Logo

April 10, 2021, 11:03 pm

সংবাদ শিরোনাম :
«» প্রেমিকের সঙ্গে স্ত্রীকে বিয়ে দিলেন স্বামী «» সরকারের কারণেই করোনা বেড়ে গেছে: ফখরুল «» দ. সুনামগঞ্জে হাজী সায়েস্তা খাঁন ও মাহদী চ্যারিটেবল ট্রাস্ট‘র উদ্যোগে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ «» সুনামগঞ্জ জেলা যুবলীগের উদ্যোগে মাস্ক ও হেন্ড সেনিটাইজার বিতরণ «» দ. সুনামগঞ্জে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছে আমানাহ এইড «» বিশিষ্ট সাংবাদিক হাসান শাহারিয়ার মৃত্যুতে সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের শোক প্রকাশ «» বাহুবলে এম পি মিলাদ গাজীর সুস্হতা কামনায় মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত «» যাদুকাটা নদীর পাড়ে জব্দকৃত বালু-পাথর নিলামে বিক্রি করার দাবী স্থানীয়দের «» জগন্নাথপুরে ১৫০টি পরিবারের মধ্যে ইফতার সামগ্রী বিতরণ «» একদিনে সর্বোচ্চ ৭৭ জনের মৃত্যুর রেকর্ড

জগন্নাথপুরে ফসলরক্ষা বাঁধ নির্মানের সময়সীমা পেরিয়ে গেলেও শেষ হয়নি বাঁধের কাজ : থামছেনা নাটকীয়তা

জহিরুল ইসলাম লাল, জগন্নাথপুরঃ

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে হাওর ফসলরক্ষা বাঁধ নির্মাণ ও সংস্কার কাজ গত ২৮ ফেব্রুয়ারী শেষ করার কথা থাকলেও নির্ধারিত সময়সীমার ৮দিন পেরিয়ে গেলেও বাঁধের কাজ এখনো শেষ হয়নি। সোমবার (৮ মার্চ) পর্যন্ত জগন্নাথপুর উপজেলায় মাটি ভরাটের কাজ প্রায় ৬০ শতাংশ শেষ হয়েছে বলে স্থানীয় কৃষকরা জানান। তবে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ বলছে ৯৫ শতাংশ কাজ ইতিমধো সম্পন্ন হয়েছে।

 

 

 

হাওরপাড়ের কৃষকদের সাথে আলাপ করে জানাযায়, জগন্নাথপুরে হাওররক্ষা বেড়িবাঁধ প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি (পি আই সি) গঠন নিয়ে শুরু থেকে অনিয়মের অভিযোগ উঠে। আওয়ামীলীগ নামধারী কিছু স্বার্থানেষীরা প্রতি বছরের ন্যায় এবারও কাজ ভাগিয়ে নেয়।বিগত বছরে বাঁধের কাজে মুনাফা হয়নি বললেও বার বার একই ব্যাক্তিরা এবারও কাজ নিয়েছেন। ফলে পিআইসির কতিপয়দের থামছেনা নাটকীয়তা। এ নিয়ে জনমনে প্রশ্ন রয়েছে, কাজে যদি লোকসান হয় তাহলে তারা কাজ নেয়ার জন্য এত তৎপর কেন? । নামে বেনামে এসব কাজে তারাই সংশ্লিষ্ট।

 

 

 

 

 

 

অনুসন্ধানে দেখা যায়, সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সহযোগিতায় সকল কর্মকান্ডে তাদের কোন না কোন ভাবে সংশ্লিষ্টতা রয়েছে। এসব স্বার্থানেষীরা সংশ্লিষ্ট পাউবোর কতিপয় দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের যোগসাজসে সরকার কতৃক বরাদ্ধকৃত কৃষকের ফসল রক্ষার টাকা ভাগ-ভাটোয়ারা করার পায়ঁতারা করেছে বলে অভিযোগ উটেছে। এদিকে উপজেলার কিছু প্রকল্পে মাটি কাঁটার কাজ শেষ হয়েছে তবে এসব প্রকল্পে বাকী রয়েছে দুরমুজ দিয়ে মাটি শক্ত করা, ঘাস ও কলমি গাছ লাগানো। গত রবিবারের বৃষ্টি আর আকাশে মেঘ দেখে এখন শংকিত রয়েছেন কৃষকরা।

 

 

 

 

কৃষকদের দাবী, অনিয়ম, ভাগ- ভাটোয়ারার পায়ঁতারা ও গাফিলতির কারণে নির্ধারিত সময়ে প্রকল্পের কাজ শেষ হয়নি। কাজের মান নিয়েও কৃষকদের মধ্যে চরম অসন্তোষ রয়েছে। কোন কোন বাঁধে কাজ করা হয়েছে বালু মাটি দিয়ে, যার ফলে বাঁধের কাজ হয়েছে দুর্বল । ৫, ৬,৭ নং পি আই সি সহ কয়েকটি বাঁধ বৃষ্টিতে কিছু অংশে ফাটল দেখা দিয়েছে। গত ২দিনের বৃষ্টিপাত আর আকাশে মেঘ দেখা দেওয়ায় উপজেলার কৃষকদের মাঝে দেখা দিয়েছে চরম আতঙ্ক। ফসল হানির আশংকায় নিরঘুম রাত কাটছে উপজেলার কৃষকদের।

 

 

 

 

 

 

পানি উন্নয়ন বোর্ড জগন্নাথপুর উপজেলার উপ সহকারী প্রকৌশলী হাসান গাজী বলেন, বৃষ্টির পর যেসব বেড়িবাঁধে কিছু ত্রুটি দেখা দিয়েছে সেগুলো সংস্কার করা হবে। তিনি বলেন, হাওর ঘুরে বড় ধরনের কোন ফাটল কিংবা ধসের ঘটনা চোঁখে পড়েনি। ছোট খাটো ত্রুটি পিআইসিদের বলা হয়েছে ঠিক করার জন্য। বাঁধ মেরামত কাজ তদারকির দায়িত্বে থাকা পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) কর্মকর্তারা জানান ,আমরা ঠিকমতোই বাঁধ মেরামত কাজের তদারকি করে যাচ্ছি। ৩৭ টি বেঁড়ি বাঁধের মধ্যে ২৬ টি বাঁধের মাটির কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

 

 

 

 

 

 

জগন্নাথপুর উপজেলা কাবিটা প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: মেহেদী হাসান বলেন বাঁধ মেরামত কাজে অনিয়ম ও গাফিলতির কারন খোঁজে বের করে পিআইসি সংশ্লিষ্টদের নোটিশ প্রদান করা হবে। তিনি আরো বলেন, বাঁধ মেরামত কাজে কোনো ধরনের গফিলতি করা হলে আমরা কাউকেই ছাড় দেব না। ঝুকিপূর্ন পিআইসির কাজ সার্বক্ষনিক তদারকি করে যাচ্ছি। আশা করি আগামী ১৫ মার্চের মধ্যে সবকটি বাঁধের কাজ সমাপ্তি করতে পারবো। এব্যাপারে উপজেলার কৃষকরা বেড়িবাঁধের কাজ দ্রুত শেষ করে বন্যায় ফসলহানির হাত থেকে রক্ষা করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সু-দৃষ্টি কামনা করছেন।

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/তালুকদার