Logo

April 10, 2021, 9:39 pm

সংবাদ শিরোনাম :
«» প্রেমিকের সঙ্গে স্ত্রীকে বিয়ে দিলেন স্বামী «» সরকারের কারণেই করোনা বেড়ে গেছে: ফখরুল «» দ. সুনামগঞ্জে হাজী সায়েস্তা খাঁন ও মাহদী চ্যারিটেবল ট্রাস্ট‘র উদ্যোগে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ «» সুনামগঞ্জ জেলা যুবলীগের উদ্যোগে মাস্ক ও হেন্ড সেনিটাইজার বিতরণ «» দ. সুনামগঞ্জে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছে আমানাহ এইড «» বিশিষ্ট সাংবাদিক হাসান শাহারিয়ার মৃত্যুতে সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের শোক প্রকাশ «» বাহুবলে এম পি মিলাদ গাজীর সুস্হতা কামনায় মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত «» যাদুকাটা নদীর পাড়ে জব্দকৃত বালু-পাথর নিলামে বিক্রি করার দাবী স্থানীয়দের «» জগন্নাথপুরে ১৫০টি পরিবারের মধ্যে ইফতার সামগ্রী বিতরণ «» একদিনে সর্বোচ্চ ৭৭ জনের মৃত্যুর রেকর্ড

তিস্তা চুক্তির ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত!

স্বদেশ ডেস্ক::

ভারতের কেন্দ্র সরকার বলছে, তিস্তার পানি বণ্টন নিয়ে রাজ্যের সঙ্গে চলছে আলোচনা আর রাজ্য বলছে- সবার আগে নিজেদের অধিকার।

রোববার (৭ মার্চ) ভারতের শিলিগুড়ির নির্বাচনী জনসভায়ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, তাদের ন্যায্য হিস্যা বুঝে না নিয়ে তিস্তা চুক্তি নয়।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

এদিকে, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষকরা মনে করেন, ভারতের অভ্যন্তরীণ রাজনীতির এমন একটা জটিল অবস্থায় অনিশ্চিত হতে বসেছে বহুল আলোচিত তিস্তা চুক্তির ভবিষ্যৎ।

তিস্তা যেন এক বেদনার নাম। বহু আলোচনা আর কূটনৈতিক তৎপরতার সাক্ষী কিন্তু তাতে পানি বা জল আর গড়ায় না। দুই পক্ষের আলোচনা আর সম্পর্কের ভিত্তিতে চুক্তি হতে পারতো বহু বছর আগেই। ২০১৩ সালে নরেন্দ্র মোদি ঢাকা সফরের সময় সাথে করে নিয়েও এসেছিলেনপশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। শেষ পর্যন্ত সেখানে হয়নি। এরপর বছরের পর বছর ধরে ঝুলে আছে চুক্তির বিষয়।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

সবশেষ ৪ মার্চ ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ঢাকা সফরে আবারও প্রশ্নটি এলে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর জানিয়েছিলেন, চুক্তির অবস্থানে অটল আছেন তারা। ওইদিন তিনি জানান তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তি নিয়ে ভারত সরকার যে আশ্বাস দিয়েছিল সেই অবস্থানের পরিবর্তন হবে না।

কিন্তু কী করে হবে? যে পশ্চিমবঙ্গের সাথে আলোচনার কথা বলছে কেন্দ্র, সেখানকার মুখ্যমন্ত্রী আপসহীন তিস্তা নিয়ে। স্পষ্ট করেছেন আবারও নিজের অবস্থান।

 

 

 

 

 

 

 

 

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, তিস্তা নিয়ে কোনো আপস হবে না। বাংলা ও উত্তরবঙ্গের মানুষের হিস্যা তিস্তা।

ব্যক্তিগতভাবে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ভালো সম্পর্ক থাকার কথাও স্মরণ করে মমতা বলেন, একটা নির্বাচিত সরকার রয়েছে কিন্তু তাকে পাশ কাটিয়ে সব দিয়ে দেওয়া হচ্ছে। এটা কোনোভাবে বরদাস্ত করা হবে না। এসময় তার শরীরী ভাষা ছিল ভীষণ রাগান্বিত।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

মমতা বলেন, হঠাৎ করে বলা হলো তিস্তার জল দিয়ে দাও। আরে ভাই রাজ্যকে জিজ্ঞাসা করলো না। আমার সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ক সবচেয়ে ভাল। আমি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে শ্রদ্ধা জানাই, সালাম জানাই। একটা রাজ্য সরকার আছে। তুমি হঠাৎ গিয়ে বলে আসছো রাজ্যটাকে বিক্রি করে দেবে! অত সস্তা নয় ভাই। তিস্তা উত্তরবঙ্গের হিস্যা। বাংলার হিস্যা।

এ বিষয়ে বিশ্লেষকরা মনে করছেন, তিস্তা নিয়ে নির্বাচনী কৌশল হিসেবে রাজনীতি হচ্ছে ভারতে।

 

 

 

 

 

 

রোববার (৭ মার্চ) সময় সংবাদকে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক সাহাব আনাম খান বলেন, তিস্তার মতো বিষয়গুলো মীমাংসা হওয়ার সম্ভবনা পুরোটাই তাদের অভ্যন্তরীণ রাজনীতির গতি প্রকৃতি এবং সেখানে যে রাজনৈতিক উপাদান আছে তার ওপর নির্ভরশীল।

পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচনের ফলাফলের সাথে তিস্তা চুক্তির ভবিষ্যৎ জড়িত বলেও মনে করছেন আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষকরা। সূত্র: সময় সংবাদ

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জে.এম