Logo

January 18, 2021, 1:18 am

সংবাদ শিরোনাম :
«» ফেব্রুয়ারিতে খুলছে স্কুল-কলেজ, স্বাস্থ্যবিধি মেনে আংশিক ক্লাস «» গোরারাই ওয়াহিদ সিদ্দেক উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের মধ্যে বই বিতরণ «» সুনামগঞ্জের কাইয়ারগাওঁ গ্রামে বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার ছবি ভাংচুর, বাড়িঘরে হামলা,লুটপাঠের ঘটনায় দোষীদের গ্রেপ্তারের দাবীতে মানববন্ধন «» ছাতক পৌরসভায় অপরাজিত কাউন্সিলর তাপস, হ্যাট্রিক বিজয়ী দু’জন «» উপজেলা পরিষদ এসোসিয়েশনের মতবিনিময় সভা «» কানাইঘাট পৌরসভার নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী শরীফুলের মনোনয়নপত্র দাখিল «» দক্ষিণ সুনামগঞ্জে শীতবস্ত্র হিসেবে লেপ পেলো ১’শ ২৫ টি পরিবার «» কানাইঘাট পৌরসভার নির্বাচনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী লুৎফুরের মনোনয়নপত্র দাখিল «» পরশুরাম পৌরসভা নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দীতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন মেয়রসহ সকল কাউন্সিলর «» কানাইঘাট পৌরসভার নির্বাচনে মেয়র পদে ৬জন ও কাউন্সিলর পদে ৫০ প্রার্থীর মনোনয়ন পত্র দাখিল

ফেনীর ফুলগাজীতে কৃষি জমির মাটি কাটার মহোৎসব

বিশেষ প্রতিবেদক :

ফেনীর ফুলগাজীতে দেদারসে চলছে কৃষি জমির মাটি কর্তন। অভিযােগ রয়েছে ফুলগাজীর সদরের বৈরাগপুর, দক্ষিণ দৌলতপুর, ঘনিয়ামােড়া, মুন্সিরহাট ইউনিয়নের তারালিয়া, নােয়াপুর, বদরপুর, কতুবপুর, জিএমহাট ইউনিয়নের নুরপুর, শরীফপুর, আমজাদহাটে আবাদী জমির উপরিভাগের মাটি কাটছে।

 

 

বশেষজ্ঞরা বলছেন উপরিভাগের মাটি বিক্রি করা কৃষির জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি। এতে কমে যাচ্ছে আবাদী জমির উৎপাদন। ফলে অধিক চাষাবাদেও ফলন কম হচ্ছে। এমন অভিযোগে গত ২০ ডিসেম্বর জিএমহাট ইউনিয়নের নুরপুর গ্রামে মাটি কাটার ৩টি এস্কেভেটর মেশিন ও ২শ ফুট পাইপসহ ৪টি ডেজার মেশিন জব্দ করেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো.সাইফুল ইসলাম। এসময় টের পেয়ে মাটি কাটার সঙ্গে যুক্ত থাকা লোকজন পালিয়ে যায়। একাধিক ভূমি মালিক জানান, ব্যবসায়ীরা তাদের মাটি বিক্রিতে উৎসাহিত করছে।

 

 

 

 

মাটি ক্রেতারা বলছে টপ সয়েল কাটলে জমির কোন ক্ষতি হবে না। এক বছরের মধ্যেই বর্ষা এলে জমির সেই মাটি পূরণ হয়ে ফসল ফলানাে যাবে বলেও জানান নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই ভূমি মালিক। ফুলগাজী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. মাসুদ রানা জানান, মাটির উপরিভাগের (টপ সয়েল) ১৪ সেন্টিমিটার (৬ ইঞ্চি) মাটিতে উর্বরতা শক্তি থাকে। কিন্তু ফসলি জমির এ মাটি কাটা হলে ফলনে ঘাটতি হওয়ার সম্ভবনা দেখা দিবে। কৃষি জমির উপরিভাগ কাটা বিষয়ে কৃষি সম্প্রসারণ ফেনীর উপ-পরিচালক তােফায়েল আহমেদ চৌধুরী বলেন, প্রাকৃতিক সম্পদের মধ্যে মাটি সবচেয়ে মূল্যবান। উপরিভাগের ৬ হতে ৭ ইঞ্চিতেই থাকেই সব ধরনের জৈব গুনাগুণ এবং উৎপাদনশীলতা। অথচ কেটে ফেলা হচ্ছে প্রায় এক ফুট মাটি। এর ফলে জমির উৎপাদনশীলতা হ্রাস পাচ্ছে আশংকাজনক হারে।

 

 

 

 

 

 

 

একবার টপ সয়েল কেটে নিলে তা পূর্বের অবস্থায় ফিরে আসতে এক যুগ সময় লাগে। ফুলগাজী উপজেলার অতিরিক্ত দায়িত্ব থাকা পরশুরাম উপজেলা নির্বাহি অফিসার ইয়াসমিন আক্তার জানান, এসব বিষয়ে ফুলগাজী থানা পুলিশের সাথে আমার কথা হয়েছে। সঠিক তথ্য পেলে আমরা সাথে সাথে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। এসব বিষয়ে উপজেলা ব্রিকফিল্ড মালিক সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব হারুন মজুমদার জানান, মাটি ছাড়া ইট উৎপাদন সম্ভব না।

 

 

 

কারো জমি থেকে জোর করে মাটি কাটা হচ্ছে না, জমির মালিক বিক্রি করছে বলেই ব্রিকফিল্ড কর্তৃপক্ষ মাটি ক্রয় করেছে। ইট উৎপাদন না হলে দেশের অবকাঠামো, স্কুল-কলেজ, রাস্তাঘাট, ব্রিজ, ড্রেন-কালভার্টসহ সরকারের সকল উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হবে। বেশ কয়েক বছর যাবৎ বিভিন্ন নিষেধাজ্ঞায় মালিকগণ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে, লোকসানের কারণে বেশ কয়েকটি ব্রিকফিল্ড ইতিমধ্যে বন্ধ হয়েছে। এত নিষেধাজ্ঞা না দিয়ে ব্রিকফিল্ডগুলোর লাইসেন্স বাতিল করে উন্নত দেশের মতো রাস্তাঘাট, অবকাঠামো নির্মাণে ইটের বিকল্প তৈরি করা হোক।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/তালুকদার