1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ০৪:১৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
জগন্নাথপুরে পিআইসি কমিটি গঠনে গণশুনানী নবীগঞ্জে অপহরণের দেড় বছর পর প্রেমিক জুটিকে র‌্যাব ও পুলিশ ফাঁদ পেতে জামালপুর থেকে আটক করেছে  মৌলভীবাজারে খাদ্য পণ্যে নিষিদ্ধ দ্রব্যের মিশ্রণ বন্ধে মাঠে নেমেছে ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তর চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের নতুন কমিটি অনুমোদন হওয়ায় আনন্দ মিছিল বিএমএসএস সিলেট বিভাগীয় সম্মেলন সম্পন্ন বিভাগীয় কমিটি ঘোষণা জগন্নাথপুরে অজু করতে গিয়ে পানি ডুবে তরুণের মৃত্যু নবীগঞ্জের ঘোলডুবা এম.সি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে প্রাণনাশের হুমকি দিলেন সাবেক সভাপতি সাজ্জাদুর রহমান চৌধুরী-থানায় জিডি !!  জগন্নাথপুরে দুই রেস্টুরেন্টকে অর্থদণ্ড ৬ ডিসেম্বর বাউল কামাল পাশার ১২১তম জন্মবার্ষিকী কানাইঘাট সদর ইউপি চেয়ারম্যান আফসর রোটারী ক্লাব অব সিলেট সেন্ট্রালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত

গাজীপুর ও খুলনায় কে পাচ্ছেন নৌকা-ধানের শীষ

  • আপডেটের সময় : রবিবার, ৮ এপ্রিল, ২০১৮
  • ৯৮৯ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আর ৮ মাসের মতো বাকি। নির্বাচনকে ঘিরে নানামাত্রায় ঘুরপাক খাচ্ছে রাজনীতি। জোরেশোরে নির্বাচনী প্রস্তুতি চলছে দেশের বড় দুই রাজনৈতিক দল ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও তাদের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপিতে। এরই মধ্যে আগামী ১৫ মে অনুষ্ঠেয় গাজীপুর ও খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচন জাতীয় নির্বাচনী রাজনীতির জন্য নতুন ভাবনার উদ্রেক করেছে। এই নির্বাচনকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখছে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। খুবই গুরুত্বপূর্ণ হয়েছে দুই দলের জন্যই।

এই নির্বাচনের ফল জাতীয় নির্বাচনে প্রভাব ফেলবে—এমন ভাবনা থেকে দুই সিটিতে জয় পেতে মরিয়া দল দুইটি। বিশেষ করে এই দুই সিটিতে এবারই দলীয় প্রতীক নিয়ে লড়বেন প্রার্থীরা। ফলে ভোটযুদ্ধ হবে নৌকা ও ধানের শীষের মধ্যে। জয় নিশ্চিত করতে তাই স্বচ্ছ ও গ্রহণযোগ্য প্রার্থীকেই মনোনয়ন দিতে চায় উভয় দল। গত সিটি নির্বাচনে এই দুই সিটিতেই পরাজিত হয় আওয়ামী লীগ। এবার জয় পুনরুদ্ধাদের জোর চেষ্টা চালাবে ক্ষমতাসীনরা। অন্যদিকে, গত সিটি নির্বাচনে গাজীপুর ও খুলনায় বিজয়ী হয় বিএনপি মনোনীত প্রার্থীরা। এবারও সেই ধারাবাহিকতা ধরে রাখার জন্য যোগ্য ও জনপ্রিয় প্রার্থীকেই মনোনয়ন দেওয়ার চিন্তা করছে তারাও। ফলে এ নির্বাচন হয়ে উঠেছে দুইপক্ষের জন্য যেমন অগ্নিপরীক্ষা, তেমনি মর্যাদার লড়াইও।

এই নির্বাচনের পরিবেশের মধ্যদিয়েই জাতীয় নির্বাচনে ক্ষমতাসীনদের মনোভাব প্রকাশ পাবে বলে মনে করা হচ্ছে। একদিকে সরকারকে নিরপেক্ষ নির্বাচন আয়োজনে নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) সহযোগিতা করার পাশাপাশি জয়ী হয়ে ক্ষমতাসীনদের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি এবং বিএনপির জনপ্রিয়তা হ্রাস ও জনবিচ্ছিন্নতার প্রমাণ দিতে হবে। অন্যদিকে দুই সিটিতে জয়ী হয়ে বিএনপিকেও প্রমাণ করতে হবে তাদের জনপ্রিয়তা কমেনি। দুই সিটিতে যে দল জয়ী হবে, সেই দলই আগামী সংসদ নির্বাচনে বেশ সুবিধাজনক অবস্থায় থাকবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট সবাই।

দুই সিটিতে প্রার্থী হতে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম কিনেছেন ১৭ জন। আর বিএনপির ৯ জন প্রার্থী। আজ সন্ধ্যায় প্রার্থীদের সাক্ষাৎকার নেবেন প্রধানমন্ত্রী, দলীয় সভাপতি ও দলের মনোনয়ন বোর্ডের প্রধান শেখ হাসিনা। একইভাবে আজ সন্ধ্যায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির নেতারা সাক্ষাৎকার গ্রহণ করবেন তাদের মনোনয়ন প্রার্থীদের। সাক্ষাৎকার গ্রহণ শেষে আজ-কালের মধ্যে উভয় দলের চূড়ান্ত দলীয় প্রার্থী ঘোষণা করার কথা রয়েছে।

এ ব্যাপারে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেন, প্রার্থীদের জয় নিশ্চিত করতে নির্বাচনবিধি মেনে দলের পক্ষে যতটা সাহায্য করা যায়, তা করা হবে। মনোনয়ন বোর্ড যাদের প্রার্থী হিসেবে চূড়ান্ত করবে দল তাদের পক্ষে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করবে। কেন্দ্র থেকে সমন্বয়ের পাশাপাশি প্রার্থীর জন্য প্রচারও করা হবে।

একইভাবে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, প্রার্থী হয়ে বিজয়ী হতে পারবে এমন প্রার্থীকেই আমরা মনোনয়ন দেব। দেশ ও দলের এই দুঃসময়ে বিএনপিতে কোনো দ্বিধাবিভক্তি নেই। দল একক প্রার্থীই দেবে। দল যাকে প্রার্থী ঘোষণা করবে দলের সবাই তাকেই বিজয়ী করতে মাঠে কাজ করবে।

কে পাচ্ছেন নৌকা : দুই সিটিতে কে পাচ্ছেন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন—এ প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে। এর মধ্যে গাজীপুরে দুইজনের নাম আলোচনার শীর্ষে। তাদের একজন গত নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজমত উল্লাহ খান এবং অন্যজন গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম। এর বাইরে আরো দুইজন দলের মনোনয়ন চেয়েছেন। তারা হলেন গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. মতিউর রহমান মতি এবং মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক কামরুল আহসান সরকার রাসেল।

জানা গেছে, গত সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ আজমত উল্লাহকে সমর্থন দিলেও দলের আরেক নেতা জাহাঙ্গীর আলম ভোট করবেন জানিয়ে অটল ছিলেন। পরে অবশ্য দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার নির্দেশে ভোট থেকে সরে দাঁড়ান তিনি। কিন্তু এই সরে দাঁড়ানোকে কেন্দ্র করে দলের ভেতর বিভেদ তৈরি হয়। যার ফল পড়ে ভোটে। আজমত উল্লা খান লক্ষাধিক ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন। পরে দলের তৃণমূল থেকে শুরু করে হাইকমান্ড পর্যন্ত বুঝতে পারে জাহাঙ্গীর সমর্থিত ভোটাররাই ছিল মূল ফ্যাক্টর। ওই বছর নির্বাচনে পরাজয়ের পর থেকে যাচাই-বাছাইয়ে দলের এবং গাজীপুর মহানগরের তৃণমূল থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ পর্যায় পর্যন্ত জাহাঙ্গীরকেই তাদের প্রথম পছন্দের প্রার্থী হিসেবেই গুঞ্জন শুরু হয়। তবে এবার এখন পর্যন্ত জাহাঙ্গীর আলম দলের ‘সবুজ সংকেত’ ও আজমত উল্লা খান নৌকা প্রতীক পাওয়ার ‘চূড়ান্ত সংকেত’ পাওয়ার দাবি করেছেন। এ ব্যাপারে দুইজনই নিজেদের গাজীপুর সিটি করপোরেশন এলাকায় উন্নয়ন ও পরিচালনার জন্য দক্ষ নগরপিতা হিসেবেও দাবি করেছেন। দুইজনই দলীয় চূড়ান্ত মনোনয়নের ব্যাপারে দৃঢ় আশাবাদী বলেও জানিয়েছেন।

অন্যদিকে, খুলনা সিটির মেয়র পদে তালুকদার আবদুল খালেককেই মনোনয়ন দেওয়া হবে শোনা যাচ্ছে। তবে তিনি এবার মেয়র পদে প্রার্থী হতে চান না। তিনি জানিয়েছেন, মেয়র নির্বাচনের ব্যাপারে তার কোনো আগ্রহ নেই। কিন্তু তিনি না চাইলেও নগর আওয়ামী লীগের নেতারা এক বর্ধিত সভায় তাকেই প্রার্থী করার জন্য কেন্দ্রে প্রস্তাব পাঠিয়েছে। কারণ হিসেবে স্থানীয়রা বলছেন, তালুকদার খালেক মেয়র থাকাকালীন যে সফলতা দেখিয়েছিলেন, তা এখন মানুষ উপলব্ধি করছে।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি তালুকদার আবদুল খালেক ২০০৮ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত নির্বাচিত মেয়রের দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৩ সালের ১৫ জুনের নির্বাচনে ৬০ হাজার ৬৭১ ভোটের ব্যবধানে তিনি পরাজিত হন। ২০১৪ সালের সংসদ নির্বাচনে তিনি বাগেরহাট-৩ (রামপাল-মোংলা) আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে তিনি আলোচনায় থাকলেও মাসখানেক ধরে নির্বাচনের ব্যাপারে অনীহা প্রকাশ করে আসছেন। এমনকি তিনি গণমাধ্যমে এমনো বলেছেন, মেয়র পদে নির্বাচন করার কোনো আগ্রহ তার নেই। পাশাপাশি সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শেখ সৈয়দ আলী, খুলনা সদর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. সাইফুল ইসলাম পিপলু ও বাংলাদেশ নৌপরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি ও বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্য ব্যবসায়ী শেখ সালাহ উদ্দিন জুয়েলের নামও শোনা যাচ্ছে।

কে পাবেন ধানের শীষ : গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের বিশাল ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করে জয়ী গাজীপুরের মেয়র এম এ মান্নান ও খুলনার নুরুল ইসলাম মনি এবারও দলীয় মনোনয়ন চেয়েছেন। গাজীপুরের বর্তমান মেয়র মান্নান নিজে মনোনয়ন না পেলে তার ছেলে এম মনজুরুল করীম রনিকে প্রার্থী করতে চান তিনি। তবে এবার দুই সিটিতেই দলীয় প্রার্থী বদল করার চিন্তা করছে দল। দলের নীতিনির্ধারকরা বলছেন, আগের প্রার্থীদের অযোগ্যতার জন্য নয় বরং প্রার্থিতায় বৈচিত্র্য ও পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে শক্তিশালী প্রতিদ্বিন্দ্বিতার কথা ভেবেই নতুন মুখের চিন্তা করছে দল। সেক্ষেত্রে গাজীপুরের প্রবীণ নেতা ও সাবেক জেলা পরিষদ পরিষদ চেয়ারম্যান হাসান উদ্দিন সরকারকে দেয়া হতে পারে দলের মনোনয়ন। আর খুলনায় মনোনয়ন পেতে পারেন বিএনপির মহানগর সভাপতি ও খুলনা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুল ইসলাম মঞ্জু। তবে কোনো কারণে প্রার্থী পরিবর্তন করার সুযোগ না থাকলে সেক্ষেত্রে পুরনোদের হাতেই তুলে দেওয়া হতে পারে দলের মনোনয়ন।

গাজীপুর সিটির বর্তমান মেয়র এম এ মান্নানকেই আবার বিএনপির প্রার্থী করার সম্ভাবনা বেশি। তবে শারীরিক অসুস্থতা ও মামলা-মোকাদ্দমরার কারণে দীর্ঘ সময় বরখাস্ত থাকায় আশানুরূপ কাজ করতে পারেননি। এ অবস্থায় তিনি এবার কতটা সুবিধা করতে পারবেন তা নিয়ে দলের সংশয় আছে। সেক্ষেত্রে তার স্থলে প্রার্থী করা হতে পারে হাসান উদ্দিন সরকারকে। এই দুইজনের পাশাপাশি মনোনয়ন চান শ্রমিক দলের কেন্দ্রীয় নেতা সালাউদ্দিন সরকার, জাসাসের কেন্দ্রীয় নেতা সোহরাব উদ্দীন এবং কাশিমপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান শওকত হোসেন সরকার।

অন্যদিকে, খুলনা সিটিতে দলীয় মনোনয়ন চান বর্তমান মেয়র ও খুলনা মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনি, জেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট শফিকুল আলম মনা এবং বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও খুলনা মহানগর সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু। দলীয় সূত্রগুলো বলছে, মনিরুজ্জামানের পরিবর্তে নজরুল ইসলাম মঞ্জুকে পছন্দ কেন্দ্রের। এর আগের নির্বাচনে মনিরুজ্জামান মনি বিএনপির প্রার্থী হিসেবে গত নির্বাচনে জয়লাভ করেন। ২০১৩ সালের নির্বাচনে প্রায় ৬০ হাজার ভোটের ব্যবধানে মনি তখনকার আওয়ামী লীগের মেয়র তালুকদার আবদুল খালেককে পরাজিত করেন। ফলে মনোনয়ন দৌড়ে তিনি এগিয়ে রয়েছেন। তবে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বিবেচনায় নিয়ে শেষ পর্যন্ত তার স্থলে মঞ্জুকে বেছে নিতে পারে বিএনপি।

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD