1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৫:৫৯ অপরাহ্ন

উদ্ভোধনের ৩ বছর পরও কাজে অগ্রগতি নেই শ্রীহট্ট অর্থনেতিক অঞ্চলের

  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ২৭ এপ্রিল, ২০১৮
  • ৫৯১ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

মোঃ বায়েজিদ হোসেন ,মৌলভীবাজার সদর:

স্বাধীনতার  প্রায় ৪৭ বছর  কেটে গেলেও শিল্প খাতে বাংলাদেশে উল্লেখ যোগ্য উন্নয়ন সম্ভব  হয়নি ৷ ঢাকা ,চট্টগ্রাম,নারায়নগন্জ,সাভার ও গাজীপুরে অপরিকল্পিতভাবে কিছু শিল্প কারখানা গড়ে উঠলেও বাংলাদেশের  অর্থনীতি  মুলত কৃষি নির্ভর গ্রামীন অর্থনীতি  ও বৈদেশিক  রেমিটেন্সের উপর নিভর্রশীল ৷
অর্থনীতির এই দৈনদশা থেকে বের হয়ে আসার উদ্দেশ্যে সরকার  ২০৩০ সালের মধ্যে সারাদেশে ১০০টি পরিকল্পিত  অর্থনেতিক অঞ্চল সৃষ্টি ও এক কোটি নতুন কর্মসংস্থান তৈরীর উদ্যোগ গ্রহন করেছে ৷ প্রাথমিক ভাবে ৫৯ টি অঞ্চলের অনুমোদন মিলেছে তার মধ্যে প্রথম  দশটি অঞ্চল  মাননীয়  প্রধানমন্ত্রী গত ২০১৫ সালের ২৮ শে  ফেব্রুয়ারি একযোগে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্ভোধন করেন এর মধ্যে মৌলভীবাজারের শ্রীহট্ট অর্থনেতিক অঞ্চল একটি ৷
প্রাথমিক ভাবে অনুমোদন প্রাপ্ত ৬ টি বেসরকারী ভাবে এবং ৪টি সরকারী – বেসরকারী  যৌথ উদ্যোগে নির্মিত হবে ৷ এ অঞ্চল গুলো থেকে অতিরিক্ত  ৪ হাজার কোটি ডলার রপ্তানী  আয়ের সুযোগ  হবার কথা ৷

মৌলভীবাজারের শ্রীহট্ট অর্থনেতিক অঞ্চলের জন্য সরকারী -বেসরকারী মিলিয়ে মোট ৩৫২ একর জমি অধিগ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয় ৷ এ শিল্পাঞ্চলে সিরামিকস,টেক্সটাইল,গ্লাস তৈরী ও খাদ্য প্রক্রিয়াজাত করন প্রতিষ্ঠান তৈরীর জন্য জায়গা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে  ৷৩৫২  একর জায়গার মধ্যে জলাধার হিসাবে ১১২ একর এবং বাকি ২৪০ একর জায়গায় কলকারখানা  ও অবকাঠামো নির্মাণের জন্য বরাদ্দ রাখা হয়েছে ৷ বাংলাদেশ অর্থনেতিক অঞ্চল কতৃপক্ষ ( বেজা) ২০১৭ সালের জুলাই মাস পর্যন্ত আগ্রহী ১১ টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৫টি প্রতিষ্ঠানকে ২১২ একর জমি বরাদ্দ  দিয়েছে বলে জানা যায় ৷ এর মধ্যে বেশির ভাগ জমি  বরাদ্দ পেয়েছে পোশাক  খাতে শীর্ষ কোম্পানী  ডিবিএল ৷
বরাদ্দ  পাওয়া  অন্যান্য  কোম্পানী  গুলি  হল গ্রেটওয়াল সিরামিকস, পলমল গ্রুপের দুটি কোম্পানী  আয়েশা ক্লথিং ও আসওয়াদ কম্পোজিট মিলস এবং অনাবাসি ডাবল গ্লেজিং কোম্পানী ৷ বরাদ্দ পাওয়া  এই পাচটি কোম্পানী  মোট ১০ হাজার ৪০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে বলে জানা যায় ৷ শ্রীহট্ট অর্থনেতিক অঞ্চলে প্রায় ৩০ হাজার লোকের কর্মসংস্থান  হবে ৷ কিন্তু উদ্ভোধনের ৩ বছর পেরিয়ে গেলেও তেমন কোন কার্যক্রম দেখা যাচ্ছে না ফলে ২০৩০ সালের মধ্যে যে লক্ষ্য পুরণের জন্য প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছিল তা পুরন  করা প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ছে ৷ জমি অধিগ্রহণ প্রায় শেষ হয়ে গেলেও চোখে পড়ছে না কোন অবকাঠামো গত উন্নয়ন ৷ জমি অধিগ্রহণ নিয়েও রয়েছে দুর্নীতি সহ বিভিন্ন অভিযোগ ৷
জানা যায় জমি বরাদ্দ পাওয়া কোম্পানী গুলি  বালি ভরাটের চেষ্টা করলেও নানা জটিলতায় সম্ভব হচ্ছে না ৷ ২০১৭ সালের মার্চের দিকে কুশিয়ারা থেকে বালি উত্তোলন শুরু করে তালুকদার এন্টারপ্রাইজ নামক একটি বালি ভরাটের কাজে নিয়োজিত প্রতিষ্ঠান  ৷ কিন্তু নদী ভাঙনের কারনে বালি উত্তোলন বন্ধ হয়ে যায় বলে স্থানীয় সুত্রে জানা যায়  ৷
পরে মেহেদী  ট্রেডার্স নামক অপর একটি প্রতিষ্ঠান  বালি উত্তোলন শুরু করলে উতপ্ত পরিস্থিতি রুপ নেয় যা পরে কোর্ট  পর্যন্ত গড়ায় এবং কোর্টের স্থগিতাদেশের কারনে বালি ভরাট বন্ধ হয়ে যায় ৷ কোর্টের স্থগিতাদেশ কে উপেক্ষা করে মাঝে মাঝে বালি তোলার চেষ্টা করে মেহেদী ট্রেডার্স  বলেও জানা যায় ৷ যা বিভিন্ন সময়ে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বন্ধ হয় ৷
একবার অভিযান চালিয়ে ৭/৮ জন শ্রমিককে গ্রেফতার  করা হয় বলে নবীগন্জ  ভুমি অফিস থেকে জানা যায় ৷তারপর ও মাঝে মাঝে বালি উত্তোলন করার চেষ্টা করলে এলাকা বাসী ও প্রশাসনের বাধার মুখে পন্ড হচ্ছে মুখ থুবরে পড়েছে শ্রীহট্ট অর্থনেতিক অঞ্চলের অবকাঠামো গত উন্নয়ন  ৷ কতদিনে এ সমস্যার সমাধান হবে এ ব্যাপারে  জানাতে পারেনি কেউ ৷ ফলে দিনে দিনে  হতাশা বাড়ছে বিনিয়োগ কারী কোম্পানী গুলোর ৷ ইতিমধ্যে সবচেয়ে বড় বিনিয়োগ কারী প্রতিষ্ঠান  ডিবিএল তাদের কার্যক্রম  আপাতত স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে একটি বিশ্বস্ত  সুত্র থেকে থেকে জানা যায় ৷ ফলে প্রধানমন্ত্রীর নেওয়া   এ পরিকল্পনা  কবে নাগাদ আলোর মুখ দেখবে তা বলা মুশকিল ৷
ঢাকা সিলেট মহাসড়ক সংলগ্ন  প্রস্তাবিত সম্ভাবনাময় এই  অর্থনেতিক অঞ্চল কে কেন্দ্র করে  এলাকার মানুষ যে স্বপ্ন দেখছিল আজ তারা হতাশ ৷ ইতিমধ্যে গ্যাস সংযোগ ও বৈদুতিক সংযোগের  কাজ শুরু হয়েছে ৷ বিদ্যুৎ ব্যবস্থা নিরবিছিন্ন রাখার জন্য সাব স্টেশন  নির্মানের কাজ চলছে ৷ কিন্তু মুল অবকাঠামো উন্নয়নের কোন তৎপরতা দেখা যাচ্ছে না ৷
স্থানীয়দের সাথে আলাপ করে জানা যায় অনেক গোপন তথ্য ৷জমি অধিগ্রহণে হয়েছে  নানা দুর্নীতি ৷ জমির দাম নিয়ে হয়েছে বিভিন্ন  রকমফের ৷বালি ভরাট নিয়েও চলছে ষড়যন্ত্র ৷ ফলে শ্রীহট্ট অর্থনেতিক অঞ্চলের উন্নয়ন কাজে কোন গতি আসছে না বলে মনে করেন এলাকাবাসী ৷
 তাদের জোরালো দাবী অতি সত্তর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করে সকল সমস্যা  সমাধান করে দ্রুত শ্রীহট্ট অর্থনেতিক অঞ্চলের কাজ শুরু করা  হোক ৷

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD