1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ০৩:১৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
জগন্নাথপুরে পিআইসি কমিটি গঠনে গণশুনানী নবীগঞ্জে অপহরণের দেড় বছর পর প্রেমিক জুটিকে র‌্যাব ও পুলিশ ফাঁদ পেতে জামালপুর থেকে আটক করেছে  মৌলভীবাজারে খাদ্য পণ্যে নিষিদ্ধ দ্রব্যের মিশ্রণ বন্ধে মাঠে নেমেছে ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তর চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের নতুন কমিটি অনুমোদন হওয়ায় আনন্দ মিছিল বিএমএসএস সিলেট বিভাগীয় সম্মেলন সম্পন্ন বিভাগীয় কমিটি ঘোষণা জগন্নাথপুরে অজু করতে গিয়ে পানি ডুবে তরুণের মৃত্যু নবীগঞ্জের ঘোলডুবা এম.সি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে প্রাণনাশের হুমকি দিলেন সাবেক সভাপতি সাজ্জাদুর রহমান চৌধুরী-থানায় জিডি !!  জগন্নাথপুরে দুই রেস্টুরেন্টকে অর্থদণ্ড ৬ ডিসেম্বর বাউল কামাল পাশার ১২১তম জন্মবার্ষিকী কানাইঘাট সদর ইউপি চেয়ারম্যান আফসর রোটারী ক্লাব অব সিলেট সেন্ট্রালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত

নবীগঞ্জ ধানকাটা শ্রমিক সংকট, বিপাকে কৃষকরা: মেঘ দেখলেই বুক ধরপর

  • আপডেটের সময় : রবিবার, ২২ এপ্রিল, ২০১৮
  • ১০৯৮ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

মতিউর রহমান মুন্না, নবীগঞ্জ থেকে::

হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জে ধানকাটা শ্রমিক সংকট দেখা দিয়েছে। এদিকে কিছুদিন ধরে আকাশে মেঘের আনাগোনা শুরু হয়েছে। এ-দু’য়ে মিলে কৃষকরা অজানা আতঙ্কে ভুগছেন। গেল বছর অকাল বন্যায় ফসল হারানোর ফলে এবছর সামান্য মেঘলা আকাশেই কৃষকদের বুক ধরপর করে উঠছে। ঘর পোড়া গরু সিঁদুরে মেঘ দেখলে যেমন ভয় পায়, কৃষকদের অবস্থাও অনেকটা তেমনি।

 

হাওরে যেদিকে তাকানো যায় পাকা ফসলের সোনালী আভা চোখ জুড়ায়। কৃষকরা আশায় বুক বেধে আছেন। ভালোয় ভালোয় ফসল গোলায় তুলতে পারলে গেল বছরের ক্ষতি কিছুটা হলেও পুষিয়ে নিতে পারেবন বলে মনে করছেন কৃষকরা। বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ও খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নবীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন হাওরে চলতি বৈশাখ মাসের শুরু থেকে ধান কাটা শুরু হলেও এখনো ২০ থেকে ৩০ শতাংশের বেশি জমির ধান কাটা হয়নি। স্থানীয় কৃষকেরা বলেন, মাঠের ধান পেকে গেছে। কিন্তু শ্রমিকের অভাবে তাঁরা ধান কাটতে পারছেন না।

 

বিশেষ করে মকার হাওর, গুঙ্গিয়াজুরি হাওর, গুমগুমিয়া, রমজানপুর, বেরী বিল, দীঘলবাক হাওরসহ বিভিন্ন হাওরে যেসব কৃষক বোরো ধান আবাদ করেছেন, তাঁরা সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছেন। কারণ, সামান্য বৃষ্টিতেই অনেক স্থানে জলাবদ্ধতায় ধান ডুবে যায়। কিছুদিন ধরে আকাশে মেঘের আনাগোনা দেখে শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন তাঁরা। আতঙ্কে রয়েছেন শিলা বৃষ্টির কারনেও। করগাঁও ইউনিয়নের পাঞ্জারাই গ্রামের কৃষক সুজন মিয়া জানান, গুমগুমিয়া হাওরে এ বছর জমিতে বোরো ধানের ফলন ভাল হয়েছে। এর মধ্যে প্রায় ৩০ ভাগ ধান কাটতে পেরেছি। শ্রমিক না পাওয়ায় এখনো ৭০ ভাগ জমির ধান মাঠে পড়ে আছে। এছাড়া প্রাকৃতিক দুর্যোগের আতঙ্ক রয়েছে।

 

মকার হাওর এলাকার বেশ কয়েকজন কৃষকের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, অন্যান্য বছর ধানকাটা শ্রমিকদের মোট ধানের ৭-৮ শতাংশ দিলেই হতো। এতে প্রতি বিঘা জমির ধান কাটা বাবদ খরচ পড়ত প্রায় দেড় হাজার টাকা করে। কিন্তু এবার প্রতি বিঘা জমিতে ধান কাটতে প্রায় আড়াই হাজার টাকা খরচ হচ্ছে। দত্তগ্রামের গ্রামের কৃষক সাহেদ মিয়া, রাজাবাদ গ্রামের শামীম আহমদ, আব্দুল হাই ঝান্টু প্রমুখ। তাঁরা বলেন, শ্রমিক না পাওয়ায় তাঁরা ধান কাটতে পারছেন না। আগের চেয়ে বেশি দাম দিতে চেয়েও শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছে না। আকাশে মেঘ জমলেই বুক কেঁপে উঠছে। এই সময় যদি ঝড় বা বৃষ্টি হয় তাহলে একেবারে মাঠে মারা যাব।’ ফতেহপুর গ্রামের কৃষক বুদিয়া বৈঞ্চব বলেন, ‘মাঠে ধান আছে। আকাশের যা অবস্থা, তাতে যেকোনো সময় কালবৈশাখী হইতে পারে। দৌড়াদৌড়ি করেও কামলা (শ্রমিক) পাওয়া যাচ্ছে না। ঈশ^রের কাছে প্রার্থনা করি ধান না কাটা পর্যন্ত যেন ঝড়-বৃষ্টি না হয়।’

নবীগঞ্জ উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার দুলাল উদ্দিন বলেন, ‘শ্রমিক সংকটের কথা শোনা যাচ্ছে। এ পর্যন্ত ৩০/৪০ ভাগ জমির ধান কাটা হয়ে গেছে। বাকি ৬০/৭০ শতাংশ জমির ধান আগামী সপ্তাহ-দশ দিনের মধ্যে কাটা হয়ে যাবে বলে আশা করছি। এর মধ্যে ঝড়-বৃষ্টি না হলে কোনো সমস্যা হবে না।’ এ বছর উপজেলায় ১৭ হাজার ২ শত হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল। ফলন ভাল হওয়ায় অর্জিত হয়েছে ১৭ হাজার ৮ শত হেক্টর বলে তিনি জানান।

 

 

আজকের স্বদেশ/জিএস/জুয়েল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD