1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ০৪:৫৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
জগন্নাথপুরে পিআইসি কমিটি গঠনে গণশুনানী নবীগঞ্জে অপহরণের দেড় বছর পর প্রেমিক জুটিকে র‌্যাব ও পুলিশ ফাঁদ পেতে জামালপুর থেকে আটক করেছে  মৌলভীবাজারে খাদ্য পণ্যে নিষিদ্ধ দ্রব্যের মিশ্রণ বন্ধে মাঠে নেমেছে ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তর চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের নতুন কমিটি অনুমোদন হওয়ায় আনন্দ মিছিল বিএমএসএস সিলেট বিভাগীয় সম্মেলন সম্পন্ন বিভাগীয় কমিটি ঘোষণা জগন্নাথপুরে অজু করতে গিয়ে পানি ডুবে তরুণের মৃত্যু নবীগঞ্জের ঘোলডুবা এম.সি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে প্রাণনাশের হুমকি দিলেন সাবেক সভাপতি সাজ্জাদুর রহমান চৌধুরী-থানায় জিডি !!  জগন্নাথপুরে দুই রেস্টুরেন্টকে অর্থদণ্ড ৬ ডিসেম্বর বাউল কামাল পাশার ১২১তম জন্মবার্ষিকী কানাইঘাট সদর ইউপি চেয়ারম্যান আফসর রোটারী ক্লাব অব সিলেট সেন্ট্রালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত

শ্রমিক সংকটে দক্ষিণ সুনামগঞ্জের কৃষকরা

  • আপডেটের সময় : রবিবার, ২২ এপ্রিল, ২০১৮
  • ১১৪৩ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

সুনামগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি::

বৈশাখী কাজের পুরো ধুম পড়েছে। কাজের জন্য দম ফেলবার ফুসরত নেই দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার সাধারণ কৃষকদের। চারদিকে শুধু কাজ আর কাজ। এমন অবস্থায় ধান কাটার জন্য শ্রমিকের সংকট প্রকট আকার ধারণ করেছে। ৫শ টাকা দৈনিক শ্রমমূল্যেও মিলছে না ধান কাটার শ্রমিক। এ নিয়ে বেশ দুশ্চিন্তায় আছেন সাধারণ কৃষকেরা।

গত মৌসুমগুলোতে ধারাবাহিক ধান হারানোয় মানুষ কিছুটা শংকিত ছিলো এ বছর। কিন্তু ফলন ভালো হওয়ায় খুশি কৃষক সমাজ। সে খুশি যেনো আর স্থায়ী থাকতে চাইছে না। এ উপজেলায় ধান কাটার শ্রমিক সংকটে পরেছেন দেখার হাওর, জামখলার হাওর, সীচনীর দক্ষিণের হাওর, কাচিভাঙার হাওর, ডাবরের ডুকলাখাই, শালদিঘার হাওরসহ ছোটবড় হাওরের হাজার হাজার কৃষক। যাদের পাওয়া যাচ্ছে তাদেরও আবার শ্রমমূল্য অনেক বেশি। তাই অনেক কৃষকই নিজেদের জমিতে নেমে নিজেরাই ধান কাটা শুরু করেছেন। গতকাল রবিবারে সাধারণ কৃষকদের সাথে আলাপ করে জানা যায়, চারদিকে ধান কাটা শুরু হয়েছে। তাই শ্রমিকের এতো সংকট দেখা দিয়েছে।

বেশি মূল্য দিয়েও শ্রমিক মিলছে না। অন্যান্য বছর বাহির থেকে শ্রমিক আসলেও এ বছর শ্রমিক আসেনি। শ্রমিকের এতোই সংকট যে, অগ্রিম ৫শ টাকা জমা দিয়েও চাহিদা অনুযায়ী শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছেনা। কৃষকরা জানান, সোনার ফসল মাঠে পেকেছে। এটা আনন্দের বিষয়। কিন্তু তারা খুশি হতে পারছেন না। প্রতি মণ ধানের দাম ৬শ টাকা। একজন শ্রমিকের মজুরি ৫শ টাকা। তাই কৃষকরা তাদের জমি থেকে বেশি লাভবান হতে পারছেন না। তবু তারা চান, যদি নিয়মিত ধান কাটার শ্রমিক পাওয়া যেতো তাহলে তাদের ধান তারা কাটিয়ে ঘরে নিতে পারেন। কিন্তু সেটাও হচ্ছে না।

এ নিয়ে গভীর উদ্বেগের মাঝে আছেন এ উপজেলার সাধারণ কৃষকেরা। দক্ষিণ সুনামগঞ্জের শিমুলবাঁক ইউনিয়নের কৃষক সন্তান ছালেহ্ আহমদ বলেন, ‘শ্রমিক সংকট চরম আকার ধারণ করেছে। ৪শ ৫শ টাকায়ও ধান কাটার শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছেনা। আমাদের পাকা ধান জমিতে নষ্ট হতে পারে। এ নিয়ে চিন্তিত আছি।’ আবদুল খালিক বলেন, ‘নাইয়্যা নাই। নিজে কাটেরাম। যা পাওয়া যায়রো তাও ৫শ টাকা রোজ। ইতা রোজে ধান কাটাইলে আমার ফর্তায় পোষতো নাই। তাই নিজেও কাটিলেরাম।’পূর্ব পাগলার আলমপুরের আনিছ মিয়া বলেন, ‘কাউটরা নাইরে বাবা। ধান তো ঝইরা পরি যায়রো। খুব টেনশনে আছি।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জিএস/জুয়েল

 

 

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD