1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ০২:১১ অপরাহ্ন
হেড লাইন
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার হাওর এলাকায় বোরোধান কর্তন উৎসব|| শিলাবৃষ্টি বজ্রপাত আতঙ্কে কৃষক কোম্পানীগঞ্জে শাহিন হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন সুনামগঞ্জে প্রতিপক্ষের দেওয়া আগুনে পুড়ে লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি সাধন থানায় অভিযোগ দায়ের কোম্পানীগঞ্জে বাবলুর রহস্যজনক মৃত্যু: তদন্তের দাবিতে প্রতিবাদ সভা সুনামগঞ্জের জনপ্রিয় শিল্পী পাগল হাসানসহ সড়ক দূর্ঘটনায় ২ নিহত, আহত ৩ কানাইঘাটে সর্বজন শ্রদ্ধেয় ইফজালুর রহমানের দাফন সম্পন্ন ॥ বিএনপি নেতৃবৃন্দের শোক বার্মিংহাম ওয়েষ্ট মিডল্যান্ড বিএনপি ও বার্মিংহাম সিটি বিএনপির ঈদ পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠিত বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে কানাইঘাটে মঙ্গল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত সুনামগঞ্জে আগুনে সাতটি ঘর, গরু ও গোলার ধান পুড়ে ছাই ৪০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি জগন্নাথপুরের রানীগঞ্জ ইউনিয়ন বিএনপির ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত

যাব চিরসবুজ বান্দরবানের পাহাড় চূড়ায়, ছোব মেঘ

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৫ এপ্রিল, ২০১৮
  • ১৫২৯ শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

বাংলার ভূ-স্বর্গ পার্বত্য জেলা বান্দরবান। এখানে রয়েছে ১১টি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী ও বাঙ্গালি সমপ্রদায়ের প্রায় চার লাখ মানুষের বসবাস। প্রকৃতি এ এলাকাটিকে সাজিয়েছে আপন মনের মাধুরি মিশিয়ে। বান্দরবানের গাছ গাছালি ঘেরা পাহাড়, নদী, হূদ, ঝর্ণার অমোঘ সৌন্দর্যের টানে সেখানে সারা বছর, বিশেষ করে পুরো শীত মৌসুম জুড়ে দেশি-বিদেশি পর্যটকদের ভিড় লেগেই থাকে। সেখানে গড়ে উঠেছে সরকারি-বেসরকারি বেশকিছু পর্যটন স্পট, হোটেল, রেস্তোরাঁ, রয়েছে পর্যাপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থাসহ পর্যটকদের জন্য নানা সুযোগ-সুবিধা। পর্যটকদের কাছে তাই অতি প্রিয় একটি নাম বান্দরবান।

নীলগিরিঃ আকাশ ছোঁয়ার স্বপ্ন কার না জাগে, মেঘে গা ভাসাতে ইচ্ছে কার না করে। আকাশ ছোঁয়ার স্বপ্ন পূরণ না হলেও মেঘে গা ভাসানো সম্ভব বান্দরবানে। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৩২০০ফুট উচ্চতায় অবস্থিত নীলগিরি পর্যটন স্পটে হাত বাড়ালেই মেঘ ছোঁয়া যায়। বান্দরবানের প্রধান পর্যটন স্পটগুলোর মধ্যে নীলগিরি অন্যতম। পাহাড়ি আঁকাবাঁকা সড়কের ৪৭ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে যেতে হয় চিম্বুক পাহাড় থেকে থানচি উপজেলা সড়কে আরও ২৬ কিলোমিটার। এরপরই আপনি পৌঁছে যাবেন নীলগিরি পর্যটন স্পটে। নীলগিরিতে মেঘ আর রোদের মধ্যে চলে লুকোচুরি খেলা। কখন এসে মেঘ আপনাকে ভিজিয়ে দিয়ে যাবে বুঝতেই পারবেন না। সেনা নিয়ন্ত্রিত নীলগিরিতে আকর্ষণীয় কয়েকটি কটেজে রাত যাপনেরও ব্যবস্থা আছে। আকাশনীলা, মেঘদূত এবং নীলাতানাসহ নানা নামের সুসজ্জিত কটেজগুলোর ভাড়াও খুব বেশি নয়। খাওয়া-দাওয়ারও ভালো ব্যবস্থা রয়েছে নীলগিরিতে।

মেঘলা পর্যটন কমপ্লে¬ক্সঃ বান্দরবান শহর থেকে মাত্র ৪ কিলোমিটার দূরে মেঘলা পর্যটন কেন্দ্রের অবস্থান। এখানে বিশাল লেকের উপর আকর্ষণীয় দুটি ঝুলন্ত সেতু রয়েছে। চিত্ত বিনোদনের জন্য এখানে রয়েছে ক্যাবল কার, শিশু পার্ক, সাফারি পার্ক, চিড়িয়াখানা, স্পিড বোটে ভ্রমণের সুবিধা এবং থাকার জন্য রেষ্ট হাউজ। এছাড়াও কমপ্লে¬¬ক্সে ছোট্ট পরিসরে গড়ে তোলা চা বাগান মেঘলা পর্যটন স্পটের সৌন্দর্যে যোগ করেছে অন্যরকম মাত্রা। পর্যটকদের সুবিধার্থে নিচে নামতে রাস্তার পাশাপাশি তৈরি করা হয়েছে আকর্ষণীয় সিঁড়িও।

নীলাচলঃ নীলাচল পর্যটন কেন্দ্রটিও শহর থেকে চার কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ২২০০ ফুট উচ্চতায় পাহাড়ের চূড়ায় নীলাচল পর্যটন স্পটটি দেশি-বিদেশি পর্যটকদের অত্যন্ত পছন্দের স্থান। গাড়িতে ও পায়ে হেঁটেও সহজে নীলাচলে যাওয়া যায়। পর্যটকের সুবিধার জন্য নীলাচলে নির্মাণ করা হয়েছে আকর্ষণীয় কাঁচের টাওয়ার, দৃষ্টিনন্দন সিঁড়ি, গোলঘর এবং চাইনিজ রেষ্টুরেন্ট। রাত যাপনের ব্যবস্থাও রয়েছে এখানে। নীলাচল হতে খোলা চোখে অনায়াসে দেখা যায় চট্টগ্রামের কর্ণফুলী নদী। সন্ধ্যায় নীলাচল থেকে সূর্যাস্তের দৃশ্য দেখা এক আনন্দময় অভিজ্ঞতা।

শৈল প্রপাতঃ বান্দরবানে যাবেন আর শৈল প্রপাত দেখবেন না, তা কি হয়। বান্দরবান-রুমা এবং থানছি সড়কের ৫ মাইল নামকস্থানে প্রাকৃতিক এই ঝর্ণার অবস্থান। শহর থেকে শৈল প্রপাতে যেতে সময় লাগে ২০ থেকে ২৫ মিনিট। শৈল প্রপাত ঝর্ণার স্ফটিক স্বচ্ছ পানিতে গা ভেজাতে মন ব্যাকুল হয়ে ওঠে।। রাস্তার পাশে শৈল প্রপাতের অবস্থান হওয়ায় এখানে পর্যটকদের ভিড় বেশি দেখা যায়।

বৌদ্ধ ধাতু স্বর্ণ জাদীঃ প্রায় ষোলশ’ ফুট উচ্চতায় পাহাড়ের চূড়ায় স্থাপত্যের অপূর্ব নিদর্শন বৌদ্ধ স্বর্ণ মন্দির ‘বুদ্ধ ধাতু স্বর্ণ জাদী’। বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের কাছে এটি তীর্থ স্থান হলেও পর্যটকদের কাছেও যথেষ্ট আকর্ষণীয়। বান্দরবানে বসবাসরত ১১টি পাহাড়ী জনগোষ্ঠীসহ ১৪টি সমপ্রদায়ের লোকজনের কাছেও বুদ্ধ ধাতু স্বর্ণ জাদী অত্যন্ত পবিত্র স্থান। এটিকে উপমহাদেশের অন্যতম শ্রেষ্ঠ বৌদ্ধমন্দির বলা হয়। এর নির্মাণশৈলী, কারুকার্য, স্বর্ণখচিত অবকাঠামো যে কারোরই মন কাড়ে। একশ তেইশটি সিঁড়ি ভেঙ্গে উঠতে হয় এই মন্দিরে। এখানে রয়েছে ছোট-বড় শতাধিক বৌদ্ধ মূর্তি। প্রতি বছর জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারি মাসে মন্দির এলাকায় বসে মেলা।

চিম্বুক পাহাড়ঃ বান্দরবান শহর থেকে প্রায় ২৬ কিলোমিটার দূরে চিম্বুক পাহাড়ের অবস্থান। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে চিম্বুক পাহাড়ের উচ্চতা প্রায় ৩ হাজার দুইশ ফুট। চিম্বুক পাহাড়কে ঘিরেই পাহাড়ী মুরুং (ম্রো) জনগোষ্ঠীর বাস। ষ্টেশন ও টাওয়ার স্থাপন করেছে। পর্যটকদের দৃষ্টিতে এ টাওয়ার খুবই আকর্ষণীয়। এখান থেকে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত দেখা যায়।

প্রাকৃতিক জলাশয় বগালেকঃ প্রাকৃতিক জলাশয় বগালেক সৃষ্টির পেছনে নানা কিংবদন্তী প্রচলিত রয়েছে। পাহাড়িরা এটিকে দেবতার লেক বলেও চেনে। পাহাড়ের উপরে শান বাঁধানো বেষ্টনিতে প্রায় ১৫ একর জায়গা জুড়ে বগালেকের অবস্থান। সমুদ্রপৃষ্ঠ হতে প্রায় দু’তিনশ’ ফুট উঁচু পাহাড়ে প্রাকৃতিকভাবে সৃষ্ট বগালেকটি বান্দরবানের রুমা উপজেলা সদর থেকে প্রায় ১৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। বর্ষা মৌসুমে বগালেকে যাতায়াত করা খুবই কষ্টসাধ্য ব্যাপার। তাই সেখানে শীতে যাওয়াই ভালো। শুষ্ক মৌসুমে বগালেকে মোটর সাইকেল কিংবা জীপ গাড়িতে করেও যাওয়া যায়। বগালেক যেতে সাথে শুকনো খাবার, পানি, টর্চলাইট ও জরুরী ওষুধ সাথে রাখা দরকার। পর্যটকদের রাতযাপনের সুবিধার্থে বগালেকে জেলা পরিষদের রেষ্ট হাউজ এবং স্থানীয়ভাবে আরো দুটি গেস্ট হাউজ রয়েছে।

রুমা জলপ্রপাত (রিজুক ঝর্ণা)ঃ প্রকৃতির অপূর্ব সৃষ্টি রুমা জলপ্রপাত। সব মৌসুমেই সচল রুমা জলপ্রপাতের স্বচ্ছ পানি ঝরে পড়ে সরাসরি নদীতে। নদীপথে রুমা থেকে থানছি যেতে রুমা জলপ্রপাতের (রিজুক ঝর্ণা) এ দৃশ্য চোখে পড়ে। রিজুক, রেমাক্রি ওয়াহ এবং তেছরী প্রপাত-এই তিন অপরূপা অরণ্য কন্যাকে দেখতে প্রতি বছর ভিড় করেন হাজার হাজার পর্যটক। রুমা থেকে ইঞ্জিন চালিত নৌকায় সহজেই জলপ্রপাত এবং ঝর্ণায় যাওয়া যায়।

দেশের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গঃ দেশের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ তাজিংডং বা বিজয়। এটির উচ্চতা সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে প্রায় সাড়ে ৪ হাজার ফুট। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ চূড়া কেওক্রাডং পাহাড়ের উচ্চতা প্রায় ৪ হাজার ৩৩২ ফুট। দুটি পর্বত শৃঙ্গই রুমা উপজেলায় অবস্থিত। রুমা থেকে তাজিংডং (বিজয়) চূড়ার দূরত্ব প্রায় ২৫ কিলোমিটার এবং কেওক্রাডং পাহাড়ের দূরত্ব রুমা উপজেলা থেকে প্রায় ৩০ কিলোমিটার। হেঁটে যেতে হয় পর্বত চূড়াগুলোতে। তবে শুষ্ক মৌসুমে জীপ গাড়িতে করে তাজিংডং চূড়ার কাছাকাছি পৌঁছানো সম্ভব।

কিভাবে যাবেনঃ ঢাকা-বান্দরবান সরাসরি এস আলম, শ্যামলী, ইউনিক, সৌদিয়া, হানিফ, ঈগল এবং ডলফিন সার্ভিস চালু রয়েছে। ঢাকার ফকিরাপুল, কমলাপুর এবং কলাবাগান এলাকায় বাস সার্ভিসগুলোর টিকেট কাউন্টার রয়েছে। তবে প্রতিদিন সকাল, বিকাল এবং রাতে তিনটি সময়ে গাড়িগুলোর সার্ভিস রয়েছে। ঢাকা-বান্দরবান বাস ভাড়া ৬২০ টাকা। অপরদিকে চট্টগ্রামের বহদ্দারহাট থেকে পূরবী-পূর্বাণী ননএসি এবং কদমতলী থেকে বিআরটিসি এসি বাস সার্ভিস চালু রয়েছে বান্দরবানে। বান্দরবান-চট্টগ্রাম বাস ভাড়া ননএসি ১০০ টাকা এবং এসি ১২০ টাকা। এছাড়াও চট্টগ্রাম-কক্সবাজার সড়কের কেরানীহাট স্টেশন থেকেও বান্দরবান-কেরানীহাট বাস সার্ভিস চালু রয়েছে।

কোথায় থাকবেন

হলিডে ইন রিসোর্টঃ মেঘলা পর্যটন কমপ্লেক্সের বিপরীতে ছোট্ট পাহাড়ের চূড়ায় হলিডে ইন অবস্থিত। হলিডে ইন এ রয়েছে ছোটছোট অনেকগুলো কটেজ। সপরিবারে কটেজে নিরাপদে রাত্রিযাপনের সু-ব্যবস্থা রয়েছে এখানে। হলিডে ইন এ চাইনিজ ও দেশীয় খাবারও পাওয়া যায়। হলিডে ইন এর পেছনে পার্বত্য জেলা পরিষদের দৃষ্টিনন্দন লেক। হলিডে ইনে এসি-ননএসি দু’ধরনের রুম ভাড়া পাওয়া যায়। এছাড়াও তাঁবুতে রাত্রী যাপনের ব্যবস্থাও রয়েছে এখানে। এখানে থাকতে প্রতিদিন রুম প্রতি গুনতে হবে দেড় হাজার থেকে আড়াই হাজার টাকা পর্যন্ত। যোগাযোগ – ০১৫৫৬৯৮০৪৩২, ০৩৬১-৬২৮৯৬।

মিলনছড়ি বা হিলসাইড রিসোর্টঃ বান্দরবান-চিম্বুক সড়কের ৫ কিলোমিটার দূরে মিলনছড়ি পর্যটন কেন্দ্রের অবস্থান। এখানে রয়েছে উন্নত পরিবেশে রাত্রি যাপনের সু-ব্যবস্থা। পর্যটকদের জন্য এখানে বিভিন্ন ধরনের বেশকিছু কটেজ নির্মাণ করা হয়েছে। এখানে একটি রেষু্বরেন্টও রয়েছে। রুম ভাড়া দেড় থেকে তিন হাজার টাকা পর্যন্ত। যোগাযোগ -১৫৫৬৫৩৯০২২।

পর্যটন মোটেলঃ মেঘলা পর্যটন কমপ্লে¬ক্সের পশ্চিমপাশে পর্যটন মোটেল অবস্থিত। সরকারিভাবে নির্মিত পর্যটন মোটেলটি এখন পরিচালিত হচ্ছে বেসরকারিভাবে। এখানে রয়েছে পর্যটকদের সপরিবারে থাকার সু-ব্যবস্থা। রয়েছে পর্যটন মোটেলের নিজস্ব রেষ্টুরেন্টও। এখানে রুম ভাড়া দেড় হাজার টাকা থেকে আড়াই হাজার টাকা পর্যন্ত। যোগাযোগ -০৩৬১-৬২৭৪১।

হোটেল ফোর স্টারঃ বান্দরবান শহরে অবস্থিত ফোরস্টার হোটেল। মানসম্মত ফোর স্টার হোটেলে এসি এবং নন এসি দু’ধরনের রুম রয়েছে। হোটেলের প্রতিটি কক্ষে রয়েছে টেলিভিশন। বান্দরবান জেলা কালেক্টরেট ভবনের সামনে ফোর স্টার হোটেলের অবস্থান। এখানে রুম ভাড়া ৮০০ টাকা থেকে দ’ুহাজার টাকা পর্যন্ত। যোগাযোগ-০৩৬১-৬২৪৬৬।

হোটেল থ্রি স্টারঃ বান্দরবান পৌর শহরে অবস্থিত হোটেল থ্রি স্টার। এখানে রুম নয়, ফ্ল্যাট ভাড়া দেয়া হয়। প্রতিটি ফ্ল্যাটে ৮ থেকে ১৫ জন পর্যন্ত থাকার সুযোগ রয়েছে। নিজেরা রান্না করে খাওয়ার ব্যবস্থাও রয়েছে এখানে। থ্রি স্টারে থাকতে হলে পর্যটকদের প্রতিদিন গুনতে হবে ৩ হাজার থেকে সাড়ে ৩ হাজার টাকা। যোগাযোগ-০১৮১৩২৭৮৭৩১।।

হোটেল রিভার ভিউঃ সাঙ্গু নদীর পাশে জেলা শহরের মধ্যে প্রাকৃতিক পরিবেশে গড়ে উঠেছে হোটেল রিভার ভিউ। এখানে নিজস্ব রেষ্টুরেন্টও রয়েছে। এখানে থাকতে হলে পর্যটকদের গুনতে হবে দেড় হাজার থেকে ৩ হাজার টাকা পর্যন্ত। যোগাযোগ-০৩৬১-৬২৭০৭।

আজকের স্বদেশ/মিনাজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2024
Design and developed By: Syl Service BD