Logo

April 17, 2021, 12:10 am

সংবাদ শিরোনাম :

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিবেদন বেসরকারি খাতে ঋণের চাহিদা বাড়ছে না

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

বেসরকারি খাতে এখনো ঋণের চাহিদা বাড়ছে না। শিল্প উৎপাদনে গতি পুরোপুরি ফিরে আসেনি। যে কারণে গত ডিসেম্বরে বেসরকারি ঋণ প্রবৃদ্ধি ২০১৯ সালের একই সময়ের তুলনায় ৯ দশমিক ৯৮ শতাংশ কমেছে। ঋণের চাহিদা কম হওয়ার নেতিবাচক প্রভাব গ্রামীণ অর্থনীতি ও উন্নয়ন খাতে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। তবে ঋণ প্রবৃদ্ধি বেড়েছে কৃষি খাতে।

 

 

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সর্বশেষ প্রতিবেদনে উঠে এসেছে এমন চিত্র। সেখানে বলা হয়েছে, রেমিট্যান্স, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ, বাজারে অর্থ সরবরাহ ও মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে আছে। তবে চ্যালেঞ্জ হচ্ছে রাজস্ব আহরণে। কারণ এই সময়ে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে কমেছে রাজস্ব আদায়ের হার। চলতি অর্থবছরের (২০২০-২১) জুলাই-ডিসেম্বর এই ছয় মাসের সার্বিক অর্থনীতি পরিস্থিতি নিয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংক একটি প্রতিবেদন তৈরি করেছে। সম্প্রতি সেটি পাঠানো হয় অর্থ মন্ত্রণালয়ে। প্রতিবেদনে অর্র্থনীতির সূচক বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, করোনার ধাক্কা কাটিয়ে অর্থনীতিতে গতি ফিরতে শুরু করেছে। এজন্য অর্থনীতির বিভিন্ন সূচকে ইতিবাচক ধারা বইছে।

 

 

 

 

 

জানতে চাইলে বিআইডিএসের সাবেক ডিজি ও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাবেক প্রধান অর্থনীতিবিদ এমকে মুজেরি গণমাধ্যমকে বলেন, অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াচ্ছে এমন ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিবেদন থেকে। করোনার সময় সার্বিক অর্থনীতিতে স্থবিরতা ছিল। তবে এখন বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবাহ সঠিকভাবে নিশ্চিত করতে পারলে কর্মকাণ্ডে আরও গতি বাড়বে। তিনি বলেন, কৃষি খাতে ঋণ প্রবাহ বাড়লেও অকৃষি খাত অর্থাৎ বেসরকারি খাতে বাড়ছে না। এজন্য এসএমই খাতে বিশেষ নজর দিতে হবে। কারণ বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবৃদ্ধি বাড়লে গ্রামীণ অর্থনীতি চাঙ্গা হওয়ার পাশাপাশি দ্রুত উন্নয়নের গতি বাড়বে। সাধারণ মানুষেরও আয় বাড়বে।

 

 

 

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, গত জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর- এই সময়ে ১৫ হাজার ৪৫৬ কোটি টাকার মেয়াদি ঋণ বিতরণ করা হয় শিল্প খাতে। এটি গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ২৯ দশমিক ৬৫ শতাংশ কম। পাশাপাশি এই সময়ে ঋণ আদায় হয়েছে ১১ হাজার ৩২২ কোটি টাকা। আদায় পরিস্থিতি গত অর্থবছরের এই সময়ের তুলনায় ৪৫ দশমিক ৫৩ শতাংশ কম। সার্বিকভাবে ডিসেম্বরে বেসরকারি খাতে ঋণ গ্রহণের প্রবণতা কম ছিল। সংশ্লিষ্টদের মতে, বেসরকারি খাতে ঋণে প্রবাহ কম হওয়ার অর্থ এই সময়ে বিনিয়োগ কমেছে। পাশাপাশি শিল্প-কারখানাও পুরোদমে চালু হয়নি।

 

 

 

 

শিল্প খাতের উৎপাদন পরিস্থিতি নিয়ে ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, মধ্যম ও বড় পর্যায়ের শিল্প প্রতিষ্ঠানে চলতি অর্থবছরের জুলাই-আগস্টে উৎপাদনের সূচক ৪৪০ দশমিক ২১ পয়েন্টে উঠেছে। ২০১৯ সালের এই সময়ে এই খাতে উৎপাদনের সূচক ছিল ৪১১ দশমিক ৬০ পয়েন্ট। উদ্যোক্তাদের মতে, সাধারণ ছুটি প্রত্যাহারের পর ধীরে ধীরে দেশের অর্থনীতি স্বাভাবিকতা ফিরে পাচ্ছে। এমনকি অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের অনেক প্রতিষ্ঠান কার্যক্রম শুরু করেছে। কিন্তু এসব প্রতিষ্ঠান এখনো পূর্ণাঙ্গ সক্ষমতায় কাজ করছে না। এ ছাড়া আরও অনেক খাত এখনো পূর্ণাঙ্গ সক্ষমতা ফিরে পায়নি।

 

 

 

মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে আছে বলে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিবেদনে বলা হয়, গত ডিসেম্বরে মূল্যস্ফীতির হার পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে ৫ দশমিক ৬৯ শতাংশ থেকে কমে ৫ দশমিক ২৯ শতাংশে নেমেছে। শুধু ডিসেম্বর টু ডিসেম্বর মাসভিত্তিক মূল্যস্ফীতির হারও কমেছে। তবে ফেব্রুয়ারি মাসে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্যবৃদ্ধির কারণে মূল্যস্ফীতির হার কিছুটা বাড়তে পারে এমন আশঙ্কাও রয়েছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, জুলাই থেকে নভেম্বর এই সময়ে আমদানি কমেছে ২১১ কোটি ৫০ লাখ মার্কিন ডলার। অর্থাৎ ২০২০ সালের একই সময়ের তুলনায় আমদানি কমেছে ৮ দশমিক ৮১ শতাংশ।

ওই প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, এই সময়ে বাজারে মুদ্রা সরবারহ বেড়েছে। সর্বশেষ হিসাবে গত বছরে ১৪ দশমিক ২৩ শতাংশ বেড়েছে মুদ্রা সরবরাহ।

 

 

 

এদিকে কোভিড-১৯-এর ধাক্কা কাটিয়ে অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়ানোর পেছনে সরকারের প্রণোদনা প্যাকেজ বাস্তবায়ন কাজ করছে বলে সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন। কারণ অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে সরকার মোট ২৩টি প্যাকেজে ১ লাখ ২৪ হাজার ৫৩ কোটি টাকা ব্যয় করছে। ঘুরে দাঁড়ানোর পথে থাকলেও অর্থনীতি বেশ কিছু চ্যালেঞ্জের মুখে আছে। এর মধ্যে হচ্ছে রাজস্ব প্রবৃদ্ধির ধীরগতি। চলতি অর্থবছরের ডিসেম্বর পর্যন্ত ছয় মাসে মোট ১ লাখ ১০ হাজার ৪৩৪ কোটি টাকার রাজস্ব আহরণ হয়েছে। এটি গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ৪ হাজার ৩৪৬ কোটি টাকা বেশি, অর্থাৎ গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় প্রায় ৪ দশমিক ১০ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছে। তবে এই সময়ে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১ লাখ ৪১ হাজার ২২০ কোটি টাকা। সে হিসাবে ৩০ হাজার ৭৮৬ কোটি টাকা রাজস্ব আদায় পিছিয়ে আছে। সংশ্লিষ্টদের মতে, গত অর্থবছরের ডিসেম্বর পর্যন্ত দেশে করোনাভাইরাস মহামারি শুরু হয়নি। তখন স্বাভাবিক ব্যবসায়িক কার্যক্রম অব্যাহত ছিল। অথচ চলতি অর্থবছর শুরু হয়েছে মহামারি নিয়ে। তারপরও প্রথম ছয় মাসের রাজস্ব আদায়ে গত অর্থবছরের তুলনায় ৪ দশমিক ১০ শতাংশ প্রবৃদ্ধিকে আমরা ইতিবাচকভাবে দেখা হচ্ছে। পাশাপাশি লক্ষ্যমাত্রা অর্জনটাকে চ্যালেঞ্জ হিসাবে দেখা হচ্ছে।

 

 

 

অর্থনীতিতে সুবাতাস হচ্ছে রেমিট্যান্স প্রবাহে। অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে প্রবাসীদের রেমিট্যান্স এসেছে প্রায় ৩৪৫ কোটি মার্কিন ডলার। এটি গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ৩৭ দশমিক ৫৯ শতাংশ বেশি। একই সময়ে বৈদেশিক সহায়তা এসেছে ২০৪ কোটি ডলার। এটি গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ২৪ দশমিক ৬৬ শতাংশ বেশি।

 

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/তালুকদার