Logo

April 10, 2021, 10:29 pm

সংবাদ শিরোনাম :
«» প্রেমিকের সঙ্গে স্ত্রীকে বিয়ে দিলেন স্বামী «» সরকারের কারণেই করোনা বেড়ে গেছে: ফখরুল «» দ. সুনামগঞ্জে হাজী সায়েস্তা খাঁন ও মাহদী চ্যারিটেবল ট্রাস্ট‘র উদ্যোগে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ «» সুনামগঞ্জ জেলা যুবলীগের উদ্যোগে মাস্ক ও হেন্ড সেনিটাইজার বিতরণ «» দ. সুনামগঞ্জে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছে আমানাহ এইড «» বিশিষ্ট সাংবাদিক হাসান শাহারিয়ার মৃত্যুতে সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের শোক প্রকাশ «» বাহুবলে এম পি মিলাদ গাজীর সুস্হতা কামনায় মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত «» যাদুকাটা নদীর পাড়ে জব্দকৃত বালু-পাথর নিলামে বিক্রি করার দাবী স্থানীয়দের «» জগন্নাথপুরে ১৫০টি পরিবারের মধ্যে ইফতার সামগ্রী বিতরণ «» একদিনে সর্বোচ্চ ৭৭ জনের মৃত্যুর রেকর্ড

এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের বিষয়ে যা বললেন দীপু মনি

স্বদেশ ডেস্ক::

২০২১ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য ৬০ ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য ৮০ কর্মদিবসের সিলেবাস প্রণয়ন করা হয়েছে। আর এ জন্য তাদের সপ্তাহে ছয়দিন ক্লাস করানোর চেষ্টা করা হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

শনিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় সচিবালয়ে আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে মন্ত্রী এ সিদ্ধান্তের কথা জানান।

শিক্ষামন্ত্রী জানান, আগামী ৩০ মার্চ দেশের সব স্কুল-কলেজ খুলে দেওয়া হবে। এ সময় আসন্ন রমজান মাসে ক্লাস বন্ধ রাখার কোনো পরিকল্পনা নেই।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমরা যখনই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলব তার পরে এসএসসিদের ক্ষেত্রে ৬০ কর্মদিবস এবং এইচএসসিদের ক্ষেত্রে ৮০ কর্ম দিবস ক্লাস করানো হবে। তারপর তাদের পরীক্ষার আগে দু-এক সপ্তাহ সময় দিয়ে তারপর তাদের পরীক্ষা নেওয়া হবে।

তিনি আরও বলেন, যদি আমরা মার্চের ৩০ তারিখ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলি তাহলে তারপর থেকে এসএসসিদের ক্ষেত্রে ৬০ ও এইচএসসিদের ক্ষেত্রে ৮০ কর্মদিবস সহ মাঝে ঈদের ছুটি এবং অন্যান্য কিছু ছুটি মিলিয়ে হয়তো পরীক্ষা জুলাই মাসে হতে পারে।

 

 

 

 

 

 

 

 

মন্ত্রী বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার আগে শিক্ষক কর্মচারীদের টিকা দেয়ার কাজ শেষ করা হবে। পুরো রোজায় ক্লাস বন্ধ রাখার পরিকল্পনা নেই। শুধু ঈদের সময় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে।

মন্ত্রী আরও বলেন, ক্লাস ফাইভে সপ্তাহে ৫ দিন, এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে সপ্তাহে ৬ দিন এবং বাকিদের ক্ষেত্রে সপ্তাহে ১ দিন করে ক্লাস হবে।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে স্বাস্থ্যবিধির বিষয়টি তদারকি করবেন স্বাস্থ্য কর্মীরা বলেও জানান তিনি। এ সময় তিনি বলেন, প্রাথমিকের দেড় লাখ শিক্ষক এর মধ্যে টিকা নিয়ে নিয়েছেন। দ্রুত বাকিদের রেজিস্ট্রেশান নিশ্চিতের চেষ্টা করা হচ্ছে।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

শিক্ষামন্ত্রীর সভাপতিত্বে বৈঠকে কৃষিমন্ত্রী মো. আব্দুর রাজ্জাক, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন অংশগ্রহণ করেন।

 

এছাড়া মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম, জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মোস্তাফা কামাল উদ্দীন, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন, স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. আব্দুল মান্নান, কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব (সমন্বয় ও সংস্কার) মো. কামাল হোসেন, পুলিশ মহাপরিদর্শক বেনজীর আহমেদ, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলমসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন।

এর আগে, গত ২২ ফেব্রুয়ারি অনলাইনে জরুরি সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বিশ্ববিদ্যালয় খোলার তারিখ ঘোষণা করেন।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

এদিন তিনি বলেন, দেশের সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে শ্রেণিকক্ষে পাঠদান ২৪ মে থেকে শুরু হবে এবং হল খুলবে ১৭ মে। এর আগে সব ধরনের পাঠদান ও পরীক্ষা বন্ধ থাকবে। ১৭ মে এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব আবাসিক শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও কর্মচারীদের করোনা টিকা দেওয়া হবে। এছাড়া বিসিএস পরীক্ষার আবেদন ও পরীক্ষার তারিখ বিশ্ববিদ্যালয় খোলার সঙ্গে সঙ্গতি রেখে নির্ধারণ করা হবে।

 

গত বছরের ১৭ মার্চ থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। কয়েক ধাপে বাড়ানোর পর ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করা হয়। গত ২২ জানুয়ারি করোনা পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে গাইডলাইন প্রকাশ করে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর। এ গাইডলাইন অনুসরণ করে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার প্রস্তুতি নিতে বলা হয়। স্কুল-কলেজগুলোতে ৩৯ পাতার গাইডলাইন পাঠিয়ে বলা হয়, ৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে স্কুলগুলো প্রস্তুত করে রাখতে, যাতে যে কোনো মুহূর্তে সেগুলো খুলে দেয়া যেতে পারে।

 

 

 

 

 

 

 

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে গোটা বিশ্বকে নানা চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হচ্ছে। প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের এই প্রতিকূল স্রোতের মুখোমুখি বাংলাদেশও। অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জের মতো বাংলাদেশের জন্য আরেকটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে শিক্ষা খাত। প্রায় ১২ মাস ধরে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। কিছু ক্ষেত্রে অনলাইনে কার্যক্রম চলমান।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জে.এম