1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৮:৪৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কানাইঘাটে বিশ্ব পর্যটন দিবস উপলক্ষ্যে বর্ণাঢ্য র্যালী ও আলোচনা সভা সন্তান জন্ম দিয়েই পরীক্ষার হলে মা কানাইঘাটে ব্যবসায়ীকে অপহরণ করে মুক্তিপণ দাবী, গ্রেফতার-১ দেশকে সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদ ও মাদকমুক্ত রাখতে প্রতিনিয়ত র‍্যাব কাজ করছে –মহাপরিচালক র‍্যাব জগন্নাথপুরে টমটম দূর্ঘটনায় আহত ৩ সংবাদ সম্মেলন ছোট ভাইয়ের বিরুদ্ধে বড় ভাইকে হামলার অভিযোগ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করতে চান- আব্দুল মতিন লাকি সুনামগঞ্জ জেলা আ’লীগ সভাপতি ও সম্পাদকের বক্তব্য নির্লজ্জ মিথ্যাচার, যা অগঠনতান্ত্রিক-নুরুল হুদা মুকুট নবীগঞ্জে আগ্নেয়াস্ত্র দিয়ে ভাই ভাইকে ফাঁসাতে গিয়ে নিজেই ফেঁসে গেল র‍্যাবের হাতে! মৌল্ভীবাজার রাজনগরে ভোক্তার অভিযানে ৪ টি প্রতিষ্ঠানকে ৩৭ হাজার টাকা জরিমানা

মাদারীপুরে গ্রাহকের ১৫ কোটি টাকা নিয়ে বীমা কোম্পানির কর্মকর্তা লাপাত্তা

  • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ১৯ এপ্রিল, ২০১৮
  • ৯৯১ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

ডে-নাইট পরিবেশ উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের ফাঁদে ১০ হাজার গ্রাহক

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

গ্রাহক ও কর্মীদের সাথে প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে মাদারীপুরের কালকিনিতে গ্রাহকের প্রায় ১৫ কোটি টাকা নিয়ে লাপাত্তা দিয়েছে ডে-নাইট পরিবেশ উন্নয়ন ফাউন্ডেশন বীমা কোম্পানির মালিক মনিরুজ্জামান। এ বীমা কোম্পানির অধিক মুনাফার ফাঁদে পড়ে সর্বস্বান্ত হয়ে পড়েছেন দরিদ্র মানুষ। ওই কর্মকর্তা হঠাৎ করে পালিয়ে যাওয়ায় পুরো এলাকার গ্রাহকদের মাঝে চরম অস্থিরতা বিরাজ করেছে।

এ প্রতারণার প্রতিবাদে আজ বৃহস্পতিবার সকালে স্থানীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ডে-নাইট পরিবেশ উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের কর্মীরা। তবে এ বিষয় শিগগিরই ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন উপজেলা প্রশাসন।

কর্মীদের অভিযোগ ও এলাকা সূত্রে জানা গেছে, এনায়েতনগর এলাকার দরিচর গ্রামের মনিরুজ্জামান ওই এলাকায় গত ২০০৭ ইং সালে ডে-নাইট পরিবেশ উন্নয়ন ফাউন্ডেশন নামে একটি বীমা অফিস গড়ে তোলেন। এবং সেখানে তিনি কর্মী নিয়োগ দেন প্রায় ৩০ জন। গ্রাহকদের দৃষ্টি আকর্ষণ ও আস্থা অর্জনের জন্য তিনি ওই গ্রামে নির্মাণ করেন একটি বিলাসবহুল বাড়িও। এ বাড়িতে বসেই চালানো হত বীমার সকল কার্যক্রম।

এই বীমা অফিসে তিনি অধিক মুনাফা পাওয়ার প্রলোভন দিয়ে প্রায় ১০ হাজার গ্রাহকদের কাছ থেকে ওই নিয়োগধারী কর্মীদের মাধ্যমে ১৫ কোটি টাকা হাতিয়ে নেন বলে জানিয়েছেন মাঠকর্মীরা।

গত ১০ এপ্রিল মনিরুজ্জামান স্বপরিবারে তার বিলাসবহুল বাড়িঘর তালাবদ্ধ করে উধাও হন। তার এ উধাও হয়ে যাওয়ার ঘটনায় গ্রাহকদের চাপে চরম বিপাকে পড়েছেন ওই বীমা কোম্পানির মাঠকর্মীরা। গ্রাহকরা টাকা ফেরত পাওয়ার জন্য রীতিমত চাপ প্রয়োগ করে আসছেন মাঠকর্মীদের।

এদিকে প্রতারক মালিক মনিরুজ্জামানকে খুঁজে না পেয়ে মাঠকর্মীরা সংবাদ সম্মেলন করেছেন।

মাঠকর্মী জসিম উদিন, বেলায়েত, রিপন ও সেফালীসহ বেশ কয়েকজন অভিযোগ করে বলেন, আমরা গ্রাহকদের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা উত্তোলন করে আমাদের মালিক মনিরুজ্জামানের কাছে বইয়ের মাধ্যমে জমা দিয়েছি। কিন্তু সমস্ত টাকা নিয়ে মনিরুজ্জামান হঠাৎ আমাদের না জানিয়ে স্বপরিবারে উধাও হয়েছেন। এতে আমরা পড়েছি চরম বিপাকে। কারণ আমরা শুধু তার চাকরিই করেছি। এর বাইরে কিছু বলতে পারব না।

এ বিষয় অভিযুক্ত মালিক মনিরুজ্জামানের সাথে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে উপজেলা (ভারপ্রাপ্ত) নির্বাহী কর্মকর্তা প্রমথ রঞ্জন ঘটক বলেন, আমি ওই বীমা কোম্পানির খোঁজখবর নিয়েছি। প্রতারকের নামে মামলা হবে।

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

 

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD