Logo

April 10, 2021, 10:32 pm

সংবাদ শিরোনাম :
«» প্রেমিকের সঙ্গে স্ত্রীকে বিয়ে দিলেন স্বামী «» সরকারের কারণেই করোনা বেড়ে গেছে: ফখরুল «» দ. সুনামগঞ্জে হাজী সায়েস্তা খাঁন ও মাহদী চ্যারিটেবল ট্রাস্ট‘র উদ্যোগে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ «» সুনামগঞ্জ জেলা যুবলীগের উদ্যোগে মাস্ক ও হেন্ড সেনিটাইজার বিতরণ «» দ. সুনামগঞ্জে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছে আমানাহ এইড «» বিশিষ্ট সাংবাদিক হাসান শাহারিয়ার মৃত্যুতে সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের শোক প্রকাশ «» বাহুবলে এম পি মিলাদ গাজীর সুস্হতা কামনায় মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত «» যাদুকাটা নদীর পাড়ে জব্দকৃত বালু-পাথর নিলামে বিক্রি করার দাবী স্থানীয়দের «» জগন্নাথপুরে ১৫০টি পরিবারের মধ্যে ইফতার সামগ্রী বিতরণ «» একদিনে সর্বোচ্চ ৭৭ জনের মৃত্যুর রেকর্ড

দ. সুনামগঞ্জে জোরা খুনের ঘটনায় মামলা: খুনি একাধিক রয়েছেন দাবি পরিবারের

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি::

দক্ষিণ সুনামগঞ্জে ছুরিকাঘাতে জোরা খুনের ঘটনায় ১ জনের নামে মামলা হওয়ায় খুনী একাধিক রয়েছে বলে নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ উঠেছে।

 

 

বৃহস্পতিবার (৫ মার্চ) বিকালে সরেজমিন উপজেলার জয়কলস ইউনিয়নের জয়কলস গ্রামের সদ্য খুন হওয়া দীপু বিশ্বাস ও যামিনী বিশ্বাসের বাড়ীতে গিয়ে খুন হওয়ার বিয়য়ে জানতে চাইলে দীপু বিশ্বাসের স্ত্রী বেবী রানী বিশ্বাস কান্নাজরিত কন্ঠে তাহার স্বামীর খুনীদের ফাঁসির দাবী করে বলেন, আমার স্বামী সদ্য ওমান থেকে দেশে এসেছেন আমাদের গ্রামের কৃঞ্চমাস্য দাশের ছেলে বাবুল মাস্য দাস, মৃত শৈলেন্দ্র তালুকদার পান্থর ছেলে নিউটন তালুকদার, মৃত রমন বিশ্ববাসের ছেলে রন বিশ্বাস , হরিদাস তালুকদারের ছেলে মিলু তালুকদার বাঘা ও বিনয় গোস্বামীর ছেলে গৌরপদ গোস্বামীর কাছে হাওলাতী টাকা পাইতেন আমার স্বামী, এবং ঘটনার দিন ও আমার স্বামীর সাথে ৩০ হাজার টাকা ছিল। এই টাকাকে কেন্দ্র করেই তাহারা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে সংঘবদ্ধ হয়ে আমার স্বামীকে ছুরিকাঘাত করে খুন করেছে এই সময় আমার স্বামীর বোন জামাই যামিনী বিশ্বাস এগিয়ে আসছে উনাকেও ছুরিকাঘাত করার ৩ দিন পর হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেছেন তিনিও। এই খুনীদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানান তিনি।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

বেবী রানী আরও জানান, আমার স্বামীর মৃত্যুর খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যাওয়ার পর জোরপূর্বক থানা পুলিশ আমাকে থানায় নিয়ে কাগজে একটি স্বাক্ষর নেন, তখন আমি বারবার অন্যান্য আসামীদের নাম বললেও তারা একজনের নামে মামলা দিয়েছেন বলে আমরা পরে জানতে পেরেছি। একই কথা বলেন দীপু  বিশ্বাসের বড় ভাই দিলু বিশ্বাস। তাদের দাবী একজন লোক দুই জনকে খুন করতে পারে না।

 

 

তারা আরও জানান, ঘটনার কয়েক মিনিট আগে নামাংকিত ৫ জন দীপু বিশ্বাসের সাথে নিয়ে তাদের বাড়ী থেকে বের হয়ে যায়। যামিনী বিশ্বাসের স্ত্রী ছায়া রানী বিশ্বাস ও তাহার পরিবারের লোকজন ও দীপু বিশ্বাস ও যামিনী বিশ্বাসের হত্যাকারীদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানান।

 

ঘটনার পর থেকে থানা প্রশাসনের কেউ তাদের বাড়ীতে যাননি এবং বিষয়টি গভীরভাবে তদন্ত করার কোন পদক্ষেপ না থাকায় উদ্দীগ্ন নিহতের পরিবার। অনতি বিলম্বে খুনের সাথে জড়িত অন্যান্যদেরকে আইনের আওতায় এনে এজাহারে অন্তর্ভূক্ত করে দ্রুত গ্রেফতার করার দাবীও জানান নিহতের পরিবার।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

তবে এ ঘটনায় এলাকাবাসী মুখ খুলতে নারাজ। ঘটনার সাথে জড়িত ৫ জনের নাম উল্লেখ করেন নিহত দীপু বিশ্বাসের ভাই দীলু বিশ্বাস ও তাহার আত্মীয় স্বজন।

 

দিলু বিশ্বাস বলেন, আমাদের গ্রামের গৌতম রায়ের বাড়ীর সামনে ২৫ ফেব্রুয়ারী রাতে কীর্তন চলছিল, ঐদিন সন্ধ্যারাতে জড়িতরা আমার ভাই দিপু বিশ্বাসের সাথেই ছিল, পরিকল্পিতভাবে আমার ভাইকে ঐ পাঁচজন হাতপা বেঁধে বাঁশ ঝাড়ের আড়ালে নিয়ে পেটের মধ্যে ৯ টি ছুরিকাঘাত করে হত্যা করে । এই সময় আমার বোন জামাই নিহত যামিনী বিশ্বাস আমার ভাইকে হত্যা করার সময় দেখে ফেললে তাকেও ধরে পেটের মধ্যে ৪ টি ছুরিকাঘাত করে হত্যাকারীরা।

 

ঘটনার ৩ তিন পর মুমুর্ষ অবস্থায় চিকিৎসাধীন থাকার পর যামিনী বিশ্বাস সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান। তিনি এ সময় এই হৃদয় বিদারক ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে কান্নায় বার বার মুর্চা যাওয়ার সময় আরও বলছিলেন আমরা থানায় ৫ জনের নাম বললেও থানা পুলিশ এক জনের নামে মামলা দিয়েছেন। একজন মানুষ কোনভাবেই দুই জন লোককে এভাবে হত্যা করতে পারে না।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

এ ব্যাপারে অভিযুক্তদের সাথে বারবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও মোবাইল ফোন বন্দ থাকায় যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি তবে এক অভিযুক্তের ভাই জয়ন্ত তালুকদার পুল্টন জানান, নিহতের পরিবার ৫ জনের কথা বললে আমাদের কছু করার নেই তবে আমার ভাই সহ অন্যান্য ৪ জন কোনভাবেই এ ঘটনায় জড়িত ছিলনা।

 

 

 

এ ব্যাপারে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ ওসি কাজী মোক্তাদীর হোসেন জানান, এঘটনায় রন বিশ্বাস নামে একজনকে গ্রেফতার করে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। দীপু বিশ্বাসের স্ত্রী বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন, মামলাটি তদন্তাধীন রয়েছে।

 

পরিবারের অভিযোগের জবাবে তিনি জানান,তদন্ত চলাকালীন সময়ে ঘটনার সাথে জড়িত আরও কেউ থাকলে তাদেরকে ও আইনের আওতায় আনা হবে।

 

 

 

 

 

 

উল্লেখ্য যে, বৃহস্পতিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে জয়কলস গ্রামের মৃত লাল মোহন বিশ্বাসের ছেলে দিপু বিশ্বাস(৪০) ঘটনাস্থলেই নিহত হন ও মৃত কানাই বিশ্বাসের ছেলে যামিনী বিশ্বাস (৬০) গুরুতর আহত হন।

 

আহত অবস্থায় ৩ দিন সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে থাকার পর বিগত ২৮ ফেব্রুয়ারী রাত ৫ ঘটিকার সময় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। নিহত দীপু বিশ্বাসের ১ মেয়ে স্ত্রী ও যামিনী বিশ্বাসের ৩ ছেলে ৩ মেয়ে ও স্ত্রী রয়েছেন।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জে.এম