1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
বুধবার, ২৯ নভেম্বর ২০২৩, ১০:৪১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
মাদক ও নেশা জাতীয় দ্রব্যেয়ের অপব্যবহার রোধকল্পে আলোচনা সভা জগন্নাথপুরে “ধনিয়া টাইগার ইকড়ছই” এর জার্সি উন্মোচন ২০২৩-২০২৪ অনুষ্ঠিত হবিগঞ্জ-১ আসনের সাবেক এমপি আব্দুল মোছাব্বির এঁর ৫ম মৃত্যু বার্ষিকী চেয়ারম্যান আব্দুল বাছির স্মরণে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল সুনামগঞ্জ ৩আসনে ৪র্থবারের মতো নৌকার মাঝি হলেন এমএ মান্নান কোম্পানীগঞ্জে সাজাপ্রাপ্ত দুই আসামি গ্রেপ্তার কানাইঘাটে অগ্নিকান্ডে প্রবাসীর বসত ঘর পুড়ে ছাই ১৫ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি সাধিত কোম্পানীগঞ্জে চেয়ারম্যান আব্দুল বাছির স্মরণে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল জগন্নাথপুরে শনিবার বিদ্যুৎ থাকবে না সকাল ৭টা ৩০ মিনিট থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত বীর মুক্তিযোদ্ধা ইছাক আলীর ইন্তেকাল

সম্ভাবনাময় পর্যটন শিল্প ও করণীয়

  • আপডেটের সময় : রবিবার, ২২ এপ্রিল, ২০১৮
  • ১৩৪৩ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
মোঃ বায়েজিদ হোসেন::

১৯ এপ্রিল  শুরু  হয়ে পর্যটন মেলা ২১ এপ্রিলে  শেষ হল ৷ কিন্তু কতটুকু  লাভবান হবে পর্যটন  খাত ? প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যের অপরুপ লীলাভূমি এবং ইতিহাস ঐতিহ্যের তীর্থ ভুমি বাংলাদেশ পর্যটন শিল্পের অপার সম্ভাবনার দেশ ৷ পাহাড়  নদী  সাগর  চা-বাগান বনাঞ্চল প্রাচীন স্থাপত্যকলার রাজবাড়ি মসজিদ মন্দির দুর্গ সহ রয়েছে অসংখ্য পর্যটন আর্কষন কিন্তু পর্যাপ্ত অবকাঠামো গত উন্নয়নের অভাবে সম্ভাবনাময় এই খাত থেকে পর্যাপ্ত রাজস্ব আদায় হচ্ছে না ৷ কয়েক বছর যাবৎ পর্যটন খাতে ব্যাপক উন্নয়নের কথা বলা হলেও বাস্তব ক্ষেত্রে তা প্রয়োজনের তুলনায় খুবই কম বলে মতামত দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা  ৷ আবার বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্র গুলির অবকাঠামো গত উন্নয়ন হলেও সঠিক ব্যবস্থাপনা ও রক্ষনাবেক্ষণের অভাবে অল্প দিনেই শ্রী হীন হয়ে পড়ছে ফলে হতাশ হচ্ছেন ঘুরতে আসা পর্যটকেরা এবং গুরুত্ব হারাচ্ছে এসব পর্যটন কেন্দ্র গুলি ৷

পর্যাপ্ত লোকবলের  অভাব ,দর্শনার্থীদের অসচেতনতা ও রক্ষনাবেক্ষণ কারীদের দায়িত্বহীনতার কারণে এই খাত থেকে কাংখিত সফলতা পাওয়া যাচ্ছে না বলে মনে করেন অনেকেই ৷ বিগত কয়েক বছর পর্যটন খাতে  রাজস্বের দিকে লক্ষ করলে দেখা যায় গত ২০১০-২০১৪ সাল পর্যন্ত প্রায় ৪১০০ কোটি টাকার রাজস্ব আদায় হয়েছে পর্যটন খাত হতে ৷ যা জিডিপি তে বিশেষ অবদান রেখেছে ৷গত ২০১৬ সালে বাংলাদেশের বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্র গুলিতে প্রায় ৯৮ লক্ষ দেশি  বিদেশি পর্যটক ভ্রমন করেছে   এবং সরকার এ খাত হতে  রাজস্ব পেয়েছে ৷ সরকার ২০১৬-২০১৮ পর্যন্ত এই তিন বছরকে পর্যটন বর্ষ ঘোষণা করেছে এবং নানা উদ্যোগ ও পরিকল্পনা গ্রহন করেছে ৷ কিন্তু সেই কাজের গতি  আশানুরুপ হচ্ছে না বলে মতামত দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা ৷বর্তমানে বাংলাদেশের  জিডিপিতে পর্যটনের অবদান ২ দশমিক ১ শতাংশ  এবং পর্যটন শিল্পের সাথে প্রায় ৩০ লক্ষ মানুষ সম্পৃক্ত যা বেকারত্ব দুরীকরনে বিশেষ ভুমিকা রাখছে ৷ আমাদের প্রতিবেশি কয়েকটি দেশ সহ বিশ্বের বেশ কিছু  দেশ পর্যটন শিল্পের উপর নিভর্রশীল ৷আমাদের প্রতিবেশি দেশ ভারত  নেপাল ও ভুটানের  মত  পর্যটন  খাতে  অবকাঠামো গত উন্নয়ন করতে পারলে জিডিপিতে আরো জোরালো  ভুমিকা রাখবে এবং আরো অনেক  নতুন নতুন কর্মস্থান সৃষ্টি হবে  বেকারত্বের  হার কমবে৷ কর্পোরেট সামাজিক  দায়বদ্ধতার (সিএসআর ) অংশ  হিসাবে ব্যাংক ও আর্থিক খাতের প্রতিষ্ঠান গুলো যে অর্থ ব্যয় করে তার সিংহ ভাগ যদি পর্যটন খাতে ব্যয় করা হলে  এই  খাতে ব্যাপক উন্নয়ন করা  সম্ভব  ৷ সিএসআর  এর  অর্থ যদি পর্যটন কেন্দ্র গুলিতে  অবকাঠামো উন্নয়ন করা  হয় তবে এটি  হবে বাংলাদেশের  সবচেয়ে উল্লেখ যোগ্য রাজস্ব খাত ৷ বাংলাদেশ ব্যাংকের এক প্রতিবেদন অনুযায়ী  গত জুলাই -ডিসেম্বর সময়ে শুধুমাত্র  ব্যাংক গুলোই ব্যয় করেছে ৪১৭ কোটি ৭৭ লক্ষ টাকা ৷ এই বিপুল পরিমান  অর্থের সিংহ ভাগ যদি পর্যটন খাতে  ব্যয় করা  যায়  তাহলে পর্যটন খাতে প্রচুর উন্নয়ন  করা সম্ভব ৷
বাংলাদেশের  আনাচে কানাচে যে সকল প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য ও ঐতিহাসিক নিদর্শন রয়েছে  তা খুজে বের করে যদি পর্যটন খাতে যোগ করা হয়  তবে অসংখ্য নতুন নতুন পর্যটন কেন্দ্র তৈরি হবে ৷ ফলে সৃষ্টি হবে অতিরিক্ত দর্শনার্থী এবং উপার্জিত হবে অতিরিক্ত রাজস্ব ৷
অবকাঠামো গত উন্নয়নের অভাব, যাতায়াত  ও   নিরাপত্তা সহ নানাবিধ কারনে পর্যটক কমতে শুরু  করেছিল যা বাংলাদেশের পর্যটন  শিল্প তথা জিডিপির  জন্য অশনি সংকেত ৷
তাই অতি সত্তর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করে পর্যটন শিল্পকে রক্ষা করা প্রয়োজন  তবে আশার বিষয় এটাই  যে  সাম্প্রতিক  সময়ে সিলেট অঞ্চল সহ বাংলাদেশের বিভিন্ন  পর্যটন কেন্দ্র গুলোতে পর্যটক দের আগ্রহ দেখা যাচ্ছে  ৷
পর্যটন শিল্পকে উন্নত করতে অবকাঠামো ,যোগাযোগ ও নিরাপত্তার পাশাপাশি আরো কিছু করা দরকার যা পর্যটকদের জন্য বেশি প্রয়োজন  ৷
উদাহরণ  স্বরূপ  বলা যায় বাংলাদেশের  বেশির ভাগ পর্যটন  কেন্দ্র গুলিতে  স্থানীয়  সিন্ডিকেট ও লোকাল গাইডদের দ্বারা প্রতারিত হন পর্যটন  কেন্দ্র গুলিতে  সঠিক ভাবে দেখতে পারেন না ফলে  পর্যটকেরা হতাশ হন এবং পর্যটন কেন্দ্র গুলির ব্যাপারে নেতিবাচক  ধারনা সৃষ্টি  হয় ৷ এ ব্যাপারে পর্যটন  কর্পোরেশনের নজর দেওয়া প্রয়োজন ৷ লোকাল গাইড ও সিন্ডিকেট গুলোর প্রয়োজনীয়  প্রশিক্ষণ  ও অন্যান্য  বিষয় গুলি অবহিত করলে ভাল ফল  পাওয়া  যাবে বলে আশা করা যায় ৷
তাছাড়া  ও দেশের সকল  পর্যটন কেন্দ্র গুলির হাল নাগাদকৃত তথ্য উপাত্ত নিয়ে একটি তথ্য কোষ তৈরী  করা  যেতে  পারে  যা থেকে পর্যটকেরা যাতায়াত  ,থাকা -খাওয়া ও ভ্রমনের সকল তথ্য  সংগ্রহ  করে নির্বিঘ্নে ভ্রমন করতে পারবে ৷ ফলে পর্যটন শিল্পে বৈপ্লবিক  পরির্বতন আসবে বলে আশা  পোষণ করা যায় ৷

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD