1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ১২:১৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
বিশ্বনাথে পিএফজি’র মাসিক ফলো-আপ সভা অনুষ্ঠিত বাসস এর সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি পদে নিয়োগ পেলেন আল-হেলাল মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত দেওয়ান নগরে রাস্তা পাকা করণ কাজের শুভ ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করলেন পীর মিসবাহ্ এমপি মহাসড়কের আউশকান্দিতে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে আগ্নেয়াস্ত্র সহ আন্তঃজেলা ডাকাতদলের ৫ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ শান্তিগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ফারুক আহমদের সুস্থ্যতা কামনায় দোয়া That Which You Do not Know About China Cupid Could Be Charging To Significantly More Than You Think কানাইঘাটে সোস্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটি নিউ ইয়র্কের নগদ অর্থ বিতরণ যেভাবে এক বছরে অর্ধেক সম্পত্তি খোয়ালেন বিশ্বের শীর্ষ ধনী নারী সিলেটের বিদায়ী পুলিশ সুপারকে কানাইঘাট প্রেসক্লাবের সংবর্ধনা প্রদান

মিয়াদকে হত্যা করেছে মুসলেহ ও তারেক আমি নই: তোফায়েল

  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ৩০ মার্চ, ২০১৮
  • ৯৮০ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

লিডিং ইউনিভার্সিটির আইন বিভাগের ছাত্র ওমর মিয়াদ হত্যা মামলার ২ নং আসামী তোফায়েল আহমেদ দীর্ঘ ৪ মাস ২৬ দিন কারাভোগ করে গত ৬ই মার্চ হাইকোর্ট থেকে জামিন নেন। হাইকোর্ট থেকে জামিনের কাগজ সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারে ১১ই মার্চ পৌছলে ঐদিন কারাপক্ষ তাকে মুক্তি দেয়। ৪ মাস ২৬ দিনের মধ্যে তোফায়েল জেলে ছিলেন ৪ মাস ১৮ দিন, ১ দিন থানায় এবং বাকী ৭ দিন গ্রেফতারকৃত অবস্থায় চিকিৎসা নিতে পুলিশি হেফাজতে মেডিকেলে ছিলেন। তোফায়েল এমসি কলেজের অনার্স ৩য় বর্ষ গণিত বিভাগের ছাত্র। মিয়াদ ও তোফায়েল উভয়ই ছাত্রলীগের রাজনীতিতে জড়িত ছিলেন। তবে একি মামলায় তোফায়েল এর বড় ভাই ৭নং আসামী বিএনপি সমর্থক ফখরুল ইসলামও প্রায় ১ মাস কারাভোগ করেন, খোজ নিয়ে জানা গেছে তোফায়েল এর বড় ভাই ফখরুল ইসলাম সরাসরি রাজনীতির সাথে জড়িত নয়। তিনি সিলেট সিটি কর্পোরেশনে ট্রেড লাইসেন্স বিভাগে সরকারী কর্মচারী হিসাবে দ্বায়িত্ব পালন করেন।

এদিকে মুক্তির বিষয়টা নিশ্চিত হওয়ার জন্য সিলেট প্রাইমস এর প্রতিনিধি তোফায়েল এর সাথে যোগাযোগ করলে বেরিয়ে আসে ভিন্ন তথ্য। তোফায়েল মূখ খুলেন মিয়াদ এর হত্যাকান্ড নিয়ে, হত্যা কান্ডের পরপরই মিয়াদের সহযোগীদের দেখা গেছে সমাজিকভাবে প্রতিষ্ঠিত কিছু মানুষ ও সাবেক ছাত্র নেতাদের জড়িয়ে বক্তব্য ও সামাজিক গনমাধ্যমে লেখালেখি করতে। কিন্তু তোফায়েল এর বক্তব্যে উঠে আসে ভিন্ন কথা।

 

ঘটনার সূত্রপাতঃ ১৪ই অক্টোবর ২০১৭ইং রোজ শনিবার, এমসি কলেজে দুই গ্রুপের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান মিজান দৌড়ে এসে মিমাংসা করে দেন, সঙ্গে আমিও ছিলাম। কিছুক্ষন পর মিজান ভাই কলেজ গেটে গেলে শাকিল নামের এক ছেলে লাঠি সহ তাকে আক্রমন করে। এ সময় আমি দৌড়ে গিয়ে বাধা দিতে চাইলে পিছন থেকে আরেকটি ছেলে আমার মাথায় আঘাত করে। আমি তখন প্রতিরোধ করার চেষ্টা করি। এ সময় সাজু নামের বহিরাগত আরেক ছেলে এসে আমার নাকে মূখে কিল ঘুষি মারে, আমিও পাল্টা আঘাত করি। পরবর্তীতে দেলোয়ার ভাই, হাবিব ও ভাঙ্গারি সুহেল সহ কয়েকজন সংঙ্ঘবদ্ধ হয়ে আমাদের উপর আক্রমন করে। এক পর্যায়ে কলেজে ডিউটিরত পুলিশ এসে আমাদের উভয় পক্ষকে ধাওয়া করলে আমি কলেজ থেকে বের হয়ে আসি।

শাকিল

ঐদিন আমি বাসায় এসে আমার ফেইসবুকে একটি পোষ্ট করি বহিরাগত সন্ত্রাসীদের বিরোধিতা করে, যারা এমসি কলেজ এর ছাত্র না হয়েও এমসি কলেজ ছাত্রলীগের রাজনৈতিক সকল কার্যক্রমে সক্রিয় থাকে এবং বিভিন্ন সমস্যার সৃষ্টি করে আর দূর্নাম হয় কলেজ কতৃপক্ষ এবং ছাত্র সংগঠনের। ১৫ তারিখ রাতে ঐ স্ট্যাটাসে পাল্টাপাল্টি কমেন্টসে আমার কথা কাটাকাটি হয় দেলোয়ার ভাই, হোসেন ও ভাঙ্গারী সুহেল এর সাথে।

ঐ দিন রাত্রে মুসলেহ নামের এক ছেলে আমাকে হুমকি দিয়ে ইনবক্স করে। ব্যাক্তিগত ভাবে আমি থাকে চিনতাম না। তার প্রোফাইলে ঢুকে বুঝতে পারলাম যে, সে সিলেট জেলা শাখার বিলুপ্ত কমিটির সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিরন মাহমুদ নিপুর কর্মী। শুরুতে আমিও তাকে পাল্টা ইনবক্সে জবাব দেই, কিন্তু খোঁজ নিয়ে যখন জানলাম সে কলোনীর ছেলে, হিরন মাহমুদ নিপুর বাসায় কাজ করে তখন আর কথা বাড়াইনি, সাথে সাথে তাকে ব্লক দিয়েছি।

পরদিন অর্থাৎ ১৬ তারিখ যথারিতী আমি রায়নগর গিয়েছি আমার ছাত্র পড়াতে। কিন্তু ছাত্রের মা বিশেষ কারণ বশত; আমাকে পড়াতে নিষেধ করলে আমি রায়নগের আমার এক বন্ধু বাসায় যাই, এবং কিছুক্ষন গল্প গুজব করি। বের হয়ে বাসায় যাওয়ার সময় রনজিত দার গ্রুপের কয়েকজন কর্মী আমাকে রাস্তায় দেখে, তাদের মধ্যে আমি শুধু প্রিতম দাস কে চিনি বাকীদের চিনিনা। পরে আমার সন্দেহ হয় এরা হয়তো আমাকে আক্রমন করতে পারে তাই আমি বাসায় না গিয়ে বন্দর বাজার চলে যাই।

প্রিতম দাস

বন্দর বাজারে নামার পর দেখি কলেজে মিজান ভাইকে যে ছেলে লাঠি নিয়ে আক্রমন করেছিলো ঐ ছেলে শাকিল আমার পাশ দিয়ে মটর সাইকেল চড়ে যায়। আমি দেরি না করে দ্রুত অন্য একটি সিএনজিতে উঠে টিলাগড়ের উদ্দেশ্যে রওনা দেই। এবং টিলাগড় পয়েন্টে না গিয়ে আমি টিলাগড় পয়েন্ট সংলগ্ন মসজিদের গলিতে সিএনজি থেকে নামি।

এবং ১ নাম্বার রোড দিয়ে মিরাপাড়া ঢোকার চেষ্টা করি। গলির ভিতর পৌছার আগেই ৪/৫টা মটর বাইকে চড়ে আসা কয়েকটা ছেলে আমাকে ঘিরে ফেলে। কোনকিছু বুঝে উঠার আগেই একজন আমাকে পাঞ্চ দিয়ে আঘাত করে। দ্বিতীয়বার আমাকে আঘাত করতে চাইলে আমি তাকে ধাক্কা দিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যেতে চাই। কিন্তু পালাতে পারিনি, পিছন থেকে একটা ছেলে আমার টিশার্টে ঝাপটা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আমি হোচট খেয়ে মাটিতে পড়ে যাই, এবং স্বজোরে চিৎকার করতে থাকি।

তারা জটলা বেধেঁ আমাকে উস্টা ও লাথি মারতে থাকে। আক্রমনকারীদের মধ্যে আমি শুধু মুসলেহ কে চিনতাম আগ থেকে আর কাউকে না। এমনকি মিয়াদকেও আমি চিনতাম না।

মুসলেহ

এক পর্যায়ে আমি দুইজন ধাক্কা দিয়ে উঠে দৌড় দেই পশ্চিম দিকে। তারাও আমার পিছে দৌড়াতে থাকে। এক সময় আমি ঘুরে আমার পিছে থাকা এক জনকে লাথি মারি। সে তার হাতে থাকা ছুরি দিয়ে আমাকে স্টেপ করতে গিয়ে হোচট খেয়ে আমার দিকে পড়ার আগে আমি তাকে দুই হাতে ঝাপটে ধরি। আমার বুকের সাথে তার পিঠ চেপে ধরে তাকে দিয়ে বাকীদের আক্রমন প্রতিহত করার চেষ্টা করি। এ সময় মুসলেহ আমাকে ছুরি দিয়ে ঘাই মারে, যা আমার আঙ্গুল কেটে ঐ ছেলের বুকে পড়ে, সম্ভবত সেই মিয়াদ। যাকে আমি ঝাপটে ধরেছিলাম। পরবর্তীতে আমি তাকে ধাক্কা দিয়ে তাদের (আক্রমনকারীদের) উপর ফেলে দিয়ে দৌড় দিতে গিয়ে মাটিতে পড়ে যাই। তখন লম্বা কালো একটি ছেলে, (ঘটনার পরে ফেইসবুকে ছবি দেখে চিনতে পারি) তারেক ছুরি দিয়ে আমাকে আঘাত করতে আসলে আমি বাম হাত দিয়ে আটকানোর চেষ্টা করি, এবং ছুরিটি আমার বা হাতে ঢুকে আটকে যায় এবং ফিনকি দিয়ে রক্ত বের হতে থাকে। তা দেখে আমি অজ্ঞান হয়ে যাই। জ্ঞান ফেরার পরে জেনেছি আতিক ভাই ও আফজাল ভাই এসে আমাকে উদ্ধার করেছেন।

তারেক

ঘটনার কিছুক্ষন পর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপিত হোসেইন চৌধুরী আমার বড় ভাই ফখরুল ইসলামকে ফোন দিয়ে বলে যে আমার দুই হাত কাটা গেছে তাড়াতাড়ি হাসপাতালে আসতে। তিনি খবর পেয়ে সিলেট সিটি কর্পোরেশন থেকে দ্রুত হাসপাতালে ছুটে আসেন। এদিকে আগ থেকে উৎ পেতে থাকা হোসেইন ও বেলাল আহমদ রাজু যে আগে উপশহরের দিনার গ্রপের কর্মী ছিলো বর্তমানে ছাত্রলীগ করে তারা দুই জন ও তাদের সহযোগীরা আমার নিরপরাধ ভাইকে ছুরি দিয়ে আঘাত করে এবং অনেক মারধর করে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। ঐ মারধরের দৃশ্য পুলিশ ভিডিও করে।

হোসেইন

কিভাবে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে জানতে চাইলে তোফায়েল সিলেট প্রাইমসকে জানান ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাকে গ্রেফতার করা হয়। এবং তাকে ধরিয়ে দিতে পুলিশকে সাহায্য করেছেন উল্লেখ করে সাবেক এক ছাত্র নেতার বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন।

তোফায়েল বলেন গ্রেফতার করে তাকে প্রথমে সিলেট নিয়ে আসা হয়, পুলিশ রিমান্ড এর আবেদন করলে আদালত ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। পরবর্তীতে তাকে শাহপরান (রঃ) থানায় নিয়ে গিয়ে রিমান্ডের নামে অমানবিক নির্যাতন করা হয়, তোফায়েল বলেন এই নির্যাতনের কথা মনে পড়লে এখনো আতঁকে উঠি। তিনি কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন আমার পায়খানার রাস্তা দিয়ে ইলেকট্রিক শক পর্যন্ত দেওয়া হয়েছে। এক পর্যায়ে আমি গুরত্বর অসুস্থ হয়ে পড়ি।

তোফায়েল বলেন, প্রথমে আমাকে বলা হয় আমি যেন স্বীকার করি আত্মরক্ষার স্বার্থে মিয়াদকে হত্যা করেছি, তাতে আমি রাজি হয়নি দেখে আমাকে দিয়ে স্বীকারোক্তি প্রদানের চেষ্টা করা হয়, যাতে আমি বলি জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক রায়হান চৌধুরীর নেতৃত্বে মিয়াদকে হত্যা করা হয়েছে। তাতেও আমি রাজি না হওয়ায় অজ্ঞাত প্রায় ৬০ থেকে ৭০ জনের নাম উল্লেখ করে ১৬৪ ধারা আদালতে জবানবন্দি দেওয়ার কথা বলা হয়। তাতেও আমি অপারগতা প্রকাশ করায় আমার প্রতি অমানুষিক নির্যাতন করা হয়। নির্যাতনে আমি অসুস্থ হয়ে পড়লে আমাকে ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এবং টানা ৭ দিন পুলিশি হেফাজতে চিকিৎসা নিতে হয়েছে আমাকে।

তোফায়েল দুঃখ প্রকাশ করে বলেন আজকে আমাকে ছাত্রদলের কর্মী বানানোর চেষ্টা করা হচ্ছে, অথচ আমার পুরো পরিবারই আওয়ামী রাজনীতির সাথে জড়িত। তোফায়েল বলেন আমার চাচা আব্দুল হালিম জকিগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভপাতি, বড় ভাই বদরুল আলম আফজাল শ্রমিকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক, এবং বোন জামাই রফিক আহমদ জকিগঞ্জ উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক। শুধুমাত্র বড় এক ভাই বিএনপির সমর্থক হওয়ায় আমাকেও ছাত্রদলের কর্মী বলা হয়েছে।

মিয়াদ হত্যার ব্যাপারে জানতে চাইলে তোফায়েল দাবী করেন আমি নিরস্ত্র এবং একা ছিলাম, বরং মিয়াদ ও তার সহযোগীরা ধারালো ছুরি নিয়ে আমার উপর আক্রমন করে। আমি নিশ্চিত মিয়াদের সহপাঠী মুসলেহ এবং তারেক এই দুই জনের যেকোন একজনের ছুরিঘাতে মিয়াদ নিহত হয়েছে। কারণ এই দুই জনের হাতেই ছুরি ছিলো। তোফায়েল বলেন আসলে হত্যা এমন এক অপরাধ যা কোন ভাবেই গোপন থাকেনা, আজ হোক কাল হোক প্রকৃত খুনি কে? তা অবশ্যই প্রকাশ হবে। তবে মাঝখান থেকে আমার অপূর্নীয় ক্ষতি হয়ে গেছে। তার বিচারও আল্লাহ করবে।

একান্ত আলাপের এক পর্যায়ে মিয়াদ ও তার সহযোগীদের আঘাতে তোফায়েল তার হাতে বিভিন্ন আঘাতের চিহ্ন দেখান, তিনি বলেন মিয়াদ ছিলো ছাত্রলীগে অনুপ্রবেশকারীদের একজন। জেলে থাকা অবস্থায় অনেক জামাত শিবিরের নেতার সাথে আমার কথা হয়েছে। তাদের মধ্যে জিয়াউল ইসলাম নাদের একজন। তিনি বলেছেন মিয়াদ ছিলো শিবিরের কর্মী আমার ছেলের বন্ধু, মিয়াদের মৃত্যু নিয়ে আমার ছেলে তার ফেইসবুক একাউন্ট থেকে একটি স্ট্যাটাসও দিয়েছে; “যে ছেলেটি নিজের জান বাঁচানোর জন্য শিবির থেকে ছাত্রলীগে যোগ দিয়েছে সেই ছেলেটি ছাত্রলীগ নামধারীক ক্ষতিপয় ক্যাডারদের হাতে নিহত হলো”

এছাড়া মিয়াদের দুই ভাই রিয়াদ ও মুছলেহ ও শিবিরের কর্মী, তারা মিরা বাজার জামেয়া ইসলামিয়া স্কুল এন্ড কলেজে পড়ে। মিয়াদের নামে থানায় একাধিক মামলাও রয়েছে বলে তিনি জানান।

সবশেষে তোফায়েল গনমাধ্যমকে অনুরোধ করেন এই বিষয়টি প্রকাশ করার, তার পাশে দাড়াঁনোর জন্য বিশেষ অনুরোধ করেছেন। তোফায়েলের দাবী মিয়াদকে হত্যা করেছে মুসলেহ, তারেক ও মিয়াদের সঙ্গীরা। এরা বালুচরের চিহ্নিত সন্ত্রাসী, শীর্ষ চাঁদাবাজ বহু মামলার আসামী হিরন মাহমুদ নিপুর লোক।

এদের জিঙ্গাসাবাদ করলে মিয়াদের প্রকৃত খুনি কে জানা যাবে। এছাড়া এ ব্যাপারে তোফায়েল মানবধিকার সংগঠনের সহযোগিতার পাশাপাশি পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের সহযোগিতা নিবেন বলে জানান আমাদের প্রতিনিধিকে।

তথ্যসূত্র‍‍ঃ http://sylhetprimes.com/?p=533

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD