1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০:৫৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
এক পলকে শেখ হাসিনা” সুনামগঞ্জ হাওরের শিশুদের জন্য উপহার দিয়েছেন আরাবী বিনতে শফিক (শিফা) জগন্নাথপুরে গরু’র ঘাস খাওয়াকে কেন্দ্র করে মারামারি ঘটনায় গ্রেফতার ১ সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ জগন্নাথপুরে সামাজিক সম্প্রীতি কমিটির সভা অনুষ্টিত ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের প্রতি কানাইঘাটের ছাত্রলীগ কর্মী হারিছের কিছু কথা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের মর্যাদা যেভাবে বেড়েছে, নাগরিক মানের যেভাবে উন্নয়ন ঘটেছে …..বিপ্লব বড়ুয়া কানাইঘাটে বিশ্ব পর্যটন দিবস উপলক্ষ্যে বর্ণাঢ্য র্যালী ও আলোচনা সভা সন্তান জন্ম দিয়েই পরীক্ষার হলে মা কানাইঘাটে ব্যবসায়ীকে অপহরণ করে মুক্তিপণ দাবী, গ্রেফতার-১ দেশকে সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদ ও মাদকমুক্ত রাখতে প্রতিনিয়ত র‍্যাব কাজ করছে –মহাপরিচালক র‍্যাব

দাবদাহ-ঘূর্ণিঝড়-বন্যার আশঙ্কাদাবদাহ-ঘূর্ণিঝড়-বন্যার আশঙ্কা

  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ৬ এপ্রিল, ২০১৮
  • ৬৪৭ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

চলতি এপ্রিল মাসেই ঝড়, বৃষ্টি ও দাবদাহের পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। আবহাওয়ার মতিগতি জানাতে গিয়ে আবহাওয়াবিদরা বলেছেন, এই এপ্রিল মাসের প্রথম ভাগে ঝড়, বৃষ্টির তেমন সম্ভাবনা না থাকলেও মাঝামাঝি সময় থেকে আকাশ-বাতাস-সূর্যের চরিত্র বদলে যেতে পারে। অবশ্য এই ভরা চৈত্রে এখনও সূর্যের তেজ তেমন দেখা যায়নি। বিক্ষিপ্তভাবে হলেও মার্চ মাসে দেশের কোথাও ঝড়, কোথাও বা হয়েছে হালকা বৃষ্টি। দুপুরে কিছুটা রোদ পড়লেও সকাল বা বিকেলে আকাশে ছিল হালকা মেঘ। সাথে হালকা দখিনা বাতাস। দাবদাহের পূর্বাভাস আবহাওয়া অধিদপ্তর থেকে জানানো হলেও সেটি কেবল ছিল ১৪ মার্চ। তা-ও আবার যশোর জেলায়, যার মাত্রা ছিল ৩৬ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
এদিকে আজ শুক্রবার সকালে আবহাওয়া অধিদপ্তর থেকে জানা গেছে, গতকাল বৃহস্পতিবার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল বগুড়ায় ৩৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। রাজধানী ঢাকায় ছিল ৩৪ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর গতকাল সকাল ৬টা থেকে আজ সকাল ৬টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় বেশি বৃষ্টি হয়েছে বগুড়ার তাড়াশে ৪৪ মিলিমিটার। ঢাকায় সামান্য হলেও ঈশ্বরদীতে ২৮, রাজশাহীতে ২২, মাদারীপুরে ১৮, যশোরে ১৯, নেত্রকোনায় ৩০, ময়মনসিংহে ২৬ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।
আবহাওয়া অধিদপ্তরের এপ্রিল মাসের পূর্বাভাস থেকে জানা গেছে, গত ৩০ বছরের হিসাবে এপ্রিল মাসে স্বাভাবিক বৃষ্টি হয়ে থাকে ১৩০ দশমিক ২ মিলিমিটার। তবে এবারের এপ্রিলে এর চেয়ে কিছুটা বেশি বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। এই বৃষ্টির সঙ্গে কালবৈশাখীও বয়ে যেতে পারে। দেশের উত্তর থেকে মধ্যাঞ্চলে প্রায় আট দিন কালবৈশাখী দেখা দিতে পারে। এর সঙ্গে শিলাবৃষ্টিও হতে পারে।
এপ্রিলে ঝড়-বৃষ্টি ও দাবদাহের পূর্বাভাস দিয়ে রেখেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। তাদের তথ্য অনুযায়ী, দেশের উত্তরাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলের ওপর দিয়ে তিনটি দাবদাহ বয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এর মধ্যে একটি দাবদাহের প্রভাবে তাপমাত্রা উঠে যেতে পারে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। বাকি দুটি দাবদাহের মাত্রা থাকবে ৩৬ থেকে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। উত্তর ও মধ্যাঞ্চলে দাবদাহের মাত্রা বেশি থাকলেও উত্তপ্ত হয়ে যেতে পারে সারা দেশ।
প্রকৃতিতে উত্তাপ ছড়ালে উত্তাল হয়ে উঠতে পারে বঙ্গোপসাগর। তাই এপ্রিল মাসে দুটি নিম্নচাপ সৃষ্টির কথা জানানো হয়েছে ১ এপ্রিল আবহাওয়া অধিদপ্তরের বিশেষজ্ঞ কমিটির বৈঠকে। এর মধ্যে একটি নিম্নচাপ পরিণত হতে পারে ঘূর্ণিঝড়ে। ঝড়-বৃষ্টির কারণে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে পাহাড়ি ঢলে আকস্মিক বন্যা দেখা দিতে পারে।
আবহাওয়া বিশেষজ্ঞরা জানান, মার্চ থেকে মে মাসে সূর্য কিরণ সরাসরি এ দেশের ওপরে পড়ে। এই সময়কে গ্রীষ্ম মৌসুম বলা হয়। এর মধ্যে এপ্রিল মাসে সূর্য কিরণের তেজের জন্য ভূপৃষ্ঠ উত্তপ্ত থাকে। গ্রীষ্ম মৌসুমে সূর্যের কিরণ দেশের উত্তর ও মধ্যাঞ্চলে অপেক্ষাকৃত বেশি তির্যকভাবে পড়ে। এর সঙ্গে বঙ্গোপসাগরের ওপর দিয়ে দক্ষিণ-পশ্চিম দিক থেকে বাতাস বয়ে আসে। এই বাতাসে প্রচুর জলীয় বাষ্প থাকে।
এর সঙ্গে আরব সাগরের দিক থেকে আসা বাতাসেও থাকে জলীয় বাষ্প। সে কারণে রাজশাহী, রংপুরের মতো উত্তরাঞ্চলের জেলাগুলোতে তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত উঠে যায়। কিন্তু দক্ষিণাঞ্চলে তাপমাত্রা কিছুটা কম পড়ে। তবে সাগর থেকে আসা বাতাসে জলীয় বাষ্প থাকায় খুলনা, সাতক্ষীরা, বরিশাল অঞ্চলে অস্বস্তি বেশি অনুভূত হয়।
পশ্চিমা লঘুচাপের সঙ্গে দক্ষিণাঞ্চল থেকে আসা বাতাস মিশে গেলে কালবৈশাখী, বজ্র মেঘ, শিলাবৃষ্টি হয়। মার্চ থেকে মে মাস পর্যন্ত উত্তর ও মধ্যাঞ্চলের দিকে কালবৈশাখী বেশি হয়। আবহাওয়া অধিদপ্তরের সাবেক পরিচালক শাহ আলম বলেন, সাগর উত্তাল হয়ে ঘূর্ণিঝড় সৃষ্টির অনেক কারণ রয়েছে। এর একটি সহজ কারণ হলো, এপ্রিল মাসে তাপমাত্রা বেশি থাকে। তাপমাত্রা যখন বৃদ্ধি পায়, তখন সাগরে লঘুচাপ সৃষ্টি হয়। এই লঘুচাপ পরে নিম্নচাপ এবং পরবর্তীতে ঘূর্ণিঝড় বা সাইক্লোনে রূপ নেয়।
শাহ আলম বলেন, তবে এবার এপ্রিল মাসে একাধিক নিম্নচাপ সৃষ্টি না-ও হতে পারে। কেননা- এখনো পর্যন্ত তাপমাত্রা খুব একটি বৃদ্ধি পায়নি। কারণ আরব সাগর থেকে দক্ষিণ-পশ্চিম দিক থেকে বাতাস বয়ে যাচ্ছে। বঙ্গোপসাগর থেকে দক্ষিণ দিকের বাতাস বয়ে গেলে বুঝতে হবে তাপমাত্রাও বাড়বে। এই বাতাসে জলীয় বাষ্প থাকে। জলীয় বাষ্প থাকলে শরীরে অস্বস্তি বোধ হয়। এপ্রিলের তৃতীয় সপ্তাহের শুরুতে বঙ্গোপসাগর থেকে বাতাস আসা শুরু হবে।

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD