Logo

April 10, 2021, 10:17 pm

সংবাদ শিরোনাম :
«» প্রেমিকের সঙ্গে স্ত্রীকে বিয়ে দিলেন স্বামী «» সরকারের কারণেই করোনা বেড়ে গেছে: ফখরুল «» দ. সুনামগঞ্জে হাজী সায়েস্তা খাঁন ও মাহদী চ্যারিটেবল ট্রাস্ট‘র উদ্যোগে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ «» সুনামগঞ্জ জেলা যুবলীগের উদ্যোগে মাস্ক ও হেন্ড সেনিটাইজার বিতরণ «» দ. সুনামগঞ্জে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছে আমানাহ এইড «» বিশিষ্ট সাংবাদিক হাসান শাহারিয়ার মৃত্যুতে সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের শোক প্রকাশ «» বাহুবলে এম পি মিলাদ গাজীর সুস্হতা কামনায় মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত «» যাদুকাটা নদীর পাড়ে জব্দকৃত বালু-পাথর নিলামে বিক্রি করার দাবী স্থানীয়দের «» জগন্নাথপুরে ১৫০টি পরিবারের মধ্যে ইফতার সামগ্রী বিতরণ «» একদিনে সর্বোচ্চ ৭৭ জনের মৃত্যুর রেকর্ড

পৌর নগরিতে ঢিলেঢালা লকডাউন , জনগনের মাঝে নেই সচেতনতা

অতিথি প্রতিনিধি ::

দ্বিতীয় দিনের মত জগন্নাথপুরে চলমান  লকডাউন। অথছ,  এই লকডাউনের কোনো প্রভাব পড়েনি নগরির পৌর বাজারে  বিভিন্ন দোকান পাঠে। সবকিছুই যেনো ঠিক আগের মতোই রয়ে গেছে।

বাজারের  সবগুলো  বিপনী বিতানগুলো হচ্ছে বেচা- কেনে ক্রেতার ছিল আগের মত।  রাস্তা ব্যবহার করে ভিতরে খোলা রয়েছে সীমিত দোকানপাট। অবশ্যই সেগুলো খুব জরুরী ভিত্তিতে খোলা হয়েছে এবং তা সীমিত সময়ের জন্য বলে জানিয়েছেন দোকান মালিকগণ।

 

চায়ের দোকানে  ছিল চা পিপাষুকদের বিড় চলছে জনগনের মাঝে বাকবিতর্ক  । জণগেনর মাঝে নেই সচেতনতা।

এছাড়াও বাজারে পুটপাতে সবজি দোকানগুলো ক্রেতারা স্বাস্থ্য বিধি না মেনে চলছে বেচা কেনা ।  সকাল থেকে ছোট ছোট খাবারের খুলা রয়েছে। বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে অনেককে হোটেলে বসে খেতেও দেখা গেছে। সকাল ৮টা থেকে বসেছে নিত্যপ্রয়োজনীয় ও কাঁচাপণ্যের বাজার।

এদিকে লকডাউনের প্রথম দিন মঙলবার ভোর থেকেই নগরের বিভিন্ন সড়কে প্যাডেল রিকশা, ব্যাটারি চালিত রিকশা ও অটোরিকশা ব্যাপক, সিএনজি যাতায়াত চোখে পড়ে।

 

জেলা ভিত্তিক দূরবর্তী যাতায়াতের ক্ষেত্রে সিএনজি কে বেছে নিয়েছেন যাত্রীরা। আর কাছাকাছি যাওয়া আসার জন্য মূলত ব্যাটারি চালিত বা প্যাডেল রিকশাই ব্যবহার হচ্ছে বেশি। সেইসাথে প্রাইভেট  গাড়িও চলতে দেখাগেছে পৌর নগরের বিভিন্ন সড়কে।

 

সরকারের  সিদ্ধান্ত মতে বাজারের কোনো ব্যবসা প্রতিষ্ঠান না খোলার কথা থাকলেও বিভিন্ন এলাকা ঘুরে এর বাস্তবতা তেমন একটা লক্ষ্য করা যায়নি।

এদিকে সরকারের তরফ থেকে জানানো হয়েছিল- লকডাউনে আরও কঠোর অবস্থানে থাকবে প্রশাসন। স্বাস্থ্যবিধি মানাতে তারা মাঠে কাজ করবেন। প্রয়োজনে মোবাইল কোর্ট চালানো হবে।

 

লকডাউনের ২য় দিনে  কোথাও এমন দৃশ্য চোখে পড়েনি।  বিভিন্ন স্থানে টহলে থাকা পুলিশ সদস্যদের  থাকতে দেখা যায় নি ।  এমনকি লকডাউন ও স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতে কোনো তৎপরতা চালাতেও দেখা যায়নি তাদের।

অপরদিকে নগরের স্বাস্থ্যবিধি মানাতে মাঠে নামে উপজেলা প্রশাসন ভ্রাম্যমাণ আদালত। স্বাস্থ্যবিধি মেনে মানুষের চলাচল নিশ্চিত করতে নগরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়কে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে।

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/তালুকদার