1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৪:১০ অপরাহ্ন

জামালগঞ্জে বাঁশ দিয়ে বাড়ির পথ আটকে দেয় চাচা

  • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ২৪ এপ্রিল, ২০১৮
  • ১২৯৯ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

মাথা নিচু করে স্কুলে আসা-যাওয়া করে ভাতিজা শিশু শিক্ষাথী তানভির

সুনামগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি::

৭ বছরের শিশু তানভির। সুকদেবপুর আইডিয়াল কিন্ডারগার্টেন এর স্ট্যান্ডার ওয়ান এর ছাত্র। সে প্রতিদিন বাড়ীর সামনে বাঁশের বেড়ার নীচ দিয়ে মাথা নিচু করে স্কুলে আসা যাওয়া করে।  এভাবে স্কুলে আসা যাওয়া তার নিয়মে পরিণত হয়েছে। এলাকার লোকজন শিশু তানভিরের এ রকম স্কুলে  যাতায়াত করায় বিষয়টিকে অমানবিক হিসেবে চোখে দেখছেন। তানভিরের বাড়ি জামালগঞ্জ উপজেলার সাচনাবাজার ইউনিয়নের সুকদেবপুর গ্রামে।

 

বাড়ির সামনে বাঁশের বেড়া দিয়ে পথ আটকে দেয়ার কারণ হিসেবে জানা যায়, ২০০৯ সালে তানভিরের প্রবাসী পিতা মনকুস আলী তার চাচাতো ভাই দিলসাদের কাছ থেকে ৬ শতক বাড়ী রকম ভূমি খরিদ করেন। এর পরেই শুরু করেন বাড়ি নির্মাণের কাজ। বাড়ি নির্মাণ শেষ হলেও ভূমির কবালা সম্পাদন করে দেননি চাচাতো ভাই দিলসাদ। এ বিষয়ে দিলসাদকে কবালা সম্পাদনের কথা বলা হলে তিনি অতিরিক্ত আরো দেড় লাখ টাকা দাবী করে বসেন। মনকুস আলী অতিরিক্ত টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করায় তার পরিবারের উপর নেমে আসে অমানবিক আচরণ। এবং দিলসাদ মিয়া আরো বেপোরোয়া হয়ে বাড়িতে লাগানো শীতকালিন সবজি গাছ কর্তন করে ফেলেন।

 

বাড়ির গেইটের সামনে বাঁশের বেড়া দিয়ে আসা যাওয়ার রাস্তা আটকে দেন। এ পথ দিয়েই শিশু তানভির ও তার পরিবার মাথা নিচু করে আসা যাওয়া করেন। প্রবাসী মনকুস আলী জানান, আমার বাড়িতে কোন পুরুষ নেই। স্ত্রী, ২ সন্তান ও মা বাড়িতে থাকেন। দিলসাদ মিয়া আমার স্ত্রীকে অতিরিক্ত টাকা দিতে চাপ অব্যাহত রেখেছেন। টাকা না দেয়ায় বাড়ির সামনে বেড়া দিয়ে আমাদের যাতায়াতের রাস্তা আটকে দিয়েছে। এদিকে বাড়িটি পুরুষ শূন্য হওয়ায় যে কোন সময় অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটার শঙ্কা প্রকাশ করছেন মনকুস।

 

শিশু তানভির কেঁদে কেঁদে বলেন, বাবা বিদেশে থাকেন চাচা জোর করে আমাদের পথ আটকিয়ে দিয়েছেন। প্রতিদিন এ ভাবে স্কুলে যেতে আমার লজ¦া হয়। মা ভয়ে প্রতিবাদ করেন না। আমরা এসব অপকর্ম থেকে মুক্তি চাই। এ ব্যাপারে  দিলসাদের সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে তার মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। এদিকে প্রতিকার চেয়ে  আইনী ব্যবস্থা নিতে প্রস্তুতি নিচ্ছেন মনকুস।

 

ইউপি সদস্য ফারুক মিয়া জানান, আমার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সঠিক নয়। আমার জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে এসব অভিযোগ তুলা হচ্ছে। প্রকৃত বিষয় হচ্ছে দিলশাদ ও মনকুশের জায়গা সংক্রান্ত বিরোধ এটি।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জিএস/জুয়েল

 

 

 

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD