1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:২০ পূর্বাহ্ন
হেড লাইন
জগন্নাথপুরের কৃষক এনামুল হক এবারও ভূট্রা-ধনিয়া চাষে সফল কোম্পানীগঞ্জে প্রাণী সম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনী উদ্বোধন কানাইঘাটে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী সাংবাদিক তাওহীদকে এলাকাবাসীর অকুন্ঠ সমর্থন সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার হাওর এলাকায় বোরোধান কর্তন উৎসব|| শিলাবৃষ্টি বজ্রপাত আতঙ্কে কৃষক কোম্পানীগঞ্জে শাহিন হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন সুনামগঞ্জে প্রতিপক্ষের দেওয়া আগুনে পুড়ে লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি সাধন থানায় অভিযোগ দায়ের কোম্পানীগঞ্জে বাবলুর রহস্যজনক মৃত্যু: তদন্তের দাবিতে প্রতিবাদ সভা সুনামগঞ্জের জনপ্রিয় শিল্পী পাগল হাসানসহ সড়ক দূর্ঘটনায় ২ নিহত, আহত ৩ কানাইঘাটে সর্বজন শ্রদ্ধেয় ইফজালুর রহমানের দাফন সম্পন্ন ॥ বিএনপি নেতৃবৃন্দের শোক বার্মিংহাম ওয়েষ্ট মিডল্যান্ড বিএনপি ও বার্মিংহাম সিটি বিএনপির ঈদ পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠিত

‘সোনার মানুষের’ কামনায় মঙ্গল শোভযাত্রায় প্রস্তুত দেশ

  • Update Time : শুক্রবার, ১৩ এপ্রিল, ২০১৮
  • ৫৭৬ শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

পয়লা বৈশাখ বাংলা বর্ষবরণ উৎসবের অন্যতম অনুষঙ্গ মঙ্গল শোভাযাত্রা বের হলে বসে না থাকার বিষয়ে ধর্মভিত্তিক সংগঠন হেফাজতে ইসলামের হুঁশিয়ারিকে পাত্তা দিচ্ছেন না আয়োজকরা।

বরাবরের মতো এবারও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউট থেকে বের হবে মঙ্গল শোভযাত্রা। শনিবার ভোরে রমনা বটমূলে সূর্য উঠার সঙ্গে সঙ্গে নতুন বছরকে স্বাগত জানিয়ে অনুষ্ঠান করবে ছায়ানট। এরপর সকাল নয়টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আখতারুজ্জামানের নেতৃত্বে চারুকলা অনুষদ থেকে বের করা হবে মঙ্গল শোভাযাত্রা।

এবারের শোভাযাত্রার স্লোগান ঠিক করা হয়েছে ‘মানুষ ভজলে সোনার মানুষ হবি।’

নববর্ষ উদযাপনে গঠিত কেন্দ্রীয় সমন্বয় কমিটির আহ্বায়ক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-উপাচার্য (শিক্ষা) নাসরীন আহমাদবিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সকলকে মঙ্গল শোভাযাত্রায় অংশগ্রহণ করার আহ্বান জানিয়েছেন।

নববর্ষের ‍দুই দিন আগে বৃহস্পতিবার কওমি মাদ্রাসাকেন্দ্রীক সংগঠন হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব জুনায়ের বাবুনগরীর নামে এক বিবৃতিতে মঙ্গল শোভযাত্রাকে ‘হারাম’ ঘোষণা করে এতে যোগ না দেয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে।

মঙ্গল শোভযাত্রাকে ‘হিন্দুয়ানি সংস্কৃতির অংশ’ আখ্যা দিয়ে ৯২ শতাংশ মুসলমানের দেশে এই শোভাযাত্রা চালিয়ে গেলে বসে না থাকার হুঁশিয়ারও দেয়া হয়।

বর্ষবরণের এই আয়োজনকে এরই মধ্যে বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। আর এই স্বীকৃতির পর এই আয়োজন কেবল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সীমাবদ্ধ না রেখে স্কুলে স্কুলে ছড়িয়ে দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার।

চারুকলায় শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি

চারুকলায় মঙ্গল শোভাযাত্রার প্রস্তুতি শুরু হয় এক মাসেরও বেশি আগে থেকে। নানা ধরনের জীবজন্তুর বিশালাকারের প্রতিকৃতি নিয়ে বের হয় এই শোভযাত্রা। তাই কাজও শুরু করতে হয় আগেভাগে।

এবার কোটা সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের কারণে এই প্রস্তুতিতে ব্যাঘাত ঘটেছে। গত ৮ এপ্রিল শাহবাগ মোড় অবরোধ করে বসে থাকা শিক্ষার্থীদেরকে পাঁচ ঘণ্টা পর তুলে দেয়ার চেষ্টায় কাঁদানে গ্যাস ছোড়ার পর চারুকলায় নানা নির্মিত নানা প্রতিকৃতি ও উপকরণে আগুন দেয় শিক্ষার্থীদের একটি অংশ।

আবার এরপর টানা তিন দিন শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের কারণেও প্রস্তুতিতে ব্যাঘাত ঘটেছে। তবে ১২ এপ্রিল সংসদে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের পর শান্ত হয় পরিস্থিতি। আর আবার প্রস্তুতি শুরু করে চারুকলার ছাত্র-শিক্ষকরা।

ভোর হলেই নববর্ষ। তাই এখন সময়ের হিসাব ভুলে কাজ চলছে চারুকলায়।

বছরের শেষ দিন চারুকলায় গিয়ে দেখা যায় কেউ কেউ ব্যস্ত মুখোশ তৈরি ও বিক্রিতে, কেউ বা ব্যস্ত রংতুলির আচরে গ্রামবাংলার দৃশ্য সাদা কাগজে ফুটিয়ে তুলতে।

কিছু ছাত্রের ঘাম ঝড়ছে বাশের বেড়া দিয়ে তৈরি বিভিন্ন শিল্পকর্মে বিভিন্ন রঙের কাগজ জুড়ে দিতে। যার মধ্যে রয়েছে মানুষের মুখোশ, হাস, পেচা, ও বাঘ ইত্যাদি। একদল ছেলে-মেয়ে তাদের রংতুলির আচড়ে বাংলার ঐতিহ্যকে ফুটিয়ে তুলতে ব্যস্ত চারুকলার দেয়ালগুলোতে।

প্রায় ২০০ শিক্ষার্থীকে ব্যস্ত সময় পার করতে দেখা গেল মঙ্গল শোভাযাত্রার জন্য।

পেচার মুখোশকে বিভিন্ন রঙে রাঙিয়ে তুলতে ব্যস্ত চারুকলা অনুষদের গ্রাফিক্স ডিজাইন বিভাগের ২০তম ব্যাচের ছাত্রী নাকিবা বারী। সাথে আছেন প্রাচ্যকলা বিভাগের ১৯ তম ব্যাচের ছাত্র মাজহারুল ইসলাম ও মৃৎশিল্প বিভাগের সোহান।

কথা হল মাজহারুল ইসলামের সঙ্গে। বলেন, ‘বিশেষ করে টাইগার ও পেচার মুখ-আকৃতির এই দুইধরনের মুখোশ বানাই আমরা। তবে এছাড়াও আমরা রাজা-রানির মুখোশও বানাই।’

দামের বিষয়ে জিজ্ঞেস করলে মাজহারুল বলেন, ‘আকার অনুসারে আমারা মুখোশের দাম নির্ধারণ করি। তবে আমাদের তৈরি মুখোশগুলোর দাম আটশ থেকে দুই হাজার টাকা পর্যন্ত।’

কেমন সাড়া পাচ্ছেন-এমন প্রশ্নে চারুকলার এই ছাত্র বলেন, ‘ভালোই । প্রায় হাজার খানেক মুখোশ এর মধ্যে বিক্রি হয়েছে।’

‘মানুষ ভজলে সোনর মানুষ হবি’ এই প্রতিপাদ্যকে বিশ্লেষণ করতে গিয়ে চারুকলা অনুষদের ডিন নিসার হোসেন বলেন, ‘এটা লালনের গানের একটি উদ্ধৃতি। আমরা সব দিক দিয়ে উন্নত হচ্ছি, বিশেষ করে বিজ্ঞানের নব্য আবিষ্কার বদলে দিচ্ছে আমাদের জীবন। আমরা অনুন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের দিকে যাচ্ছি। কিন্তু আমাদের মানবিক মূল্যবোধের কোনো বিকাশ হচ্ছে না, বিকাশ হচ্ছে না আমাদের সত্ত্বার। তাই এবারের স্লোগান সোনার মানুষ হওয়ার।’

মা-বাবার হাত ধরে এসেছেন অনেক শিশু-কিশোর। সবাই বায়না ধরেছেন নানা রঙের মুখোশের। কেউ কিনছেন পেঁচার,  কেউ বাঘের । তবে ছেলেদের চাহিদা বাঘের মুখোশে।

কথা হলো বেশ কয়েকজন দর্শণার্থীর সঙ্গে। সবাই বেশ খুশি নর্ববর্ষের আগে নিজেকে রাঙাতে পেরে।

অতীতের খোঁজে তারান্নুম ফারিয়া ও আলী ইমতিয়াজ নামে চারুকলার সাবেক দুই শিক্ষার্থী চারুকলার এই কর্মজগ্য মুহূর্তকে উপভোগ করতে এসেছেন।

ধানমন্ডিতে প্রস্তুত ইউডাও

সরকারি বিশ্বাবিদ্যালয়গুলোর পাশাপাশি রাজধানীতে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়য় ইউনিভার্সিটি এব ডেভেলপমেন্ট অন্টারনেটিভ-ইউডাও বের করে মঙ্গল শোভযাত্রা।

ধানমন্ডির ১২/এ চারুকলা অনুষদের সামনে আসতেই চোখে পড়বে বিশাল কর্মব্যস্ততা। কেউ রং তুলি হাতে ছবি আঁকছেন, কেউ মুখোশ গড়ছেন, কেউ বা আবার হাঁড়ি-পাতিলের ওপর কারুকার্য তৈরি করছেন।

চারুকলা অনুষদটির ডিন শাহজাহান আহমেদ বিকাশের নেতৃত্বে আয়োজিত শোভাযাত্রায় অংশ নেবেন সোডা, কোডা, ইউডার শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ সাধারণ মানুষ।

শিক্ষার্থীরা তৈরি করছেন গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যের ধারক ময়ূরপঙ্খী নৌকা, পালকি, ফুল, পাখি, নানা রকম মুখোশ ও আলপনা করা মাটির হাড়ি। রংতুলির আঁচড়ে ফুটে উঠছে ফুল, প্রজাপতি, বাঘসহ আরো নানা প্রাণীর অবয়ব।

কাদামাটির ছাচে কাগজ সেঁটে বানানো হচ্ছে পশু-পাখি আর রাক্ষসের মুখোশ। যা অন্যায়ের প্রতিবাদ ও কুসংস্কারের প্রতীকী রূপ। অমঙ্গলকে ঝেড়ে ফেলে সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়া।

শনিবার সকাল ১০টায় বের হবে এই শোভাযাত্রা। চারুকলার শিক্ষার্থীরা সামির চন্দ্র বার্মা বলেন, ‘বৈশাখ  বাঙালির জীবনে আশীর্বাদ স্বরূপ। পুরনো গ্নানি ভুলে আমরা নতুনকে বরণ করব। সেই সাথে আমাদের চেষ্টা একদিনের জন্য হলেও শহুরে মানুষদের বাংলার ঐতিহ্যের সাথে পরিচয় করিয়ে দেব।’

আরেক শিক্ষার্থী রুদ্র বলেন, ‘বাংলার ইতিহাস প্রায় দেড় হাজার বছরের। আমরা সে ইতিহাস বছরে একদিন হলেও স্মরণ করতে চাই। সবাই কাজ করছি। আশা করছি, অন্যান্য বারের মত আমাদের এবারের আয়োজনেও কোনো কমতি থাকবে না।’

নতুন বছরকে বরণ করে নেবার প্রস্তুতিতে কোনো প্রকার ঘাটতি রাখতে চায় না শিক্ষার্থীরা। পুরনো গ্লানি, হতাশা, ব্যর্থতা, পঙ্কিলতা সব ধুয়ে মুছে বাঙালি পহেলা বৈশাখে মেতে উঠবে নব আনন্দে। এমনটাই প্রত্যাশা শিক্ষার্থীদের।

আয়োজনের প্রস্তুতি সম্পর্কে অনুষদের সহযোগী অধ্যাপক উত্তম কুইমার সাহা চৌধুরী বলেন, ‘আমাদের প্রস্তুতি আরো সাত দিন আগে শুরু হয়েছে, এবার আবহাওয়াটা একটু ঝামেলা করছে। এক্ষেত্রে কাজে একটু ব্যাঘাত ঘটছে। তারপরও আয়োজনে কোনো কমতি থাকছে না।’

দেশের অস্থিতিশীল পরিস্থির নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে উত্তম বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চারুকলায় একটু ঝামেলা হয়েছে। আমাদের এখানে এখনো সব কিছু স্বাভাবিক আছে। আমরা আশা করি, দেশের বিরুপ অবস্থার ছাপ আমাদের আয়োজনে পড়বে না।’

‘বাংলার সাধারণ মানুষের প্রাণের উৎসব। এটা তো কোনো ধর্মীয় উৎসব না। সুতরাং আমরা এ বিষয়টা নিয়ে কোনো ঝামেলা হোক এটা আমাদের কাম্য নয়। আমরা সব সময় চিন্তা করি ও ধারণ করি, সবাই আমাদের সাথে যোগদান করুক।’

‘যারা এই আয়োজনকে বিনষ্ট করতে চায় তাদের দেখিয়ে দেয়া উচিত যে বাংলা বর্ষ বরণ বাংলার মানুষের প্রাণের অনুষ্ঠান, বাংলার ঐতিহ্য।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2024
Design and developed By: Syl Service BD