1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ০৬:৪৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
রানীগঞ্জ সেতুতে কিশোর গ্যাং, টিকটকার ও বখাটেদের বিরুদ্ধে অ্যাকশনে পুলিশ কানাইঘাটের জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে জেলা পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান নাসির খানের মতবিনিময় সভা শাকিব-বুবলীর বিয়ে হয় নারায়ণগঞ্জে, ‘তাদের বিচ্ছেদ হয়নি’ কানাইঘাটে বিজিবির ধাওয়ায় ভারতীয় নাসির বিড়ি বোঝাই পিকআপ উল্টে তুলকালাম কান্ড ॥ গ্রেফতার ২ সুনামগঞ্জে এক সাংবাদিকের উপর ২য় দফা হামলা : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা কানাইঘাটে আর্ন্তজাতিক তথ্য অধিকার দিবস উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা দেশে আসলেন জগন্নাথপুরের মাউন্ট এভারেস্ট বিজয়ী আকি রহমান সুনামগঞ্জে জয়াসেন মানিক রতন ও ইমনের উদ্যোগে শেখ হাসিনার জন্মদিন পালিত ওসমানীনগরে এলজিইডির উদ্যোগে কমিউনিটি সড়ক নিরাপত্তা গ্রুপের সভা দিরাইয়ে কর্মী সমাবেশে ড.জয়া সেনগুপ্তা : সম্প্রীতি আর একতাই অগ্রগতি ও উন্নয়নের পথকে সুগম করে

ফের ডুববে ঢাকা, জলাবদ্ধতা নিরসনে নেই কার্যকর উদ্যোগ

  • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ২৪ এপ্রিল, ২০১৮
  • ১০২০ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

 

আগামী বর্ষা মৌসুমেও রাজধানীতে জলাবদ্ধতা থাকবে, এমন আশঙ্কা করছে ঢাকা পানি সরবরাহ ও পয়ঃনিষ্কাশন কর্তৃপক্ষ (ওয়াসা)। তবুও জলাবদ্ধতা নিরসনে কিছুটা উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এ মৌসুমে রাজধানীর জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য সাড়ে ৫ কোটি টাকার প্রকল্প হাতে নিয়েছে এই সেবা প্রতিষ্ঠানটি।

শুধু ড্রেন পরিষ্কারের মাধ্যমে এবার জলাবদ্ধতা নিরসনের উদ্যোগ নিয়েছে ওয়াসা। তবে কী পরিমাণ ড্রেন পরিষ্কার করা হয়েছে, তার হিসাব দিতে এড়িয়ে গেছেন ওয়াসার প্রধান প্রকৌশলী মো. কামরুল হাসান।জলাবদ্ধতা নিরসনে ওয়াসা কী ধরনের উদ্যোগ নিয়েছে, তা জানার জন্য প্রধান প্রকৌশলী মো. কামরুল হাসানের অফিস কক্ষে যোগাযোগ করা হলে তিনি মিটিংয়ের কথা বলে এড়িয়ে যান।

এদিকে, ওয়াসার জনসংযোগ শাখা থেকে জানা যায়, জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য সাড়ে ৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ড্রেন পরিষ্কার করা হচ্ছে। এর বাইরে আর কোনো উদ্যোগ নেই দায়িত্বে থাকা সেবা সংস্থাটির।

 

এদিকে, নাগরিক দুর্ভোগ কমানোর জন্য ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন ভিন্নভাবে কাজ করছে।

এ বিষয়ে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপক কমোডোর আব্দুর রাজ্জাক বলেন, এবার সব থেকে ঝুঁকিপূর্ণ ড্রেন পরিষ্কার করার উদ্যোগ নিয়েছি। নিজস্ব ৩৯১ জন ক্লিনার দিয়ে সকল জয়েন্ট পয়েন্ট পরিষ্কার করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তারা ড্রেনের ভেতরের ময়লা পরিষ্কার করবে। এছাড়া মন্ত্রণালয় থেকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে, হটলাইন চালু করতে হবে, পাশাপাশি দ্রুত পানি নামানোর জন্য টিম গঠন করা।

তিনি বলেন, যতটুকু সম্ভব জলাবদ্ধতা কমানোর চেষ্টা করবো। ৩ ঘণ্টার অধিক সময় পানি জমে না থাকলে জলাবদ্ধতা বলা যাবে না, বলেন তিনি।

ঢাকা উত্তর সিটি এলাকার জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য ৫ কোটি টাকা দিয়ে ৫৮ কিলোমিটার ড্রেন পরিষ্কার করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

এদিকে, বৈশাখের বৃষ্টিতে রাজধানীর একাধিক সড়কে পানি জমে যাচ্ছে। কিছু কিছু এলাকার পানি নামছে না। রাস্তার এক পাশ দিয়ে জমে থাকে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে এই কর্মকর্তা বলেন, পানি জমে থাকলে ড্রেনের মুখ খোলা ছাড়া আর কোনো কাজ নেই আমাদের।

জলাবদ্ধতার জন্য নাগরিকরা অনেকাংশে দায়ী এমন কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, শহরের মানুষ যে গতিতে ড্রেন ভড়াট করে, সেই অনুপাতে ড্রেন পরিষ্কার করা সম্ভব নয়। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে যেসব ড্রেন পরিষ্কার করা হয়েছে তা ইট, বালুতে ভরে গেছে বর্ষা শেষ হবার আগে।

একই কথা জানান ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) অতিরিক্ত প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপক খন্দকার মিল্লাতুল ইসলাম।তিনি জানান, আমরা কাজ করে যাচ্ছি। দুটি সাকার মেশিন কিনেছি। তবুও ড্রেন পরিষ্কার করতে সমস্যা হচ্ছে।

বর্ষা মৌসুমের কথা বিবেচনা না করে সারা বছর ড্রেন পরিষ্কারের কাজ করছে ডিএসসিসি।এদিকে, দুই সিটি করপোরেশন বলছে জলাবদ্ধতা নিরসনের মূল দায়িত্ব ঢাকা ওয়াসার।

তবে জলাবদ্ধতা নিরসন কোনোভাবে সম্ভব নয় বলে জানিয়েছেন ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী তাকসিম এ খান।জলাবদ্ধতা কমানো সম্ভব কেন নয়- তার পেছনে একাধিক যুক্তি দেখিয়েছেন ওয়াসার এই কর্মকর্তা।

তিনি জানান, মূলত ১২ শতাংশ জলাভূমি থাকার স্থানে ২ শতাংশ জলাভূমি রয়েছে রাজধানীতে। শহরের অধিকাংশ মাটি কার্পেটিং করা হয়েছে এবং শহরের নিম্নাঞ্চল ভূমিদস্যুদের দখলে চলে গেছে।

এসব কারণে ঢাকার জলাবদ্ধতা নিরসন করা অসম্ভব হয়ে ওঠেছে এমন কথা উল্লেখ করে ওয়াসার এই কর্মকর্তা নিজেই প্রশ্ন তুলেছেন, খাল কেন নেই এর জবাব কে দেবে? ঢাকায় ৬৫টি খাল ছিলো, ৪টি নদী ছিলো তার উত্তর কে দেবে?

তাকসিম বলেন, আগামী বর্ষা মৌসুমে মুষলধরে বৃষ্টি না হয়ে টিপটিপ বৃষ্টি ১০ দিন ধরে পড়লে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হবে না। তবে কয়েক ঘণ্টা মুষলধরে বৃষ্টি হলে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হবে। তবে ৩ ঘণ্টার মধ্যে তা নিরসন করা সম্ভব হবে।

ড্রেন পরিষ্কারের মাধ্যমে জলাবদ্ধতা নিরসন কতটুকু কার্যকর হবে এ বিষয়ে নগর পরিকল্পনাবিদ স্থাপতি ইকবাল হাবিব বলেন, একই জিনিস বারবার আসছে। উদ্যোগ না নিয়ে জনসম্পৃক্ততা না করে শুধু নিরসনের কথা বলে জনগণের সাথে প্রহসন করছে সেবা সংস্থাগুলো।

তিনি জানান, গত বছরে জুলাইয়ে মেয়র আনিসুল হকের সমন্বয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী একটা উদ্যোগ নিয়েছিলেন। সেখানে রাজউক, ওয়াসা ও সিটি করপোরেশনের সমন্বয়ে এবং জেলা প্রশাসকের সহায়তায় একটা সমন্বিত কর্ম উদ্যোগ নেয়ার কথা ছিল। কিন্তু তা করা হয় নাই। প্রতিটি সেবা সংস্থার নিজ নিজ কাজের সমন্বয় করার কথা ছিল, তাও হয় নাই। কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনার বাস্তব ধর্মী সমাধান করার কথা ছিলো, হয়নি।

তিনি আরো জানান, জনগণকে সম্পৃক্ত করার কথা ছিল। সিটি করপোরেশনকে আইনগত দায়িত্ব দেয়ার কথা ছিল, কিছু হয় নাই।তিনি বলেন, গত বছরের তুলনায় এ বছর জলাবদ্ধতা আরো ভয়াবহ হবে। এর কারণ আবহাওয়াবিদরা বলছেন, এ বছর বৃষ্টি বেশি হবে।

জলাবদ্ধতায় এ বছর জনদুর্ভোগ অনেক বেশি হবার আশঙ্কা করছেন এই নগরবিদ। তার মতে মেট্রোরেল ও এলিভেটেড প্রকল্পের কারণ।সেবা সংস্থাগুলো বাস্তবধর্মী কাজ হাতে না নিলে কোনো ধরনের জলাবদ্ধতা দূর হবে না। আর সেই পথে চলতে পারছে না সেবা সংস্থাগুলো, বলেন এই বিশেষজ্ঞ।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD