Logo

April 16, 2021, 10:56 pm

সংবাদ শিরোনাম :

সুনামগঞ্জে পৌর ইজারাকৃত ফেরিতে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ে নির্যাতিত যাত্রীরা

বিশেষ প্রতিনিধি::

সুনামগঞ্জ পৌরসভার ইজারাকৃত সুরমা নদীর ফেরিঘাটে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হচ্ছে। ফেরি পারাপারে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়কে কেন্দ্র করে যাত্রীদের সাথে অসদাচরণ করে চলেছে ইজারাদারের লোকজন। কিন্তু প্রতিটি ফেরিঘাটে সাইনবোর্ড স্থাপনের নীতিমালা থাকলেও কোনো ফেরিঘাটে সাইনবোর্ড স্থাপন করা হয়নি। যাত্রী সাধারণের হয়রানি কমিয়ে আনতে সাইনবোর্ড স্থাপনের দাবি একাধিক ফেরি যাত্রীর।

 

 

 

 

 

 

 

 

একাধিক ফেরি যাত্রী জানান, এসব ফেরিঘাটের ইজারা নিয়ে হাত বদলের ব্যবসা শুরু হয়েছে। প্রতিবছর ফেরিঘাট ইজারা নেন একজনে। সাব ইজারা নিয়ে ঘাটে ভাড়া আদায় করেন অন্যজনে। ইজারাদার অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করতে কৌশলে উগ্র প্রকৃতির লোজনকে এই দায়িত্বে নিযুক্ত করেন।

যাত্রীদের সময়ের গুরুত্ব না বুঝে সাব ইজারাদার তাদের খেয়াল খুশিমত ফেরি পারাপার করেন। পৌরসভার ইজারাকৃত ফেরি পারাপারে এমন সমস্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে। তাঁরা এই সমস্যা নিরসনে নীতিমালা অনুযায়ী সকল প্রকার ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

পৌরসভার ফেরিঘাট ইজারা কর্তৃপক্ষ অপু জানান, পৌরসভার অধীনে সুরমা নদীতে ৪টি ফেরিঘাট প্রতিবছর ইজারা দেয়া হয়। তাদেরকে বলা হয় সাইন বোর্ড স্থাপন করতে। কিন্তু তারা এই নির্দেশনা অমান্য করে চলেছে।

 

 

 

পৌরসভার অধীনে থাকা এসব ফেরিঘাট ১ বছরের জন্য প্রতি বাংলা সনের পহেলা বৈশাখ থেকে ইজারা দেয়া হয়। লঞ্চঘাটের ফেরিঘাট, জেইলরোডের ফেরিঘাট, চাঁদনীঘাটের ফেরিঘাট ও সাহেববাড়ি ফেরিঘাট। এসব ফেরি দিয়ে প্রতিদিন ইব্রাহীমপুর গ্রামের মানুষ, সদরগড়, কুরুতলা, আমিরপুর, অক্ষয়নগর, জগন্নাথপুর গ্রামের মানুষ নিয়মিত ফেরি পারাপার হয়ে শহরে আসা যাওয়া করেন। আবার সুরমা ও জাহাঙ্গীরনগর ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের মানুষও এসব ফেরি পার হয়ে শহরে আসা-যাওয়া করেন।

 

কলেজ ও স্কুলে পড়–য়া শিক্ষার্থী, চাকুরিজীবী, ব্যবসায়ীসহ নানা শ্রেণী পেশার স্থানীয় লোকজন ফেরি পারাপার হয়ে নিজ নিজ কর্মস্থলে যান প্রতিদিন। প্রতিদিন সকালে কোনো না কোনো ফেরিঘাটে তাড়াতাড়ি আসা যাওয়া নিয়ে কথা কাটাকাটির ঘটনা ঘটে থাকে। এসব সমস্যা নিরসনে সঠিক তদারকির মাধ্যমে প্রতি ফেরিঘাটে দুইটি করে নৌকা, বন্ধানী পদ্ধতি এবং সাইনবোর্ড স্থাপন জরুরি প্রয়োজন।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

হয়রানির শিকার ফেরি যাত্রী আব্দুর রহিম বলেন, একবার পার হলে দিতে হয় ৫ টাকা। একটি সাধারণ বস্তা হাতে নিয়ে গেলে তাতেও ৫ টাকা দিতে হয়। ভাড়া মাফ নেই শিক্ষার্থীদেরও। অফিস আদালত না হলে শহরে আসা বন্ধ করে দিতাম।

 

 

হয়রানির শিকার শিক্ষার্থী শহীদ মিয়া জানান, করোনা পরিস্থিতির কথা শুনিয়ে ভাল বাণিজ্য করে আসছে ফেরিঘাটের ইজারাদারগণ। আমি প্রতিদিন আসা যাওয়া ১০ টাকা করে দিয়ে আসছি। বাইরের মানুষের কাছ থেকে প্রতিজনে আসা যাওয়া ২০ টাকা করেও আদায় করা হচ্ছে। এটা আমাদের বদনাম না সুনাম পৌর কর্তৃপক্ষ তা ভালই জানেন।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

সামাদুল ইসলাম বলেন, প্রতিটি ফেরি দিয়ে আমি পারাপার হয়েছি। কিন্তু ভাড়া আদায়কারীদের এতো খারাপ আচরণ দেশের কোথাও নেই। কিছু বললেই হাত নেড়ে বলে দেয়, কী করবে করিস। তখন মনে হয় পৌর কর্তৃপক্ষও ইজারায় শেয়ার আছেন। আমরা এসব ফেরিতে নানাভাবে নির্যাতিত এবং অপমানিত হয়ে আসছি। বিশেষ করে লঞ্চঘাটের ফেরিতে এমন ঘটনা হয় বেশি।  কয়েকদিন আগে ঘাটে বসা কালা মিয়া নামের এক লোক সাংবাদিকদের সাথেও খারাপ আচরণ করেছে।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

একাধিক গণমাধ্যম কর্মী জানান, ইব্রাহীমপুর নদী ভাঙনের সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে গত কয়েকদিন আগে লঞ্চঘাটের ফেরিঘাটে অতিরিক্ত ভাড়া দিতে হয়েছে তাঁদের। অতিরিক্ত ভাড়া দিতে অপারগতা প্রকাশ করায় কথাকাটির ঘটনা ঘটেছে। এই বিষয়ে পৌরসভার মেয়রসহ পৌর কর্তৃপক্ষের কাছে একাধিক গণমাধ্যমকর্মী  বার বার বিষয়টি মৌখিকভাবে জানিয়েছেন।

 

 

 

 

সুনামগঞ্জ পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী মীর মোশারফ হোসেন বলেন, পৌরসভার ইজারাকৃত ফেরিঘাটের ইজারাদারদের প্রতিবছর বলে দেয়া হয় সাইনবোর্ড স্থাপন করার জন্য। কিন্তু তাঁরা করেনি। এবারও সাইনবোর্ড স্থাপন করার কথা বলে দেবো।

 

 

 

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জে.এম