1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৪:০১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কানাইঘাটে সংবাদ সম্মেলনে আলমগীর হত্যাকারীদের গ্রেফতার করা না হলে পরিবহন ধর্মঘটের হুমকি শান্তিগঞ্জে সড়ক নির্মানে ইউপি চেয়ারম্যানের ভূমিদান, ৭০ বছরের দুর্ভোগ লাঘব কানাইঘাট সমিতি সিলেট মহানগর এর ২১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন কোম্পানীগঞ্জে বিএনপি নেতার মাতৃবিয়োগ: বিভিন্ন মহলের শোক সুষ্ঠু ভাবে ঝিঙ্গাবাড়ী স্কুল এন্ড কলেজের গভণিং বডির নির্বাচনের দাবী কোম্পানীগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধা হিরা মিয়ার ইন্তেকাল শিশু-কিশোর-কিশোরীদের নিয়ে উৎসাহ ও প্রমোশন অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর ফরেনার ফেন্ডস ক্লাবের আয়োজনে  প্রবাসীদের নিয়ে চায়ের আড্ডা অনুষ্ঠিত কোম্পানীগঞ্জে প্রশিক্ষণ শেষে সেলাই মেশিন বিতরণ জগন্নাথপুরে শ্রী শ্রী জগন্নাথ জিউর আখড়ায় ১ লাখ টাকার চেক হস্তান্তর

কেশবপুরে ‘হাতুড়ি বাহিনী’র অস্তিত্ব স্বীকার; নলেজের বাইরে কিছু হয় না : প্রতিমন্ত্রী

  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ৬ এপ্রিল, ২০১৮
  • ৪৪০ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

‘হাতুড়ি বাহিনী’ ও ‘গামছা বাহিনী’র অস্তিত্বের কথা স্বীকার করলেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক। তার ভাষ্য মতে, ওই বাহিনীর সদস্যরা তারই অনুগত। এমনকি কেশবপুরে যাই হোক তার সবকিছুই তার গোচরে রয়েছে বলেও জানান ওই এলাকার এমপি ইসমাত আরা।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে যশোর সার্কিট হাউজে স্থানীয় সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করছিলেন।

গত সপ্তাহে কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতারা যশোর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এসে সেখানে ‘হাতুড়ি বাহিনী’ ও ‘গামছা বাহিনী’র দৌরাত্ম্যের কাহিনী বর্ণনা করেন। জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী স্বয়ং এই সন্ত্রাসী চক্রের নিয়ন্ত্রক বলেও অভিযোগ আনেন আওয়ামী লীগ নেতারা।

এমন প্রেক্ষাপটে প্রতিমন্ত্রী মতবিনিময় সভা ডেকেছিলেন। সরকারি দায়িত্ব পালনকালে এটিই ছিল যশোরের সংবাদকর্মীদের সঙ্গে প্রতিমন্ত্রীর প্রথম আনুষ্ঠানিক সাক্ষাৎ। সভায় অন্যদের মধ্যে জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল ও প্রতিমন্ত্রীর জনসংযোগ কর্মকর্তা মঞ্জুরুল হাবীবও উপস্থিত ছিলেন।

সভার শুরুতেই প্রতিমন্ত্রী দীর্ঘ চার বছরের বেশি সময় সাংবাদিকদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে না পারায় দুঃখ প্রকাশ করেন। আগামীতে সাংবাদিকদের সঙ্গে বসা ও যশোরের উন্নয়নের ব্যাপারে একসঙ্গে কাজ করার প্রতিশ্রুতি দেন তিনি।

সভায় সাংবাদিকরা মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের নামে বিশ্ববিদ্যালয়, ভৈরব নদ খনন, কেশবপুর উপজেলার বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকা- ও সেখানকার রাজনৈতিক পরিবেশ নিয়ে প্রশ্ন করেন। এসময় সাংবাদিকরা কথিত হাতুড়ি বাহিনী, গামছা বাহিনী ও পুলিশ কর্তৃক দলীয় নেতাকর্মীদের নির্যাতনের অভিযোগের বিষয়ও তুলে ধরেন।

জবাবে প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক মহাকবির নামে বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। তিনি বলেন, ‘এ বিশ্ববিদ্যালয় হলে ছাত্র খুঁজে পাওয়া যাবে না।’

ভৈরব খনন নিয়ে আইনি জটিলতা নিরসনে প্রশাসন কাজ করছে বলে জানান জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল।

প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক দাবি করেন, তার এলাকায় উন্নয়ন কর্মকা-ে কোনো অনিয়ম, দুর্নীতি হয়নি। সাংবাদিকরা বেশ কয়েকটি প্রকল্পের চিত্র তুলে ধরলে তিনি প্রমাণ দাবি করেন। একইসঙ্গে তিনি দাবি করেন, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতারা তাকে ব্যবহার করে স্বার্থ হাসিল করতে চেয়েছিলেন। তা পারেননি বলে গুজব ও মিথ্যা প্রচারে নেমেছেন।

সাবেক শিক্ষামন্ত্রী (তার স্বামী) এএইচএসকে সাদেক যাদের দলে স্থান করে দিয়েছেন তারা এখন তার ক্ষতির চেষ্টা করছেন বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

প্রতিমন্ত্রী শুরু থেকে ‘হাতুড়ি বাহিনী’ ও ‘গামছা বাহিনী’র অস্তিত্ব অস্বীকার করলেও একপর্যায়ে এসে বলেন, ‘এসব বাহিনী কাদের সৃষ্টি? আমি হাতুড়ি বাহিনীর প্রধান আজিজকে জেলে দিয়েছিলাম। মুক্তি পেয়ে ক্ষমা চেয়েছে। তাকে ভালো হবার সুযোগ দিয়েছি। ওরা আমাকে ভালোবাসে। ওরা আমার অনুগত। ফলে কেউ আমার সম্মানহানির চেষ্টা করলে ওরা কিছুটা ভায়োলেন্ট হয়।’

প্রতিমন্ত্রীর নাম ভাঙিয়ে সন্ত্রাস, লুটপাট, অনিয়ম হচ্ছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘কেশবপুরে আমার নলেজের বাইরে কিছু হয় না।’

জেলার একমাত্র প্রতিমন্ত্রী হিসেবে উন্নয়নে ভূমিকা না রাখার অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমি যে মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত সেখানে দৃশ্যমান কিছু করে দেখানোর সুযোগ নেই। আমি কোনো জেলার নই, সারাদেশের উন্নয়নে কাজ করছি। জনগণকে যাতে সেবা দেয়া যায় সে জন্য আমলাদের প্রশিক্ষণ দিয়ে উপযুক্ত করছি।’

তিনি বলেন, ‘২০৪১ সালের মধ্যে আমাদের দেশ উন্নয়নশীল দেশ হবে। সে লক্ষ্যে আমলাদের প্রস্তুত করাও উন্নয়নেরই অংশ।’

তিনি আরো বলেন, যশোরকে ট্যুরিস্ট আকর্ষক জেলায় রূপান্তরে কাজ করছি। এ জেলায় অনেক দর্শনীয় ও ঐতিহাসিক স্থান আছে। ট্যুরিস্টদের জন্য সেসব স্থান উপযুক্ত করে গড়ে তোলার চেষ্টা চলছে বলে জানান তিনি।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD