা হবে নতুন ভবন নির্মাণের লক্ষ্যে। পুরনো ২নং ভবনটিও আছে পরবর্তী ভাঙার তালিকায়। পুরনো ভবনের সব বাসিন্দাদের নতুন ভবনে বাসা বরাদ্দ দেয়া হলেও এই শহীদ পরিবারটিকে বরাদ্দ দেয়া হয়নি। তার বদলে বরাদ্দের তালিকায় নাম উঠে যায় ওই স্টেনোগ্রাফার মনোয়ারুল হকের।

 

এবার বাসা ছাড়ার জন্য সাতদিনের নোটিশ দেয়া হয় খুরশিদা হায়দারকে। তিনি অসহায় হয়ে সোজা এমদাদুল হকের কাছে যান। অনুনয় বিনয় করে তাকে অনুরোধ করেন বিকল্প ব্যবস্থা করার জন্য আরো কয়েকটি দিন সময় দেবার জন্য।

 

যুগ্ম সচিব এমদাদুল হক তাকে ৩০ দিন সময় দেন। কিন্তু একই সাথে খুরশিদা হায়দারকে বলেন, জায়গা না থাকলে গাছতলায় গিয়ে থাকেন! ক্ষোভে, দুঃখে, অপমানে তিনি চলে আসেন সেখান থেকে। নিজের এই অপমানের কথা কাউকে বলেননি। ঘটনাক্রমে কয়েকজনের ফেসবুক পোস্ট থেকে গতকাল রাতে এসব ঘটনা ফাঁস হয়ে যায়।

 

এ ব্যাপারে দুর্দশার কথা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তুলে ধরেছেন শহীদ মহিউদ্দিনের ছেলে সাহেদ সদরুদ্দিন। তিনি লিখেছেন, ‘আমার আম্মা মুক্তিযুদ্ধে একজন শহীদের স্ত্রী। দেশ স্বাধীনের পর বঙ্গবন্ধু উল্লেখিত মর্যাদায় আম্মাকে তার ২ সন্তানসহ বসবাস কল্পে ঢাকার আজিমপুরে একটি সরকারি বাসা আমরণ থাকার জন্য বরাদ্দ দিয়েছিলেন। ১৯৭২ এ মন্ত্রীসভায় গৃহীত যে সিদ্ধান্ত বলে ওই বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল তাতে পরিষ্কার বলা আছে- সরকার কোনো বিকল্প আবাসনের ব্যবস্থা না করে এই পরিবারকে এই বাসা থেকে উচ্ছেদ করতে পারবে না।’

 

‘কিন্তু বাস্তবতা এই যে, আগামী পরশু সোমবার ইচ্ছার বিরুদ্ধে অব্যাহত হুমকি ও চাপের মুখে একরাশ অপমান নিয়ে বিগত ৪৫ বছরের ঠিকানা থেকে আম্মাকে উচ্ছেদ হতে হচ্ছে। আমার আম্মার শেষ অনুরোধ হিসেবে গণপূর্তের যুগ্ম সচিব মর্যাদার একজন কর্মকর্তাকে সম্প্রতি বলেছিলেন, ‘এত অল্প সময়ের নোটিশে আমি কীভাবে বাসা খুঁজে পাবো? আমাকে সময়টা এক্সটেনশন করে দিন। উত্তরে ওই অফিসার বলেছেন, ‘কিছু খুঁজে না পেলে গাছ তলায় গিয়ে থাকেন।’

 

মহিউদ্দিন হায়দার বাংলাদেশ বেতারের রংপুর শাখায় চাকরি করতেন। তিনি কর্মরত অবস্থায় ১৯৭১ সালে শহীদ হন।

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2024
Design and developed By: Syl Service BD