Logo

February 28, 2021, 12:21 am

সংবাদ শিরোনাম :

নবীগঞ্জে কৃষকের বাড়ীঘর লুট থানায় স্ত্রীসহ ৬জনের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি::

সমিতি থেকে টাকা উত্তোলন করে গরু কেনা-বেচা করেন কৃষক মোঃ কনা মিয়া। তিনি দ্বিতীয় স্ত্রীর কাছে বিশ্বাস করে টাকা জমা রাখতেন। স্ত্রী সঠিক মতো টাকার হিসাব দিতে পারতোনা। অবশেষে টাকা জমা রাখা নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়। ওই বিরোধে পক্ষ নেয় মেয়ের জামাই।

 

 

 

 

স্ত্রী ছেলে-মেয়ে ও মেয়ের জামাই একজোট হয়ে স্বামী বাড়িতে না থাকার সুবাদে টাকা ও আসবাবপত্র লুট করে নিয়ে গেছে। এঘটনায় স্বামী মোঃ কনা মিয়া নবীগঞ্জ থানায় ৬ জনের নামে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। থানায় অভিযোগের সুত্রে প্রকাশ- হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার দীঘলবাক ইউনিয়নের দরবেশপুর গ্রামের মৃত শরিয়ত উল্লার পুত্র মোঃ কনা মিয়া একজন স্থানীয় সমিতির সভাপতি। সেই সুবাদে তিনি সমিতি থেকে টাকা উত্তোলন করে গরু কেনা-বেচার ব্যবসা করেন।

 

 

 

 

 

 

ব্যবসার টাকা দ্বিতীয় স্ত্রী ফিরোজার কাছে জমা রাখতেন। স্ত্রী জমাকৃত টাকার সঠিক হিসেব দিতে পারেননি। এ কারনে তিনি ৬/৭ মাস যাবত স্ত্রীর কাছে টাকা রাখেননি। টাকা জমা না রাখার কারনে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়। স্ত্রী তার ছেলে-মেয়েদের নিয়ে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়। প্রায়ই স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। গত ১৭ ফেব্রুয়ারি বুধবার সকালে স্বামী কনা মিয়া মৌলভীবাজার ব্যক্তিগত কাজে যান। এই সুবাদে স্ত্রী ফিরোজা  তার মেয়ের জামাই পার্শ্ববর্তী দেওতৈল গ্রামের মৃত নুর মিয়া পুত্র আক্কল মিয়া ওরফে আকলিছ এর সহযোগিতায় ঘরে থাকা গরু কেনার দেড় লক্ষ টাকা বিভিন্ন মালামাল পিকআপ গাড়ী দিয়ে  মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।

 

 

 

 

 

 

 

তিনি বাড়িতে এসে এসব সর্বনাশ দেখে স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ গন্যমান্য লোকদের বিষয়টি অবহিত করেন। নিরুপায় হয়ে তিনি গতকাল ১৮ ফেব্রুয়ারি রাতে স্ত্রী ফিরোজা, ছেলে সুমন, রাজু, কন্যা ডলি বেগম, শেলি বেগম ও মেয়ের জামাই আক্কল মিয়া ওরফে আকলিছকে আসামী করে ৬ জনের নামে নবীগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/তালুকদার